ভারতঃ ঝাড়খন্ডে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষেই কি ১২ মাওবাদীর মৃত্যু?

download (2)

ঝাড়খণ্ডে  মঙ্গলবার ভোররাতে মাওবাদী সন্দেহে পুলিশের গুলিতে নিহত হলেন ১২জন।এদের মধ্যে তিন জনের বয়স ১১ থেকে ১৪ বছরের মধ্যে।

ঝাড়খন্ডের পালামৌতে একটি গাড়ি করে যখন ওই ১২ জন যাচ্ছিলেন সেই সময় আগে থেকে খবর পেয়ে ওত্ পেতে বসেছিল পুলিশ-কোবরার জওয়ানরা। গাড়ি লক্ষ করে পুলিশ গুলি চালালে, গাড়ির ভিতর থেকে পাল্টা গুলি চালায় মাওবাদীরা। পালানোর চেষ্টা করায়  ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় ১২জনের। উদ্ধার হয় বেশ কিছু অস্ত্র। এমনটাই জানাচ্ছে ndtv। অন্যদিকে first post ও india today এর ওয়েব সাইটের রিপোর্ট অনুযায়ী দুটি গাড়ি করে মাওবাদীরা যাচ্ছিল। পুলিশের চেকিংয়ের সামনে পড়ে গিয়ে একটি গাড়ি গতি বাড়িয়ে দেয় অন্যটি থেকে মাওবাদীরা নেমে কোবরা জওয়ানদের লক্ষ্য করে গুলি চালাতে শুরু করে। পাল্টা গুলি চালায় নিরাপত্তাবাহিনীর জওয়ানরাও। আর এতেই নিহত হন ওই ১২জন। একই ঘটনা ভিন্ন রিপোর্টিং।  অন্যদিকে মানবাধিকার কর্মীরা প্রশ্ন তুলছেন পুলিশ- মাওবাদী সংঘর্ষই যদি হয় তাহলে কী করে শুধু মাওবাদীদেরই মৃত্যু হল ?

নিরাপত্তা বাহিনীর দাবি, তিন ঘণ্টা গুলির লড়াই চলে। নিহত হয় ১২ মাওবাদী। এদের মধ্যে তিন জনের বয়স ১১ থেকে ১৪ বছরের মধ্যে। পুলিশ জানিয়েছে, এই তিন কিশোর কী ভাবে মাওবাদীদের সঙ্গে যুক্ত হল, তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। যদিও সংঘর্ষের ধরন ও তিন নাবালকের মৃত্যু নিয়ে ইতিমধ্যেই প্রশ্ন তুলেছেন কেউ কেউ। তাঁদের বক্তব্য, নিহতদের প্রত্যেকের দেহেই গুলির মারাত্মক ক্ষত রয়েছে। কিন্তু পুলিশ ও কোবরার গোটা বাহিনীই অক্ষত। অথচ পুলিশই নাকি অতর্কিত হামলার মুখে পড়েছিল। স্করপিও থেকেই প্রথম গুলি চলেছিল বলে তারা দাবি করছে। সে ক্ষেত্রে অন্ধকারে ঘন জঙ্গলে তিন ঘণ্টা সংঘর্ষের পরেও পুলিশের গায়ে কেন আঁচড়টুকুও লাগল না— সেই প্রশ্ন তুলেছেন তাঁরা। স্বাভাবিক ভাবেই ইঙ্গিতটা ভুয়ো সংঘর্ষের দিকে।

সূত্রঃ

http://www.satdin.in/index.php/13-2014-04-07-17-10-23/2399-2015-06-09-04-25-42