“আমি জানিনা আমার স্বামী কারাগার থেকে জীবিত ফিরে আসবেন কিনা” – অধ্যাপক সাইবাবার স্ত্রী

professor-saibaba-wife-vasa

                                           দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের উত্তর ক্যাম্পাসের বাসভবনে বসন্ত

এক বছর হল তার স্বামীকে কারারুদ্ধ করা হয়েছে। এই এক বছরে এ এস বসন্ত সাইবাবার সাথে মোটে পাঁচবার দেখা করতে পেরেছেন। তাদের মধ্যে মূলতঃ চিঠির মাধ্যমে যোগাযোগ হয়। একটি চিঠিতে সাইবাবা লিখেছেন, “আমার নিজেকে প্রেসার কুকারে সিদ্ধ হওয়া মাংসপিণ্ড বলে মনে হচ্ছে।” গত বছরের মে মাসের ৯ তারিখে বসন্তর স্বামী দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জি এন সাইবাবাকে মাওবাদী সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়। তাকে নাগপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের High Security Cell এ আটক করে রাখা হয়েছে।

বসন্ত বলেন, “ওকে গ্রেফতারের সময়, পোলিও পরবর্তী প্যারালাইসিসের কারণে ও শারীরিকভাবে ৯০ ভাগ পঙ্গু ছিল। এখন ওর অবস্থার এতটাই অবনতি হয়েছে যে ওর ডান হাতটা শুধু সচল আছে। আমি জানিনা ও কারাগার থেকে জীবিত ফিরে আসবে কিনা।” উচ্চ রক্তচাপ ও হৃদরোগে আক্রান্ত সাইবাবার দুটো কিডনিতে ও গলব্লাডারে বর্তমানে পাথর দেখা দিয়েছে। সাইবাবার স্ত্রী বলেন, “ওর বাম হাত এখন প্রায় কাজ করছে না, মেরুদণ্ড স্থানচ্যুত হয়ে গেছে। এই সমস্ত রোগব্যাধীতে ওর শরীর অচল হয়ে পড়েছে। গরমের কারণে আর ওষুধের অভাবে ও বেশ কয়েকবার অজ্ঞান হয়ে পড়েছে। ওর নাক আর কান দিয়ে প্রায়ই রক্ত পড়ে।”

সূত্রঃ

http://indianexpress.com/article/india/india-others/i-am-not-sure-if-my-husband-will-come-out-of-prison-alive-saibabas-wife/

Advertisements

কলম্বিয়াঃ হাজার হাজার সাধারণ নাগরিকদের হত্যাকাণ্ডে জড়িত সেনাবাহিনীর জেনারেলদের দাবী, নিহতরা সকলে ছিল মার্কসবাদী ফার্কের গেরিলা সদস্য

0248

বুধবার হিউম্যান রাইটস ওয়াচডগ প্রকাশিত “পর্যবেক্ষণঃ কলম্বিয়ায় ‘False positive’ হত্যাকাণ্ড চালানোর ঘটনায় উর্ধ্বতন আর্মি অফিসারদের দায়ভারের প্রমাণ মিলেছে” শিরোনামে ৯৫ পৃষ্ঠার একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে এধরনের অন্তত ৩,০০০ ঘটনার তদন্ত চালাচ্ছে প্রসিকিউটররা।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচডগ এর প্রেস বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী এক্সিকিউটিভ আমেরিকার ডিরেক্টর জোসে মিগুয়েল ভিভানকো বলেন, “সাম্প্রতিক বছরগুলোতে পশ্চিমা গোলার্ধে গণহত্যার জঘন্যতম অধ্যায়ের অন্যতম হল “False positive” হত্যাকাণ্ড আর এ হত্যাকাণ্ডের জন্য অনেক উর্ধ্বতন আর্মি অফিসাররা দায়ী।”

এই কথিত “False positive” হত্যাকাণ্ডের মামলাগুলোর সাথে সংশ্লিষ্ট প্রসিকিউটরদের কাছে মিলিটারি সদস্যদের দেয়া সাক্ষ্য প্রমাণের রেকর্ড ও কাগজপত্র, অন্যান্য প্রসিকিউটরদের প্রদত্ত অফিসিয়াল তথ্য, ক্রিমিনাল কেস ফাইল এবং সাক্ষী, নিহতদের পরিবার ও তাদের আইনজীবীদের সাক্ষাৎকারের উপর ভিত্তি করে এই প্রতিবেদন তৈরী করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ওয়াচডগ।

ওয়াচডগ প্রদত্ত তথ্য অনুযায়ী, সৈনিকরা জানিয়েছে যে জেনারেল ও কর্ণেল সহ তাদের উর্ধ্বতন অফিসাররা তাদের উপর এই সব অপরাধ সংঘটিত করার হুকুম জারী করত এবং তাতে সহযোগিতা করত।

ভিভানকো আরো জানান, “এরপরেও হত্যাকাণ্ডের সময় অভিযুক্ত আর্মি অফিসাররা বিচারকে ফাঁকি দিয়ে মিলিটারি কমান্ডের শীর্ষ পদে অধিষ্ঠিত হয়েছে, এমনকি আর্মি ও সশস্ত্র বাহিনীর বর্তমান প্রধান পদগুলোতে তারা রয়েছে।”   

প্রসিকিউটররা অনুসন্ধান করে জানিয়েছেন যে ২০০২ সাল থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত সেনাবাহিনীর ১৮০টিরও বেশী ব্যাটেলিয়ন ও অন্যান্য ইউনিট এইসব বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে এবং নিহতদেরকে কলম্বিয়ার মার্কসবাদী বিপ্লবী সশস্ত্র বাহিনী-গণ বাহিনী (ফার্ক) (FARC) এর গেরিলা বলে দাবী করেছে।  

ভিভানকো বলেন, “প্রসিকিউটররা তাদের মামলা চালাতে বড় ধরনের বাধার সম্মুখীন হচ্ছেন; মামলার প্রধান সাক্ষীদের উপর প্রতিহিংসামূলক কর্মকাণ্ড চালানো হচ্ছে, এছাড়া মিলিটারি কর্তৃপক্ষের সহযোগিতার অভাব রয়েছে।”  তিনি আরো বলেন, “শত শত ‘false positive’ হত্যাকাণ্ডের মামলা মিলিটারিদের বিচার ব্যবস্থায় রয়েছে, যে ব্যবস্থা বাস্তবসম্মত উপায়ে অভিযুক্তদেরকে শাস্তি থেকে রেহাই দেয়ার গ্যারান্টি দেয়।”   

সূত্রঃ

http://www.systemiccapital.com/colombian-generals-killed-thousands-of-civilians-claimed-they-were-farc/


ভারতঃ তৃণমূল নেতাদের মাওবাদীদের হুমকি

B714D13A-674B-4B1A-ACB5-35C5FA0BCFF4_w640_r1_s

বিভিন্ন তথ্য সূত্র এবং স্থানীয় সূত্রে জানা যাচ্ছে যে রাজ্যের মাওবাদী অধ্যুষিত জেলা গুলিতে মাওবাদীরা, তৃণমূলের স্থানীয় ও জেলা নেতাদের  মৃত্যুদন্ডের চিঠি দিচ্ছে।

এই সব জেলায়, জেলা স্তরের নেতা ও কর্মীদের চিঠি পাঠিয়ে মৃত্যুদন্ডের নিদান দিচ্ছে মাওবাদীরা। ইতি মধ্যেই পশ্চিম মেদিনীপুর, পুরুলিয়া, বাকুড়ার বেশ কয়েকজন নেতাকে এজাতীয় হুমকির চিঠি দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। ঘটনার পরই তৃণমূলের নেতারা স্থানীয় থানায় জানালে পুলিশ প্রশাসনও নড়েচড়ে বসেছে। বিষয়টি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকেও জানানো হয়েছে বলে জানা গেছে। একই সংগে এর মোকাবিলায় মাওবাদীরা নাকি অস্ত্র জোগাড়েও নেমে পড়েছে। সে খবরও ইতিমধ্যে পুলিশ প্রশাসনের কাছে পৌছেছে। গোয়েন্দারা মনে করছেন রাজ্যে বিধান সভা ভোটের আগেই জঙ্গল মহলে বড় ধরনের গোলমাল করার ছক কষছে মাওবাদীরা। গোয়েন্দা সূত্রে আরো জানা যাচ্ছে চলতি দশকের প্রথম দিকে এইভাবেই জঙ্গল মহলে ঘাটি তৈরী করছিল মাওবাদীরা।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে পুরনো অস্ত্র মাওবাদীরা জোগাড় করার চেষ্টা চালাচ্ছে। এক সময় মাওবাদীদের সঙ্গে থাকলেও বর্তমানে যারা আত্মসমর্পণ করেছেন, তাদেরও অস্ত্র ফেরত দেওয়ার হুমকি দেওয়া হচ্ছে। এজাতীয় হুমকি দিয়ে বেশ কয়েক জনকে চিঠিও দেওয়া হয়েছে। গোয়েন্দারা মনে করছেন মাওবাদীদের কাছে থাকা বেশকিছু অস্ত্র এখনো পুলিশ সব উদ্ধার করতে পারেনি।

(এ সম্পর্কে কলকাতা থেকে VOA এর পরমাশিষ ঘোষ রায়ের রিপোর্ট)

সূত্রঃ http://www.voabangla.com/content/maosists-threaten-grassroot-leaders-in-india-23jun15/2834289.html


ব্রাজিলঃ ইগোর মেন্ডেজ ডি সিলভা মুক্ত!

পপুলার এন্ড রেভুলিউশনারী স্টুডেন্ট মুভমেন্ট (MEPR), ও পিপলস ইন্ডিপেন্ডেন্ট ফ্রন্ট(FIP-RJ) এর কর্মী কমরেড ইগোর মেন্ডেজ ডি সিলভা মুক্ত!

0

1

2

3

4

পূর্ব সূত্রঃ http://www.pcr-rcp.ca/en/archives/1484


ফিলিপিনঃ মাওবাদী রাজনৈতিক বন্দীদের প্রতিবাদী কণ্ঠ

NDFP উপদেষ্টা আদেলবার্তো সিলভা, তার স্ত্রী লেখিকা-কর্মী শারোন কাবুসাও, ড্রাইভার ইসিদ্র দে লিমা এবং আন্দ্রেয়া রোসাল -এর হাসব্যান্ড দিনোয় বোররে তাদের বেআইনী ভাবে গ্রেফতার আর আটক নিয়ে কথা বলেছেন-