অরণ্যের দিনরাত্রি – ছত্তিসগড়ে মাওবাদীদের সাথে ২৩ দিনের ধারাবাহিক গল্প (২য় পর্ব)

একটি বিপ্লবের অরণ্যের জীবনের গল্প

(লাল সংবাদ প্রতিবেদনটি বাংলায় ধারাবাহিক ভাবে প্রকাশ করছে)

দ্বিতীয় পর্ব :

(এ এক দুর্লভ সুযোগ। মাওবাদীদের ক্যাম্পে বাস করে, তাদের সাথে একত্রে খাবার ভাগ করে খেয়ে, ল্যাপটপে সিনেমা দেখে এবং মাওকে নিয়ে বিতর্ক চালিয়ে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের প্রতিবেদক আশুতোষ ভরদ্বাজ ছত্তিসগড়ে ২৩ দিন কাটিয়ে এলেন মাওবাদীদের সাথে। গত বছরের (২০১৪) ফেব্রুয়ারিতে ছত্তিসগড়ের অবুঝমাদ অরণ্যে প্রবেশের দুর্লভ অনুমতি পেয়ে যান আশুতোষ ভরদ্বাজ। অবুঝমাদ মাওবাদীদের একটি মুক্তাঞ্চল। এখানে মাওবাদীদের নেটওয়ার্ক মানবদেহের ধমনীর থেকেও বেশী বিস্তৃত। এটি বিপ্লবের অরণ্যে জীবনের গল্প।)

কয়েক বছর আগে এনকাউন্টারে নিহত মঙ্গলের স্মৃতির উদ্দেশ্যে বালি বেরা গ্রামের বাইরে নির্মিত স্মৃতিফলক। মঙ্গলের বোন সিমরি বলেন, "গ্রামের লোকেরা পুলিশের ভয়ে ওর নাম মুছে দিয়েছে।"

কয়েক বছর আগে এনকাউন্টারে নিহত মঙ্গলের স্মৃতির উদ্দেশ্যে বালি বেরা গ্রামের বাইরে নির্মিত স্মৃতিফলক। মঙ্গলের বোন সিমরি বলেন, “গ্রামের লোকেরা পুলিশের ভয়ে ওর নাম মুছে দিয়েছে।”

ওদের জিনিসপত্র বলতে একটা প্লেট, অল্প কিছু জামা কাপড় আর নিত্য প্রয়োজনীয় প্রসাধন সামগ্রী; একটা পিঠ ব্যাগেই সব এঁটে যায়। গুলি ভরা একটা রাইফেল সবসময় কাঁধে ঝুলে থাকে; নদীতে গোসলে যাবার সময়েও একজন নারী সাথে করে তার রাইফেলটা নিয়ে যায়।

গত তিন দিন ধরে ছয় সদস্য বিশিষ্ট এই স্কোয়াডটিতে একমাত্র নারী সদস্য হিসেবে আছেন ফুলো দেবী (২৪)। অস্ত্র প্রশিক্ষণ হোক কিংবা রান্নাবান্নার কাজ হোক, সব দায়িত্বই স্কোয়াডের সদস্যরা তার সাথে সমানভাবে ভাগ করে নেয়। পুরুষ সদস্যদের মাঝখানে নিরাপত্তাহীনতায় ভোগেন কিনা কিংবা অস্বস্তি বোধ হয় কিনা জানতে চাইলে হেসে ফেলে বললেন, “মোটেই না”।

ওদের খাবারের তালিকায় আছে ভাত, ডাল আর মাঝে মধ্যে সবজি যেগুলো গ্রামবাসীরা ওদেরকে যোগান দিয়ে থাকে; নারীরা প্রতি মাসে বাড়তি ২ কেজি চীনাবাদাম ও আধা কেজি গুড় পেয়ে থাকে আর চীনাবাদাম পাওয়া না গেলে দৈনিক একটা করে ডিম। মৌলিক সুযোগ সুবিধার ব্যাপক অভাব রয়েছে যেসব এলাকায় সেসব স্থানে নারী গেরিলাদের জন্য কিছু সুযোগ সুবিধার ভেতরে রয়েছে বিশেষ খাবারের অধিকার। দণ্ডকারণ্যর ৪০ শতাংশ ক্যাডার নারী আর তারা এই বিপ্লবের মেরুদণ্ড।

৮ই মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবসে আদিবাসী নারীদের কাছে তাদের অধিকার সম্পর্কে আলোচনা করে দিবসটি পালন করে। বস্তারের পঞ্চম শ্রেণী অব্দি পড়া ৩০ বছর বয়সী রণিতা এই জোনটিকে কমান্ড দেয় যে জোনে সিপিআই (মাওবাদী) এর কেন্দ্রীয় কমিটির কয়েকজন শীর্ষ নেতা বসবাস করেন। অবুঝমাদের কুতুল এরিয়া কমিটির প্রধান রণিতা ১৪ বছর বয়সে মাওবাদীদের সাথে যোগ দিয়েছিল। ঐ বয়সে ওর মা-বাবা ওকে বিয়ে দিতে চেয়েছিল। রণিতা বললেন, “আমি পার্টির কাছে গেলাম। তারা বলল তোমার বয়স অল্প। তুমি যোগ দিতে পারবে না কিন্তু আমি জোরাজুরি করলাম।”

রণিতা বলেন, “পার্টি নারীদের জন্য অনেক কিছু করেছে। এমন অনেক কিছু যা আপনাদের সরকার করতে পারেনি। দিল্লির গণধর্ষণের ঘটনা মনে আছে? ঐ ধরনের ঘটনা এখানে কখনো শুনতে পাবেন না।” তিনি প্রায় ২৫টার মতো জনতানা সরকার কিংবা গ্রাম্য কাউন্সিলের দেখাশোনা করেন যেগুলো দণ্ডকারণ্যে সিপিআই (মাওবাদী) ‘সরকারের’ ভিত্তি ইউনিট। রণিতা বলেন, তিন দশক আগে বস্তারের নারীরা সব ধরণের শোষণের শিকার হত। এখন নারীরা পুরুষদের পাশাপাশি সমান অধিকার পাচ্ছে কারণ পার্টি পিতৃতন্ত্রের ইতি টেনেছে।”

নারী ক্যাডাররা উর্ধ্বতন নেতাদের দ্বারা যৌন হয়রানির শিকার হয়, পুলিশের এ ধরনের প্রচারণার কথা শুনে হেসে ফেললেন রণিতা। বললেন, “এমন ঘটনা যদি ঘটত তাহলে আমি এবং আরো অনেক নারী এখানে থাকতে পারত না।”

নারী পুরুষের সম্পর্ক বিষয়ে কঠোর নীতিমালা রয়েছে। মাওবাদী কোড বইতে নারী কমরেডদের সাথে ঠাট্টা করার ব্যাপারেও পুরুষ ক্যাডারদের প্রতি নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

বিয়ে পূর্ববর্তী যৌন সম্পর্ক সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ ও এর শাস্তি আরো কঠোর- পার্টির সদস্যদের জন্য দল থেকে তিন মাসের নিষেধাজ্ঞা, এরিয়া কমিটির সদস্যদের জন্য ছয় মাসের নিষীধাজ্ঞা ও বিভাগীয় কমিটি কিংবা জোনাল কমিটি সদস্যদের জন্য এক বছরের নিষেধাজ্ঞা।

ক্যাডাররা বলেন, নারী সদস্যদের ও বিপ্লবের মর্যাদা নিশ্চিত করতে এই নিয়ম করা হয়েছে।

আশির দশকে দণ্ডকারণ্যতে যোগদানকারী অন্ধ্র প্রদেশের প্রথম দিককার গেরিলাদের একজন ছিলেন লংকা পাপি রেড্ডি, যিনি কেন্দ্রীয় কমিটির অত্যন্ত সম্মানিত একজন সদস্য ছিলেন; বিপথগামীতার অভিযোগে তাকেও পদাবনতি দিয়ে পাঞ্জাবে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছিল। পার্টির কাছে উপেক্ষিত হয়ে পরবর্তীতে তিনি আত্মসমর্পণ করেন।

(চলবে)

Advertisements


Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.