সাময়িক সমঝোতায় কলম্বিয়ার সরকার ও মার্কসবাদী ফার্ক গেরিলারা

download

সহিংসতা হ্রাসে কলম্বিয়ার সরকার ও বামপন্থী মার্কসবাদী ফার্ক গেরিলারা একটি সমঝোতায় পৌছতে সক্ষম হয়েছে। রোববার হাভানায় এই সমঝোতা হয় বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কূটনীতিকরা। এর ফলে প্রথমবারের মতো কলম্বিয়ার সরকার মার্কসবাদীদের বিরুদ্ধে অভিযান সীমিত করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। একই সাথে ফার্ক গেরিলারাও সরকারী নিরাপত্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে সহিংস কার্যক্রম বন্ধ করবে বলে জানিয়েছে। খবর এএফপি।

গত বুধবার ফার্ক ঘোষণা দেয় যে, আগামী ২০ জুলাই থেকে এক মাসের একতরফা যুদ্ধবিরতি পালন করবে তারা। এর প্রেক্ষিতে গত রোববার, কলম্বিয়ার সরকার গেরিলাদের বিরুদ্ধে চলমান অভিযান কার্যক্রম সীমিত করার কথা জানায়। শান্তি আলোচনা শুরুর পর এই প্রথম সরকার এ ধরণের উদ্যোগ নিল।

দুই পক্ষের মধ্যে মধ্যস্থতাকারী হিসেবে কাজ করছেন কিউবা ও নরওয়ের কূটনীতিকরা। এক যৌথ বিবৃতিতে তারা বলেন, ‘ফার্ক চলতি মাসের ২০ তারিখ থেকে যুদ্ধবিরতি পালনে সম্মত হয়েছে। অন্যদিকে কলম্বিয়ার সরকার বলেছে তারা ফার্কের বিরুদ্ধে অভিযান সীমিত করবে। এটি শান্তি আলোচনাকে এগিয়ে নিতে সাহায্য করবে বলে আমাদের বিশ্বাস। উভয়পক্ষই শান্তি আলোচনা পুণরায় শুরুর পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছে।’

এ প্রসঙ্গে ফার্কের প্রতিনিধি ইভান মারকুয়েজ বলেন, ‘এটি অবশ্যই একটি শক্তিশালী ও আশাব্যঞ্জক সিদ্ধান্ত। এর ফলে সংলাপ প্রক্রিয়া পুনরুজ্জীবিত হবে।’ অন্যদিকে কলম্বিয়ার সরকারের প্রতিনিধি হামবার্তো ডে লা ক্যালে বলেছেন, এর মাধ্যমে দুই পক্ষের মধ্যে চলমান সংঘাত নিরসনের সম্ভাবনা উজ্জ্বল হলো।

উল্লেখ্য, কলম্বিয়ার সরকার ও ফার্ক বিদ্রোহীদের মধ্যে ২০১২ সাল থেকে শান্তি আলোচনা চলছে। তবে সাম্প্রতিক সময়ে পাল্টাপাল্টি সংঘর্ষের কারণে এটি বন্ধ হয়ে যায়। নতুন সমঝোতা শান্তি আলোচনাকে আরও বেগবান করবে বলে বিবেচনা করা হচ্ছে।

colombia-farc-la_calle.jpg_1718483346

সূত্রঃ http://www.telesurtv.net/english/news/FARC-and-Colombian-Government-Agree-to-Bilateral-Cease-fire-20150712-0010.html


ভারতঃ মাওবাদী ঠেকাতে বান্দোয়ানে পুলিশের বৈঠক

maoists-attack-kills-seven-policemen

মাওবাদীদের আনাগোনা রয়েছে কি? বিভিন্ন সময়ে নানা খবর আসছে গোয়েন্দা দফতরের কাছে। এই পরিস্থিতিতে এ বার ঝাড়খণ্ড সীমানা লাগোয়া বান্দোয়ানে এসে রাজ্য পুলিশের শীর্ষকর্তারা বৈঠক করে গেলেন। জেলা পুলিশের একটি সূত্রে জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার পুলিশের শীর্ষ কর্তারা বান্দোয়ান থানায় আসেন। আইজি (পশ্চিমাঞ্চল) সিদ্ধিনাথ গুপ্তা, ডিআইজি (মেদিনীপুর রেঞ্জ) বিশাল গর্গ-সহ জেলার পদস্থ পুলিশ কর্তারা ওই বৈঠকে ছিলেন। এই এলাকার একসময়কার মাওবাদী প্রভাবিত বরাবাজার থানার আইসি, বান্দোয়ান ও বোরো থানার ওসিরাও ছিলেন। জানা গিয়েছে, বৈঠকে পুলিশকে ফের জঙ্গলের গ্রামগুলিতে ‘সোর্স’ বাড়ানো এবং সন্দেহজনক এলাকায় ‘লং রেঞ্জ পেট্রলিং’-এর উপর জোর দিতে বলা হয়েছে।

সূত্রঃ http://www.anandabazar.com/district/purolia-birvhum-bankura/%E0%A6%AC-%E0%A6%A8-%E0%A6%A6-%E0%A7%9F-%E0%A6%A8-%E0%A6%AA-%E0%A6%B2-%E0%A6%B6-%E0%A6%B0-%E0%A6%AC-%E0%A6%A0%E0%A6%95-1.176587#


গ্রীসে জঙ্গি বিক্ষোভে জনগণ

842096-greece-protest

ইউরোপীয় ইউনিয়নের শর্ত মেনে ঋণ নেওয়ার পক্ষে যখন গ্রিসের সংসদে ভোটাভুটি হচ্ছিল সেই সময় বাইরে ঋণের শর্ত বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ দেখালেন বেশ কয়েক হাজার নাগরিক ও ট্রেডইউনিয়ন কর্মীরা। সরকারের ব্যয় সংকোচন নীতি মানে যে জনসাধরণের পেটে লাথি তা বিলক্ষণ জানেন গ্রিকরা। আর তাই জঙ্গি বিক্ষোভে সামিল হলেন তাঁরা। পুলিসের কাঁদানে গ্যাসের পাল্টা  মলোটভ ককটেল ছুড়লেন বিক্ষোভকারীরা। ঋণের শর্তে গ্রিক সংসদ সিলমোহর দিলেও সরকার পক্ষের ৩৮জন সাংসদ এই প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেননি। সব মিলিয়ে অশান্ত গ্রিসে এখনই ফিরছে না শান্তি। বরং আগামীদিনে  গ্রিসে গণ্ডগোল  বাড়বে বলে ধারণা পর্যবেক্ষকদের একাংশের।

সূত্রঃ http://satdin.in/?p=3314