ছবির সংবাদ

11824065_1473514852944525_1525724791_n


কলকাতাঃ আজ ৫ই আগস্ট শহীদ কমরেড সরোজ দত্ত স্মরণে অনুষ্ঠান

h


কমরেড সরোজ দত্তের গ্রেফতার, হত্যা ও তার সত্য উদ্‌ঘাটন –

h

f

 

g

 

সূত্রঃ  https://aajkerdeshabrati.wordpress.com/2014/04/02/vol-21-no-7-13mar-2014/


স্ত্রীর চোখে কমরেড সরোজ দত্ত

 

h

n


কমরেড সরোজ দত্ত স্মরণে- নবারুণ ভট্টাচার্য

saroj-babu1_(1)

 

e0a6a8e0a6ace0a6bee0a6b0e0a781e0a6a3-e0a6ade0a69fe0a78de0a69fe0a6bee0a69ae0a6bee0a6b0e0a78de0a6af-e1417344316509

nob


কমরেড সরোজ দত্ত স্মরণে- চারু মজুমদার

saroj-babu1_(1)

deshabrati_03132014-page-0021


ভারতঃ দেশব্যাপী কৃষকের আত্মহত্যার মিছিলে যোগ হলেন পশ্চিমবঙ্গের ‘জটিল মার্ডি’

farmar-suicide

মালদহ: রাজ্যে ফের কৃষকের আত্মহত্যা৷ দেশব্যাপী কৃষকের আত্মহত্যার মিছিলে যোগ হলেন পশ্চিমবঙ্গের ‘জটিল মার্ডি’ । এবার কৃষকের আত্মহত্যা মালদহ জেলার গাঁজলের পান্ডুয়ার ফুলবারিয়া গ্রামে৷ মৃত ওই কৃষকের নাম জটিল মার্ডি (৬০)৷ স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, সোমবার রাতে বাড়ির পাশে একটি আম বাগানে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন ওই কৃষক। পরিবার সূএে জানা গিয়েছে, জটিল মার্ডি আলু ও ধান চাষ করার জন্য ব্যাঙ্ক ও মহাজনের কাছ থেকে লক্ষাধিক টাকা ঋণ নিয়েছিলেন। এমন কি এই ঋন শোধ করার জন্য নিজের চাষের জমিও বন্ধক রেখে দেন বলে পরিবার সূত্রের দাবি৷ কিন্তু চাষে লাভ না হওয়ায় ঋণ শোধ করতে ব্যর্থ হন ওই কৃষক৷ তার ফলেই এই কৃষক আত্মহত্যা করেছেন বলে পরিবার সূত্রের দাবি৷ মঙ্গলবার সকালেই গাজল থানার পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাঠিয়েছে৷ ঘটনার জেরে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে৷

সূত্রঃ http://www.bengali.kolkata24x7.com/farmar-suicide.html


ভারতঃ কেরালায় নিজের শরীরে আগুন ধরিয়ে মৃত্যুবরণ করলেন এক মাওবাদী তরুণের মা

a respresentation of hammer and sickle symbol

মাওবাদীদের সাথে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে গ্রেফতারকৃত এক তরুণের মা নিজের শরীরে আগুন ধরিয়ে দেন ও পরবর্তীতে মৃত্যুবরণ করেন। মৃত নারীর নাম চেলাম্মা (৭০); তিনি কোল্লাম জেলার স্বস্থ্যমকোট্টায় বাস করতেন। মাওবাদী নেতা রূপেশকে মোবাইলের সংযোগ পেতে সহায়তা দানের অভিযোগে তার পুত্র এন কে আনন্দনকে সম্প্রতি পুলিশ গ্রেফতার করে।

পুলিশের ভাষায়, চেলাম্মা মানসিকভাবে অসুস্থ ছিলেন, তিনি বিভিন্ন দোকানের বারান্দায় রাতে ঘুমাতেন। শনিবার সকালে তিনি কেরোসিন যোগাড় করে নিজের শরীরে আগুন ধরিয়ে দেন। তার বড় ছেলে কয়েক বছর আগে গুজরাটে এক দুর্ঘটনায় নিহত হয়।

মূলতঃ বড় ছেলেকে হারানো এবং ছোট ছেলের প্রতি পুলিশের গ্রেফতার ও নির্যাতন তাকে মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত করে তোলে।

সূত্রঃ

http://indianexpress.com/article/india/india-others/woman-sets-herself-ablaze-in-kerala/#sthash.KtVwl7MA.dpuf


তুরস্কঃ ডানপন্থী সংবাদপত্র ও AKP জেলা অফিসে মাওবাদীদের সশস্ত্র অ্যাকশন

gazi1.jpgfxg6br

MLKP এর সশস্ত্র শাখা এক ঘোষণায় জানিয়েছে গত ১৯ ও ২০ জুলাই তারা কয়েকটি হামলা চালিয়েছে।

১৯শে জুলাই সংবাদপত্র স্টার এর অফিসের বাহিরে MLKP একটি বোমা পেতে রাখে বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছে। এতে লেখা হয়েছে, “সংবাদপত্র স্টার যেখানে সম্পাদনা করা হয় সেই ভবনের বাহিরে আমরা একটি বোমা রেখে এসেছি। একজন বিপ্লবী নারীর প্রতি অভিশাপসূচক মন্তব্য করে তারা সকল নারীকেই অপমান করেছে। এমএলকেপি-ওকেসি (MLKP-OKC) চিহ্নিত একটা পতাকাও আমরা রেখে এসেছি যাতে লেখা ছিল, “তোমরা নারীদের থামাতে পারবে না। আমরা বেড়েই চলব”। এর কয়েকদিন পর স্টার মিডিয়ার মুখপাত্ররা যে বক্তৃতা সর্বস্ব বিবৃতিটা দিয়েছে তাদের জানা দরকার যে ভবিষ্যতে এধরনের বিপ্লবী এ্যাকশন আরো সংঘটিত হবে এবং আগে থেকে সতর্ক হবার কোন সুযোগ তারা আর পাবে না।”

MLKP-FESK তাদের ঘোষণায় জানায় ২১শে জুলাই সানকাকতেপে জেলায় AKP এর দপ্তরের সামনে রেখে আসা বোমাটি বিস্ফোরিত হবার আগেই সেটি খুঁজে পাওয়া যায়।

“ঘটনাস্থলে আমরা আমাদের পতাকা রেখে এসেছিলাম। শ্রমিক ও মজুরদের থেকে ফ্যাসিবাদী পুলিশ পতাকাটা লুকিয়ে ফেললেও তারা জানে এ ঘটনা কারা ঘটিয়েছে। সানকাকতেপেতে যেখানে আমাদের কমরেড ইয়াসেমিন শহীদ হয়েছিল আমরা সেখানে এ্যাকশন চালিয়েছি; তার পতাকা ভবিষ্যতেও আবারো উত্তোলিত হবে।”

MLKP-FESK বলেছে ”তারা দায়বদ্ধ থাকবে”‘ এবং জোর দিয়ে জানিয়েছে, “প্রলেতারিয়েত ও নিপীড়িত জনগণ নিশ্চিতভাবেই ন্যায়বিচার পাবে”।

সূত্রঃ Via New Turkey