কলকাতাঃ ৮ই সেপ্টেম্বর বন্ধ হয়ে যাওয়া কারখানার শ্রমিকদের সম্মেলন

vvv

Advertisements

সুইজারল্যান্ডের জুরিখের তুর্কি দূতাবাসে হামলা

turkey

“২৬শে অগাস্ট রাতে জুরিখের ৬৫ নম্বর ওয়েনবার্গস্ট্রাসেতে তুর্কি দূতাবাসের চত্বরে একটি গাড়িতে আমরা বিস্ফোরণ ঘটাই।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ন্যাটো বাহিনী ও ইরানের বারজানি গোষ্ঠীর মদদে সাম্প্রতিক সময়ে তুরস্কের প্রগতিশীল বাহিনীর উপর বড় ধরনের হামলা চালাচ্ছে  তুরস্ক রাষ্ট্র। এর প্রতিবাদে এই হামলা চালানো হয়েছে ।

রোজাভার স্বাধীনত্যা সংগ্রাম ও তুরস্কের বিপ্লবী আন্দোলন সংগ্রামের প্রতি আমরা সংহতি জানাচ্ছি।”

রোজাভার সকল মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি সংহতি!

সকল বিপ্লবী যোদ্ধার প্রতি সংহতি!

বিস্তারিত সূত্রঃ  http://aufbau.org/index.php/53-schlagzeilen2/2064-angriff-gegen-tuerkisches-konsulat-in-zh

Attack on Turkish Consulate in Zurich


যুক্তরাষ্ট্রের কালো তালিকায় চার মার্কসবাদী ‘ফার্ক’ সদস্য

_85234022_028355187-1

কলম্বিয়ার মার্কসবাদী গেরিলা দল ফার্ক এর চার সদস্যকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

যুক্তরাষ্ট্রের ট্রেজারি ডিপার্টমেন্ট থেকে বলা হয়েছে, এই চারজন সুইজারল্যান্ডের জুরিখে একটি বিপণী ব্যবহার করে তাদের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য একটি ছোট দল গঠন করেছে। মার্কসবাদী ফার্ক বিদ্রোহীরা তাদের ‘কর্মকাণ্ড’ চালানোর লক্ষ্যে সেখানে বসে বিভিন্ন দেশ থেকে অর্থ সংগ্রহ করছে।

১৯৯৯ সালের কিংপিন ধারা অনুযায়ী, এই চার মার্কসবাদী ফার্ক সদস্যের যুক্তরাষ্ট্রে থাকা সব ধরনের সম্পদ বাজেয়াপ্ত হতে পারে। একই সঙ্গে তাদের সঙ্গে যুক্তাষ্ট্রের যে কোনো প্রতিষ্ঠান বা নাগরিকের ব্যবসায়ী সম্পর্ক নিষেধ করা হয়েছে।

কালো তালিকাভুক্ত এই চার মার্কসবাদী ফার্ক সদস্য হলেন, জোসে ভিসেন্টে পেনা পাচেকো, অ্যাডলফো ফনেগ্রা এসপেজো, আইভান গনজালেস জামোরানো ও ক্রিশ্চিয়ান ডেভিড গনজালেস মেজিলা।
তারা বর্তমানে সুইজারল্যান্ডে বসবাস করছেন। তবে যুক্তরাষ্ট্রের এ সিদ্ধান্ত সম্পর্কে তাদের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

যুক্তরাষ্ট্রের ড্রাগ এনফোর্সমেন্ট এজেন্সির প্রধান অ্যানথনি মারোত্তা বলেন, ফার্ক আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর তালিকাভুক্ত। তাদের যে কোনো ধরনের কর্মকাণ্ডের ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্র সজাগ রয়েছে।

উল্লেখ্য, মার্কসপন্থী ফার্ক গেরিলারা ল্যাটিন আমেরিকার মধ্যে সবচেয়ে বড় গেরিলা গ্রুপ; এবং ১৯৬৪ সাল থেকে তারা সশস্ত্র সংগ্রাম চালিয়ে আসছে।দলটি ক্ষমতাসীন বুর্জোয়া, মার্কিন মদদপুষ্ট কলম্বিয়া সরকার, বহুজাতিক কোম্পানি ও নয়া উপনিবেশিকতার বিরুদ্ধে গরীব মানুষদের অধিকার আদায়ের জন্যে সংগ্রাম করে যাচ্ছে।

২০০৮ সালে হুগো শ্যাভেজ ফার্ককে একটি সঠিক পথের জনগণের আর্মি বলে মন্তব্য করেন। কলম্বিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, চিলি, নিউজিল্যান্ড ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ফার্ককে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে ঘোষণা দিলেও ব্রাজিল, ভেনিজুয়েলা, আর্জেন্টিনা, নিকারাগুয়া ও ইকুয়েডর সরকার ফার্ককে গেরিলা সংগঠনের স্বীকৃতি দেয়।

সাম্প্রতিক সময়ে কিউবাতে কলম্বিয়া সরকারের সাথে তাদের যুদ্ধ বিরতি ও শান্তি আলোচনা চলছে।

সূত্রঃ http://www.bbc.com/news/world-latin-america-34082252


দেশ পরিচালনায় জনগণের অংশগ্রহণ নেই- মনে করছে ব্রিটেনের জনগণ

hqdefault

ব্রিটেনের দুই তৃতীয়াংশ মানুষ মনে করেন, দেশটি পরিচালনায় তাদের মতামত প্রতিফলিত হয় না। ব্রিটিশ সরকারের আইন প্রণয়ন, কর আরোপ এবং ব্যয়ের ক্ষেত্রে দেশটির জনগণের মতামতের কোনো তোয়াক্কা করা হয় না।

সানডে ইন্ডিপেনডেন্স নামের ব্রিটিশ সংবাদপত্রের চালানো মতামত জরিপে এ সব তথ্য উঠে এসেছে। পিপলস পাওয়ার নামের এ জরিপে অংশ গ্রহণকারীদের দুই-তৃতীয়াংশই বলেছে, ব্রিটিশ সরকার ব্যবস্থা খুবই কেন্দ্রমুখী।

এ ছাড়া, ব্রিটেনের নির্বাচন ব্যবস্থাও ন্যায়সঙ্গত নয় বলে মনে করে দেশটির জনগণ। ব্রিটিশ সংসদের উচ্চ কক্ষ হাউজ অব লর্ডসকে অগণতান্ত্রিক বলে মনে করে তারা। এ ছাড়া, ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য হওয়ার কোনো সুফল এখনো ব্রিটেনের মানুষ পায় নি বলেই মনে করে ব্রিটিশ জনগণ।

গত ২১ থেকে ২৫ আগস্ট পর্যন্ত এই অনলাইন জরিপ চালানো হয় এবং এতে ব্রিটেনের প্রাপ্তবয়স্ক ২,১৪৭ জন নাগরিক অংশ নিয়েছে।


গেরিলা যুদ্ধের আমন্ত্রণ জানাচ্ছে তুরস্কের মাওবাদী ‘TKP/ML TİKKO’