মেক্সিকোতে স্বাধীন তদন্তকে সরকারের প্রত্যাখ্যান

epa04451484 Students, teachers and relatives of 43 Mexican youths missing since last 26 September after being detained by police in the city of Iguala march to demand their return, in city of Acapulco, Mexico, 17 October 2014.  EPA/JOSE MENDEZ

প্রায় এক বছর আগে ৪৩ জন শিক্ষার্থী নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় একটি স্বাধীন তদন্তকে মেক্সিকোর সরকার প্রত্যাখ্যান করেছে। সরকারি তদন্তে বলা হয়েছিল, শিক্ষার্থীরা নিখোঁজ হবার কয়েক ঘন্টা পরেই একটি ভাগাড়ে মরদেহগুলো পুড়িয়ে ফেলা হয়। কিন্তু ইন্টার-আমেরিকান কমিশন অন হিউম্যান রাইটস‌ (আইএসিএইচআর) বলছে, তারা মরদেহ পুড়িয়ে ফেলার সরকারি দাবির পক্ষে কোন প্রমাণ পায়নি। খবর বিবিসি।

আইএসিএইচআর তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের পর সেদেশের সরকার এই তদন্তকে প্রত্যাখ্যান করে নতুন করে সরকারি তদন্তের আদেশ দিয়েছে। মেক্সিকোর অ্যাটর্নি জেনারেল আরেলি গোমেজ জানান, যেখানে মরদেহগুলো পোড়ানো হয়েছিল বলে উল্লেখ করা হয়, সেখানে একটি নতুন ফরেনসিক দল পাঠানো হবে।

নিখোঁজদের পরিবারবর্গ শুরু থেকেই সরকারি তদন্ত প্রতিবেদনকে গ্রহণ করেননি। তারা একে সঠিক বলে মনে করেন না। আইএসিএইচআরের প্রতিবেদনেও যার যথার্থতা প্রমাণিত হয়। এতে শিক্ষার্থীদের নিখোঁজ হওয়ার সম্ভাব্য কারণ উল্লেখ করা থাকলেও, নিখোঁজদের কি পরিণতি হয়েছে সে সম্পর্কে এখনও নিশ্চিতভাবে কিছু বলা যাচ্ছে না।

ওয়াশিংটনভিত্তিক আইএসিএইচআর এর পাঁচশো পৃষ্ঠার তদন্ত প্রতিবেদনে সরকারের নিকট নিখোঁজদের খুঁজে বের করার জন্য অনুরোধ করা হয়। তদন্ত দলের অর্ন্তভুক্ত এক বিশেষজ্ঞ বলেন, পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য গুয়েরেরোর স্থলভূমিবেষ্টিত শহর কোকুলায় এতোগুলো মরদেহ পুড়িয়ে ফেলাটা অসম্ভব। অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ড ইউনিভার্সিটির হোসে টোরেরো বলেন, মরদেহগুলোকে পোড়াতে তের টন টায়ার, বিশ টন কাঠ এবং তের টন ডিজেলের দরকার পড়বে। আর পুরো প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে প্রায় ষাট ঘন্টা সময় লাগার কথা।

সরকারি তদন্তে বলা হয়, গত বছরের ২৬ সেপ্টেম্বর চাকরিতে বৈষম্যের প্রতিবাদে আন্দোলনরত কয়েকজন শিক্ষানবীস শিক্ষকদের বিরুদ্ধে স্থানীয় মেয়রের স্ত্রীর আয়োজন করা র‍্যালি পণ্ড করার অভিযোগ এনে কিছু দুর্নীতিবাজ পুলিশ তাদের আটক করে। পরে স্থানীয় অপরাধী চক্র গুয়েরেরোস ইউনিডোসের হাতে তাদের তুলে দেয়া হয়। এ ঘটনায় মেয়র, তার স্ত্রী, কয়েকজন পুলিশ সদস্য এবং কয়েকজন স্থানীয় ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়।

নিখোঁজদের স্বজনরা সরকারি তদন্তকে প্রত্যাখ্যান করে আসছে আগে থেকেই। তাদের দাবি, শিক্ষার্থীদের নিখোঁজ হওয়ার পেছনে সামরিক বাহিনীর পদস্থ কর্মকর্তাদের হাত রয়েছে বলে সরকার এই বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে। এই ঘটনাটি পুরো মেক্সিকোতে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে। আন্দোলনকারীরা গত কয়েক সপ্তাহ ধরে কর্মকর্তাদের দায়মুক্তি এবং প্রেসিডেন্ট এনরিকে পেনা নিটোর সরকারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ প্রদর্শন করছে। আইএসিএইচআর এর প্রতিবেদনের ফলে প্রেসিডেন্ট এনরিকের উপর চাপ আরও বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সূত্রঃ http://www.bonikbarta.com/news/details/48787.html



Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.