ভারতঃ বক্সাইট খননের প্রতিবাদে অন্ধ্রে ৩ TDP নেতাকে অপহরণ মাওবাদীদের

Maobadi-655x360

অন্ধ্রপ্রদেশ-ওডিশা সীমান্ত থেকে তিনজন স্থানীয় TDP/তেলেগু দেশম পার্টির নেতাকে অপহরণ করল মাওবাদীরা৷ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বিশাখাপত্তনম জেলা থেকে অপহরণ করা হয় তাঁদের৷ অপহৃত তিন নেতা হলেন মুক্কালা মহেশ, ভান্দালাম বালাইয়া এবং বালাইয়া পাদল৷ বক্সাইট খননের প্রতিবাদে এই অপহরণ বলে জানা গেছে।

রাজ্যের সীমান্তবর্তী এলাকায় অবিলম্বে বক্সাইট উত্তোলন নিষিদ্ধ করার দাবি জানিয়ে একটি সভায় আয়োজন করেছিল মাওবাদীরা৷ মুক্কালা মহেশ, ভান্দালাম বালাইয়া এবং বালাইয়া পাদলকে ওই সভায় যোগ দিতে বলা হয়েছিল৷ কিন্তু তাঁরা ওই সভায় যোগ দেননি৷ এর পর ধারকোন্ডায় এসে দেখা করার জন্য নিজেদের নেটওয়ার্কের মাধ্যমে তিন টিডিপি নেতাকে খবর দেয় মাও নেতারা৷ টিডিপি নেতারা মাওবাদীদের সঙ্গে দেখা করতে গেলে তাঁদের অপহরণ করা হয় বলে জানান জেলা পুলিশ প্রধান কে প্রবীণ৷ গতকাল রাতেই তাঁদের অপহরণের খবর মেলে৷ প্রবীণ জানান, মাওবাদীরা ওই তিন নেতাকে ইস্ট গোদাবরীর জেলার সীমান্তে গভীর জঙ্গলে নিয়ে গিয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে৷ মাওবাদীদের কখন তাদের দাবি জানাবে, আমরা সেই অপেক্ষা করছি৷

ইতিপূর্বে মাওবাদীরা চরম অ্যাকশনের হুমকি দিয়েছে, যদি সরকার তাদের দাবী পূরণে ব্যর্থ হয়।

আজ মঙ্গলবার সকালে সিপিআই(মাওবাদী) পূর্ব বিভাগীয় সম্পাদক এক চিঠিতে সরকারকে বক্সাইট খনন বন্ধের দাবী, প্যারামিলিটারী বাহিনী প্রত্যাহার ও আদিবাসীদের হয়রানী বন্ধের দাবী জানিয়েছে।

সূত্রঃ http://www.ndtv.com/andhra-pradesh-news/3-tdp-leaders-kidnapped-by-maoists-in-andhra-pradesh-reports-1228423


তুরস্কের শহীদ ১৭ জন মাওবাদী কমরেড স্মরণে –

তুরস্ক-কুর্দিস্তানের দারসিমের মেরকান অঞ্চলে ২০০৫ সালের ১৬ই জুন বৃহস্পতিবার থেকে ১৭ই জুন শুক্রবারের মধ্যে তুরস্কের ফ্যাসিবাদী রাষ্ট্রের সেনাবাহিনী মাওবাদী কমিউনিস্ট পার্টির ১৭ জন মাওবাদী কমরেডকে ঠাণ্ডা মাথায় হত্যা করে ও অন্য ৩ জনকে আহত করে। তুরস্কের মাওবাদী কমিউনিস্ট পার্টি(MCP) এর সাধারণ সম্পাদক সহ ৬জন কেন্দ্রীয় সদস্য এতে শহীদ হন। MCP-র কেন্দ্রীয় কমিটির পরিবর্ধিত সভার সময় আক্রমণটি ঘটে। প্রথমে রাষ্ট্র এই সম্পর্কে কোনো বিবৃতি দেয়নি। পরে টেলিভিশন সংবাদে দেখানো হয়, রাষ্ট্র কর্তৃক আটক ১৭ জন গেরিলাকে হত্যা এবং অপর ৩ জনকে আহত করা হয়, এ সময় তাদের নাম প্রকাশ প্রত্যাখ্যান করা হয়।

মাওবাদী কমিউনিস্ট পার্টি(MCP)র শহীদ ১৭ জন মাওবাদী কমরেড

মাওবাদী কমিউনিস্ট পার্টি(MCP)র শহীদ ১৭ জন মাওবাদী কমরেড

শহীদ কমরেডদের নাম  –

Cafer Cangöz (MCP কেন্দ্রীয় সদস্য),

Aydýn Hanbayat (MCP কেন্দ্রীয় সদস্য),

Ali Riza Sabur (MCP কেন্দ্রীয় সদস্য),

Cemal Çakmak (MCP কেন্দ্রীয় সদস্য),

Ökkeþ Karaoðlu (MCP কেন্দ্রীয় সদস্য),

Gülnaz Yýldýz (MCP কেন্দ্রীয় সদস্য),

Okan Ünsal (Conference Security Unity Commander),

Berna Ünsal,

Alaattin Ataþ,

Kenan Çakýcý,

Taylan Yýldýz,

Ýbrahim Akdeniz,

Binali Güler,

Dursun Turgut,

Ahmet Bektaþ ,

Cagdas Can ve Ersin Kantar.

রাষ্ট্র কর্তৃক বিকৃত মৃতদেহ গুলি মর্গ থেকে মুক্তি দেয়ার পর, শহীদ গেরিলাদের জন্য শেষকৃত্য অনুষ্ঠিত হয়। ঐ সময় শহীদদের মৃতদেহের ছবি স্পষ্ট ইঙ্গিত দেয় যে, তুরস্ক সেনাবাহিনীর সন্ত্রাস দমন ইউনিট প্রথমে গেরিলাদের উপর তীব্র নির্যাতন চালায় ও পরে হত্যা করে।

মাওবাদী কমিউনিস্ট পার্টি(MCP) ২০০৩ সালের নভেম্বরে প্রতিষ্ঠিত হয়, এর আগে দলটিকে TKP-ML/ টিকেপি (এম-এল) বলা হতো । শীতকালের এই হামলাটি তুরস্কের মাওবাদীদের উপর ধারাবাহিক ব্যাপক নিপীড়ন ছাড়া আর কিছুই ছিল না। ঐ শীতকালীন সময়টিতে বিশেষ করে তুরস্ক-কুর্দিস্তানের দারসিমে তুরস্কের ফ্যাসিবাদী সেনাবাহিনীর ও পিপলস আর্মি TIKKO (যা তুরস্কের অন্যতম মাওবাদী দল TKP-ML এর নেতৃত্বাধীন) ও পিএলএ(পিপলস লিবারেশন আর্মি-MCP নেতৃত্বাধীন) এর মধ্যে অনেক বন্দুক যুদ্ধের ঘটনা ঘটে। এই সময়কালীন MCP-র ২০ জনেরও বেশী গেরিলা ও তুরস্কের কমিউনিস্ট পার্টি – মার্কসবাদী লেনিনবাদী(TKP-ML) এর ৩ জন গেরিলা কমরেড Cafer Kara, Aþkýn Günel ও Muharem Yiðitsoy শহীদ হন। পুরো শীতকাল জুড়েই তুরস্ক-কুর্দিস্তানের সর্বত্র দারসিম সিরনাক, ভান ও মূপ সহ বিভিন্ন এলাকায় তুর্কী সেনাবাহিনী মাওবাদীদের বিরুদ্ধে অনেক অপারেশন চালায়। এ ছাড়াও হাকাকীতে PKK/পিকেকে‘র অনেক গেরিলাকেও হত্যা করা হয়।


ভো নগুয়েন গিয়াপ: ভিয়েতনামের বিপ্লবী গণনায়ক

daituong_c8467

জেনারেল ভো নগুয়েন গিয়াপ মারা গেলেন ১০২ বছর বয়সে। গত শুক্রবার ০৪ অক্টোবর, ২০১৩ ভিয়েতনামের হ্যানয়ের এক সামরিক হাসপাতালে তিনি মারা যান। তাকে নিয়ে তার জীবন নিয়ে আমার সংক্ষিপ্ত একটি লেখা।
তাকে বিবেচনা করা হয় ইতিহাসের অন্যতম একজন সমর বিষয়ক কলাকুশলবিদ হিসেবে।  ফ্রান্স ও আমেরিকা সাম্রাজ্যবাদকে ভিয়েতনাম থেকে হটিয়ে দিতে তিনি সামরিকভাবে ভিয়েতনাম বিজয়ের ক্ষেত্রে স্থপতির মতো ভূমিকা রেখেছিলেন।

ভিয়েতনামে হো চি মিনের পর দ্বিতীয় নেতা হিসেবে তিনি বিবেচিত হন। তিনি আক্ষরিকভাবে বা আনুষ্ঠানিকভাবে কোন সামরিক প্রশিক্ষণ নেননি। কিন্তু ভিয়েতনামের সশস্ত্র বিপ্লবী গেরিলা যুদ্ধের তিনি ছিলেন সর্বাধিনায়ক। তিনি প্রথম সামরিক বিষয়ে পাঠের হাতেখড়ি ছিলো হ্যান্ড গ্রেনেডের মেকানিজম বিষয়ে একটি এনসাক্লেপেডিক এন্ট্রি থেকে।

বিপ্লবী বো নগুয়েন গিয়াপের জন্ম 
১৯১১(মতান্তরে ১৯১২) সালের ২৫ আগস্ট তিনি উত্তর ভিয়েতনামের কুয়াঙ বিন প্রদেশের আন জা নামে এক গ্রামে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তার পিতার নাম ভো কুয়াঙ নিঘিয়েন(Vo Quang Nghiem)। তার পিতা ছিলেন একজন শিক্ষাজ্ঞানসম্পন্ন একজন কৃষক এবং একজন জাতীয়তাবাদী। তিনি তার পুত্র ভো নগুয়েন গিয়াপকে ফ্রান্স সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে লড়াই  করতে উদ্বুদ্ধ করতেন। অর্থাৎ, ছোটকাল থেকেই তিনি সংগ্রামী আবহে বেড়ে উঠেছিলেন। তাই যুব বয়স থেকেই গুপ্ত জাতীয়তাবাদী সংগঠনে যোগ দেন।
গিয়াপ ১৯৩৭ সালে হ্যানয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাজনৈতিক অর্থশাস্ত্রের উপর লেখাপড়া করেছিলেন। একই সাথে তিনি থান লঙ স্কুল নামে একটি স্কুলে শিক্ষকতাও করতেন। সেখানে তিনি ইতিহাস বিষয়ে শিক্ষা দিতেন। তিনি সেখানে খুবই প্রাণবন্তভাবে ফ্রান্সের ঐতিহাসিক বিপ্লব নিয়ে ছাত্রদের বোঝাতেন বলে জানা যায়।
তার নেপোলিয়নের সামরিক কলাকৌশল সম্পর্কেও বিশেষ ধারণা  ছিলো। তার একজন ছাত্র স্মরণ করে বলছিলেন যে, তিনি ফ্রান্সের এই অধিপতির নানা যুদ্ধ পরিকল্পনা স্মরণ করে বলে দিতে পারতেন।
এঝাড়া তিনি তখন লেনিন, মার্ক্সের লিটারেচার পড়তেন। মাও সেতুঙের রাজনৈতিক ও সামরিক কৌশল নিয়েও তিনি লেখাপড়া করেছেন। তিনি সে সময়ে আন্ডারগ্রাউন্ড জার্নালিস্ট হিসেবেও কাজ করেছিলেন। তিনি ফ্রেঞ্চ ভাষা অনর্গল বলতে পারতেন।

ভিয়েতনাম কম্যুনিস্ট পার্টির সদস্য – 
১৯৩৮ সালে তিনি হো চি মিনের ইন্দোচীন কম্যুনিস্ট পার্টির সদস্য হন। ১৯৩৯ সালে তিনি পালিয়ে চীনে যান। সেখানে তিনি হো চি মিনের সাথে দেখা করেন।
১৯৪১ সালের মে মাসের দিকে  হো চি মিনের নেতৃত্বে এক বৈঠকে বিভিন্ন সংগ্রামীদের নিয়ে যুক্তভাবে  ভিয়েতমিন নামে সংগঠন গড়ে তোলা হয়। এর পূর্ণাঙ্গ নাম ছিলো ভিয়েতনাম ডক লাপ ডং মিন হোই বা ইংরেজিতে League for the Independence of Vietnam।  এই বৈঠক থেকে বিভিন্ন সিদ্ধান্ত  নেয়া হয়। ঠিক করা হয়, সশস্ত্র বাহিনী গঠন করা হবে, বিপ্লবী ঘাঁটি গড়ে তোলার চেষ্টা করতে হবে, বিপ্লবের কাজ দ্রুততার সাথে এগিয়ে নিতে হবে এবং সশস্ত্র অভ্যুত্থানের জন্য প্রস্তুতি গ্রহন করতে হবে।
গিয়াপ সামরিক বাহিনী গঠন করতে ভূমিকা গ্রহণ করেন। এবং তিনি জাপানী দখলদারদের বিরুদ্ধে গেরিলা যুদ্ধ শুরু করতে ১৯৪৪ সালে ইন্দোচীনে ফিরে আসেন।
তিনি গেরিলা পদ্ধতিতে অর্থাৎ, হিট এন্ড রান পদ্ধতিতে লড়াই শুরু করেন। গেরিলা পদ্ধতির যুদ্ধ সম্পর্কে তিনি তার এক লেখায় লেখেন-
গেরিলা যুদ্ধ হচ্ছে উন্নততর প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ও অস্ত্রশস্ত্রে দিক থেকে সুসজ্জিত একটি আগ্রাসী সেনাদলের বিরু্দ্ধে একটি নিপীড়িত ও অর্থনৈতিক দিক থেকে পশ্চাৎপদ এক দেশের ব্যাপক জনসমষ্টির প্রতিরোধ সংগ্রাম। সেই সংগ্রামে প্রত্যেক গ্রামবাসীই হচ্ছে এক একজন যোদ্ধা, এবং গ্রামগুলো হচ্ছে দুর্গের মতো।

Giap2
ফ্রান্সের পরাজয়(ভিয়েতনামের বিপ্লবী বাহিনী কর্তৃক ফ্রান্সের পরাজয়) 
১৯৪৫ সালের ০২ সেপ্টেম্বর হো চি মিন গণ প্রজাতন্ত্রী ভিয়েতনাম গঠনের ঘোষনা প্রদান করেন। এং গিয়াপ অভ্যন্তরীন মন্ত্রী হিসেবে নিয়োগলাভ করেন।
ভিয়েতনাম দেশকে  ফ্রান্স স্বীকৃতি দিলো। কিন্তু দেশের দক্ষিণ দিকের চাল ও রাবারের উৎসের উপর নিয়ন্ত্রণ ছেড়ে দিতে গড়িমসি করলো। এজন্য আন্তর্জাতিক ব্যবসার উপর ট্যারিফ বা শুল্ক আরোপ করলো।
কম্যুনিস্ট পার্টি প্রতিরোধ সংগ্রাম শুরু করলো। গিয়াপ হাজার হাজার গেরিলা যোদ্ধাকে টংকিং পাহাড়ে সংগঠিত করলো এবং ফ্রান্সের বাহিনীর বিরুদ্ধে শুরু হলো সশস্ত্র গেরিলা পদ্ধতির লড়াই।
ফ্রান্স লাওসের সীমান্তের কাছে  ভিয়েতনামের দিয়েন বিয়েন ফু নামক জায়গায় সামরিক ঘাঁটি স্থাপন করলো। সেখানে ১৩ হাজারের অধিক সৈন্যের সমাবেশ ঘটালো। ফ্রান্স এভাবে সামরিক ঘাঁটি স্থাপন করে নিজের কর্তৃত্বকে নিরাপদ মনে করেছিল। কিন্তু এই নিরাপদ  সেনা ঘাঁটিতেই গিয়াপ চালালো ব্যাপক আক্রমণ।
গিয়াপ আমেরিকার তৈরী ভারি মেশিনগান সংগ্রহ করেছিল তা ফ্রেঞ্চ বাহিনীর জানা ছিলো না। গিয়াপ তা পাহাড়ের উপর স্থাপন করলো, নিচের শত্রু ঘাঁটিতে তাক করে রাখলো।
ফ্রেঞ্চ বাহিনী ভ্যালীর ভেতরে আটকা পড়ে রইলো। টানা ২ মাস হামলার সহ্য করার পরে এবং ৪০০০ হাজার সৈন্য হারাবার পরে ১৯৫৪ সালের  মে মাসের ৭ তারিখ  ফ্রেঞ্চ বাহিনী পরাজয় মেনে নিলো। এবং এই পরাজয় ফ্রান্সের ঔপনিবেশিক শাসনের সমাপ্তি টানার বার্তা দিলো।
গিয়াপ দিয়েন বিয়েন ফু-য়ের লড়াই নিয়ে বলেছিলেন- পশ্চিমের জন্য এটি ছিলো প্রথম দুঃসহ এক পরাজয়। এটি উপনিবেশের ভিত নাড়া দিয়েছিলো এবং জনগণকে মুক্তির যুদ্ধে শরীক হতে উদ্বুদ্ধ করেছিল। এটি  ছিলো আন্তর্জাতিকাবাদী সভত্যার সূচনা বিন্দু।
ফ্রান্সের বিরুদ্ধে যুদ্ধে প্রায় ৩ লাখ ভিয়েতনামী মারা যায়। ফ্রান্সের পক্ষে মারা যায় ৯৪ হাজার।

ভিয়েতনামে নতুন করে আমেরিকান সাম্রাজ্যবাদের হস্তক্ষেপ – 
১৯৫৪ সালে যুদ্ধ বিরতি স্বাক্ষরিত হলো। এতে ভিয়েতনাম দুইভাগে ভাগ হলো। এই যুদ্ধবিরতি মতে  গণভোটের মাধ্যমে ভিয়েতনামের ভবিষ্যত ঠিক করার কথা।

কিন্তু গণভোট অনষ্ঠিত হলো না । দক্ষিণ ভিয়েতনামকে কব্জায় রাখতে ফ্রান্স ও আমেরিকা সেখানে পুতুল এক সরকার বসালো। এরই প্রতিক্রিয়ায় দক্ষিনের জাতীয়তাবাদীরা গঠন করলো ন্যাশনাল লিবারেশন ফ্রন্ট যা আমেরকিার সৈন্যদের কাছে ভিয়েত কঙ নামে পরিচিত ছিলো। উত্তর ভিয়েতনামের সহায়তায় দক্ষিণ ভিয়েতনামে প্রতিরোধ সংগ্রামে গতিবেগ বৃদ্ধি পেলো।
তখন দক্ষিণ ভিয়েতনামে আমেরিকার সৈন্যবাহিনীর সংখ্যা ১৬ হাজারের উর্দ্ধে ছিলো।
এই দুর্বার গতি দেখে আমেরিকা ১৯৬৪ সালের মার্চ মাসে দক্ষিণ ভিয়েতনামের সাথে এক আঁতাত গড়ে তুলে সরাসরি ভিয়েতনামে হস্তক্ষেপের পথ প্রশস্ত করলো।

দক্ষিণ ভিয়েতনামে কম্যুনিস্টদের প্রভাব বেড়ে যাওয়ায় আমেরিকা দক্ষিনের প্রশাসনকে সহায়তা ও পরামর্শ প্রদান শুরু করলো।

১৯৬৫ সালে ভিয়েতনামে আমেরিকান বাহিনী অবতরণ করলো। এবার গিয়াপ উত্তরের বাহিনীকে দক্ষিনের ভিয়েত কঙ বাহিনীকে সহযোগিতা করার ব্যবস্থা করলো।

গিয়াপ বিশ্বাস করতেন, ভিয়েতনামে আমেরিকার প্রলম্বিত যুদ্ধ করার সামর্থ্য নেই। তিনি বলতেন-প্রলম্বিত যুদ্ধ মানেই তাদের জন্য বিরাট পরাজয়।তাদের নৈতিক বল ঘাসের চেয়ে নিচে।

টেট নগুয়েন ডান বা ভিয়েতনাম লুনার নিউ ইয়ারের প্রতিরোধ – 
ভিয়েতনাম আমেরিকার সৈন্যবাহিনীর বিরুদ্ধে লড়ছে।

লনার নববর্ষ বা টেট এর মিল রেখে ১৯৬৮ সালে ভিয়েত কঙ এবং ভিয়েতনামের উত্তর অঞ্চলের বাহিনী একসাথে ৪০টির বেশি প্রদেশের রাজধানীতে আক্রমণ করলো। তারা সায়গনে ঢুকে গেল এবং এমনকি আমেরকিান এম্বেসিতেও প্রবেশ করলো।

তবে ১৫ হাজার সৈন্য মারা যাবার পরে আমেরিকান বাহিনী ঘটনাক্রমে তাদের পিছিয়ে দিতে সক্ষম হয়। কিন্তু এই হামলা আমেরিকার জন্য মানসিক দিক থেকে একটি বিরাট ধাক্কা। এ কারণে তাদেরযুদ্ধ থেকে পশ্চাদপসর করে আমেরিকায় ফিরে আসতে বাধ্য হতে হয়। প্রায় ৮০ হাজার ভিয়েতনামী যোদ্ধা এই যু্দ্ধে অংশ নেয়।আতার মধ্যে প্রায় ৪০ হাজার যোদ্ধা হয় আহত হয় বা নিহত হয়।
পরের বছর থেকে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নিক্সন ভিয়েতনাম থেকে আমেরিকান সৈন্য সরিয়ে নেয়া শুরু করেন।
গিয়াপের নেতৃত্বে দক্ষিণ ভিয়েতনাম দখল করা সম্ভব হয় ৩০ এপ্রিল ১৯৭৫ সালে। সায়গনে আমেরিকার পুতুল সরকারের পতন ঘটে।
এরপর সোস্যালিস্ট রিপাবলিক অব ভিয়েতনাম গঠনের ঘোষনা প্রদান করা হয়।
এক হিসাব মতে আমেরিকা এই যদ্ধে তাদের ৫৮ হাজার সেনা সদস্যকে হারায়। ভিয়েতনামের পক্ষ থেকে শহীদ হন মোট ২৫ লাখের অধিক। ভিয়েতানামে তখন জনসংখ্যা ছিলো ৩কোটি ২০ লাখের মতো।

Giap3
সংগ্রামী ও বিপ্লবীর জীবনাবসান – 
স্যোসালিস্টভিয়েতনাম গঠিত হবার পরে গিয়াপ প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর দায়িত্ব পান। এবং ১৯৭৬ সালে ডেপুটি প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ দেয়া হয়। তিনি ৬বছর পরে দায়িত্ব থেকে অবসর নেন।
তিনি সামরিক স্ট্রাটেজির উপর কিছু বই লেখেন। এবং কমপক্ষে একজন ইতিহাসবিদ তাকে ওয়েলিংটন, রোমেল এবং ম্যাক আর্থারের মত নেতাদের সমকক্ষ হিসেবে তুলনা করেন।
সৈন্যবাহিনীকে উজ্জ্বীবিত করার সামর্থ্যের জন্য তার বাহিনীর সৈন্যদের কাছে তিনি “অগ্নিগিরি” হিসেবে পরিচিত ছিলেন, কিন্তু এই নামটি বিশ্ব পরিচিতি পায়নি।
তিনি মারা গেলেন ১০২ বছর বয়সে। ০৪ অক্টোবর ২০১৩ সালে। তার প্রথম স্ত্রী মারা গিয়েছিলেন ফ্রান্সের কারাগারে। তিনি দ্বিতীয় স্ত্রী বিয়ে করেন ১৯৪৯ সালে।  তার নাম ডাঙ বিক হা। তার ৪ সন্তান রয়েছে।
সংগ্রামী জীবন বেছে নেয়া বিষয়ে জেনারেল গিয়াপ এক সাক্ষাতকারে বলেছিলেন, যখন আমি তরুন-যুবক ছিলাম তখন আমি স্বপ্ন দেখতাম একসময় আমাদের দেশ মুক্ত হবে এবং আমরা ঐক্যবদ্ধ হতে পারবো। এবং আমার সেই স্বপ্ন পূরণ হয়েছে।
স্বপ্ন পূরণ হবার পরে্ অনেক বছর বেঁচে থাকার পরে সমাপ্ত হলো বর্ণাঢ্য এবং বিশ্বে আলোচিত এক জীবনের।

images887930_1

লেখক – মিঠুন চাকমা


বাংলাদেশঃ বিপ্লবী ছাত্র-যুব আন্দোলন জাতীয় কমিটির বিবৃতি

images2

বিপ্লবী ছাত্র-যুব আন্দোলন জাতীয় কমিটির বিবৃতি

৫ অক্টোবর ২০১৫

‘৭ অক্টোবর সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী ছাত্র ঐক্য ও প্রগতিশীল ছাত্র জোটের ডাকা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সর্বাত্মক ধর্মঘট সফল করুন এবং ভর্তি পরীক্ষা বাতিল ও ছাত্রদের উপর হামলার বিচারের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যেতে হবে’

বিপ্লবী ছাত্র-যুব আন্দোলনের জাতীয় কমিটির পক্ষ থেকে একটি বিবৃতিতে দুই জোটের ডাকা ৭ অক্টোবরের(বুধবারের) ধর্মঘটকে সফল করার আহবান জানানো হয়। বিবৃতিতে আরও বলা হয় যে, বর্তমান চলমান ন্যায্য আন্দোলনকে দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত চালিয়ে যেতে হবে।অতীত ইতিহাসের ধারাবাহিকতায় বর্তমান শাসক গোষ্ঠী তার কাজ শুরু করে দিয়েছে।স্বাস্থ্য মন্ত্রি বলছেন প্রশ্ন ফাঁস হয়নি।তারা তাদের তাবেদার মিডিয়ার মাধ্যমেও নানা ধরণের অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে আন্দোলনকে থামিয়ে দেবার জন্য।এসব যখন হচ্ছে তখন আর বুঝতে বাকি থাকেনা যে ‘মা’ হাসিনা তার সন্তানদের কতটুকু ভালবাসেন!অতএব মায়ের কাছে আবদার নয়,তার কাছে থেকে নিজেদের অধিকার ছিনিয়ে নিতে হবে।নতুবা কিছুই হবে না।মনে রাখতে হবে এই দেশের সকল ব্যবস্থাপনাতেই ভেজাল রয়েছে।তাই যতক্ষণ না আপনার আমার নিজেদের ব্যবস্থাপনা গড়ে উঠছে ততদিন এমনটা চলতেই থাকবে। তাই এই আন্দোলন থেকে শিক্ষা নিয়ে সমগ্র ব্যবস্থা পরিবর্তনের আন্দোলনে মেডিক্যাল ছাত্রদের যুক্ত হতে হবে।ভাবতে হবে জনগণের সামগ্রিক সংকট নিয়ে।

বার্তা প্রেরক
আহনাফ আতিফ অনিক
সহ-আহবায়ক
বিপ্লবী ছাত্র যুব আন্দোলন
মোবাইলঃ০১৫২১-৫১৭৪০০


বাংলাদেশঃ আগামীকাল ৭ই অক্টোবর ছাত্র ধর্মঘট

12065794_420701868112965_2515819670745258675_n