ভারতঃ মাওবাদী-পুলিশ সংঘর্ষে, খতম দুই পুলিশ কর্মী

maoist-attack-newsx

মাওবাদী ও পুলিশের মধ্যে শনিবার সংঘর্ষ হয়েছে ঝাড়খণ্ডের গোড্ডার সুন্দরপাহাড়ি এলাকায়। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, গুলির লড়াইয়ে জেলা পুলিশের এক কর্মী সঞ্জয় গুপ্ত এবং‌ সশস্ত্র সীমা বলের জওয়ান সুরেন্দ্র সিংহের মৃত্যু হয়েছে।

পুলিশ সূত্র জানায় , তাদের কাছে খবর ছিল, সুন্দরপাহাড়ি থানা এলাকার কটহলডিহি গ্রামের পাশে মাওবাদীদের একটা বড় দল জড়ো হয়েছে। এর পরে এ দিন সকালে এলাকায় যায় পুলিশের একটি দল। বেলা ১১টা নাগাদ টহল দেওয়ার সময়ে কটহলডিহি গ্রামের কাছে হঠাৎ মাওবাদীরা এলোপাথাড়ি গুলি চালায়। পুলিশও পাল্টা জবাব দেয়। দু’পক্ষের গুলির লড়াইয়ে দুই পুলিশকর্মী জখম হন। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকেরা তাঁদের মৃত ঘোষণা করেন। কিন্তু তাদের কাউকে ধরতে পারেনি পুলিশ।

সূত্রঃ http://www.outlookindia.com/news/article/two-policemen-gunned-down-by-maoists-in-jharkhand/916262

Advertisements

তুরস্কে কুর্দি ও বামপন্থীদের সরকার বিরোধী সমাবেশে বোমায় নিহত ৮৬ (ভিডিও)

 

turkey-2-655x360

মাওবাদী ও কুর্দি গেরিলা গোষ্ঠী পিকেকে-র সঙ্গে চলমান সহিংসতার অবসান চেয়ে শান্তি সমাবেশটির ডাক দেওয়া হয়েছিল। সমাবেশকারীদের লক্ষ্য করেই বিস্ফোরণটি ঘটানো হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

‘শান্তি ও গণতন্ত্র’ শ্লোগানকে সামনে রেখে ডাকা শান্তি সমাবেশটির উদ্যোক্তাদের মধ্যে কুর্দিপন্থি এইচডিপি পার্টিও ছিল বলে জানা গেছে। স্থানীয় সময় দুপুর ১২টায় সমাবেশটি শুরু হওয়ার কথা ছিল।

Turkey+2

এইচডিপি পার্টির ট্যুইটে বহু লোক হতাহত হওয়ার কথা বলা হয়েছে, এছাড়া আহত লোকদের সরিয়ে নেওয়ার সময় পুলিশ লোকজনের উপর ‘হামলা’ চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেছে দলটি।

স্থানীয় বাসিন্দা এমরে জানান, তিনি দুটি বিস্ফোরণের শব্দ শুনেছেন এবং বহু লোকের মৃতদেহ দেখেছেন। উত্তেজিত লোকজন পুলিশের গাড়ির উপর হামলার চেষ্টা করেছে বলেও জানান তিনি।

5.+Turkey

এর আগে জুনে দেশটির দিয়ারবাকির শহরে এইচডিপি পার্টির আরেকটি সমাবেশেও বোমা হামলা চালানো হয়েছিল।

শনিবারের এ ঘটনায় আরও ১৮৬ জন আহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে অধিকাংশই একটি শান্তি সমাবেশে অংশগ্রহণ করতে আসা লোক বলে বার্তা সংস্থা দোগানের বরাত দিয়ে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স ও বিবিসি।

বামপন্থী শ্রমিক ইউনিয়ন ও সুশীল সমাজের গোষ্ঠীগুলোর ডাকা ওই সমাবেশে স্থানীয় সময় সকাল ১০টা চার মিনিটে হামলাটি চালানো হয়।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করা ছবিতে ঘটনাস্থলে বহু মানুষকে পড়ে থাকতে দেখা গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, বিস্ফোরণের পর অনেকের লাশ পড়ে থাকতে দেখা গেছে। ঘটনাস্থলে উদ্ধারকর্মীরা উদ্ধার কাজ চালাচ্ছেন।

তুরস্কের একজন সরকারি কর্মকর্তা বলেছেন, এটি ছিল সন্ত্রাসী হামলা এবং এ বিষয়ে তদন্ত চলছে। যত দ্রুত সম্ভব তদন্তের ফলাফল সবাইকে জানানো হবে। তুর্কি প্রধানমন্ত্রী আহমেদ দাউদওগ্লু নিরাপত্তা বিষয়ে জরুরি বৈঠক ডেকেছেন।

blast1


‘পার্টি অব লেবার অব আলবেনিয়া’ পরিচিতি-

200px-Ppshsymbol1981

the-history-of-party-of-labor-of-albania-book-in-english

বিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয় দশকের কথা। গোটা বলকান দেশগুলোর মধ্যে একমাত্র আলবেনিয়ায় কোনো সাম্যবাদী দলের অস্তিত্ব ছিল না। সোভিয়েত ইউনিয়নের সহযোগিতায় ১৯২৮ সালে প্রথম আলবেনিয়ায় কমিউনিস্ট পার্টি গড়ে ওঠে। কিন্তু জনগণের প্রত্যাশা কিংবা দেশের কোনো ন্যায্য দাবি নিয়ে আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে নিজেদের ফলপ্রসূ আত্মপ্রকাশ ঘটাতে ব্যর্থ হয়। অবশেষে এক যুগ পর যুগোস্লাভিয়ার সহযোগিতায় এই কমিউনিস্ট দলটি পূর্ণাঙ্গ রূপ নেয় ১৯৪১ সালের ৮ নভেম্বর। ‘আলবেনিয়া কমিউনিস্ট পার্টি’ নামে পরিচিত হলেও দলটির মূল নাম ছিল ‘পার্টি অব লেবার অব আলবেনিয়া’। প্রতিষ্ঠাকালীন প্রধান নেতাদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন এনভার হোক্সা। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই দলটি গেরিলা যুদ্ধ ও রাজনৈতিক দল হিসেবে কার্যক্রম শুরু করে। মূলত দলটির মিলিটারি উইং এই গেরিলা যুদ্ধ পরিচালনা করত। জার্মানদের হটিয়ে নিজেদের সার্বভৌমত্ব এবং স্বাধীনতা অর্জনের জন্য ‘পার্টি অব লেবার অব আলবেনিয়া’ গেরিলা যুদ্ধ শুরু করে। ১৯৪৪ সাল নাগাদ দলটি বিভিন্ন গেরিলা অপারেশনের মাধ্যমে নিজেদের স্বাধীনতা অর্জনে সক্ষম হয়। আলবেনিয়ার চেয়ারপারসন হিসেবে প্রথমবারের মতো ক্ষমতা নেন পার্টি অব লেবার অব আলবেনিয়ার সেক্রেটারি এনভার হোক্সা। কমিউনিস্ট মতাদর্শে আদর্শায়িত আলবেনিয়ার বিরুদ্ধে সাম্রাজ্যবাদী বিভিন্ন দেশের চক্রান্ত চলতে থাকে শুরু থেকেই। তাই পার্টি অব লেবার অব আলবেনিয়ার গেরিলা উইং-কে একেবারে বন্ধ বা বিলুপ্ত করা সম্ভব হয়নি দলটির পক্ষে। দলটির নিয়মিত পত্রিকা ‘জেরি পপুলিত‘ বেশ সমাদৃত ছিল আলবেনিয়ায়। ১৯৯১ সালেই দলটি নিজেদের বিলুপ্তি ঘোষণা করে ‘সোশ্যালিস্ট পার্টি অব আলবেনিয়া’র কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করে।

জেরি পপুলিত

জেরি পপুলিত