আমেরিকায় চলতি বছর পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছে প্রায় ১০০০ ব্যক্তি

4bhk91e187d9071uix_620C350

চলতি বছর আমেরিকায় পুলিশের গুলিতে প্রায় ১০০০ ব্যক্তি নিহত হয়েছে। মার্কিন দৈনিক ওয়াশিংটন পোস্ট এ খবর দিয়ে লিখেছে, পুলিশের হামলায় নিহত হয়েছে মোট ৯৬৫ জন। আমেরিকার বিভিন্ন শহরে প্রায়ই বর্ণবৈষম্যের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ সমাবেশ হয় এবং পুলিশি হামলার ঘটনা ঘটে। এ পরিস্থিতিতে দৈনিকটির খবর চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।

দৈনিকটির প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, পুলিশের গুলিতে যে ৯৬৫ জন নিহত হয়েছে তাদের মধ্যে হামলার সময় প্রায় ১০০ জন ছিল সম্পূর্ণ নিরস্ত্র।

এতে আরো বলা হয়েছে, চলতি বছর পুলিশ যাদের ওপর গুলিবর্ষণ করেছে তাদের ৪০ শতাংশই হচ্ছে কৃষ্ণাঙ্গ জনগোষ্ঠী। দৈনিক ওয়াশিংটন পোস্টের এ প্রতিবেদন এমন সময় প্রকাশিত হল যখন চলতি বছর শিকাগো শহরে পুলিশের বর্ণবাদী হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে সেখানকার স্থানীয় জনগণ বহুবার বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে।

2EC9630D00000578-3332731-Hundreds_of_protesters_took_to_the_streets_of_Chicago_within_hou-a-13_1448465498163

আজও ২ কৃষ্ণাঙ্গকে গুলি করে হত্যা, উত্তাল শিকাগো

যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগোতে আবারও দুই কৃষ্ণাঙ্গকে গুলি করে হত্যা করেছে পুলিশ। বড়দিনের একদিন পর শনিবার সকালে শহরের ‘ওয়েস্ট গারফিল্ড পার্ক’-এ একই ভবনে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র ও এক নারীকে গুলি করে পুলিশ। একের পর এক কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার প্রতিবাদে আবারো হাজার হাজার মানুষ শহরের রাস্তায়।

আবারো ক্ষোভে উত্তাল শিকাগো। পুলিশের গুলিতে একের পর এক কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার ঘটনায় ক্ষুব্ধ হাজার হাজার মানুষ প্রতিবাদ জানাতে নেমে পড়েছে রাস্তায়।

গত বছর পুলিশের গুলিতে কৃষ্ণাঙ্গ কিশোর ম্যাকডোনাল্ডের হত্যার বিচার দাবিতে শুক্রবার উত্তাল ছিল পুরো শিকাগো। এর জের কাটতে না কাটতেই আবারো দুজনকে গুলি করে মারলো পুলিশ। পুলিশের সহিংসতা, বিচারবিভাগীয় তদন্ত ও মেয়রের পদত্যাগ দাবিতে শনিবার সকাল থেকে আবারো রাস্তায় হাজার হাজার মানুষ।

পুলিশের খোঁড়া যুক্তি, বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র কোইনটোনিও বড় দিনের ছুটিতে বাবার কাছে গিয়েছিলেন। বাক-বিতণ্ডার এক পর্যায়ে সে বেসবলের একটি ধাতব ব্যাট নিয়ে বাবাকে হত্যার হুমকি দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাকে বাধা দেয়ার চেষ্টা করে। পরে ব্যর্থ হয়ে গুলি চালায়।

নিহত কোইনটোনিও’র মা জ্যানেট কুকসে বলেন, ‘এটা খুবই বাড়াবাড়ি। আমার ছেলের কিছুটা মানসিক সমস্যা ছিলো, তাই বলে সে আগ্রাসী ছিলো না। কখনো কোনো সহিংসতাও করেনি সে। সাহায্যের জন্য পুলিশ ডেকে আমার ছেলেকে হারাতে হলো।’

তবে একই ভবনে ৫৫ বছর বয়সী এক নারীকে গুলি করে হত্যাকে নিছক দুর্ঘটনা বলছে পুলিশ।

এ ঘটনায় দায়ী পুলিশ সার্জেন্টকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বিভিন্ন গণমাধ্যম।

একইদিন, শহরের ‘ওয়াশিংটন হাইটস’ এলাকায় পুলিশ জরুরি আহ্বানে সাড়া দিয়ে, একজনকে গুলি করে বলে জানায় গণমাধ্যম। তার অবস্থা গুরুতর না হলেও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

Advertisements

ফিলিপিনঃ মিন্দানাওয়ে আরো ৬টি গেরিলা ফ্রন্ট গঠন করেছে মাওবাদীরা

npa_southern_mindanao01

দাবাও শহর – ফিলিপিনের জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট(NDFP) জানাচ্ছে, সরকারী সশস্ত্র বাহিনীর ৬০ শতাংশ স্থাপনার সত্ত্বেও মিন্দানাও দ্বীপে বিপ্লবী কার্যক্রমের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রয়েছে।  ফিলিপাইনের কমিউনিস্ট পার্টি(CPP)’র রাজনৈতিক শাখা NDFP গত শনিবার পার্টির ৪৭তম বার্ষিকী উদযাপন করেছে। CPP এর “দীর্ঘস্থায়ী গণযুদ্ধ” এশিয়ার দীর্ঘতম চলমান বিদ্রোহ হিসেবে প্রতিনিধিত্ব করছে।

NDFP মিন্দানাওয়ের মূখপাত্র কা ওরিস জানান, বিপ্লব দমনের উদ্দেশ্যে সরকার সামরিক বাহিনীর ৬০ শতাংশ, NPA এর এলাকাগুলোতে মোতায়েন করেছে।মিন্দানাওয়ে সশস্ত্র ও নিরস্ত্র জনগণের উপর নৃশংস আক্রমণ ও অভিযান চালানোর জন্যেই এই Oplan Bayanihan (OPB) বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। তাই কৌশলী অভিযানের সংখ্যা আরো বৃদ্ধির জন্যেই মিন্দানাওয়ে NPA  এর সম্প্রসারণ করা হচ্ছে। ২০১০ সালে একুইনোর শাসনামলে NPA এর যেখানে ৪০টি গেরিলা ফ্রন্ট ছিল, সেখানে বর্তমানে ৫টি অঞ্চলে ৪৬টি গেরিলা ফ্রন্টে NPA তাদের বাহিনী সম্প্রসারিত করেছে। ২০১০ সালে যেখানে ২০০টি শহর ও পৌরসভা ছাড়াও ১৮৫০টি গ্রামে NPA এর কার্যক্রম ছিল, সেখানে বর্তমানে ২০০০টি গ্রামে NPA তাদের কাজ সম্প্রসারণ করেছে। ২০১০ সালে যেখানে NPA  এর গণভিত্তি ১,৩০,০০০ ছিল বর্তমানে তা বেড়ে ২,০০,০০০ তে দাঁড়িয়েছে।  এ ছাড়াও মিন্দানাওয়ে এই বছর একটি ব্যাটেলিয়ন সমতুল্য সেনাবাহিনীকে NPA খতম করেছে।

images

অনুবাদ সূত্রঃ http://davaotoday.com/main/politics/ndf-6-more-guerrilla-fronts-formed-in-mindanao/


প্রতিদিন কমরেড সিরাজ সিকদারের কবিতা- (৬) ‘প্রতীক্ষায়’

poster, siraj sikder, 17 X 22 inch, 2 colour, 2005

প্রতীক্ষায়

.

কমরেড

অপেক্ষায় বসে আছি

উদ্বিগ্ন উৎকণ্ঠিত!

অনেক রাত-

এখনো ফিরলেনা তুমি।

কমরেডদের শুধোই-

এখনো এলোনা কেন?

রাত যে অনেক হলো।

তারাও চিন্তিত।

এত রাত করে ফেরেনা ত সে-

কোন বিপদ হলো নাতো?

.

চারিদিকে মানুষখেকো

বাঘগুলো ওত পেতে আছে।

চক্ররা হায়নার মত

ঘুরে বেড়ায়।

মৃত্যুর মুখোমুখি কমরেডরা

নির্ভীক কাজ করে যায়।

.

বাইরে রিকসার শব্দের আশায়

কান পেতে রই।

এই বুঝি তার ডাক

শোনা যায়।

পায়চারী আর চিন্তায়

রাত গভীর হয়।

.

দরজা খুলে বাইরে তাকাই-

যদি তাকে দেখা যায়।

নির্জন রাস্তা-বাতিগুলো

মিটমিটে জ্বলছে;

নিস্তব্ধ চলাচলহীন;

আশে পাশের বাড়িগুলো

ঘুমিয়েছে।

শীতের হিমেল হাওয়া-

কুয়াশা, দূরে আকাশে

আধখানা চাঁদ

ধানক্ষেত।

কই এখনোতো

কমরেডের দেখা নেই।

.

অবশেষে কমরেডের

ডাক শোনা যায়।

এক বোঝা চিন্তা

দূর হয়ে যায়।

নিশ্চিন্ত মন

খুশিতেও ভরে যায়।

ত্বরায় দরজা খুলে

একরাশ প্রশ্ন দিয়ে

কমরেডকে স্বাগত জানাই।


ভারতঃ দান্তেওয়াদা’য় ৪ মাওবাদী গ্রেফতার

41690-5maoist

রায়পুর: শুক্রবার ৪ মাওবাদীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ছত্তিশগড় রাজ্যের দান্তেওাদা’র রায়পুর জেলার ভাঁসি রেল স্টেশন থেকে গ্রেফতার করা হয় ওই ৪ মাওবাদীকে। এই ৪ জন হলেন সাই আলিয়াস শাহী(৩০), কামা তেলামি(২৭), লক্ষণ(৩০), রাজেশ(৩৫)।

চলতি বছরের অগস্ট মাসে একটি সরকারি স্কুলে ভাঙচুর চালানোর অভিযোগ উঠেছিল এদের বিরুদ্ধে। দু’মাস আগে অক্টোবরের ২৫ তারিখে একটি রেল ইঞ্জিনে আগুন লাগিয়ে দিয়েছিল মাওবাদীরা। সেই দলে এই ৪ জন ছিল বলে জানিয়েছে পুলিশ। রেল ইঞ্জিনে আগুনে আগুন লাগানোর ঘটনার পর থেকেই এদের গ্রেফতারের জন্য তৎপর হয়ে ওঠে পুলিশ। শুক্রবার গোপন সূত্রে খবর পেয়ে ভাঁসি এলাকা থেকে মাওবাদী এই ৪ সক্রিয় সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন দান্তেওয়াড়ার এসপি কমললোচন কাশ্যপ।

অনুবাদ সূত্রঃ http://wap.business-standard.com/article/news-ani/four-maoists-arrested-from-dantewada-115122600297_1.html