ফ্রান্সঃ Bloc Rouge(মাওবাদীদের ঐক্য) এখন থেকে মাওবাদী কমিউনিস্ট পার্টি

ob_23fab7_affichepcm2

Advertisements

ভারতঃ নয়াদিল্লী বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদ- অধ্যাপক সাইবাবাকে মুক্ত করুন

c

d


৬২ জনের সম্পদের পরিমাণ বিশ্বের অর্ধেক মানুষের সমান

cw0PsVS

বর্তমানে মাত্র ৬২ জন শীর্ষস্থানীয় ধনীর সম্পদের পরিমাণ বিশ্বের অর্ধেক মানুষের সম্পদের সমান। আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থা অক্সফামের এক গবেষণায় এই তথ্য উঠে এসেছে। এতে বলা হয়েছে, বিশ্বের প্রায় ৩৬০ কোটি দরিদ্র মানুষের মোট সম্পদ মাত্র ৬২ জন শীর্ষস্থানীয় ধনীর সম্পদের সমান।

ওই ৬২ জনের সম্পদের পরিমাণ প্রতিদিনই ব্যাপক মাত্রায় বেড়ে চলেছে বলেও গবেষণা প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। অক্সফামের গবেষণায় আরও দেখা গেছে, বিশ্বের ১ শতাংশ ধনীর সম্পদের পরিমাণ বাকি ৯৯ শতাংশের সমান।

সুইজারল্যান্ডের দাভোসে বিশ্বের প্রভাবশালী আর্থিক প্রতিষ্ঠানের শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা ও রাজনৈতিক নেতাদের বার্ষিক সম্মেলনকে সামনে রেখে গবেষণাটি প্রকাশ করেছে অক্সফাম।

গবেষণার জন্য অক্সফাম সুইজারল্যান্ডভিত্তিক ক্রেডিট সুইসের অক্টোবর মাসের উপাত্ত ব্যবহার করেছে। ওই সম্মেলন থেকে এ বৈষম্যের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে অক্সফাম।


বাংলাদেশের গণযুদ্ধের সংবাদ

30

৫ জানুয়ারি ফ্যাসিবাদের কালো দিবস শিরোনামে পূর্ববাংলার সর্বহারা পার্টি কেন্দ্রীয় কমিটির নামে পোস্টার লাগানো হয়েছে বগুড়ার শেরপুর উপজেলার ভবানীপুর বাজারে। মার্কসবাদ-লেলিনবাদ-মাওবাদ জিন্দাবাদসহ বিভিন্ন দাবি-দাওয়া লেখা পোস্টারটি প্রচার করা হয়। এলাকাবাসীসূত্রে জানা যায়, ৮ জানুয়ারি রাত ১১টায় ৪০-৫০জন পুরুষ ও নারী সর্বহারা সদস্যরা অস্ত্রসহ ভবানীপুর বাজারে আসে। এরপর তারা কয়েকটি দলে ভাগ হয়ে বাজার এলাকায় পূর্ববাংলার সর্বহারা পার্টির পোস্টার লাগায়, আরেক দল পার্টির গণ-রাজনৈতিক প্রচারপত্র (লিফলেট) দরজা ও শাটারের নিচ দিয়ে বাজারের প্রতিটি ঘরে ঢুকিয়ে দেয়। অন্য একটি দল বাজারের লোকজনের ওপর সতর্ক প্রহরা দেয়। প্রায় ঘণ্টা ধরে বাজারে অবস্থান নিয়ে সশস্ত্র দলটি এ ধরনের কার্যক্রম চালায়। পরে পোস্টার লাগানো শেষ হলে ৩ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে বাজার থেকে পশ্চিম দিকে রানীরহাট সড়ক হয়ে তারা চলে যায়। বগুড়ার শেরপুর, সিরাজগঞ্জের তাড়াশ ও রায়গঞ্জ এবং নাটোরের সিংড়া উপজেলার সীমান্তবর্তী মিলনস্থল ভবানীপুর ও রানীরহাট বাজার ঘিরে কয়েক সপ্তাহ ধরে সর্বহারাদের চলাচল শুরু হয়েছে। বিশেষ করে শেরপুর উপজেলার দক্ষিণ-পশ্চিমের গ্রামগুলোতে সর্বহারাদের আনাগোনা ক্রমেই বাড়ছে। কোথাও কোথাও তাদের পদচারণ চলছে গভীর রাত পর্যন্ত। ২০০৫ সালের আগস্টের শেষ দিকে সন্ধ্যায় ভবানীপুর বাজার ঘেরাও করে পূর্ববাংলার সর্বহারা পার্টির সশস্ত্র সদস্যরা এক সমাবেশ করে আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জামায়াতকে নির্মূলের ঘোষণা দিয়েছিল। সে সময় তাদের কাজে সহযোগিতা করার জন্য এলাকাবাসীকে আহবান জানিয়েছিল সর্বহারারা। বগুড়ার শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খান মো. এরফান জানান, চরমপন্থিদের উপস্থিতির বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে নেওয়া হয়েছে। বগুড়ার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার গাজিউর রহমান জানান, সর্বহারা পার্টির কিছু পোস্টার উদ্ধার করা হয়েছে। ঘটনার পর ভবানীপুর ও রানীরহাট বাজার এলাকায় নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

এসময় সর্বহারার বলে, তারা সাধারণ মানুষের প্রতিপক্ষ নয়। অতএব তাদের ভয়ের কোনো কারণ নেই।

এ বিষয়ে ভবানীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জিএম মোস্তফা কামাল জানান, সর্বহারা সদস্যরা গত দুই বছর আগে বাজার এলাকায় এমন পোস্টারিং করেছিলো। এবারও তারা একই কাজ করলো। তবে আগের ঘটনায় তারা গুলি করেনি। এবার গুলি করার মাধ্যমে শক্ত উপস্থিতি জানান দিল।

সূত্রঃ

http://www.bd-pratidin.com/countryvillage/2016/01/17/121383