গত কয়েকদিনের ভারতের গণযুদ্ধের সংবাদ সমূহ-

যোধান মাহাতো ওরফে চিরাগ

যোধান মাহাতো ওরফে চিরাগ

0_1454145662

112_1454144803

পুলিশের কথিত এনকাউন্টারের নামে হত্যা করা হয়েছে সিপিআই(মাওবাদী) বিহার-ঝাড়খণ্ড জোনাল কমিটির সামরিক বিভাগের প্রধান যোধান মাহাতো ওরফে চিরাগ’কে। গত ৩০শে জানুয়ারি গভীর রাতে বিহারের জামুই জেলার চরকাপাথর থানা এলাকায় ঘটনাটি ঘটে।

পুলিশ সূত্র জানাচ্ছে, বিহার-ঝা়ড়খণ্ডের বেশিরভাগ মাওবাদী গেরিলা হামলায় নেতৃত্ব দিতেন চিরাগ। লখিসরাই, মুঙ্গের, বাঁকা, জামুই-সহ বিহার ও ঝাড়খণ্ডের বেশ কয়েকটি জেলা থেকে নতুন ছেলেমেয়েদের প্রশিক্ষণ দেওয়ার দায়িত্বও ছিল তার হাতে। সংগঠনের সামরিক শাখার কেন্দ্রীয় কমিটিরও সদস্য ছিল চিরাগ। ২০১২-র ৯ নভেম্বর গিরিডির জেল ভেঙে আট মাওবাদী-সহ ২১৯ জন পালিয়ে যায়। ওই ঘটনায় তিন পুলিশকর্মীরও মৃত্যু হয়। পুলিশের দাবি, সেই ঘটনার পিছনেও নায়ক ছিল বোকারোর বাসিন্দা চিরাগ। বিহার, ঝাড়খণ্ড ও ওড়িশার বিভিন্ন থানায় তার বিরুদ্ধে শতাধিক মামলা রয়েছে। মাওবাদী সংগঠনে বিহার-ঝাড়খণ্ড এরিয়া কমিটির প্রধান অরবিন্দ চৌহানের পরেই স্থান ছিল চিরাগের। চিরাগকে ধরে দেওয়ার জন্য বিহার সরকার ৫ লক্ষ এবং ঝাড়খণ্ড সরকার ২৫ লক্ষ টাকার পুরস্কার ঘোষণা করেছিল।

জামুইয়ের পুলিশ সুপার জয়ন্তকান্ত বলেন, ‘‘গত কাল বিকেলে থেকে রাত পর্যন্ত গুলির লড়াই চলে। রাতে ওই মাওবাদী নেতার দেহ উদ্ধার করা হয়েছে। বেশ কিছু আধুনিক আগ্নেয়াস্ত্রও উদ্ধার হয়। সম্ভবত আরও দু’জন মাওবাদী মারা গিয়েছে। তাদের দেহ উদ্ধারের জন্য তল্লাশি চলছে।’’

চিরাগের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়তেই বিহার এবং ঝাড়খণ্ডের মাওবাদী-প্রভাবিত এলাকাগুলিতে সতর্কতা জারি করা হয়েছে। পলামুর মাইন বিস্ফোরণের পরে ঝাড়খণ্ড পুলিশ লাগাতার তল্লাশি অভিযান চালাচ্ছে। বেশ কিছু মাওবাদী বিহারের দিকে চলে গিয়েছে বলে ঝাড়খণ্ড পুলিশের একাংশের দাবি। ঝাড়খণ্ড-বিহারের সীমানাও সিল করে দেওয়া হয়েছে।

30_01_2016-naxali01

অন্য দিকে, মুঙ্গের, লখিসরাই ও জামুই জেলা সহ মুঙ্গেরের ধরধরা থানার বাঙালি বাঁধ এলাকায় মাওবাদী সন্দেহে ললন কোড়া নামে এক যুবককে গ্রেফতার করার সময়ে আদিবাসীরা বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। তির-ধনুক নিয়ে পিড়িবাজার থানায় ঢুকে প়ড়েন তাঁরা। চলে ভাঙচুর। পুলিশকর্মীরা প্রাণ বাঁচাতে চম্পট দেন। পুলিশ পরে বিশাল বাহিনী নিয়ে এলে পুলিশের সাথে মাওবাদী সমর্থকদের সঙ্গে লড়াইয়ে গুলিবিদ্ধ হন এস আই ভবেশ সিং। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথেই ভবেশ সিংয়ের মৃত্যু হয়। তাঁর বাড়ি বেগুসরাইয়ের সাহেবপুরে। মুঙ্গেরের এই এলাকা মাওবাদীদের দুর্গ হিসেবে পরিচিত। ২০০৫ সালে এই এলাকাতেই মুঙ্গেরের তৎকালীন এসপি কে সুরেন্দ্রবাবু-সহ ছয় পুলিশকর্মী বিস্ফোরণে মারা গিয়েছিলেন। অবশ্য জনগণের চাপের মুখে ললন কোড়াকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ।

অন্যদিকে, গত ৩০শে জানুয়ারি ছত্তিসগড়ের বস্তারে দুই নারী সহ তিন মাওবাদী গেরিলাকে হত্যা করেছে পুলিশ।

অনুবাদ সূত্রঃ

http://www.newindianexpress.com/nation/ASI-Killed-in-Encounter-With-Maoist-Supporters/2016/01/30/article3253151.ece

http://news.webindia123.com/news/Articles/India/20160130/2782284.html

http://timesofindia.indiatimes.com/city/patna/Major-encounter-in-Jamui-CPIM-member-killed-in-shootout/articleshow/50783919.cms

http://www.newindianexpress.com/nation/Two-Women-Among-3-Naxals-Killed-in-Chhattisgarh/2016/01/30/article3252989.ece

Advertisements


Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.