“আদিবাসী নারীদের ‘উত্যক্ত এবং গণধর্ষণ’ এর জন্যে নিরাপত্তা বাহিনী দায়ী” – নকশাল নেতা

IMG-20150802-WA014_2500415f

বস্তারে পুলিশের গুলিতে প্রাণ হারানো ৪০জনের মধ্যে ৮জন ছিল মাওবাদী, বাকিরা ছিলেন নিরীহ গ্রামবাসী।

বস্তারের আইজি এসআরপি কাল্লুরি দাবি করেছিল- ‘২০১৬ সালের প্রথম ২মাসে ৪০জন মাওবাদীকে হত্যা করা হয়েছে’। কাল্লুরির দাবিকে বর্জন করে দিয়ে নকশাল নেতা ‘গণেশ উইকি’ বলছেন- ‘হত্যাকৃত ৪০জনের মধ্যে ৮জন মাওবাদী ছিলেন’।

সিপিআই(মাওবাদী) দক্ষিণ আঞ্চলিক কমিটি’র সম্পাদক ‘গণেশ উইকি’ এক প্রেস বিবৃতিতে দাবি করে বলেন- মাওবাদী বিরোধী অভিযানের নামে বস্তার পুলিশ ৭জন নারীসহ ৪০জনকে হত্যা করেছে।’ তিনি বলেন- নিহতদের মধ্যে বিজাপুর জেলায় ১৭, সুকুমা জেলায় ১২, দান্তেওয়াদায় ৩, কোন্দাগাঁদনে ৫ ও বস্তারের ৩ জন ছিলেন। এই ৪০ জনের মধ্যে, মাত্র ৮জন আমাদের পিপলস লিবারেশন গেরিলা আর্মি’র সদস্য ছিলেন। বাকিরা ছিলেন নিরীহ গ্রামবাসী, এই সব নির্দোষ কৃষক ও গ্রামবাসীদের ভুয়া এনকাউণ্টারের নামে হত্যা করা হয়েছে।”

‘গণেশ উইকি’ এছাড়াও আদিবাসী নারীদের “উত্যক্ত এবং গণধর্ষণ” এর জন্যে নিরাপত্তা বাহিনীকে অভিযুক্ত করেন এবং এই সমস্ত ঘটনার প্রতিবাদে ১২ই মার্চ দক্ষিণ বস্তারে বনধ ডাকা হয়েছে।

‘গণেশ উইকি’ বলেন, “কিন্তু কাল্লুরি এবং রমন সিং সরকার মাওবাদীদের হত্যার দাবী করেছে, কোন সামাজিক সংগঠন, আইনি সংগঠন বা সাংবাদিক, যারা এই হত্যাকাণ্ডের বাস্তবতা তুলে ধরার চেষ্টা করছেন, তারাই পুলিশ ও প্রশাসনের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হচ্ছে।”-

অনুবাদ সূত্রঃ thehindu.com

Advertisements


Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s