কলকাতাঃ আটক মাওবাদী দম্পতির ১৪ দিনের পুলিশ হেফাজত

মাওবাদী নেতা বিকাশ (বাঁদিকে), তারা (ডানদিকে)

মাওবাদী নেতা বিকাশ (বাঁদিকে), তারা (ডানদিকে)

কলকাতা স্পেশাল টাস্ক ফোর্সের হাতে আটক শীর্ষ দুই মাওবাদী দম্পতিকে ১৪ দিনের পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দিল আদালত৷ আজ, রবিবার আটক দুই মাওবাদী নেতাকে ব্যাংকশাল আদালতে তোলা হয়৷ দুই পক্ষের আইনজীবীর সওয়াল-জবাব শোনার পর বিচারক আটককৃতদের ১৪ দিনের পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দেন৷ এদিন এসডিএফের পক্ষ থেকে আটককৃতদের ১৭ তারিখ পর্যন্ত নিজেদের হেফাজতে চেয়ে আবেদন জানায়৷ এডিএফের সেই আবেদনের ভিত্তিতে পুলিশ ১৪ দিনের পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দেন৷

যদিও, এদিন আদালতে সওয়াল জবাবের পর অভিযুক্ত পক্ষের আইনজীবী আদালতের বাইরে মন্তব্য করেন, ‘‘পুলিশ যে মাওবাদী নেতা বিকাশ ওরফে সিংরাইল মুর্মুকে খুঁজছে, আদতে আটককৃত ওই ব্যক্তি সে নন৷’’ আদালতে দাড়িয়ে শুভাশিসবাবু বলেন, শনিবার হুগলির মগরার চামরুই গ্রামে মার্বেল কারখানা থেকে এই দু’জনকে তুলে এনেছে কলকাতা পুলিশের এসটিএফ। এই দু’জনের নাম মনসারাম হেমব্রম ও ঠাকুরমণি হেমব্রম হলেও এরা মাওবাদী দম্পতি বিকাশ ও তারা নয়। তাঁদের নামে ভুয়ো কাগজপত্র এবং অস্ত্র দেখিয়ে দেশদ্রোহিতা, অপরাধমূলক ষ়ড়যন্ত্র-সহ একাধিক মামলা সাজানো হয়েছে। বিষয়টি এখনই কেউ সম্পূর্ণ খতিয়ে দেখবে না। ভোটের সময়ে নিজেদের কৃতিত্ব দেখাতে অন্য লোককে হেনস্থা করছে পুলিশ। অভিযুক্তদের বার করার সময়ে পুলিশের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন বিবাদী পক্ষের আইনজীবী শুভাশিস রায়। তাঁর দাবি ছিল, অভিযুক্তদের মুখ ঢেকে বার করা যাবে না। তিনি বলেন, ‘‘নিরপরাধ ব্যক্তিকে অভিযুক্ত সাজিয়ে আদালতে মুখ ঢেকে নিয়ে আসা হয়। পরে লালবাজারে অভিযুক্তদের ছবি দেখিয়ে দেওয়া হয়।’’ অভিযুক্তদের মুখ ঢেকে বার করার কথা আইনে কোথাও বলা নেই বলে দাবি করেন তিনি। কলকাতা ছাড়া আর কোনও রাজ্যে এমনটা হয় না। এমনকি পুলিশ জোর করে মুখ ঢাকতে গেলে হাতাহাতির পরিস্থিতি তৈরি হবে বলে হুমকিও দেন তিনি।

উল্লেখ্য, শনিবার কলকাতা স্পেশাল টাস্ক ফোর্স দাবী করেছে, তারা শীর্ষ দুই মাওবাদী দম্পতিকে আটক করেছে। বিকাশ ওরফে সিংরাইল মুর্মু ও তার স্ত্রীকে শনিবার মধ্য কলকাতার একটি গোপন অবস্থান থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷ আটক দুজনেই কিষাণজী ঘনিষ্ঠ সক্রিয় দুই মাওবাদী নেতা বলে দাবি করে পুলিশ। ওই দিন গোপন সূত্রে খবর পেয়ে অভিযান চালায় পুলিশের আধিকারিকরা। যদিও, দীর্ঘদিন ধরে বিকাশ এবং তারার খোঁজে ছিলেন পুলিশ কর্তারা। ইতিমধ্যে, আটক দুই মাওবাদী সদস্যকে জেরা শুরু করেছে পুলিশ। পুলিশ বলছে, বিকাশ এবং তার স্ত্রী এখনও পর্যন্ত মাওবাদীদের সেন্ট্রাল মিলিটারি কমিশনের সক্রিয় সদস্য ছিল বলেও জানা গিয়েছে।

সূত্রঃ  kolkata24x7.com

Advertisements


Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s