সন্ত্রাসের অভিযোগ থেকে মাওবাদী তাত্ত্বিক কোবাদ গান্ধীকে মুক্তি দিল দিল্লির আদালত

patiala-district-patiala-bhushan-hindustan-maoist-leader_b343c18c-2efe-11e6-85eb-521f5a9851b5

অনূদিতঃ

সন্ত্রাসবাদ এবং নাশকতার সব অভিযোগ থেকে মাওবাদী তাত্ত্বিক নেতা কোবাদ গান্ধীকে শুক্রবার মুক্তি দিল দিল্লির আদালত।  তবে তাঁকে প্রতারণা ও জালিয়াতির অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে।  ২০০৯ সালের সেপ্টেম্বর থেকে বন্দি ছিলেন কোবাদ।

কোবাদ গান্ধীর বিরুদ্ধে ইউএপিএ আইনের ২০ এবং ৩৮ ধারায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছিল।  নিষিদ্ধ সংগঠনের সদস্য হওয়া এবং সেই সংগঠনের কার্যকলাপ বাড়ানোর চেষ্টা করা, মূলত এই সব অভিযোগেই মামলা চলছিল তাঁর বিরুদ্ধে।  পশ্চিমবঙ্গের শালবনীতে মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের কনভয় যাওয়ার রাস্তায় বিস্ফোরণ ঘটানোর পিছনেও কোবাদের হাত ছিল বলে তদন্তকারীরা দাবি করেছিলেন।  কিন্তু সে সব অভিযোগ আদালতে প্রমাণ করা যায়নি।  দিল্লির একটি আদালত তাই শুক্রবার ইউএপিএ আইনের আওতায় আনা সব অভিযোগ থেকে ওই মাওবাদী তাত্ত্বিককে মুক্তি দিয়েছে।  তবে প্রতারণা ও জালিয়াতির অভিযোগে তাঁকে দোষী সাব্যস্ত করে আদালত তাঁকে সাজা দিয়েছে।  এই রায়ে কোবাদের জেল খাটার মেয়াদ অবশ্য আর বাড়ছে না। কারণ কোবাদকে তত দিনের জন্যই সাজা দিয়েছে আদালত, যত দিন তিনি ইতিমধ্যেই জেলে কাটিয়ে দিয়েছেন।

সূত্রঃ hindustantimes.com

Advertisements

মাওবাদী ধর্মঘটে অচল নেপাল, গ্রেফতার ১৫০

The Koteshwor-Balkumari road section along the Ring Road in Kathmandu wears a deserted look as the Netra Bikram Chand-led CPN Maoist imposes a bandh against arrest of their cadres, on Thursday, June 9, 2016. Photo: Monica Lohani

অনূদিতঃ 

নেপালে গতকাল নেত্র বিক্রম চাঁদ নেতৃত্বাধীন সিপিএন-মাওবাদী’র ডাকা বনধে অচল হয়ে পড়ে নেপাল।

নিজ দলের ক্যাডারদের মুক্তির দাবীতে ডাকা এই ধর্মঘট চলাকালীন ১৫০জন মাওবাদীকে গ্রেফতার করে পুলিশ, বিক্ষোভকারীরা এসময় রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে নয়টি পাবলিক বাস ও ট্যাক্সি ভাংচুর করে ও পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে।  রাউতাহাতা জেলায় পেট্রোল বোমার আঘাতে একজন ট্রাক চালক আহত হয়েছেন, ধর্মঘটে সরকারী ও বেসরকারী পরিবহন সেবা ফাঁকা হয়ে যায়, স্কুল ও কলেজ ধর্মঘটের কারণে বন্ধ করে দেওয়া হয়।  রাজধানী অধিকাংশ স্থানের মার্কেট ও দোকানের শাটার সকাল থেকেই বন্ধ থাকে।  কাঠমান্ডু মেট্রোপলিটন পুলিশ সার্কেলের তথ্য অনুযায়ী কাঠমান্ডু, ভক্তপুরে এবং ললিতপুর থেকে ৬২ বিক্ষোভকারীকে গ্রেফতার করা হয়।  হরতাল জোরদার করতে চেষ্টা করার সময় সারলাহি, কাস্কি, কালিকোট, সুন্সারি, বাঙ্কে এবং চিতওয়ান জেলা থেকে প্রায় ৯০ জন আন্দোলনকারীকে গ্রেফতার করা হয়।  এ সময় কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা যাতে না ঘটে সেজন্যে রাজধানীর রাস্তায় নিরাপত্তা কর্মীদের একটি বড় সংখ্যা মোতায়েন করা হয়।

সূত্রঃ http://www.tribuneindia.com/news/world/maoist-strike-cripples-nepal-150-arrested/249487.html


সাতক্ষীরায় কথিত বন্দুকযুদ্ধে ‘পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টি’র নেতা নিহত