অক্টোবর বিপ্লবের ১০০ বছর উপলক্ষ্যে কেরালায় অনুষ্ঠান

14793776_10210987372226170_2074533427_n

Advertisements

‘জেলের কমরেডদের প্রতি আহ্বান’ – সিপিআই(মাওবাদী) পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য কমিটির নথি

Maoist-Flag

বাংলায় লেখা তিন পাতার পুস্তিকা— ‘জেলের কমরেডদের প্রতি আহ্বান’। মাওবাদী দলের রাজ্য কমিটির ওই নথি থেকে তাদের এক নতুন কৌশল সম্পর্কে জানা যাচ্ছে।

গত মাসে ওই পুস্তিকা হাতে পেয়ে গোয়েন্দাদের প্রাথমিক পর্যবেক্ষণ হল, লালগড়কে কেন্দ্র করে জঙ্গলমহলে জোরদার ধাক্কা সামলে এখন ঘর গোছানোর চেষ্টা করছেন মাওবাদীরা।

পুস্তিকায় সিপিআই (মাওবাদী) রাজ্য কমিটি বার্তা দিয়েছে, বিচারাধীন বন্দি হিসেবে বা দোষী সাব্যস্ত হয়ে জেলে গেলেই ক্যাডারদের নাম খরচের খাতায় লেখা হবে না। বরং, জেলে যাঁরা আছেন, তাঁরাও দলের অপরিহার্য অঙ্গ। পার্টি লাইন অনুযায়ী ওই বন্দিরা জেলের মধ্যে পুরোদস্তুর রাজনৈতিক কার্যকলাপ করবেন জেলের বাইরে থাকা কমরেডদের সহযোগিতায়। এমন ভাবে বন্দিদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে হবে, যাতে তাঁরা নিজেদের বিচ্ছিন্ন বলে মনে না করেন। মাওবাদীদের একটি সূত্র বলছে, রাজ্যের বিভিন্ন জেলে মাওবাদী কার্যকলাপে অভিযুক্ত বন্দির সংখ্যা ৯০। এর মধ্যে ১৯ জন সাজাপ্রাপ্ত। বাকি ৭১ জন বিচারাধীন।

জেলবন্দি ক্যাডারদের প্রতি মাওবাদী রাজ্য কমিটির নির্দেশ, পার্টির পুস্তিকা পড়তে হবে, নিবন্ধ লিখতে হবে এবং জেলের মধ্যেই রাজনৈতিক বিতর্ক তৈরি করতে হবে। বন্দি ক্যাডারদের আর্থিক সাহায্য দিতে বাইরে থাকা কমরেডদের তহবিল সংগ্রহের জন্য ঝাঁপাতে বলা হয়েছে। বন্দিদের জন্য পত্রপত্রিকা ও অন্য জিনিসপত্র নিয়মিত সরবরাহ করতে হবে ওই টাকায়।

এ ছাড়া জেলবন্দি ক্যাডারদের আইনি সহায়তা দেওয়ার কথাও ওই পুস্তিকায় বলা হয়েছে। দলীয় সূত্রের খবর, এই পথেই কিছু দিন আগে পার্টির প্রাক্তন মুখপাত্র গৌর চক্রবর্তী মামলা থেকে মুক্তি পেয়েছেন।

কেন এই উদ্যোগ?

গোয়েন্দাদের দাবি, দলের রাজ্য নেতা বলতে এখন অসীম মণ্ডল ওরফে আকাশ, মাধাই পাত্র এবং রঞ্জিত পাল ছাড়া তেমন কেউ নেই! আইবি-র এক কর্তার কথায়, ‘‘রাজ্যে মাওবাদীদের সংগঠন ভেঙে গিয়েছে।  জঙ্গলমহলেও জনসমর্থনের ভিত্তি আর নেই। এই অবস্থায় যে টুকু জনসমর্থন অবশিষ্ট রয়েছে, তাই আঁকড়ে ধরার চেষ্টা করছেন ওঁরা।’’ তাঁর বক্তব্য, জেল থেকে সাজা খেটে বেরোলে বা জামিন পেলে বা খালাস হলে ওই মাওবাদীরা যাতে দলের সঙ্গেই থাকেন, সেই জন্যই এই উদ্যোগ।

পুস্তিকায় আরও বলা হয়েছে, পার্টির গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত সম্পর্কে বন্দিদের সময় মতো জানাতে হবে। অভ্যন্তরীণ রিপোর্ট, জরুরি তথ্য সংবলিত নথি, পার্টির পত্রপত্রিকা, মুখপত্র তাঁরা যাতে জেলে বসেই পেয়ে যান, সেটা নিশ্চিত করবেন জেলের বাইরে থাকা পার্টি ক্যাডাররা। রাজ্য কমিটির সাবধানবাণী, বন্দি মাওবাদীদের কার্যকলাপ জানতে শত্রুরা চর পাঠাতে পারেন। যাঁরা কাজ করবেন বন্ধুর ছদ্মবেশে। তাঁদের ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে।

সূত্রঃ http://www.anandabazar.com/state/investigation-says-maoist-are-planning-to-encourage-their-workers-who-are-in-jail-1.500313


মাওবাদীরা নয়, গ্রাম পুড়িয়েছিল পুলিশ ও সালওয়া জুডুম কর্মীরা: সিবিআই

cbi-759

সালটা ২০১১। ছত্তিসগড়ের সুকমা জেলা। গ্রামের নাম তাদমেতলা। পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল গ্রামের ১৬০ টি ঘর। ছত্তিশগড় সরকার এবং রাজ্য পুলিশ এর আগে জানিয়েছিল, ওই ঘটনা ঘটিয়েছে মাওবাদীরা। কিন্তু  তদন্তের পর সুপ্রিম কোর্টে সিবিআই জানাল, মাওবাদী নয়, ঘটনার পেছনে ছিল নিরাপত্তা বাহিনী এবং সালওয়া জুডুম কর্মীরাই।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিচারপতি মদন বি লকুরের বেঞ্চে সিবিআই জানিয়েছে তাদমেতলা গ্রামের ১৬০ টি ঘর পুড়ে যায় পুলিশি অভিযান চলাকালীন। সালওয়া জুডুমের সাতজন স্পেশাল পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধেও ওই ঘটনায় চার্জশিট দাখিল করেছে সিবিআই।

সূত্রঃ http://indianexpress.com/article/india/india-news-india/security-forces-burnt-160-homes-in-chhattisgarh-village-tadmetla-says-cbi-march-2011-3096011/