বাংলাদেশঃ ‘নয়াগণতান্ত্রিক গণমোর্চা’ ফুলবাড়ি অঞ্চল শাখার আহবান –

%e0%a6%b2

Advertisements

বাংলাদেশঃ ২রা জানুয়ারী ২০১৭ ‘জাতীয় শহীদ দিবস’ উদযাপন করুন!

%e0%a6%aa


বাংলাদেশের গণযুদ্ধের সংবাদ –

meherpur-crossfire-pic-01

মেহেরপুরে কথিত বন্দুকযুদ্ধে পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টির (এমএল-জনযুদ্ধ) ৩ সদস্য নিহত

মেহেরপুরের গাংনীতে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে তিন যুবক নিহত হয়েছে, যাদের চরমপন্থী বলছে পুলিশ।

৫ই ডিসেম্বর, সোমবার শেষ রাতের দিকে উপজেলার পুরাতন মটমুড়া গ্রামের একটি ইট ভাটায় চাঁদা নিতে এসে বন্দুকযুদ্ধে তারা নিহত হন বলে জানান মেহেরপুর পুলিশ সুপার আনিছুর রহমান।

এ সময় ছয় পুলিশ সদস্য স্প্লিন্টারে আহত হয়। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

নিহতরা হলেন গাংনী উপজেলার মানিকদিয়া গ্রামের চাঁদ আলীর ছেলে মহিবুল ইসলাম (২৪), একই গ্রামের আলতাব হোসেনের ছেলে তাজমুল আলম (২৫) ও ভোলাডাঙ্গা গ্রামের ফকির মোহাম্মদের ছেলে তুহিন শেখ (২১)।

এরা সবাই পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টির (এমএল-জনযুদ্ধ) সদস্য। তাদের পকেট থেকে চরমপন্থী দলের লিফলেট পাওয়া গেছে বলে জানান পুলিশ সুপার।

তিনি বলেন, বিভিন্ন ইট ভাটায় চাঁদা আদায় করাই ছিল ওদের কাজ। পুলিশ দলটির পালিয়ে যাওয়া সদস্যদের গ্রেপ্তারে অভিযান শুরু করেছে।

ঘটনাস্থলের কাছের একতা ইট ভাটার মালিক বলেন, ১৫/২০ দিন ধরে এলাকার বিভিন্ন ইটভাটায় চরমপন্থী এই দলটি চাঁদা দাবি করে আসছিল। কয়েকটি ভাটা মালিক চাঁদা দিয়েছেও। চরমপন্থী দলটি সোমবার রাতে চাঁদা নিতে আসবে এ বিষয়টি পুলিশকে জানালে চাঁদা দিতে নিষেধ করে তারা ঘটনাস্থলে ওঁৎ পেতে থাকে।

“চাঁদা নিতে আসা দলটি পুলিশকে লক্ষ্য করে বোমা ছুঁড়লে পুলিশ পাল্টা গুলি ছুড়ে। এ সময় দুপক্ষের গোলাগুলিতে তিন চরমপন্থী নিহত হয়।”

গাংনী থানার ওসি আনোয়ার হোসেন বলেন, “পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে চরমপন্থীরা প্রথমে বোমা ছুঁড়ে মারে। তখন পুলিশ পাল্টা গুলি চালায়।

“গোলাগুলির একপর্যায়ে তারা পালিয়ে গেলে ঘটনাস্থলে তিনজনের লাশ পাওয়া যায়।”

তাছাড়া ঘটনাস্থ থেকে দুইটি বন্দুক, একটি এলজি শার্টারগান, দুই রাউন্ড গুলি, দুইটি রামদা ও দুইটি তাজা হাতবোমা উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

সূত্রঃ http://bangla.bdnews24.com/samagrabangladesh/article1253200.bdnews

image-10291-1480689118

চুয়াডাঙ্গায় পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টির (এমএল) শীর্ষ নেতা আটক

চুয়াডাঙ্গায় পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টির (এমএল) শীর্ষ নেতা রুস্তম আলী (৩৬)কে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন ‘র‌্যাব’-৬ এর সদস্যরা।

শুক্রবার সন্ধ্যায় চুয়াডাঙ্গা-ঝিনাইদাহ সড়কের হায়দারপুর এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়।

এ সময় তার কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় একটি রিভলবার ও ৪ রাউন্ড গুলি।

আটক রুস্তম আলী আলমডাঙ্গা উপজেলার তিয়রবিলা গ্রামের আব্দুল গফুরের ছেলে।

র‌্যাব জানায়, রুস্তম আলী চুয়াডাঙ্গা-ঝিনাইদহ সড়কের হায়দারপুর এলাকায় অবস্থান করছে এমন খবরের ভিত্তিতে ওই এলাকায় অভিযান চালানো হয়। অভিযানের এক পর্যায়ে তাকে অস্ত্র ও গুলিসহ আটক করা হয়।

ঝিনাইদহ র‌্যাব-৬ এর ক্যাম্প কমান্ডার মেজর মনির আহমেদ জানান, আটক রুস্তম নিষিদ্ধ ঘোষিত চরমপন্থী সংগঠন পূর্ববাংলা কমিউনিস্ট পার্টির শীর্ষ নেতা। তার নামে চাঁদাবাজি, বোমাবাজিসহ অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে।

আটকের পর রাতেই তাকে চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় হস্তান্তর করা হয়।

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তোজাম্মেল হক জানান, থানা হেফাজতে নিয়ে রুস্তমকে তার সহযোগিদের ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

সূত্রঃ  dhakatimes24.com

 

osroo

রাজবাড়ীতে লাল পতাকা সদস্য গ্রেফতার

রাজবাড়ীতে একটি ওয়ান শুটারগান ও দুই রাউন্ড গুলিসহ আশরাফুল ইসলাম ফুলি (৩৮) নামের এক চরমপন্থী লাল পতাকা দলের সদস্যকে গ্রেফতার করেছে বলে জানিয়েছে ডিবি পুলিশ। মঙ্গলবার দুপুর দেড়টার দিকে জেলা সদরের সূর্য্যনগর রেলস্টেশন বাজার থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত ফুলি রাজবাড়ী জেলা সদরের বড় চরবেনীনগর গ্রামের আসমত আলীর ছেলে। রাজবাড়ী ডিবি পুলিশের এসআই কামাল হোসেন ভূঁইয়া জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ফুলিকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তার কাছ থেকে একটি ওয়ান শুটারগান ও দুই রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতারকৃত ফুলির বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলাসহ একাধিক মামলা রয়েছে বলেও জানান এসআই কামাল।

সূত্রঃ  http://www.somoyerkonthosor.com/2016/12/06/72017.htm


২২শে ডিসেম্বরঃ কমরেড আবদুল হকের ২১তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন করুন!

15401226_10211486971155831_1564898713_n


পুলিসের গুলিতে নিহত মাওবাদী নেতাকে শ্রদ্ধা জানাল সিপিআই

d

বিজেপির হুমকির জেরে কেরলে পুলিসের গুলিতে নিহত মাওবাদী নেতা কুপ্পো দেবরাজের মরদেহ নিয়ে মিছিল করতে অনুমতি দিল না পুলিস। তবে মাওবাদী সমর্থকদের চাপে পড়ে কোজিকোড়ে মর্গের বাইরে দেহ বার করে জনগণের সামনে রাখতে বাধ্য হয় পুলিস। শখানেক মাওবাদী সমর্থক তাদের নেতাকে শেষ শ্রদ্ধা জানান। southlive এ প্রকাশিত খবর অনুযায়ী সিপিএমের তরফে কেউ হাজির না থাকলেও মাওবাদী নেতাকে শ্রদ্ধা জানাতে হাজির ছিলেন সিপিআই নেতা বিনয় বিশ্বম। সিপিআইয়ের তরফে হত্যার বিচারবিভাগীয় তদন্তের দাবিও জানান হয়েছে। গত ২৪ নভেম্বর মাল্লাপুরাম জেলার নিলাম্বুরের জঙ্গলে সিপিআই মাওবাদীর কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য দেবরাজ ও নারী মাওবাদী নেত্রী অজিতাকে গুলি করে হত্যা করা হয় বলে অভিযোগ। যদিও পুলিসের দাবি সংঘর্ষে মৃত্যু হয়েছে ওই দুই মাওবাদী নেতার। বিষয়টি নিয়ে হইচই হতেই ম্যাজিস্ট্রেট পর্যায়ের তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী পিনরাই বিজায়ন।

সূত্রঃ satdin.in