বিশেষ গোয়েন্দা রিপোর্টঃ ৩৫টি জেলায় মাওবাদীদের ২ লাখ গেরিলা ও ১০,০০০ আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে

498918-jpg_343332_1000x667

তেলেঙ্গানা রাজ্য পুলিশের মাওবাদী দমন বিভাগের বিশেষ গোয়েন্দা শাখা এক রিপোর্টে জানাচ্ছে, মাওবাদীদের এখনও ৩৫ জেলায় ছড়িয়ে থাকা ২ লাখ ক্যাডারের একটি বিশাল গণভিত্তি রয়েছে এবং ১০,০০০টি আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে, এর মধ্যে ৪,০০০টি কোম্পানী নির্মিত এবং অবশিষ্টগুলো দেশীয় তৈরী।

এই প্রতিবেদনে, পুলিশ অভিযোগ করে যে, মাওবাদীরা এখনও প্রতি বছর ১২০ – ১৫০ কোটি রুপী উত্তোলন করে, যা মূলত বিভিন্ন উৎস থেকে যেমনঃ ঠিকাদার / শিল্পপ্রতিষ্ঠান / ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে সংগ্রহ করা হয়।

সিআরপিএফের প্রাক্তন প্রধান কোড দুর্গা প্রসাদ বলেন, “মাওবাদীরা হুমকি ও ভয় দেখিয়ে বেঁচে থাকে এবং তারা জনগণের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ সংগ্রহ করে,” তিনি বলেন, ২৪ সদস্যের মাওবাদী কেন্দ্রীয় কমিটির অর্ধেকই সংঘর্ষে নিহত হয়, আত্মসমর্পিত হয় বা গ্রেফতার করা হয়। মাওবাদীদের পলিটব্যুরোর শক্তিও দুর্বল হয়ে পড়েছে। তিনি বলেন, “ক্যাডাররা হ্রাস পেয়েছে  এবং তারা নিয়োগের জন্য কঠিন পথের খোঁজ করছে”।

ছত্তিশগড়ের সুকমা জেলার নিরপেক্ষ ভূখন্ডে ২৫শে এপ্রিল সিআরপিএফ বাহিনীর বিরুদ্ধে মাওবাদীদের অভিযানের সমর্থনে কাজ করার জন্য বিপুল সংখ্যক মাওবাদী মিলিশিয়া সদস্যের উপস্থিতি ছিল। সিআরপিএফের অতিরিক্ত মহাপরিচালক সুদীপ লক্ষিতকিয়া বলেন, “আদিবাসী এলাকায় নিরাপত্তা বাহিনীকে বড় ধরণের বিপদের সম্মুখীন হতে হয়। মাওবাদীরা এবং তাদের সমর্থনকারী মিলিশিয়ারা সংখ্যায় বড়। সাম্প্রতিক হামলার সময় মাওবাদীদের শ্রেষ্ঠত্বের অনুপাত ছিল ১:৫।”

মাওবাদীরা এখন দক্ষিণ ছত্তিশগড় সীমান্তবর্তী অন্ধ্রপ্রদেশ এবং তেলেঙ্গানা রাজ্য সীমান্তের দিকে মনোনিবেশ করছে। “মাওবাদীদের সশস্ত্র দল পিপলস লিবারেশন গেরিলা আর্মি’র দুটি সামরিক ব্যাটেলিয়ন ঐ প্রান্তিক অঞ্চলে কাজ করছে”।

দিল্লি স্কুল অফ ইকনমিক্স বিভাগের সমাজবিজ্ঞানের অধ্যাপক নন্দিনী সুন্দর, যিনি এলাকায় আদিবাসীদের নিয়ে ব্যাপক কাজ করেছেন, তিনি বলেন, “অনেক মানুষ মারা গেছে তা বুঝাতে কত মৃত্যুর প্রয়োজন হবে?”

তিনি বলেন, “একমাত্র স্থায়ী সমাধান সংলাপ এবং আদিবাসীদের তাদের জমি ও বনভূমি নিয়ে সাংবিধানিক অধিকার নিশ্চিত করা। নিরাপত্তা বাহিনী দাবি করার চেষ্টা করছে যে, তারা মাওবাদীদের উপস্থিতি কমিয়ে আনতে পেরেছ এবং এবার তারা শেষ করেই ছাড়বে। তবে, যতক্ষণ না অন্তর্নিহিত বিষয়গুলি সমাধান করা হচ্ছে, ততক্ষণ শুধুমাত্র আরো CRPF বাহিনী পাঠিয়ে কোন কাজ হবে না।”

সূত্রঃ  http://www.deccanchronicle.com/nation/current-affairs/300517/maoists-have-a-mass-base-of-2-lakh-men-and-10000-guns.html

Advertisements


Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s