চারু মজুমদারের সংগৃহীত রচনা সংকলন: ‘ভারতবর্ষের জনগণতান্ত্রিক বিপ্লব’

500x350_0718bd934ac49f1e112b30cd4cfd4285_charu_majumder

ভারতবর্ষের জনগণতান্ত্রিক বিপ্লব

 

পঞ্চাশ কোটির এই দেশে জনগণতান্ত্রিক বিপ্লব সফল হওয়ার অর্থ সমগ্র বিশ্বের সমস্ত সাম্রাজ্যবাদ ও সংশোধনবাদ তার নিশ্চিত মৃত্যুর মুখে এসে দাঁড়াবে।

এ দেশের জনগণতান্ত্রিক বিপ্লব সফল করতে হবে বিশ্বের সমস্ত সাম্রাজ্যবাদী শক্তির বিরোধীতা করে বিশেষ করে মোকাবিলা করতে হবে সাম্রাজ্যবাদী শিবিরের নেতা মার্কিন সাম্রাজ্যবাদের, যে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ যুদ্ধ-পূর্ব যুগের জার্মানী, জাপান ও ইটালীর সমস্ত আক্রমণমুখী রূপকে শুধু গ্রহণ করেনি তাকে এগিয়ে নিয়ে গেছে অনেক দূল। সারা বিশ্বে আজ তার আক্রমণাত্মক কার্যকলাপ ছড়িয়ে আছে এবং ভারতবর্ষকে সে কুক্ষিগত করছে নয়া ঔপনিবেশিক জালে। ভিয়েতনামের মানুষ এই আক্রমণমুখী সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী সংগ্রামের নেতৃত্ব করছেন। এই সংগ্রাম চলেছে এশিয়া, আফ্রিকা ও লাটিন আমেরিকার বিভিন্ন দেশে। ভারতবর্ষের সফল বিপ্লব এই সাম্রাজ্যবাদ দানবকে একটা ধ্বংসস্তুপে পরিণত করবে।

এই দেশে জনগণতান্ত্রিক বিপ্লব সফল করতে হবে মহান অক্টোবর বিপ্লবের দেশ সোভিয়েত ইউনিয়নের সক্রিয় বিরোধীতা করে। কারণ সোভিয়েত রাষ্ট্রের, পার্টির ও সৈন্যবাহিনীর বর্তমান নেতারা সংশোধনবাদী নীতি গ্রহণ করে বুর্জোয়া একনায়কত্ব কায়েম করেছে এবং এশিয়া, আফ্রিকা, লাটিন আমেরিকার বিভিন্ন দেশে মার্কিন সহযোগিতায় শোষক ও শাসকের ভূমিকা নিয়েছে। ওরা এই ভারতবর্ষে মহান লেনিনের নামে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদের প্রধান ফেরিওয়ালা। ওদের তৈরী দালালদের সাহায্যে [ডাঙ্গে চক্র ও নয়াসংশোধনবাদী চক্রের সাহায্যে] ভারতবর্ষকে নিরঙ্কুশ শোষণের ক্ষেত্র বানাচ্ছে এবং সংগ্রামী জনতাকে ধোঁকা দিয়ে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ ও দেশীয় প্রতিক্রিয়াশীলদের বিশ্বাসী কুকুরদের কাজ করছে। ভারতবর্ষের সফল বিপ্লব শুধু ভারতবর্ষের মাটিতেই সোভিয়েত সংশোধনবাদ ও তাদের দেশী দালালদের মৃত্যুর দিন ঘনিয়ে আনবে না, আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে তাদের মৃত্যু ঘটবে নিশ্চিত।

আমাদের দেশে জনগণতান্ত্রিক বিপ্লব সফল করতে হবে মহান চেয়ারম্যানের চিন্তাধারার উপর নির্ভর করে। চেয়ারম্যানের চিন্তাধারাকে কে কতখানি উপলব্ধি করল ও প্রয়োগ করল তারই উপর তিনি বিপ্লবী কিনা তার বিচার হবে। তাছাড়া চেয়ারম্যানের চিন্তাধারা যতখানি কৃষক ও শ্রমিকদের মধ্যে প্রচার ও প্রসার করা হোল তারই উপর বিপ্লবী জোয়ার সৃষ্টি হবে। কারণ চেয়ারম্যানের চিন্তাধারা আজকের যুগের মার্কসবাদ-লেনিনবাদ, তাইই নয় চেয়ারম্যান মার্কসবাদ-লেনিনবাদকে অনেক উচ্চ পর্যায়ে তুলছেন। তাই বর্তমান যুগ চেয়ারম্যানের চিন্তাধারার যুগে রূপান্তরিত হয়েছে।

আমাদের ভারতবর্ষে জনগণতান্ত্রিক বিপ্লব সফল করতে হবে দেশের ভেতরে আমলাতান্ত্রিক ও মুৎসুদ্দি পুঁজির বিরুদ্ধে এবং ব্যাপক গ্রামাঞ্চলে সামস্ত শোষণের বিরুদ্ধে। পঞ্চাশ কোটি মানুষের এই দেশে যেহেতু গ্রামে বাস করেন ৪০ কোটি লোক এবং যেহেতু তাদের উপর সামন্ত শোষণই প্রধান, তাই আমাদের দেশের আজও প্রধান বিরোধ গ্রামের কৃষক শ্রেণীর ও জমিদার শ্রেণীর মধ্যে। এই বিরোধের মীমাংসা হতে পারে একমাত্র গ্রামাঞ্চলে, শ্রমিক নেতৃত্বে কৃষকের সশস্ত্র বাহিনীর সাহায্যে মুক্ত অঞ্চল গড়ার মধ্য দিয়ে। আমাদের যুগে এ কাজ সর্ব বৃহৎ ও সর্ব প্রধান কাজ হিসাবে দেখা দিয়েছে কারণ ভারতবর্ষে আজ বিপ্লবী আন্দোলনের জোয়ার এসেছে এবং চেয়ারম্যানের নির্দেশিত এই পথ কৃষক ও বিপ্লবী জনতার মধ্যে ক্রমেই বেশী বেশী করে প্রবেশ করছে।

আমাদের দেশে বিপ্লব করতে হবে আমলাতান্ত্রিক ও মুৎসুদ্দি পুঁজির প্রতিভূ কংগ্রেস সরকারের বিরুদ্ধে যারা যুদ্ধোত্তর যুগের গণ-অভুত্থান দেখে ভয় পায় এবং সমস্ত শ্রেণীর সহযোগিতায় সা¤্রাজ্যবাদীদের সাথে রফা করে। ভারতবর্ষের তথাকথিত কমিউনিস্ট পার্টির নেতারা সক্রিয় সহযোগিতা করল এই সব প্রতিক্রিয়াশীল শক্তির সাথে, কখনও আপসের নামে, কখনও সরাসরি বিশ্বাসঘাতকতা মারফৎ। তারা কলঙ্কিত করেছে কায়র বীরদের পুনাপ্রাভায়ালার সংগ্রামীদের, তেলেঙ্গানার অসম সাহসীক বীর এবং বাংলা ও অন্যান্য দেশের শত শত শহীদদের রক্তে রঞ্জিত লাল পতাকা। আজ ভারতবর্ষের প্রতিটি রাজনৈতিক পার্টি মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ, সোভিয়েত সংশোধনবাদ ও দেশীয় প্রতিক্রিয়াশীলদের সক্রিয় সহযোগী ও বিপ্লবের শত্রু। তাই ভারতবর্ষের নয়া-গণতান্ত্রিক বিপ্লব সফল হতে পারে একমাত্র শ্রমিক নেতৃত্বে এবং চেয়ারম্যানের চিন্তাধারার সাহায্যে।

এই নয়া গণতান্ত্রিক বিপ্লব সংগঠিত ও সফল করতে হলে চাই শ্রমিক শ্রেণীর পার্টি কমিউনিস্ট পার্টি ও তার রাজনৈতিক মতাদর্শ হবে মার্কসবাদ-লেনিনবাদ ও তার সর্বোচ্চ রূপ মাও সেতুঙ এর চিন্তাধারা। কিন্তু এই পার্টি কিভাবে গড়ে উঠবে? বিভিন্ন তথাকথিত মার্ক্সিষ্ট সদস্যরা চেয়ারম্যান মাও সেতুঙ-এর চিন্তাধারা মানেন বলে তাদের পার্টির নেতৃত্বেও বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে আসলেই কি আমরা তাদের একত্রিত করে ঘোষণা করবে। যে একটি মাওবাদী পার্টি গঠিত হল? নিশ্চয়ই না। কারণ শুধু বিদ্রোহের পতাকা ওড়ালেই মাওবাদী পার্টি গড়ে ওঠে না। সেই বিদ্রোহী কমরেডদের চেয়ারম্যানের চিন্তাধারাকে বাস্তবে প্রয়োগ করতে হবে এবং সেই প্রয়োগের মারফৎ শ্রমিক ও কৃষক ক্যাডার তৈরী করতে হবে। তবেই আমরা বলবো একটি সঠিক মাওবাদী পার্টি গড়ার পথে এগোচ্ছি। পুরাতন রাজনৈতিক কর্মীরা অবশ্যই এই পার্টিতে থাকবেন কিন্তু মূলত এই পার্টি গড়ে উঠবে শ্রমিক কৃষক ও মেহনতী মধ্যবিত্ত শ্রেণীর যুবকদের দ্বারা, যাঁরা শুধু মুখে চেয়ারম্যানের চিন্তাধারাকে মানবেন না, জীবনে তার প্রয়োগ করবেন, ব্যাপক জনতার মধ্যে প্রচার ও প্রসার করবেন এবং গ্রামাঞ্চলে সশস্ত্র সংগ্রামের ঘাঁটি বানাবেন। সেই নতুন পার্টি শুধু বিপ্লবী পার্টিই হবে না; তারা হবে জনতার সশস্ত্র বাহিনী এবং জনতার রাষ্ট্রশক্তি। এই পার্টির প্রত্যেকটি সভ্যকে সংগ্রাম করতে হবে সামরিক রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে। এই রকম একটি পার্টি গড়ার কাজে আমাদের এখনই হাত দিতে হবে। সারা ভারতবর্ষব্যাপী এরকম পার্টি গড়া আজকেই হয়ত সম্ভব নয় কিন্তু তাতে হতাশ হলে চলবে না। যতটুকু এলাকায় এরকম পার্টি গড়া যায় সেইটুকু এলাকা নিয়েই কাজ শুরু করতে হবে সংখ্যালঘু হওযার ভয় আমাদের ত্যাগ করতে হবে এবং চেয়ারম্যানের চিন্তাধারার উপর দৃঢ় বিশ্বাস নিয়ে অগ্রসর হতে হবে। আমাদের কাজ সহজ নয়, অত্যন্ত কঠিন। আমাদের সংগ্রাম বিশ্বের সমস্ত সংগ্রামী মানুষের মনে নতুন উৎসাহ সৃষ্টি করবে। এইভাবে আমরা সফলভাবে ভিয়েতনামের বীর যোদ্ধাদের সাহায্য করতে পারবো। এই রকম একটি বিপ্লবী পার্টি পারে সফলভাবে সশস্ত্র সংগ্রাম পরিচালনা করতে এবং পারে ব্যাপকতম যুক্তফ্রণ্ট গড়ে তুলতে – যে দুটোর সাহায্যে বিপ্লব সাফল্যমণ্ডিত হবে।

যাঁরা ভাবছেন যে তথাকথিত মার্কসবাদী পার্টিগুলো থেকে ব্যাপকতম অংশকে আমাদের পক্ষে টেনে আনাই প্রধান কাজ এবং এ কাজ করতে পারলেই বিপ্লবী পার্টি গড়ে উঠবে তারা আসলে আর একটা নির্বাচনের পার্টি গড়ার কথাই ভাবছেন সচেতনভাবে বা অচেতনভাবে। কারণ তারা ভুলে যাচ্ছেন যে এইসব তথাকথিত মার্কসবাদী পার্টিগুলোর সভ্যদের হয়তো বিপ্লবী হওয়ার মতো গুণ আছে এখনও, কিন্তু যে প্রয়োগের মধ্য দিয়ে তারা গেছেন তা হল খাঁটি সংশোধনবাদ এবং সেই প্রয়োগের ফলে তারা তাদের বিপ্লবী গুণগুলি অনেকাংশেই হারিয়েছেন এবং তাদের নতুন প্রয়োগ শিক্ষার ভিতর দিয়ে নতুন করে বিপ্লবী হতে হবে। তাই পুরাতন পার্টি সভ্যদের উপর ভরসা করে বিপ্লবী পার্টি গড়া যায় না। নতুন পার্টি তৈরী হবে সম্পূর্ণ নতুন বিপ্লবী শ্রমিক-কৃষক ও মধ্যবিত্ত যুবকদের চেয়ারম্যানের চিন্তাধারায় শিক্ষিত করে বিপ্লবী প্রয়োগ মারফৎ।

বিপ্লবী পার্টি গড়ার প্রাথমিক শর্ত হচ্ছে গ্রামাঞ্চলে সশস্ত্র সংগ্রাম গড়ে তোলা। এ কাজে হাত না দেওয়া পর্যন্ত বিপ্লব শুধু মুখে স্বীকার করা হোল। সুতরাং চেয়ারম্যানের ভাষায় তাঁরা হলেন কথায় বিপ্লবী (revolutionary in words)। আমাদের বিপ্লবী পার্টি গড়ে উঠবে কাজে বিপ্লবীদের (revolutionary in deeds) দ্বারা। এভাবে না দেখলে পার্টি হবে একটি কচকচির আড্ডাখানা (debating society)। যেমন বর্ধমান প্লেনাম হলো একটি কচকচির আড্ডাখানা।

বর্ধমানে কি হয়েছে? যে সোভিয়েত শাসকচক্র আজ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের গণমুক্তি সংগ্রামের এক নম্বর শত্রু হয়ে গেছে এবং প্রকাশ্যভাবে জাতীয় বিপ্লবগুলি ধ্বংস সাধনের চেষ্টা করছে সেই সোভিয়েত রাষ্ট্রে ধনতন্ত্রের কতখানি বিকাশ হয়েছে তাই নিয়ে জোর বিতর্ক চালান হোল। শ্রমিকশ্রেণীর একনায়কত্ব ধ্বংস করে যেখানে বুর্জোয়া একনায়কত্ব কায়েম হয়ে গেছে সেখানে ধনতন্ত্রের বিকাশ নিয়ে জোরতর্ক করা হচ্ছে জনসাধারণকে বিভ্রান্ত করা এবং প্রধান শত্রুর বিরুদ্ধে সংগ্রামকে ভোঁতা করে দেওয়া। তাই বর্ধমানে যা ঘটেছে তাতে, দুনিয়াব্যাপী সংশোধনবাদীরা খুশী হয়েছে এবং তাদের চক্রান্ত সফল হয়েছে। বর্ধমানে একজনও এই সংশোধনবাদী বিশ্বাসঘাতকদের সম্পর্ক ত্যাগ করেনি।

তাই পার্টির ভেতরে যে বিপ্লবী শক্তি আছে তার উপর ভরসা করলে আমরা বিপ্লবী পার্টির বাইরে লক্ষ লক্ষ বিপ্লবী নওজোয়ানদের প্রতি। তবেই সত্যিকারের বিপ্লবী পার্টি গড়ে উঠবে এবং সশস্ত্র সংগ্রামের বিপ্লবের ঘাঁটি আমরা তৈরী করতে পারবো।

কমরেডস, আমাদের দায়িত্ব অনেক। বিশ্বের সমস্ত প্রতিক্রিয়াশীল শক্তি আমাদের দেশকে ঘাঁটি করেছে এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মুক্তি সংগ্রামকে ধ্বংস করার কেন্দ্র হিসাবে ব্যবহার করছে। ভারতবর্ষকে তারা কামানের খোরাক সংগ্রহের প্রধান কেন্দ্র করতে চাচ্ছে মহান চীনের বিরুদ্ধে আক্রমণের। সেই ষড়যন্ত্রই করে গেলো দলত্যাগী কোসিগিন-ট্রিটো আর চেষ্টার বোলজ নয়া-দিল্লীতে ইন্দিরা গান্ধীর সাথে বসে। তাই তো আমাদের দেশে বিপ্লব করা একটা বিরাট আন্তর্জাতিক দায়িত্ব। তাই নকশালবাড়ীর ছোট্ট স্ফূলিঙ্গ সমগ্র দক্ষিণ-পূর্ণ এশিয়ার সংগ্রামী জনগণকে উৎসাহিত করে, উৎসাহিত করে বিশ্ব বিপ্লবের নেতা মহান চীন পার্টির নেতাদের, উৎসাহিত করে পৃথিবীর সমস্ত দেশের বিপ্লবী জনতাকে। এক পবিত্রতম আন্তর্জাতিক দায়ীত্ব আমাদের মাথায় এবং আমরা এই দায়ীত্ব পালন করবোই। মূল্য দিতে হবে অনেক, কিন্তু মূল্য দিতে ভয় পায় না বিপ্লবীরা চেয়ারম্যানের শিক্ষা: আমাদের লড়বার হিম্মত রাখতে হবে-জেতবার হিম্মত রাখতে হবে (We must dare to fight and dare to win)। চেয়ারম্যান এখনও বেঁচে আছেন। জয় আমাদের হবেই।

চেয়ারম্যান মাও সেতুঙ-জিন্দাবাদ।

দীর্ঘ-দীর্ঘদিন ধরে তিনি বেঁচে থাকুন!

ভারতবর্ষের নয়া-গণতান্ত্রিক বিপ্লব-জিন্দাবাদ!

দেশব্রতী”, ১৬ই মে, ১৯৬৮

 

Advertisements


Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.