আদিবাসী নিপীড়ন ও ভূয়া এনকাউন্টারে মাওবাদী হত্যার প্রতিবাদে মাওবাদীদের ডাকা বনধ পালিত

1219x915x00000-maoist-odisha-bandh.jpg.pagespeed.ic.r4ZH4H1Eis

আদিবাসী জনগণের উপর দমন নিপীড়ন ও ‘ভূয়া এনকাউন্টার’ এ মাওবাদী হত্যার প্রতিবাদে আজ  ৫ই ফেব্রুয়ারি, দণ্ডকারণ্য-তেলেঙ্গানার কয়েকটি জেলায় ভারতীয় কমিউনিস্ট পার্টি (মাওবাদী)’র ডাকা বনধ(সাধারণ ধর্মঘট) সফল ভাবে পালিত হয়েছে। বনধ সফল করতে মাওবাদীরা দেশের বিভিন্ন স্থানে একশন চালিয়েছে।

অন্য একটি একশনে মাওবাদীরা বিজয়পুর জেলার কংগুপল্লী ও ভট্টটিগুডা সড়কে একটি নির্মাণ কোম্পানির ১০টি গাড়ি ধ্বংস করে দেয়। এসময় গেরিলারা ঐ কোম্পানির কাজ বন্ধ করে দেয় এবং তারপর তাদের গাড়ি পুড়িয়ে দেয়া হয়।

আরেকটি রিপোর্টে, মাওবাদীরা গত ৪ঠা ফেব্রুয়ারি তাদের হাতে আটক পুলিশের একজন উপ-পরিদর্শককে মৃত্যুদণ্ড দেয়। তার মৃতদেহ বিজয়পুর জেলার কাখালারাম গ্রামের কাছে পাওয়া গেছে।

বীজাপুর জেলার টিপ্পাপুরম গ্রামের কাছে বনভূমিতে মাওবাদী PLGA এর ইউনিট প্রশাসনের দমনপীড়নমূলক শক্তির ইউনিটগুলির বিরুদ্ধে বিভিন্ন হামলা চালায়। এতে একজন পুলিশ সদস্য গুরুতর আহত হয় বলে ভারতীয় প্রেস রিপোর্ট করেছে।

দান্তেওয়াড়া জেলায় পুলিশ কর্তৃক মাওবাদীদের দায়ী করা হয়েছে যে, আক্রমণের শিকার হয়ে একটি সড়ক নির্মাণ কোম্পানির একজন হিসাবরক্ষক মারা গেছে।

গাদচিরোলি জেলার কুমাদপাড়ার বনের এলাকাতে, PLGA এর ইউনিট এবং মহারাষ্ট্র পুলিশের সি -60 কমান্ডের বাহিনীর মধ্যে এক সংঘর্ষের পরে একটি স্মাইলি 303 রাইফেল, দুটি ক্যানোনের একটি শটগান এবং মাওবাদী প্রচারের উপাদান উদ্ধার করার দাবি করা হয়েছে ।

অন্ধ্রপ্রদেশের সীমান্ত এলাকা (এপি) -লালংনাতে মাওবাদীদের একটি গুরুত্বপূর্ণ কার্যকলাপ রিপোর্ট করা হয়েছে। দমনমূলক বাহিনীর ট্র্যাকিং কর্মকাণ্ড বন্ধ করার জন্য মাওবাদীদের  PLGA এর ইউনিট কর্তৃক গাছপালা কেটে বিভিন্ন রাস্তাঘাট ব্যারিকেড দিয়ে রাখে মাওবাদীরা।

সূত্রঃ ইন্টারনেট

Advertisements

দ্বন্দ্বমূলক বস্তুবাদ – মরিস কর্ণফোর্থ

burgesssportrait1

মরিস কর্ণফোর্থ

বইটি পড়তে বা ডাউনলোড করতে নীচে ক্লিক করুন –

দ্বন্দ্বমূলক বস্তুবাদ – মরিস কর্ণফোর্থ


কলকাতাঃ উদাসীন প্রশাসন, লাগাতার অনশনে অসুস্থ মাওবাদী রাজনৈতিক বন্দী

27655448_795544457320169_6395080042034072865_n

আলিপুর সেন্ট্রাল জেলে গত ১১ দিন ধরে অনশন চালিয়ে যাচ্ছেন মাওবাদী তিন  রাজনৈতিক বন্দী মানসারাম হেমব্রম, বিমল মল্লিক ও অনুপ রায়। অভিযোগ লাগাতার অনশন চালিয়ে গেলেও প্রশাসন এঁদের স্বাস্থ্য বিষয়ে কোন খেয়াল রাখেনি। ইতিমধ্যেই বিমল মল্লিক গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। মানবাধিকার সংগঠন এপিডিআরের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে, বারবার দাবি করা সত্ত্বেও রাজনৈতিক বন্দীদের স্বাস্থ্য বিষয়ে প্রশাসন উদাসীনতা দেখিয়ে চলেছে। রাজনৈতিক বন্দীরা অনশন শুরু করলে তাদের কোন মেডিকেল চেক আপের ব্যবস্থা রাখা হয় না, সে সংক্রান্ত বিষয়ে কাউকে জানানো হয় না। রাজনৈতিক বন্দীদের প্রতি প্রশাসনের চুড়ান্ত অবহেলার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে আগামী ৭ তারিখ এক প্রতিবাদ সভা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে এপিডিআর, আলিপুর সেন্ট্রাল জেলের সামনে। এ রাজ্যে এখন সরকার বিরোধী কোন খবরই মূলধারার সংবাদ মাধ্যমে জায়গা পায় না, তাই কোন জেলে একটানা অনশন করতে করতে কোন রাজনৈতিক বন্দী অসুস্থ হয়ে পড়লেও, তা সংবাদ হিসেবে গণ্য হয় না।

সূত্রঃ satdin.in