নেপালে ভারতীয় দূতাবাসে বিস্ফোরণ: মাওবাদী নেতা গ্রেফতার

india

নেপালের বিরাটনগরে ভারতীয় দূতাবাসের কাছে প্রেসার কুকার বোমা বিস্ফোরণে জড়িত এক মাওবাদী নেতাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গোপন সূত্রে খবর পেয়ে মঙ্গলবার বিকেলে দিল্লি থেকে তাকে গ্রেফতার করে কলকাতা পুলিশের স্পেশাল টাস্ক ফোর্স (এসটিএফ)।

পুলিশ জানিয়েছে, গ্রেফতার ওই মাওবাদী নেতার নাম সুরেশ কুমার রাই ওরফে সাগর রাই। নেপালের মোরাঙের বাসিন্দা সুরেশ সিপিআই-এমএল রেড স্টার (বিপ্লব গ্রুপ)-এর একজন ডিস্ট্রিক্ট সেক্রেটারি। এই সুরেশই বিস্ফোরণের অন্যতম মূল পরিকল্পনাকারী বলে জানিয়েছে পুলিশ।

পুলিশের বরাত দিয়ে আনন্দবাজার বলেছে, জেরায় সুরেশ স্বীকার করেছেন, ওই বিস্ফোরণের সঙ্গে তিনি জড়িত ছিলেন। এই ঘটনায় আগেই সুরেশের কয়েকজন সঙ্গীকে গ্রেফতার করেছিল নেপাল পুলিশ। তবে সুরেশ পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

তাকে জেরা করে পুলিশ জানতে পারে, উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জে সম্পর্কে তার এক দাদা থাকেন। সেই সূত্র ধরেই এ রাজ্যে আশ্রয় নেন তিনি।  তারপর সেখান থেকে দিল্লি যান।

শুধু ভারতীয় দূতাবাসই নয়, নেপালে বিভিন্ন ভারতীয় সংস্থাগুলো যে তাদের হামলার লক্ষ্য ছিল জেরায় সুরেশ সে কথাও স্বীকার করেছেন বলে পুলিশের একটি সূত্র জানিয়েছে। 

প্রসঙ্গত, গত ১৬ এপ্রিল বিরাটনগরের ভারতীয় দূতাবাসের সামনে রাত সাড়ে ৮টা নগাদ বিস্ফোরণ ঘটে। সেই সময় দূতাবাসে কেউ ছিল না। ফলে হতাহতের ঘটনা এড়ানো সম্ভব হয় বলে জানান মোরাঙের পুলিশ সুপার অরুণ কুমার বিসি।


নেপালঃ ‘অক্টোবর বিপ্লবের বার্ষিকী’ উপলক্ষে মোহন বৈদ্য: “নেপালে নতুন বিপ্লব সম্ভব”

Mohan-Baidhya-800x445

সিপিএন(বিপ্লবী মাওবাদী) চেয়ারম্যান মোহন বৈদ্য- শ্রমিক শ্রেণির জনগণের নেতৃত্বে একটি নতুন বিপ্লব প্রয়োজনের উপর জোর দিয়ে বলেন যে, নেপালে এই বিপ্লবটিও সম্ভব।

১৯১৭ সালের অক্টোবর বিপ্লবের শতবর্ষ উপলক্ষে পার্টির এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে, দলের নেতা মোহন বৈদ্য, শ্রমিকদেরকে তাদের অধিকারের জন্য একটি নতুন বিপ্লবের পথের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য গুরুতরভাবে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন।  

তিনি বলেন- আজ বা নভেম্বর ৭, ১৯১৭ দিনটিতে অক্টোবর বিপ্লব হয়েছিল। এদিন রাশিয়াতে ভ্লাদিমির লেনিনের নেতৃত্বে বিপ্লব সংঘটিত এবং সমাজতন্ত্রের সৃষ্টি হয়েছিল।

“অক্টোবর বিপ্লবের নীতিগুলি প্যারিস কমিউনে কার্ল মার্ক্সের মতানুযায়ী সার্বজনীন এবং প্রাসঙ্গিক এবং এই ধরনের বিপ্লবের নীতিগুলি বিশ্বব্যাপী শ্রমিকশ্রেণির এবং নিপীড়িত সম্প্রদায়ের মুক্তি পর্যন্ত বার বার প্রয়োগ চলবে “, বলে বিবৃতিতে বলা হয়।

“কমিউনিজমের বর্তমান পরাজয় অস্থায়ী এবং সংক্ষিপ্ত এবং সাম্রাজ্যবাদ তার নিজের ফাঁদে আটক হচ্ছে” বলেও তিনি বিবৃতিতে দাবি করেন।

সূত্রঃ http://www.myrepublica.com/news/30288/?categoryId=81


নেপালঃ নির্বাচন বয়কট কার্যক্রমের জন্যে ‘চাঁদ’ নেতৃত্বাধীন সিপিএন(মাওবাদী)-র ২ ক্যাডার গ্রেফতার

Netra-Bikram-Chand-800x445

গত ২৮শে মে নেপালের ইল্লাম জেলার দিউমাই পৌরসভার ডেনাবরীতে নির্বাচন বয়কটের কার্যক্রমের জন্য ‘নেত্র বিক্রম চাঁদ’ নেতৃত্বাধীন মাওবাদী কমিউনিস্ট পার্টির ২ ক্যাডারকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলেন জেরেদার বারাল ও দিলীপ বারাল, উভয়েই দিউমাই পৌরসভার। এর এক সপ্তাহ আগে ৩ জন সিপিএন ক্যাডারকে এই জেলা থেকেই একই অভিযোগে গ্রেফতার করা হয় বলে পুলিশ জানিয়েছে।

সুত্রঃ http://www.myrepublica.com/news/20836/


নেপালঃ নেত্র বিক্রম চাঁদ (বিপ্লব) নেতৃত্বাধীন মাওবাদী পার্টির সংবাদ

Kalikot-05052017071243-1000x0-800x445

আসন্ন স্থানীয় পর্যায়ে নির্বাচনের দ্বারপ্রান্তে গত শুক্রবার কালিকোট জেলার রাস্কোট পৌরসভা-৭ এ, নেত্র বিক্রম চাঁদ (বিপ্লব) নেতৃত্বাধীন সিপিএন মাওবাদী ক্যাডাররা পুলিশের সাথে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষে দুই পুলিশ সদস্য ও একজন স্থানীয় আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। এই ঘটনায় এক পুলিশ সদস্যের রাইফেল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এই ঘটনায় নেপালে পুলিশ ও সশস্ত্র পুলিশ বাহিনী (এপিএফ) কর্মীদের ঘটনাস্থলে নিয়োজিত করা হয়েছিল।

অপরদিকে, আসন্ন স্থানীয় পর্যায়ে নির্বাচনের দ্বারপ্রান্তে গত শুক্রবার নির্বাচনের প্রার্থীদের তাদের প্রার্থিতা প্রত্যাহারের হুমকি দেওয়ার অভিযোগে নেত্র বিক্রম চাঁদ (বিপ্লব) নেতৃত্বাধীন নেপালের কমিউনিস্ট পার্টির তিন ক্যাডারকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলেন, পার্টির জেলা ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অর্জুন যোগি, জেলা সম্পাদক রাজনা ধনুক এবং সম্পাদক সদস্য সরোজ নেপানে। পুলিশের ভাষ্য মতে, নির্বাচন বিরোধী কর্মকাণ্ডে তাদের জড়িত থাকার কারণ খুঁজে পাওয়ায় স্থানীয় নির্বাচনের সমাপ্তি না হওয়া পর্যন্ত এদের আটকে রাখা হবে।

সূত্রঃ http://www.myrepublica.com/news/19511/

http://kathmandupost.ekantipur.com/news/2017-05-05/chand-led-maoist-cadres-clash-with-police-in-kalikot.html


নেপালের মাওবাদী ক্যাডাররা ধর্ষকের মুখে ঝুল লেপে দিয়েছে

annisur

নেত্র বিক্রম চাঁদ নেতৃত্বাধীন সিপিএন-মাওবাদী’র কর্মীরা সোমবার ধান্দিং জেলার বাঘবাছালা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষকের মুখের উপর ঝুল লেপে দিয়েছে।

এক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, চাঁদ দলের ছাত্র সংগঠন ‘সর্ব নেপাল জাতীয় স্বাধীন ছাত্র ইউনিয়ন (বিপ্লবী)[All Nepal National Independent Students Union (Revolutionary)] এর সদস্যরা গণেশ শ্রেষ্ঠার মুখে ঝুল মাখিয়ে দেয়।

ANNISU-R এর জেলা চেয়ারম্যান বাদ্রি অধিকারী বলেন, রাজনৈতিক সংযোগের কারণে ধর্ষণের অভিযোগ থেকে পুলিশ কর্তৃক মুক্তি পাওয়ার পরেই শ্রেষ্ঠার উপর এই অ্যাকশনটি নেয়া হয়।

সূত্রঃ  http://kathmandupost.ekantipur.com/news/2016-12-26/chand-maoist-cadres-smear-soot-on-dhading-teachers-face.html


নেপালে বামপন্থী শক্তির মেরুকরণ: ভারতের বিরুদ্ধে যৌথ আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছে ৩টি মাওবাদী দল

nepalmaoist-800x445

সিনিয়র বামপন্থী নেতা মোহন বিক্রম সিং (ঘার্তি) এবং মোহনের বৈদ্য (কিরণ), তরুণ মাওবাদী নেতা নেত্র বিক্রম চাঁদ (বিপ্লব) সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ কর্মসূচীর ঘোষণা দিয়েছে। এক যৌথ সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ভারতের বিরুদ্ধে আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছেন এই তিন নেতা।

ঘার্তি, কিরণ এবং বিপ্লব, যারা যথাক্রমে সিপিএন-মশাল, সিপিএন-বিপ্লবী মাওবাদী ও সিপিএন-মাওবাদী এর প্রধানরা একত্রে উচ্চ করনালি ও অরুণ তৃতীয় জলবিদ্যুৎ প্রকল্পে ভারতীয় বিনিয়োগের বিরুদ্ধে বিক্ষোভের ঘোষণা করেছেন।

একই সাথে তারা, বিরাটনগরে নেপাল সরকারের কাছ থেকে অনুমোদন ছাড়া খোলা ভারতীয় দূতাবাসের শিবির কার্যালয় অপসারণেরও দাবি করেছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে যে, এই তিন পক্ষ,  ৬ই জানুয়ারি সুরখেতে উচ্চ করনালি প্রকল্পের বিরুদ্ধে, ৯ই জানুয়ারি সানকুসভায় অরুণ তৃতীয় প্রকল্পের বিরুদ্ধে ও  ১৩ই জানুয়ারি বিরাটনগরে ভারতীয় অফিস স্থাপনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করবে।

ঘার্তি নেতৃত্বাধীন দলটি সংসদে প্রতিনিধিত্ব করলেও কিরণ এবং বিপ্লব গণপরিষদ বর্জন করেছে। এই দুই মাওবাদী দল ও মশাল এর মধ্যে ফেডারেল এবং মাওবাদের মত বিষয় নিয়ে মতবিরোধ রয়েছে।

Onlinekhabarকে একজন মশাল নেতা বলেন, আমাদের বিভিন্ন রাজনৈতিক লাইন আছে, কিন্তু ভারত প্রশ্নে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি একই, এজন্যই আমরা একত্রে কাজ শুরু করেছি।

সূত্রঃ http://english.onlinekhabar.com/2016/12/21/391992

 


পেট্রোলিয়াম পণ্যের মূল্যবৃদ্ধির বিরুদ্ধে সিপিএন মাওবাদী’র একদিনের সাধারণ ধর্মঘট পালিত

ap_625109678972-800x445

গতকাল বৃহস্পতিবার কাঠমান্ডু উপত্যকায় নেত্র বিক্রম চাঁদ নেতৃত্বাধীন সিপিএন মাওবাদী’র ডাকা হরতাল আংশিকভাবে জন জীবনকে প্রভাবিত করেছে। পেট্রোলিয়াম পণ্যের মূল্যবৃদ্ধি এবং মুদ্রাস্ফীতির বিরুদ্ধে ১ দিনের এই ধর্মঘট পালিত হয়। এসময় বাজার ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকে।

সিপিএন মাওবাদী মুখপাত্র খাদকা বাহাদুর বিশ্বকর্মা বলেন, ‘সরকার যদি সাম্প্রতিক মূল্যবৃদ্ধি প্রত্যাহার করতে ব্যর্থ হয় তবে তারা আরো প্রতিবাদ কর্মসূচীর আয়োজন করবে।‘

এদিকে, গতকাল সকাল থেকে চাঁদ নেতৃত্বাধীন মাওবাদী দলের সঙ্গে যুক্ত কয়েকজন যুবককে রতন পার্ক থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সূত্রঃ http://kathmandupost.ekantipur.com/news/2016-12-22/strike-effect-dismal-in-valley.html

 


কমিউনিস্ট নিউক্লিয়াস নেপাল ও সিপিএন মাওবাদী (বিপ্লবী)-র একীকরণ ঘোষণা

two-maoist-unified

অনূদিতঃ 

গতকাল নেপালের দুইটি মাওবাদী দল একত্রীকরণের ঘোষণা দেয়ার মাধ্যমে দীর্ঘ ১০ বছরের মাওবাদী আন্দোলন সশস্ত্র বিপ্লবের মাধ্যমে সম্পন্ন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

হেমন্ত প্রকাশ অলি নেতৃত্বাধীন কমিউনিস্ট নিউক্লিয়াস নেপাল পার্টি এবং ভূপেন্দ্র নিউপানের নেতৃত্বে সিপিএন মাওবাদী (বিপ্লবী), রিপোর্টার্স ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন আয়োজনের মাধ্যমে এই একীকরণের এবং জনগণের বিপ্লব সম্পন্ন করতে সশস্ত্র বিপ্লবের ঘোষণা দেন।  একীকরণের পর ‘কমিউনিস্ট নিউক্লিয়াস নেপাল’ পার্টির নতুন নাম হিসেবে নির্বাচিত করা হয় এবং হেমন্ত প্রসাদ অলিকে সমন্বয়কের দায়িত্ব দেয়া হয়।

সূত্রঃ http://myrepublica.com/politics/story/44418/two-maoist-parties-unite-announcing-armed-revolution.html


নেপালঃ Ncell এর মোবাইল টাওয়ারে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় ২ মাওবাদী নেতা আটক

13062016015514110620160745131-1000x0-1000x0

অনূদিতঃ

গতকাল সকালে নেপালের ম্যাগদি জেলার বেনি পৌরসভায় Ncell মোবাইল টাওয়ারে অগ্নিসংযোগের হামলায় জড়িত থাকার অভিযোগে জেলার দুই মাওবাদী নেতাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

নেত্র বিক্রম চাঁদ নেতৃত্বাধীন সিপিএন মাওবাদী দলের সঙ্গে যুক্ত লালু কিষাণ ওরফে আকাশ এবং পাদাম পুন ওরফে ফিল্টারকে এ সময় জেলা সদর থেকে গ্রেফতার করা হয়।

এর আগে, বেনি পৌরসভা -4 এর বাঞ্ছারেদিল এ দেশের বেসরকারি খাতের শীর্ষ টেলিযোগাযোগ কোম্পানীর টাওয়ারে অগ্নিসংযোগ করা হয়।  পুলিশ দাবি করেছে যে, চাঁদ নেতৃত্বাধীন দল শনিবার সন্ধ্যায় অগ্নিসংযোগের এই হামলা চালিয়েছে।  ঘটনায়, একটি জেনারেটর ধংস হয়ে যায়।  এর আগে, আরেক মাওবাদী নেতা গোপাল শর্মাকে রোববার মামলার তদন্ত জন্য আটক করা হয়।

সূত্রঃ http://thehimalayantimes.com/nepal/2-maoist-leaders-held-ncell-tower-arson-myagdi/


নেপালঃ সিপিএন মাওবাদী’র সশস্ত্র পদক্ষেপ অব্যাহত

A vehicle, belonging to the Nuwakot-based World Vision International Nepal's Office, torched by Netra Bikram Chand-led CPN Maoist cadres, in Bidur-4 of the district, on Saturday, June 11, 2016. Photo: RSS

A vehicle, belonging to the Nuwakot-based World Vision International Nepal’s Office, torched by Netra Bikram Chand-led CPN Maoist cadres, in Bidur-4 of the district, on Saturday, June 11, 2016. Photo: RSS

অনূদিতঃ 

চাঁদ নেতৃত্বাধীন সিপিএন মাওবাদী ক্যাডাররা ওয়ার্ল্ড ভিশন এর নুওয়াকোট অফিসে আক্রমণ করেছে

গত শনিবার রাতে নেত্র বিক্রম চাঁদ নেতৃত্বাধীন সিপিএন মাওবাদী ক্যাডাররা নুওয়াকোটে ওয়ার্ল্ড ভিশন ইন্টারন্যাশনালের নেপাল কার্যালয়ে হামলা চালিয়েছে।  জানা গেছে যে, তিন জনের একটি দল বিদুর পৌরসভা-৪ এর বাত্তার এলাকায় ওয়ার্ল্ড ভিশন কার্যালয় চত্বরে পার্ক করা একটি গাড়ীতে আগুন লাগিয়ে দেয়।  অফিসের নিরাপত্তারক্ষী তুল বাহাদুর পাকোয়ারেল বলেন, তিন জন অজ্ঞাতনামা সামনের গেট দিয়ে অফিসে প্রবেশ করে এবং গাড়ির আগুন ধরিয়ে দেয়ার আগে তাকে হুমকি দেয়, স্থান ত্যাগের পূর্বে তারা নিজেদের চাঁদ নেতৃত্বাধীন সিপিএন মাওবাদী ক্যাডার হিসেবে পরিচয় দেয়।  পাকোয়ারেল আরও বলেন, যদি সে কোন গোলমাল করে তবে তাকে হত্যা করার হুমকি দিয়েছিল তারা।  স্থানীয় শিব প্রসাদ অধিকারী বলেন, আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার আগ পর্যন্ত গাড়ীর ইঞ্জিন ৪৫ মিনিট ধরে জ্বলছিল।  ভিতরে মানুষ থাকা অবস্থায় ভবনে আগুন ছড়িয়ে পড়ে।  ঘটনার ১ ঘণ্টা পর ভবনের দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলা থেকে লোকজনকে জীবিত অবস্থায় পুলিশ ও প্রতিবেশীরা উদ্ধার করে।  চাঁদ নেতৃত্বাধীন সিপিএন মাওবাদী’র নেতা এ হামলার দায়িত্ব স্বীকার করেনি, নেতৃবৃন্দ অবশ্য হামলার পেছনে কারণ ব্যাখ্যা করতে অস্বীকারও করেন।

সূত্রঃ  https://thehimalayantimes.com/nepal/chand-led-cpn-maoist-cadres-attack-world-visons-nuwakot-office/

নেপালে টেলিযোগাযোগ কোম্পানির পাঁচটি টাওয়ারে মাওবাদীদের অগ্নিসংযোগ

গত শনিবার নেপালের একটি মাওবাদী দলের কর্মীরা সারাদেশে একটি বেসরকারী টেলিযোগাযোগ কোম্পানির পাঁচটি টাওয়ারে অগ্নিসংযোগ করেছে। নেত্র বিক্রম চাঁদ নেতৃত্বাধীন সিপিএন-মাওবাদী দ্বারা প্রকাশিত কিছু লিফলেট কিছু সাইট থেকে উদ্ধার করা হয়েছে, পুলিশ বলছে- পার্টির সন্দেহভাজন লোকজন টেলিযোগাযোগ কোম্পানিতে একাধিক হামলা করেছে।  নেপাল পুলিশ সদর দপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, মাওবাদী ক্যাডারদের অগ্নিসংযোগ করা ৫টি মোবাইল টাওয়ার হচ্ছে- ঝাপা জেলার শিভাসাতাকশি, সাল্যান জেলার খুবিন্দে দাহা, দাং জেলার লক্ষ্মীপুর, গোর্খা জেলার আশ্রাং এবং মোরাং জেলার ইয়াংসিলাতে।  হাজার হাজার টাকা মুল্যের সরঞ্জাম এই অগ্নিসংযোগ হামলায় ধ্বংস হয়ে গেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

সম্প্রতি, সরকারকে কর পরিশোধ করতে অস্বীকার করায় মোবাইল কোম্পানি Ncell এর উপর বিভিন্ন দিক থেকে আক্রমণ আসা শুরু হয়েছে যখন টেলিয়াসোনেরা, আজিয়াটা গ্রুপের কাছে ১৪৩ বিলিয়ন রূপি সমপরিমান ১.৪০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে Ncellকে বিক্রি করেছে।

সূত্রঃ http://www.dnaindia.com/world/report-hardline-maoists-torch-five-towers-of-telecom-company-in-nepal-2222543