জাতীয় গণতান্ত্রিক বিপ্লবে নেতা-কর্মীদের জীবনাচরণ প্রসঙ্গে -কমরেড হেমন্ত সরকার

49135321_740783072966592_7648877497618006016_n

 প্রয়াত প্রখ্যাত কমিউনিস্ট নেতা হেমন্ত সরকার দক্ষ সংগঠকই শুধু ছিলেন না, তিনি অবসর সময়ে লেখালেখিও করতেন। তাঁর এই লেখাটি শ্রুতি লিখনের সাহায্যে লিখিত। ২৮শে ডিসেম্বর তাঁর মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি হিসেবে এই মূল্যবান রচনাটি প্রকাশিত হল।

সাধারন মানুষ সম্পর্কে ব্যাপক শিক্ষিত সুধীজনদের একটি বদ্ধমুল ধারণা বহু কাল ধরে চালু আছে। আর তা হল, এই সাধারণ মানুষ মূর্খ, অশিক্ষিত, অলস, জীবন-জগত, সমাজ-রাষ্ট্র সম্পর্কে ওরা কিছুই ভালো করে বোঝে না। ওদেরকে যে দিকে চালানো যায় সে দিকেই ছোটে। গত একশ’ বছরে লেখাপড়া জানা সাফ-কাপুড়ে অধিকাংশ শিক্ষিত ভদ্রলোকদের এই নাক উঁচু ধারণার উল্লেখযোগ্য কোন পরিবর্তন হয়েছে বলে বাস্তবে দেখা যায় না। শাসক-শোষক গোষ্ঠীর নানা বর্ণের নানা রঙের প্রায় দেড় শতাধিক রাজনৈতিক দল এদেশে তাদের ঘুনে-ধরা সমাজ-রাষ্ট্র রক্ষার দায়িত্বে সদা তৎপর, সাধারণ মানুষ সম্পর্কে তাদের ধারণা ও আচার-আচরণ ঐ সুধীজনদের চেয়ে ভিন্ন নয়। সাধারণের সঙ্গে তাদের আচরণ সব সময়ই হয় প্রভুত্বমূলক। নিজেদেরকে তারা জনগণের মাস্টার ভাবে। জনগণের চিন্তা-চেতনা আর সৃষ্টিশীলতার ওপর বিন্দুমাত্র আস্থা-বিশ্বাস-ভরসা এদের নেই (আর তার প্রয়োজনও করে না)। একমাত্র ভোটার হিসাবে এদের কাছে জনসাধারণের মূল্য অসীম, দেবতা-তুল্য!

এ হলো দেশের শিক্ষিত সুধীজনদের একাংশ আর শোষক-শাসক গোষ্ঠীর জনসাধারণের প্রতি মনোভাব। কিন্তু নিজেদেরকে যাঁরা জনগণের প্রকৃত বন্ধু মনে করেন, জনগণকে তাঁরা কিভাবে দেখবেন কি ধরণের আচরণ করবেন সে সম্পর্কে আলোকপাত করা প্রয়োজন। যাঁরা প্রগতিশীল তাঁরা সমাজ পরিবর্তনের ধারাকে এগিয়ে নিতে সাহায্য করেন। সমাজের পরিবর্তন ঘটে কেন? শোষক ও শোষিতের মধ্যকার শ্রেণী সংগ্রাম সমাজকে পরিবর্তনের দিকে এগিয়ে নেয় বলে প্রগতিপন্থীরা শোষিত শ্রমজীবী মানুষের সঙ্গে একাত্ম হওয়া এবং শ্রমজীবী মানুষের সৃষ্টিশীলতা, কর্মদক্ষতায় আস্থা স্থাপন আর ইতিহাসের নায়ক হিসাবে স্বীকার করা। একজন দু’জন করে সবাইকে শ্রমজীবী মাসুষের ভাবাদর্শে দীক্ষিত করা। সংগঠনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট পরিবারগুলোর প্রতি প্রগতিধারার নেতা-কর্মীদের প্রাথমিক কাজ হবে নিজের পরিবারের সদস্যদের সমান গুরুত্ব দিয়ে তাদের আর্থিক বিষয়, কুশল ও সুবিধা-অসুবিধা সম্পর্কে নিয়মিত আন্তরিকভাবে খোঁজ-খবর নেয়া। অর্থাৎ তাদের পরিবারের একজন হিসাবে নিজেকে ভাবা। এক সময় ছিল যখন প্রগতিশীল কর্মীদের মধ্যে কৃষক-শ্রমিকসহ ব্যাপক জনসাধারণের সঙ্গে মেলামেশার, তাদের সঙ্গে একাত্ম হবার বিপুল আগ্রহ লক্ষ্য করা যেত। দেখা যেত তাঁরা জনগণের মধ্যে শ্রেণীঘৃণা ও শ্রেণীস্বার্থের চেতনা জাগাবার জন্য বিশেষভাবে সচেষ্ট। জনগণের মধ্যে শ্রেণীচেতনা সৃষ্টি হবার ফলে তাদের কাছে শত্রু-মিত্র সম্পর্কে ধারণা পরিষ্কার হত, সংঘশক্তির প্রয়োজন তারা অনুভব করত এবং জনসাধারণের মধ্যে সংগঠন গড়ে তোলার জন্য এগিয়ে আসার আগ্রহও লক্ষ্য করা যেত। জনগণের আপনজন হবার জন্য কর্মীদের মধ্যে চলত নীরব প্রতিযোগিতা। জনগণ ও নেতা-কর্মীদের মধ্যে গড়ে উঠত ত্যাগের মনোভাব। সে সময় জনগণের প্রতি নেতা-কর্মী-সংগঠনের মনোভাব ছিল পরম শ্রদ্ধার। জনগণের প্রতি এই শ্রদ্ধাবোধ, কর্তব্যবোধ, শত্রুর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে কর্মীদের নিবেদিতপ্রাণ করে তুলত। জনগণের সঙ্গে একাত্ম হবার জন্য এবং তাদের সচেতন ও ঐক্যবদ্ধ করে তোলার জন্য খাল-পুকুর খনন, রাস্তা-ঘাট সংস্কার, স্কুল-কলেজ প্রতিষ্ঠা, তাদের অক্ষর জ্ঞানদানের ব্যবস্থা গড়ে তুলতে দেখা যেত।

জনগণের শ্রেণী সচেতন করার জন্য তাদের মধ্যে র্সংগঠন গড়ে তোলার জন্য নেতা-কর্মীদের প্রায়ই শ্রমিক বস্তি আর সাধারণ ভূমিহীন, গরীব ও মাঝারি কৃষকদের বাড়িতে যেত ও থাকতে দেখা যেত। সে সময় তারা বাড়িতে সকল সদস্যের সঙ্গে সংসারের সব খুঁটি-নাটি অভাব-অভিযোগ, সমস্যা-সংকট সম্পর্কে আলোচনা করতেন। অভাব-অভিযোগের মৌলিক কারণ নিয়ে আলোচনা করতেন। সুন্দর মিষ্টি ব্যবহার দিয়ে সকলের মন জয় করে নিতে চেষ্টা করতেন। এ সময় হিন্দু-মুসলমান পরিবারগুলোর মধ্যে অসাম্প্রদায়িক চেতনা সৃষ্টির জন্য ধারাবাহিক আদর্শিক সংগ্রাম চলত। সহজভাবে সংগঠনের উদ্দেশ্য-আদর্শ ব্যাখ্যা করার ফলে সংগঠনের নেতা-কর্মীরা কি বলতে চায় এবং কি তাদের করণীয়- জনগণের কাছে অনেকটা স্পষ্ট হয়ে উঠত। সে সময় শ্রমিক বস্তিতে আর গ্রামে গ্রামে নিয়মিত গ্রুপ বৈঠক, পাড়া বৈঠক, গ্রাম বৈঠক হত। এ সব বৈঠক গণসংগ্রাম, গণআন্দোলন আর গণসংগঠন সম্পর্কে, দেশের ও বিশ্বের রাজনীতি সম্পর্কে শ্রমিক-কৃষকদের প্রশিক্ষণের কাজ করত। জনসাধারণের সঙ্গে এসব বৈঠকের ফলে নেতা-কর্মীরাও অর্জন করতেন জ্ঞান, অনুভব করতে পারতেন জনগণের মনোভাব ও সংগ্রামী উত্তাপ-যা উদ্দীপ্ত করে তুলত কর্মী ও জনগণ উভয়কেই।

প্রগতিশীল সংগঠনের কর্মী রিক্রুট অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার। এ সময় সংগঠনে কর্মী রিক্রুট করা হত খুবই সতর্কভাবে ও বিচার-বিবেচনা করে। হুট করে কাউকে কর্মী হিসাবে গ্রহণ করা হত না। নতুন কর্মীর শ্রেণী অবস্থান, তার স্বভাব-চরিত্র, আচার-আচরণ সম্পর্কে বিস্তারিত খোঁজ-খবর নেওয়া হত এবং অত্যন্ত সজাগ দৃষ্টিতে তাদের কাজ-কর্মের তদারক করা হত। একই সঙ্গে আদর্শ সংগ্রামী মনোভা, সংগঠন, সংগঠনের শৃঙ্খলা ও গোপনীয়তা, জনগণ ও জনগণের শত্র“-মিত্র সম্পর্কে তাদের ধারণার স্বচ্ছতা ও দৃঢ়তা যাচাই করা হত। কাজেই খেটে খাওয়া মানুষের জন্য শোষনহীন সমাজ প্রতিষ্ঠার দর্শন যিনি গ্রহণ করবেন তাঁকে ব্যক্তিস্বার্থের ঊর্ধ্বে দাঁড়িয়ে অবশ্যই সমষ্টিগত স্বার্থকে প্রাধান্য দিতে হবে। সাম্প্রদায়িকতা বা ধর্ম-বর্ণ গোষ্ঠী-সম্প্রদায়ের ধারণার বিরুদ্ধে নিরলস সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে। তাকে অবশ্যই বিনয়ী ও সৎ মনোবৃত্তি রূপে গড়ে তুলতে হবে। প্রত্যেক কর্মী পার্টি-সংগঠনকে একটি পরিবার হিসাবে দেখবেন। পার্টি-সংগঠনের শৃঙ্খলা ও গোপনীয়তাকে চোখের মণির মত রক্ষা করবেন। পার্টির সিদ্ধান্ত কার্যকরী করতে ব্যর্থ হলে অথবা কোন ভূল করলে সে জন্য সংগঠনের কাছে জবাবদিহি করতে হবে। মনে করতে হবে দায়িত্ব পালনে অবহেলার জন্য আমি জনগণের কাছে আসামী হয়ে গিয়েছি। শ্রমিকশ্রেণী ছাড়া অন্যান্য শ্রেণী থেকে আসা কর্মীদের সর্বাগ্রে শ্রেণীচ্যুত হওয়া ও সর্বহারা শ্রেণীর বিশ্বদৃষ্টিভঙ্গী অর্জনের জন্য আত্মগত সংগ্রাম চালাতে হবে। অর্থাৎ তাকে সবার আগে লড়তে হবে নিজের অ-সর্বহারা শ্রেণী চরিত্রের বিরুদ্ধে। শোষকের বিরুদ্ধে শ্রেণী ঘৃণাকে জাগিয়ে তুলতে হবে।

বর্তমান শ্রেণী বিভক্ত সমাজে শ্রেণীচ্যুত হওয়ার কাজটি একটি খুবই জরুরী সমস্যা। সমালোচনা-আত্মসমালোচনার যে হাতিয়ার মার্কসবাদীদের আছে তা সঠিকভাবে ব্যবহারের মাধ্যমে নিজেকে সংশোধন করতে হবে। নিজের রূপান্তর ঘটাতে হবে। প্রতিটি মানুষের ত্র“টি-বিচ্যুতি আছে। পচা-গলা এ সমাজে জন্ম ও বেড়ে ওঠায় ত্র“টির পরিমাণ বেশি থাকে। ফলে গভীরভাবে সমালোচনা-আত্মসমালোচনার অস্ত্রটিকে রপ্ত ও ব্যবহার করতে শিখতে হবে। প্রত্যেক কর্মীকে কোন না কোন কমিটিতে অন্তর্ভূক্ত থাকা ও কমিটির বৈঠকে নিয়মিত উপস্থিত থাকতে হবে। কোন কারণে উপস্থিত না হতে পারলে চিঠি লিখে বৈঠকের পূর্বেই সংশ্লিষ্টদের জানিয়ে দেবার তাড়না অনুভব করতে হবে। প্রতি বৈঠকে লিখিত রিপোর্ট উপস্থিত করা জরুরী কর্তব্য। তবে কখনোই রিপোর্টে অতিরঞ্জিত বা মিথ্যা তথ্য উপস্থিত করা যাবে না। কমিটির সকল সদস্যকে আপন করে নিতে হবে। তাদের ভুল-ত্র“টি ধরা পড়লে গঠনমূলকভাবে সমালোচনা করে ত্র“টি শোধরাতে সাহায্য করতে হবে। সহকর্মীদের প্রতি বিদ্বেষ পোষণ, চক্রান্ত-ষড়যন্ত্র করার অভ্যাস পরিহার করতে হবে। সহকর্মীদের রক্ষার জন্য জীবনও দিতে হতে পারে- এ মনোভাব মনে প্রাণে লালন করতে হবে। সহকর্মী যাতে কোন বিপদে না পড়ে সেদিকে প্রখর দৃষ্টি রাখতে হবে। প্রত্যেক সহকর্মীকে নিজের অঙ্গ মনে করতে হবে। মনে করতে হবে সে যদি ক্ষতিগ্রস্থ হয়, অধঃপতিত হয় তাহলে যেন নিজেরই অঙ্গহানি ঘটছে।

প্রত্যেক কর্মীকে কৃষক-শ্রমিক ও অন্যান্য পেশার মানুষের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যকে পুংখানুপুংখভাবে বোঝার চেষ্টা করতে হবে। তারা কি উদ্দেশ্যে নেতা-কর্মীদের প্রতি সদয় আচরণ করছে তা উপলব্ধি করতে হবে। অবশ্যই জনগণের প্রতি গভীর আস্থা রাখতে হবে। তবে তাদের সবার কথাকেই সরলভাবে বিশ্বাস করে সামাজিক দলাদলি আর কোন্দলে পার্টি সংগঠনকে জড়ানো চলবে না। জনগণের মধ্যে সন্ত্রাস সৃষ্টি, জোর করে চাঁদা আদায় বা কোন সম্পদ হস্তগত করা নীতিবিরুদ্ধ কাজ। তা থেকে নিজেকে দূরে রাখতে হবে। সামাজিক প্রতিপত্তি ব্যবহার করে প্রতিষ্ঠিত হওয়া, থাকা-খাওয়া ইত্যাদি সুবিধা গড়ে তোলার প্রবণতা পরিহার করতে হবে। মিথ্যা বলা যাবে না, কোন অন্যায় করা চলবে না। যদি তা করেও ফেলেন এবং তা বুঝতে পারার সাথে সাথে খোলাখুলি ভুল স্বীকার করা উচিত।

মাদকসেবী, চাঁদাবাজী, সন্ত্রাসী, খুনী, মামলাবাজ, টাউট, দুর্ণীতিবাজ মাতব্বর ইত্যাদি লোকদের থেকে সতর্ক থাকতে হবে এবং কৃষক-শ্রমিকদের সংকীর্ণ স্বার্থবোধ দ্বারা নিজেকে চালিত করা যাবে না। মনে রাখতে হবে সামন্ত প্রথায় তাদের জীবনে সংকীর্ণ স্বার্থপরতা ও নিজেদের শক্তির উপর আস্থা-বিশ্বাস নষ্ট করে দিয়েছে। তাদের আত্মবিশ্বাসকে জাগিয়ে তোলায় সচেষ্ট হতে হবে।

সর্বোপরি সারাদিনের কাজের পর প্রতিদিন গভীরভাবে আত্মবিশ্লেষণ করা উচিত। সারাদিন কয়টি কাজ বাস্তবায়িত হলো, কয়টি হয়নি, কোন কাজটি সঠিক হলো, কোনটি হয়নি, এজন্য কি করা প্রয়োজন ছিল-এভাবে নিজের দায়বদ্ধতার কাছে, রাজনৈতিক সচেতনতার কাছে জবাবদিহিতা বিশ্লেষণ করা। মনে রাখা প্রয়োজন আত্মবিশ্লেষণ এই পদ্ধতি নিয়মিত অনুশীলনের মাধ্যমে একজন নেতা বা কর্মী ধীরে ধীরে আত্মআবিষ্কার করা শেখে, তার উদ্ভাবনী ও সৃজনশীল ক্ষমতা বেড়ে যায়, মধ্যবিত্ত নেতিবাচক বৈশিষ্ট্য- যেমন ব্যক্তিস্বার্থকে বড় করে দেখা, আমলাতান্ত্রিকতা, নিজেকে জাহির করা, সংকীর্ণতা, হিংসা-বিদ্বেষ, অপরের ছিদ্রান্বেষণ, চক্রান্ত-ষড়যন্ত্র করা, সংগঠনকে কুক্ষিগত করা ইত্যাদি থেকে মুক্ত হয়ে তিনি এক নতুন মানুষে রূপান্তরিত হন। এ ধরণের নেতা কর্মীদের দ্বারাই রাশিয়ার যুগান্তকারী বিপ্লব সংঘঠিত হয়েছিল, বাংলাদেশে জাতীয় গণতান্ত্রিক বিপ্লব সংগঠিত করতে হলে শ্রমিক শ্রেণীর চিরকালীন আদর্শকেই অনুসরণ করতে হবে।

সূত্রঃ সাপ্তাহিক সেবা’র ১৭ জানুয়ারী ১৯৯৯ রবিবার ১৮ বর্ষ ২১ সংখ্যা


কমরেড আবদুল হক-এর ও কমরেড হেমন্ত সরকার-এর মৃত্যুবার্ষিকী যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করুন

comred-hoq

২২ ডিসেম্বর কমরেড আবদুল হক-এর ২২তম ও ২৮ ডিসেম্বর কমরেড হেমন্ত সরকার-এর ১৯ তম মৃত্যুবার্ষিকী যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করুন

শ্রমিক-কৃষক-জনগণের রাষ্ট্র, সরকার ও সংবিধান প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে অগ্রসর হউন।

সংগ্রামী সাথী ও বন্ধুগণ,

সংগ্রামী অভিনন্দন গ্রহন করুন। আগামী ২২ ডিসেম্বর কমরেড আবদুল হক এর ২২তম মৃত্যুবার্ষিকী। ১৯২০ সালের ২৩ডিসেম্বর যশোর জেলার সদর থানার খড়কিতে জন্মগ্রহণ করেন। সামন্তবাদী পীর পরিবার থেকে আগত হলেও তিনি যখন কলকাতায় পড়াশুনা করতেন সেই ছাত্রাবস্থায় তিনি ভারতের কমিউনিস্ট পার্টির সংস্পর্শে আসেন এবং শ্রমিক এবং

শ্রমিক শ্রেণীর মার্কসবাদী-লেনিনবাদী আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে বৈপ্লবিক কর্মকান্ড শুরু করেন। কলকাতা প্রেসিডেন্সি কলেজে অর্থনীতিতে বি.এ অনার্স পড়ার সময় তিনি ১৯৪১ সালে ভারতের কমিউনিস্ট পার্টির প্রার্থী সভ্যপদ লাভ করেন। ছাত্রাবস্থায় তিনি পার্টির রাজনৈতিক নেতৃত্বে পরিচালিত ছাত্র সংগঠন অল ইন্ডিয়া স্টুডেন্ট ফেডারেশনের বঙ্গীয় প্রাদেশিক কমিটির দায়িত্ব পালন করেন। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে এম.এ ভর্তি হলে তিনি পার্টির ডাকে সার্বক্ষণিক কর্মী হিসেবে কৃষক আন্দোলন গড়ে তোলার কাজে আত্মনিয়োগ করেন।

১৯৪১ সালে যশোর জেলার বনগাঁয়ে তৃতীয় কৃষক সম্মেলনে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। এই সম্মেলনে “লাঙ্গল যার জমি তার” এবং ঐতিহাসিক তে-ভাগা আন্দোলনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। যশোর জেলার কৃষকের তে-ভাগা আন্দোলনে তিনি নেতৃত্ব দানকারীর ভূমিকা পালন করেন। পাকিন্তান আমলে তিনি ১৯৫৮ সাল থেকে ১৯৭০ সাল পর্যন্ত পুর্ব পাকিস্তান কৃষক সমিতির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। বৃটিশ আমল, পাকিস্তান আমল ও বাংলাদেশের সময়কালে তিনি অনেক আন্দোলন প্রত্যক্ষভাবে গড়ে তোলেন ও অংশ নেন- যেমন: ছাত্রজীবনে ১৯৩৯ সালে হলওয়েল মনুমেন্ট ভাঙ্গার আন্দোলন, ১৯৪৩ সালের মহা মন্বন্তরে কৃষকদের পাশে দাঁড়ানো, ১৯৪৪ সালে হাট তোলা বিরোধী আন্দোলন, ১৯৪৬ সালে তে-ভাগা আন্দোলন, ১৯৫০ সালে রাজশাহী জেলে খাপড়া ওয়ার্ড আন্দোলন, বিভিন্ন কৃষক আন্দোলনসহ ১৯৬৯ সালে গণআন্দোলন ও গণঅভ্যূত্থান এবং পরবর্তীকালে বাংলাদেশের বিপ্লবী আন্দোলন ইত্যাদি। এই সামগ্রিক সময়কালে তিনি কমিউনিস্ট আন্দোলনে অগ্রণী বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করেন। কমিউিনিষ্ট আন্দোলনের ক্ষেত্রে তিনি সংশোধনবাদের সকল প্রকাশের বিরুদ্ধে মতাদর্শগত সংগ্রাম চালিয়ে মার্কসবাদ-লেনিনবাদের লাল পতাকা সমুন্নত রেখেছেন। তিনি ক্রুশ্চেভ-ব্রেজনেভ-গর্বাচেভ মার্কা, তিন বিশ্ব তত্ত্ব ও মাও-সেতুং চিন্তাধারা মার্কা সংশোধনবাদের বিরুদ্ধে এদেশ তথা উপমহাদেশে মতাদর্শিক সংগ্রামে বলিষ্ঠ নেতৃত্বকারী ভূমিকা গ্রহণ করেন। তিনি জাতীয় ক্ষেত্রে আলাউদ্দিন-দেবেন শিকদারদের কৃষিতে ধনবাদ, সুখেন্দু দস্তিদার-তোহাদের উগ্র বাঙ্গালী জাতীয়তাবাদী অবস্থান ও জিয়াউর রহমানকে ‘দেশপ্রেমিক সরকার’ ও সত্য মৈত্রী-ইদ্রিস লোহানীদের জিয়াউর রহমানকে ‘জাতীয় সরকার’ চিহ্নিত করার ডান সুবিধাবাদী-সংশোধনবাদী অবস্থান থেকে, জাসদের ট্রটস্কিবাদী বাম হটকারী অপতৎপরতার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে মার্কসবাদ-লেনিনবাদের লাল পতাকাকে উর্ধ্বে তুলে ধরে বাংলাদেশে শ্রমিকশ্রেণির নেতৃত্বে শ্রমিক-কৃষকের মৈত্রীর ভিত্তিতে সাম্যবাদ-সমাজতন্ত্রের লক্ষে জাতীয় গণতান্ত্রিক বিপ্লব সফল করার সঠিক লাইন তুলে ধরে অগ্রসর করতে ভূমিকা গ্রহণ করেন। দশটি গ্রন্থের সমন্বয়ে কমরেড আবদুল হক গ্রন্থাবলী ইতিমধ্যেই প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়াও শতাধিক প্রবন্ধ তিনি রচনা করেছেন। সুদীর্ঘ ষাট বছরের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনে পঁচিশ বছরই তাকে আত্মগোপনে কাটাতে হয়। ২২ ডিসেম্বর ১৯৯৫ শুক্রবার রাত ১০টা ৫ মিনিটে বার্ধক্যজনিত অসুস্থ্যতায় কমরেড আবদুল হক শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর।

অপর কমরেড হেমন্ত সরকার ১৯৯৮ সালের ২৮ ডিসেম্বর ৮২ বছর বয়সে নড়াইলে মৃত্যুবরণ করেন। কমরেড হেমন্ত সরকারের বিপ্লবী জীবনের দিকে তাকালে দেখা যায় ১৯১৬ সালে নড়াইল জেলার সদর থানার বড়েন্দার গ্রামে এক গরীব কৃষক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি শ্রমিকশ্রেণীর বিপ্লবী রাজনীতি ও কমিউনিস্ট পার্টির সাথে সম্পর্কিত হন ১৯৪০-এর দিকে এবং ১৯৪২ সালে পার্টি সভ্যপদ লাভ করেন। ঐতিহাসিক তে-ভাগা আন্দোলনে তিনি দৃষ্টান্তমূলক ভূমিকা রাখেন। দেশ বিভাগের পর ১৯৪৮ সালে গ্রেপ্তার হয়ে পঞ্চাশের দশকের মাঝামাঝি পর্যন্ত বন্দী জীবন কাটান। ৬০ এর দশকে বিশ্ব কমিউনিস্ট আন্দোলনে ক্রুশ্চেভ সংশোধনবাদের বিরুদ্ধে সংগ্রামে তিনি দৃঢ় ভূমিকা রাখেন। এ প্রেক্ষাপটে পূর্ব পাকিস্তানের কমিউনিস্ট পার্টি (এম-এল) এর যশোর জেলা পার্টি পুনর্গঠনে ভূমিকা রাখেন এবং যশোর জেলা কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭০ সালে সশস্ত্র সংগ্রামের লাইন গৃহীত হলে তিনি তা বাস্তবায়নে ভূমিকা রাখেন এবং ১৯৭১ সালে পার্টি পরিচালিত বিপ্লবী যুদ্ধে তিনি নেতৃত্বদানকারী ভূমিকা পালন করেন। উগ্র বাঙালি জাতীয়তাবাদী অবস্থানের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে কমরেড আবদুল হকের নেতৃত্বে ১৯৭২ সালের প্লেনামে তিনি পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন এবং ১৯৭৫ সালে ৫ম কংগ্রেসে তিনি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য পুনঃনির্বাচিত হন।

তিনি ১৯৮০ সালে সংশোধনবাদী তিন বিশ্ব তত্ত্ব বিরোধী সংগ্রামে দৃঢ় ভূমিকা পালন করেন এবং ১৯৮৩ সালে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশের বিপ্লবী কমিউনিস্ট পার্টি (এম-এল) এর ৬ষ্ঠ কংগ্রেসে কন্ট্রোল কমিশনের সভ্য নির্বাচিত হন এবং কন্ট্রোল কমিশনের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন।

এর পর পরই ১৯৮৪ সালে তিনি পুণরায় গ্রেপ্তার হন। ১৯৮৮ সালে অনুষ্ঠিত ৭ম কংগ্রেসে তিনি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য পূণঃনির্বাচিত হন। ১৯৯১ সালে অনুষ্ঠিত ৮ম কংগ্রেসে তিনি কন্ট্রোল কমিশনের সভ্য নির্বাচিত হন এবং কন্ট্রোল কমিশনের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। নবম কংগ্রেসের প্রায় পূর্ব পর্যন্ত তিনি এ দায়িত্ব পালন করেন। নবম কংগ্রেসে বার্ধক্যজনিত অসুস্থতা ও অন্যান্য কারণে কেন্দ্রীয় পর্যায়ের সংগঠনে থাকেন না এবং পার্টির সভ্য হিসেবে মৃত্যুবরণ করেন। সাম্রাজ্যবাদ-সামন্তবাদ বিরোধী জাতীয় গণতান্ত্রিক বিপ্লব জয়যুক্ত করার জন্য ব্রিটিশ আমল থেকে তাঁর সংগ্রামী ভূমিকা, অধ্যবসায়, ত্যাগ-তিতিক্ষার ক্ষেত্রে দৃষ্টান্তমূলক অবদান থেকে সকল প্রগতিশীল বিপ্লবী, গণতান্ত্রিক ও সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী নেতা-কর্মীদের গভীরভাবে শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে।

সংগ্রামী বন্ধুগণ,

আজ যখন আমরা কমিউনিস্ট বিপ্লবী নেতা কমরেড আবদুল হক ও কমরেড হেমন্ত সরকারের মৃত্যুবার্ষিকী পালন করছি তখন বাংলাদেশ এক গভীর অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক, সামাজিক তথা সামগ্রিক সংকটে নিমজ্জিত। চাল, লবন, পেঁয়াজ, শাক-সবজিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্যের লাগামহীন মূল্যবৃদ্ধি, পুনরায় বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধি করে পণ্যসামগ্রী, যানবাহনের ভাড়া, বাড়ি ভাড়া বৃদ্ধি করে জনজীবনকে আরো বিপর্যস্ত করছে। শ্রমিক বাজারদরের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ মজুরি না পেয়ে; বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক দ্বিতীয় দফায় উৎপাদন করতে পুনরায় ঋণগ্রস্থ ও উৎপাদিত কৃষিপণ্যের ন্যায্যমূল্য না পেয়ে বিপর্যস্ত; শিক্ষাকে বাণিজ্যিকীকরণ, ভর্তি বাণিজ্য, প্রশ্নপত্র ফাঁস, দূর্নীতি, শিক্ষাঙ্গনে দলীয় সন্ত্রাস; খুন-গুম-অপহরণ; নারী ধর্ষণ-নির্যাতন, নারী ও শিশু পাচার; সরকার দলীয় সন্ত্রাস, পুলিশের গ্রেফতার বাণিজ্য ও রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস; মিছিল-মিটিং, সভা-সমাবেশ নিয়ন্ত্রণ; সংবাদপত্র ও সংবাদ মাধ্যম কালা-কানুন করে নিয়ন্ত্রণ; শহর-গ্রামে সর্বত্র মাদকের ছড়াছড়ি ইত্যাদি সর্বাত্মক করে চলেছে। মহাজোট সরকার স্বৈরতন্ত্রকে তীব্রতর করে শ্রমিক-কৃষক-জনগণের আন্দোলন-সংগ্রাম এবং নেতৃত্বকারী বিপ্লবী ও গণতান্ত্রিক শক্তিকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্র-চক্রান্তে লিপ্ত রয়েছে।

মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ ও তার দালাল সামন্ত-আমলা-মুৎসুদ্দি বুর্জোয়া শ্রেণির স্বার্থ রক্ষাকারী মহাজোট সরকারের নির্মম শোষণ-লুণ্ঠন ও স্বৈরাচারি শাসনের বিরুদ্ধে আজ প্রয়োজন শ্রমিক-কৃষক-জনগণের জরুরি সমস্যা ও দাবি-দাওয়া নিয়ে আন্দোলন-সংগ্রামকে বেগবান করা। এ ক্ষেত্রে অতীতের ধারাবাহিকতায় বর্তমানে সাম্রাজ্যবাদ ও তার দালাল বুর্জোয়া শ্রেণির লেজুড় সংশোধনবাদী-সুবিধাবাদীরা এই মূল কাজকে আড়াল করে উগ্র বাঙ্গালী জাতীয়তাবাদের অবস্থান থেকে ‘মুক্তিযুদ্ধ’র স্বপক্ষের শক্তির ঐক্যের শ্লোগানকে সামনে রেখে মহাজোট সরকারের লেজুড়বৃত্তি করে চলেছে। ১৯৯১ সালে ক্রুশ্চেভ-ব্রেজনেভ-গর্বাচেভ মার্কা সংশোধনবাদীরা বিপর্যস্ত হয়ে সোভিয়েত ইউনিয়নসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কমিউনিস্ট পার্টিকে বিলোপ করে। ১৯৫৬ সালে সোভিয়েত ইউনিয়ন ও পূর্ব ইউরোপে ক্রুশ্চেভ সংশোধনবাদীরা পুঁজিবাদ পুনঃপ্রতিষ্ঠা করে সমাজতন্ত্রের নামাবলী গায়ে দিয়ে চলে এবং ১৯৬৭ সালে সোভিয়েত সামাজিক সাম্রাজ্যবাদে পরিণত হয়ে পরাশক্তি হিসেবে আগ্রাসন তৎপরতা চালায়। এ প্রক্রিয়ায় ১৯৯১ সালে পুঁজিবাদের উলঙ্গ প্রকাশ ঘটে। আবার চীনের কমিউনিস্ট পার্টি ১৯৪৯ সালে জনগণতান্ত্রিক বিপ্লব করলেও তাকে নিরবচ্ছিন্নভাবে সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব সফল না করায় চীনেও সংশোধনবাদ প্রতিষ্ঠিত হয়। তারা বর্তমানে রুশ ফেডারেশনের কমিউনিস্ট পার্টি, চীনের কমিউনিস্ট পার্টি, ভিয়েতনামের ওয়ার্কার্স পার্টিসহ বিভিন্ন দেশের রুশ ও চীনপন্থী সংশোধনবাদী পার্টিগুলো কমিউনিস্ট ও ওয়ার্কার্স পার্টিসমূহের আন্তর্জাতিক অধিবেশন করে (IMCWP) চীনকে সামনে রেখে ভিয়েতনাম, উত্তর কোরিয়া ও কিউবাকে সমাজতান্ত্রিক আখ্যায়িত করে যে ডান সুবিধাবাদী সংশোধনবাদী ধারা সামনে আনছে তাদের এদেশীয় দোসর ওয়ার্কার্স পার্টি ও সিপিবি এবং তাদের নেতৃত্বে তথাকথিত বামপন্থীদের ঐক্যের তৎপরতা এদেশের শ্রমিকশ্রেণির বিপ্লবী সংগঠন ও সংগ্রাম তথা প্রকৃত বাম আন্দোলনকে ক্ষতিগ্রস্থ করার ষড়যন্ত্র-চক্রান্ত ছাড়া আর কিছু নয়।

এমতাবস্থায় নয়াউপনিবেশিক-আধাসামন্তবাদী বাংলাদেশে তিন শত্রুর বিরুদ্ধে শ্রমিকশ্রেণির নেতৃত্বে শ্রমিক-কৃষকের মৈত্রীর ভিত্তিতে সাম্যবাদ-সমাজতন্ত্রের মূল লক্ষে জাতীয় গণতান্ত্রিক বিপ্লব সফল করার ক্ষেত্রে অন্যতম বাঁধা হচ্ছে উল্লেখিত সংশোধনবাদীরাসহ সকল রূপের সংশোধনবাদ। ২০১৭ সালে আমরা যখন কমরেড আবদুল হক ও কমরেড হেমন্ত সরকারের মৃত্যুবার্ষিকী পালন করছি- এ বছরই হচ্ছে মহান অক্টোবর বিপ্লবের শততম বার্ষিকী। আমাদের দেশের কমিউনিস্ট আন্দোলনের মহান নেতৃদ্বয় অক্টোবর বিপ্লব তথা মার্কসবাদ-লেনিনবাদের মহান শিক্ষাকে সামনে রেখে বিশ্ব কমিউনিস্ট আন্দোলনের অংশ ও অধীন হিসেবে এদেশে কমিউনিস্ট আন্দোলনে সুবিধাবাদ ও সংশোধনবাদের সকল প্রকাশের বিরুদ্ধে যে আপসহীন মতাদর্শিক সংগ্রাম পরিচালনা করে লক্ষ্য অর্জনে অবিচল থেকেছেন সেই শিক্ষাকে সামনে রাখতে হবে। তাই আজ আমাদের দায়িত্ব হচ্ছে সংশোধনবাদের উল্লেখিত প্রকাশসহ সকল রূপের সংশোধনবাদের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে জাতীয় গণতান্ত্রিক বিপ্লব সফল করার লক্ষে আপসহীন ধারাবাহিক সংগ্রাম পরিচালনা করা। আসুন, শ্রমিক, কৃষক, ছাত্র, মধ্যবিত্ত জনগণ এবং দেশপ্রেমিক, গণতান্ত্রিক সকল শক্তি ঐক্যবদ্ধ হই, গড়ে তুলি সাম্রাজ্যবাদ ও তার দালালদের বিরুদ্ধে দূর্বার আন্দোলন।

সংগ্রামী অভিনন্দনসহ

আব্দুল হক

সভাপতি

হাফিজুর রহমান

সাধারণ সম্পাদক

জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট, যশোর জেলা শাখা

৫৮, সমবায় ব্যাংক মার্কেট ভবন (৩য় তলা) পাইপপট্টি, যশোর-৭৪০০ থেকে ৫ ডিসেম্বর ২০১৭ প্রকাশিত ও প্রচারিত।

l


সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী প্রগতিশীল বিপ্লবী কমরেড হেমন্ত সরকার লাল সালাম

1978802_658119857663263_5592373856179391799_n

আজ ২৮ ডিসেম্বর’১৫ সোমবার এদেশের কমিউনিস্ট আন্দোলনের অন্যতম প্রবীণ নেতা বাংলাদেশের কৃষক আন্দোলন তথা ঐতিহাসিক তে-ভাগা আন্দোলনে দৃষ্টান্ত স্থাপনকারী শ্রমিক-কৃষক-মেহনতি জনগণের মুক্তির লক্ষ্যে নিঃস্বার্থ, নিবেদিত প্রাণ, ত্যাগী, অভিজ্ঞ নেতা কমরেড হেমন্ত সরকার-এর ১৭তম মৃত্যুবার্ষিকী।

প্রয়াত কমরেড হেমন্ত সরকার ১৯৯৮ সালের ২৮ ডিসেম্বর ৮২ বছর বয়সে নড়াইলে মৃত্যুবরণ করেন। কমরেড হেমন্ত সরকারের বিপ্লবী জীবনের দিকে তাকালে দেখা যায় ১৯১৬ সালে নড়াইল জেলার সদর থানার বড়েন্দার গ্রামে এক গরীব কৃষক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি শ্রমিকশ্রেণীর বিপ্লবী রাজনীতি ও কমিউনিস্ট পার্টির সাথে সম্পর্কিত হন ১৯৪০-এর দিকে এবং ১৯৪২ সালে পার্টি সভ্যপদ লাভ করেন। ঐতিহাসিক তে-ভাগা আন্দোলনে তিনি দৃষ্টান্তমূলক ভূমিকা রাখেন। দেশ বিভাগের পর ১৯৪৮ সালে গ্রেপ্তার হয়ে পঞ্চাশের দশকের মাঝামাঝি পর্যন্ত বন্দী জীবন কাটান। ৬০ এর দশকে বিশ্ব কমিউনিস্ট আন্দোলনে ক্রুশ্চেভ সংশোধনবাদের বিরুদ্ধে সংগ্রামে তিনি দৃঢ় ভূমিকা রাখেন। এ প্রোপটে পূর্ব পাকিস্তানের কমিউনিস্ট পার্টি (এম-এল) এর যশোর জেলা পার্টি পুনর্গঠনে ভূমিকা রাখেন এবং যশোর জেলা কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭০ সালে সশস্ত্র সংগ্রামের লাইন গৃহীত হলে তিনি তা বাস্তবায়নে ভূমিকা রাখেন এবং ১৯৭১ সালে পার্টি পরিচালিত বিপ্লবী যুদ্ধে তিনি নেতৃত্বদানকারী ভূমিকা পালন করেন। উগ্র বাঙালি জাতীয়তাবাদী অবস্থানের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে কমরেড আবদুল হকের নেতৃত্বে ১৯৭২ সালের প্লেনামে তিনি পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন এবং ১৯৭৫ সালে ৫ম কংগ্রেসে তিনি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য পুনঃনির্বাচিত হন। তিনি ১৯৮০ সালে সংশোধনবাদী তিন-বিশ্ব তত্ত্ব বিরোধী সংগ্রামে দৃঢ় ভূমিকা পালন করেন এবং ১৯৮৩ সালে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশের বিপ্লবী কমিউনিস্ট পার্টি (এম-এল) এর ৬ষ্ঠ কংগ্রেসে কন্ট্রোল কমিশনের সভ্য নির্বাচিত হন এবং কন্ট্রোল কমিশনের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। এর পর পরই ১৯৮৪ সালে তিনি পুনরায় গ্রেপ্তার হন। ১৯৮৮ সালে অনুষ্ঠিত ৭ম কংগ্রেসে তিনি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য পূণঃনির্বাচিত হন। ১৯৯১ সালে অনুষ্ঠিত ৮ম কংগ্রেসে তিনি কন্ট্রোল কমিশনের সভ্য নির্বাচিত হন এবং কন্ট্রোল কমিশনের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। নবম কংগ্রেসের প্রায় পূর্ব পর্যন্ত তিনি এ দায়িত্ব পালন করেন। নবম কংগ্রেসে বার্ধক্যজনিত অসুস্থতা ও অন্যান্য কারণে কেন্দ্রীয় পর্যায়ের সংগঠনে থাকেন না এবং পার্টির সভ্য হিসেবে মৃত্যুবরণ করেন। সাম্রাজ্যবাদ-সামন্তবাদ বিরোধী জাতীয় গণতান্ত্রিক বিপ্লব জয়যুক্ত করার জন্য ব্রিটিশ আমল থেকে তাঁর সংগ্রামী ভূমিকা, অধ্যবসায়, ত্যাগ-তিতিক্ষার ক্ষেত্রে দৃষ্টান্তমূলক অবদান থেকে সকল প্রগতিশীল বিপ্লবী, গণতান্ত্রিক ও সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী নেতা-কর্মীদের গভীরভাবে শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে।