‘‘ভারতের মধ্যে থেকেই স্বাধীনতা চাই’’, বললেন কানহাইয়া

kanhaiya-speech-web

যখন তিনি জেলে গিয়েছিলেন তখন তাঁকে চিনতেন শুধু জেএনইউ-এর পড়ুয়া-শিক্ষকরা৷ বৃহস্পতিবার জেল থেকে বেরোনোর পর তাঁর দিকেই চোখ রাখল গোটা দেশ৷ তিনি কানাহাইয়া কুমার৷ রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে ২২ দিন জেলে থাকার পর তিনি যখন জামিনে ছাড়া পেলেন, তখনও তাঁর চোখে মুখে আগের মতোই উজ্বল৷

জেল থেকে বেরোনোর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই জেএনইউ –তে গিয়ে ছাত্র সমাবেশে স্বতঃস্ফূর্তভাবেই ভাষণ দিলেন তিনি৷ চিৎকার করে বলেলন, ‘‘অনাহার থেকে আজাদি, দুর্নীতি থেকে আজাদি, বৈষম্য থেকে আজাদি, অনুন্নয়ন থেকে আজাদি৷’’হাততালিতে ফেটে পড়ল সমাবেশ৷ বললেন,  ‘‘ভারত থেকে নয়, ভারতের মধ্যে থেকেই স্বাধীনতা চাই’’৷ যুব সমাজের বিপুল সমর্থন তাঁদের চিৎকারেই প্রকাশ পেল৷

সমাবেশে মোদি সরকারকে সমালোচনা করতে ছাড়লেন না ছাত্রনেতা কানাহাইয়া কুমার৷ যাঁকে দেশ বিরোধী স্লোগান দেওয়ার অভিযোগে অতিরিক্ত তৎপরতায় গ্রেফতার করেছিল দিল্লি পুলিশ৷ বললেন, প্রধানমন্ত্রী ‘মন কি বাত বলেন৷ মনের কথা শোনেন না৷’’ ‘‘আমি গ্রাম থেকে এসেছি৷ সেখানে ম্যাজিক আংটি বিক্রি হয়৷ বিক্রি করতে গিয়ে বলা হয় এর কাছে যা চাইবেন পাবেন৷ আমাদের দেশেও কিছু এরকম মানুষ আছেন৷ যাঁরা চমক তৈরির চেষ্টা করেন৷ বলেন, কালো টাকা আমরা ফিরিয়ে আনব, সবকা সাথ, সবকা বিকাশ৷ কিন্তু একদিন এই মিথ্যে চমক শেষ হবে৷ ভারতীয়রা একদিন বুঝবেই’’৷ তবে মোদিজি টুইটে বলেন ‘সত্যমেব জয়তে’৷ ঠিক বলেন৷ সত্যের জয় হবেই৷

এদিকে জেএনইউ কাণ্ড নিয়ে দিল্লি সরকার যে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিল, তাতে কানাহাইয়ার বিরুদ্ধে কোনও তথ্য-প্রমাণ মেলেনি৷ তদন্তকারী ম্যাজিস্ট্রেট  সঞ্জয় কুমার জানিয়েছেন, ভিডিও ও সাক্ষী থেকে কানাহাইয়ার বিরুদ্ধে দেশ বিরোধী স্লোগান দেওয়ার কোনও প্রমাণ মেলেনি৷

Advertisements