ছত্তিশগড়-ঝাড়খন্ড সীমান্তে মাওবাদী হামলায় নিরাপত্তা বাহিনীর ৭ সদস্য গুরুতর আহত

13maoist600

Indianexpress.com জানাচ্ছে, ছত্তিশগড়-ঝাড়খন্ড সীমান্তের কাছে মাওবাদীদের পরিচালিত একটি ইমপ্রোভাইজড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস (আইইডি) বিস্ফোরণে গত বৃহস্পতিবার নিরাপত্তা বাহিনীর অন্তত ৭জন কর্মী গুরুতর আহত হয়েছে।

ছত্তিশগড়ের বালামামপুর জেলার পিপড়াধা গ্রামের কাছাকাছি ঝাড়খণ্ডের সীমান্তবর্তী ২ নং সেক্টরে বিস্ফোরণটি ঘটে। এরপর মাওবাদী ও নিরাপত্তা বাহিনীর মধ্যে গুলি বিনিময় হয়। আহতদের মধ্যে কেন্দ্রীয় রিজার্ভ পুলিশ ফোর্সের (সিআরপিএফ) ৫ জওয়ান এবং ঝাড়খন্ড পুলিশের ২ জন জওয়ান রয়েছে বলে ছত্তিশগড় পুলিশের কর্মকর্তারা জানান, আহতদের রাঁচিতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

ঝাড়খন্ড পুলিশ এবং সিআরপিএফ ২১৮ ব্যাটালিয়নের একটি যৌথ দল যখন মাওবাদ বিরোধী বিশেষ অভিযানে পরিচালনা করছিল, তখন দুপুর ২টায় বিস্ফোরণটি ঘটায় মাওবাদীরা।


উড়িশায় মাওবাদী বিস্ফোরণে নিহত পুলিসকর্মীর সংখ্যা বেড়ে ৮

land-mine-blast

উড়িশার কোরাপুট জেলায়  ল্যান্ডমাইন বিস্ফোরণে নিহত অন্তত ৮ পুলিস। গুরুতর  জখম ৭। উড়িশা পুলিসের ১৩ জন পুলিস কর্মী যখন বাসে করে যাচ্ছিলেন তখন  মুনগড়ভূমির কাছে মারাত্মক বিস্ফোরণে উড়ে যায় বাসটি। মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী রায়পুর ও বিশাখাপত্তনমের মধ্যে ২৬ নম্বর জাতীয় সড়কের একটি কালভার্টে এই বিস্ফোরণ ঘটে। বিস্ফোরণ মাওবাদীরা ঘটিয়েছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ছবি কনক নিউজের সৌজন্যে

সূত্রঃ satdin.in


ভারতে মাওবাদী দমন নিয়ে ৪ রাজ্যকে একযোগে কাজ করার আহ্বান কেন্দ্রীয় সরকারের

2B3885EF-C9A2-494B-B08A-CFB01E28098B_w987_r1_s

পশ্চিমবঙ্গ, ঝাড়খণ্ড, বিহার ও ওড়িশার মতো রাজ্যগুলিকে মাওবাদী দমন নিয়ে একযোগে কাজ করতে বলল কেন্দ্রীয় সরকার।  এই রাজ্যগুলি মাওবাদী অধ্যুষিত হওয়ায়, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক চাইছে তারা যেন একত্রে সমন্বয় রেখে কাজ করে।  কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং বলেন, বিহার, ওড়িশা, ঝাড়খণ্ড এবং পশ্চিমবঙ্গকে মাওবাদী অভিযানে নিয়ে সমন্বয় রেখে চলতে হবে।  তাহলেই মাওবাদী দমন অভিযানে ভালো সাড়া মিলবে।  চারটি রাজ্যের মধ্যে সমন্বয় গড়ে তুলতে হলে তাদের মধ্যে প্রায়শই প্রশাসনিক স্তরে বৈঠক হওয়া জরুরি।  পশ্চিমবঙ্গের পাশের রাজ্য ঝাড়খন্ডের রাঁচিতে ইস্টার্ন জোনাল কাউন্সিলের বৈঠকেকেন্দ্রীয় মন্ত্রীরাজনাথ সিং এই মন্তব্য করেন। এছাড়াও কয়েকজন মুখ্যমন্ত্রী, মুখ্যসচিব, পুলিশের ডিজিপি এবং আইজিপিদের ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।  সেখানে মাওবাদী সমস্যার সমাধান নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয় সরকারী সূত্রের খবর।

সূত্রঃ http://www.voabangla.com/a/terrorism-30jun16/3399211.html


ভারতের গণযুদ্ধে নারী: নারী গেরিলারা সামরিক দিক থেকে কতটা তৈরি?

maoist-activist

ভারতের গণযুদ্ধে নারী

নারী গেরিলারা সামরিক দিক থেকে কতটা তৈরি?

(ভারতের বিপ্লবী পত্রিকা পিপলস মার্চ, ফেব্রুয়ারি-মার্চ, ’০৫ সংখা থেকে সংকলিত)

‘যুদ্ধের নারীসুলভ কোন রূপ নেই’ একটা রাশিয়ান অনুবাদের শিরোনামে এই কথাটা আছে।  কিন্তু চলমান জনযুদ্ধে নারী গেরিলাদের কার্যকলাপে দেখা যাচ্ছে মেয়েদের স্বভাবে যুদ্ধ জিনিসটা স্বাভাবিকভাবেই রয়েছে। এক ধরনের যুদ্ধ রয়েছে যা শুধু মেয়েরা চায় না এমন নয়, সারা বিশ্বের ব্যাপক মানুষই সেই যুদ্ধ চায় না। আবার এমন যুদ্ধ আছে যেটা অবধারিত।  সাধারণ জনগণের সবস্তরের মানুষই সেই যুদ্ধে নেমে পড়ে- অস্ত্র নিয়ে কিংবা বিনা অস্ত্রে।
প্রকৃত অর্থে, শারীরিক, মানসিক, সাংস্কৃতিক, সামাজিক এবং অর্থনৈতিক কারণে নারীদের প্রতিদিনই যুদ্ধ করতে হচ্ছে। ব্যাপক অর্থে তাঁরা যুদ্ধের বিরুদ্ধে য্দ্ধু সংঘটিত করছে।  অন্যান্য নিপীড়িত শ্রেণির মানুষের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়েই লড়ছেন।  তাই যুদ্ধ ‘নারীসুলভ নয়’- এ কথা বলা চলে না। বরং বলা যেতে পারে, হয় এটা নারীর বিরুদ্ধে, নয়তো এটা নারীর জন্য বা দ্বারা পরিচালিত যুদ্ধ। ‘যুদ্ধ নারীসুলভ নয়’- এ ধারণাটা চুরমার করে দেয় নারী গেরিলাদের অনুভূতি ও অভিজ্ঞতা।
এখানে অন্ধ্রপ্রদেশে যুদ্ধে নারী গেরিলাদের কার্যকলাপের বিবরণ দেওয়া হচ্ছে। যুদ্ধের অভিজ্ঞতার কথা জানতে চাইলে জেলা কমিটি থেকে শুরু করে সাধারণ স্কোয়াড সদস্য সব মেয়েরাই আত্মবিশ্বাস ও আবেগের সুরে বর্ণনা দিতে থাকেন।
যুদ্ধ এলাকার সবচেয়ে বিপদসঙ্কুল স্থানের বেশিরভাগ মহিলা কমরেডরাই বাহিনীতে যোগদানের ছয়মাসের মধ্যেই গ্রে হাউন্ড, এস.এস.এফ. কিংবা জেলা পুলিশের মোকাবিলার সম্মুখীন হয়েছেন। আর প্রাথমিক অভিজ্ঞতাটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এক্ষেত্রে কারণ এতে দ্বিধা মুছে গিয়ে তৈরি হয় আত্মবিশ্বাস।
জেলা কমিটি স্তরের (ডিসিএম) এক নারী কমরেডের অভিজ্ঞতা দিয়েই শুরু করা যাক।
একদিন ক্যাম্পে আমি রান্নার দায়িত্বে ছিলাম। শত্রুরা হঠাৎ আমাদের তিনদিক থেকে ঘিরে ফেলেছিল। আমি তো প্রথমে ধরে নিয়েছিলাম কোন দুর্ঘটনার কারণে গুলির আওয়াজ হয়েছে। পরে দেখি রান্নার জায়গার কাছে সাধারণ পোশাকে লোক ঝোপ-জঙ্গল ঠেলে বেরিয়ে আসছে। আমি ভেবেছিলাম ওরা বুঝি গ্রামের লোক। ওদের ডাকতে লাগলাম। কিন্তু ওরা তখন আমার দিকে গুলি ছুঁড়তে লাগলো- আরে, ওরা তাহলে শত্রু। গুলিগুলো আমার গা ঘেঁষে শিস কেটে বেরিয়ে যেতে লাগলো, ঝাঁকে ঝাঁকে গুলি। বজ্রাহতের মতো আমি তো সেঁটিয়ে দাঁড়িয়ে রইলাম। গায়ে গুলি লাগলে হয়তো আমি মরে যেতাম। আমাকে যে পাল্টা জবাব দিতে হবে এটা আমার খেয়ালই হয়নি। কম্যান্ডারের নির্দেশে আমার হুঁস ফিরে এলো। ছুটে একটা গাছের আড়াল নিলাম। একটা গুলি আমিও ছুঁড়লাম। সবাই পঞ্চাশ গজ মতো পিছিয়ে গেল। শত্রু এবং আমার কমরেডদের মাঝখানে আমি আটকা পড়লাম। পরে কমরেডদের গুলিবৃষ্টির আড়ালে আমি নিরাপদ দূরত্বে সরে গেলাম।
ডি.সি.এম. পর্যায়ের আর এক কমরেড জানালেন, প্রথম যখন শত্রুর দেখা পেলাম, কি করতে হবে আমি পরিষ্কার বুঝতে পারছিলাম না। যখন দেখি শত্রু আসছে তখন বুঝলাম গুলি ছুঁড়তে হবে। আমি সেন্ট্রির দায়িত্বে ছিলাম, দেখি শত্রুরা আমাদের ঘাঁটির দিকে এগোচ্ছে। ঘাঁটি একটু দূরে। ভাবলাম এই বেলা গিয়ে ওদের হুঁশিয়ার করে দিই। তাই আমার .৪১০ মাসকেট থেকে গুলি ছুঁড়লাম। পুলিশ ছুটে রাস্তার ওপারে গেল, আর গুলি ছুঁড়তে শুরু করলো। ইতিমধ্যে কমরেডরা বেরিয়ে এলো, কভার নিয়ে গুলি চালাতে চালাতে ওরা এগোতে লাগলো। আমরা সবাই পশ্চাৎপসরণ করলাম।
প্লাটুনের এক সেকসান কম্যান্ডার বললেন, স্কোয়াডে আমি যোগদান করার চারমাসের পর গুলি চললো। পুলিশ খুব কাছে এসে এ.কে.৪৭ থেকে মুহুর্মুহু গুলি চালাতে লাগলো। ভাবলাম, আমি এখানেই শেষ । আমাদের স্কোয়াড ছত্রভঙ্গ হয়ে গেছে। নির্দেশ দেবার কেউই নেই। কম্যান্ডার একা, দুটো গুলি ছুঁড়লেন। পুলিশ তাঁকে ধাওয়া করলো। বুলেটের আঘাতে পাথর ছিটকে উঠছে। আমার কাছে ৮মি.মি.-এর এক রাউন্ডের অস্ত্র। একটু ভাবলাম, কভার নিলাম, একটা গুলি ছুঁড়লাম। বন্দুকের বাঁট আর ব্যারেল বেঁকে গেছে, নলটা জ্যাম হয়ে গেছে। বুঝলাম পুলিশের হাতে আমি নিশ্চিতভাবেই ধরা পড়ছি। এবারে আমি কী করবো? মনে পড়লো ‘জং’-এ কি লেখা আছে (সি.পি.আই. (এম-এল) জনযুদ্ধের সামরিক পত্রিকা)। সেই অনুযায়ী আমার গ্রেনেডের পিন সরিয়ে নিজের শরীরের নিচে লুকিয়ে রেখে একটা বুবি ট্রাপ তৈরি করবো। এই সময়ে পুলিশের গুলিবর্ষণ বন্ধ হয়ে গেল। ওরা ম্যাগাজিন লোড করছে। সুযোগটা নিলাম নিজেকে রক্ষা করতে। এবার দিলাম ছুট।
এই দুই সিনিয়ার কমরেডের অভিজ্ঞতা বুঝিয়ে দেয় মহিলা সম্পর্কে বুর্জোয়া ধারণা কত ভ্রান্ত। কোন পূর্ব অভিজ্ঞতা না থাকা সত্ত্বেও কি রকম উপস্থিত বুদ্ধি দেখিয়েছেন। তাঁরা কেবল নিজেদের বাঁচালেন না, উল্টে শত্রুদের ঘোল খাইয়ে হটিয়েও দিলেন। এই ধরনের অভিজ্ঞতা তাঁরা যত লাভ করলেন, যত রাজনৈতিক উপলব্ধি তাঁদের হতে লাগলো, তারা ক্রমশ নেতৃত্বের স্তরে পৌঁছাতে পারলেন। এই ধরনের গুলি বিনিময়ের সময় তারা কম্যান্ড করার শিক্ষাও শিখলেন।
সাধারণত মেয়েদেরকে কোন অস্বাভাবিক ঘটনার মধ্যে দুর্বল ও ভীত বলে মনে করা হয়। হ্যাঁ, যতদিন তাঁরা বিশেষ একটা সামাজিক কাঠামোর মধ্যে বাঁধা ছিলেন, ততদিনই এই ধারণাটা ঠিক ছিল। যে মুহূর্তে তাঁরা সেই অর্গল ভেঙ্গে বেরিয়ে এলেন দেখা গেল কতখানি সাহস, উদ্যোগ আর অপ্রতিরোধ্য ইচ্ছাশক্তিতে ভরপুর তাঁরা। এখানে আরো কিছু দৃষ্টান্ত দেওয়া হচ্ছে-
এই ঘটনার বিবরণ যিনি দিয়েছেন, পুলিশের গুলিবর্ষণের সময়ে তিনি তখন ঘুমোচ্ছিলেন।  তিনিই ডিফেন্স টিমের নেত্রী ছিলেন।  চট করে উঠে জুতো পরতে পরতে তিনি সকলকে হুঁশিয়ার করে দেন ‘কভার’ নেওয়ার জন্য। ডিফেন্স টিমের পাঁচ-ছ’পা এগিয়ে গেল, আর পুলিশও প্রবল গুলি বর্ষণ শুরু করলো। সেন্ট্রি এবং ডিফেন্স টিমের সমান্তরালে পজিশনে তারা কভারগুলোকে দখল করলো।  ডিফেন্স টিমও পজিশন নিয়ে গুলি ছুঁড়তে শুরু করলো। এইভাবে গোটা বাহিনীটা নিরাপদে হটে গেল।
একটা ঘটনায় আমাদের তিনটি সংগঠক স্কোয়াড একত্র হয়েছিল। আমি ছিলাম ক্যাম্পের কম্যান্ডার। ঐ টেরেন ছিল পর্বতসঙ্কুল। আমার ডিউটি হস্তান্তরের সময়ে পুলিশ হঠাৎ করে এসে গুলি চালাতে শুরু করলো। চট করে আমি দৌড়ে পিছু হটলাম, ইতিমধ্যে প্রত্যেকেই কভার নিয়ে গুলি চালাতে লাগলো, আমিও যোগ দিলাম। একদল পুলিশ এসে পড়লো সেন্ট্রি আর আমাদের মাঝখানে। আর একদল অন্যদিক দিয়ে টিলার ওপর উঠে গেল। এদিকে সেন্ট্রির কাছে যে ক্যালেমার মাইন ছিল সেটা ফাটলো না। তাই উল্টো দিক থেকে গুলি চালাতে চালাতে তারা পিছু হটে গেলো। আমি এবার গুলি বর্ষণের দায়িত্ব নিলাম। প্রথমে নেতৃত্বদায়ী দলটির পশ্চাৎপসরণে সাহায্য করলাম। তারপর আমাদের দলটা পিছু হটে গেল। দ্রুত সবাই সরে গেল। একজন কমরেড আর আমি রয়ে গেলাম। আমাদের পিছুহটা চলতে চলতেই আর একজন পুলিশ একপাশ থেকে আক্রমণ চালালো। এবার আমরা দু’দিকেই গুলি ছুঁড়তে ছুঁড়তে একটা বড় পাহাড়ের কভারে সরে যেতে লাগলাম।
এটা আরো একটা ঘটনা যাতে মহিলা কম্যান্ডার নেতৃত্ব দিয়েছেন এবং পুরো দলটাকে বাঁচিয়েছেন।
অসাধারণ ইচ্ছাশক্তি এবং বিপ্লবী উৎসাহের সাহায্যেই মহিলারা বস্তাপচা পুরোনো সামন্ততান্ত্রিক সমাজের ধারণাটাকে উল্টে-পাল্টে দিচ্ছেন। এই ঘটনার পরে পুলিশের মন্তব্য হলো, ‘আমরা ভেবেছিলাম মেয়েরা রয়েছে, তাই সহজেই ওদের ধরা যাবে। তা সত্ত্বেও তারা সাহসের সাথেই আমাদের মোকাবিলা করলো’।
এই ঘটনার মহিলা স্কোয়াড কম্যান্ডার এবং আরো একজন কমরেড স্নান করছিলেন, তাঁরা যখন কাপড় ধুচ্ছিলেন একটা আওয়াজ তাঁরা শুনতে পেলেন। দ্বিতীয় কমরেডটি সবেমাত্র তাঁর পোশাকটা খুলতে যাবেন কম্যান্ডার তাঁকে বললেন কোত্থেকে শব্দটা আসছে দেখতে। জানতে চাওয়ার জবাব এলো গুলির শব্দে।
কম্যান্ডার জানাচ্ছেন, ঐ সময়ে আমি নিচে ঝর্ণার জলে ছিলাম। কাপড়-চোপড় ছিল উপরে গাছের ডালে। আমার কিট, পাউচ আর অস্ত্রও ছিল ওপরে। গুলি বর্ষণ সম্পর্কে আমি হুঁসিয়ারী দিলাম, আর ভাবতে লাগলাম কি করে আমার জিনিসপত্রগুলো নেব। প্রথমে আমার পাউচ আর অস্ত্রটা ম্যানেজ করলাম। অস্ত্রে গুলি ভরেই ছুঁড়তে শুরু করে দিলাম। এতে পুলিশ এক কদম পিছু হটে গেল। দেখলাম পিছু হটার কোন উপায়ই নেই আমাদের, কারণ ঝর্ণাটা বেশি গভীর আর পিচ্ছিল। আমি ধীরে ধীরে নামতে লাগলাম আর একটা করে গুলি ছুঁড়তে লাগলাম। ইতিমধ্যে আমার হাতে এসে লাগলো একটা গুলি, প্রচুর রক্তও পড়তে লাগলো। আমার অস্ত্রটা অন্য কমরেডের হাতে দিয়ে আমি পিছু হটে গেলাম।
ঘটনাটা বীর নারী গেরিলাদের আত্মত্যাগের কথা স্মরণ করিয়ে দিচ্ছিল। জনযুদ্ধে জনগণের স্বার্থে আত্মদানের সার্থকতা আমি বুঝতে পারছিলাম।
ঘটনাটা অবশ্য এখানেই শেষ হলো না। দলে দলে পুলিশের চিরুণি তল্লাসী চললো। গেরিলা দল কম্যান্ডারের প্রাথমিক চিকিৎসা সেরে মাঠের মধ্য দিয়ে সরে যাচ্ছিল।
কম্যান্ডারের কথায় ফিরে আসি আবার, আমরা ঠিকমতো কভার নিতে পারিনি। পুলিশ আমাদের দেখে ফেললো। গ্রামের একজন মহিলা পুলিশকে দেখতে পেয়ে আমাদের সাবধান করে দিল। আবার গুলি বিনিময় চললো। যদিও আমার হাতে বেশ যন্ত্রণা, তবুও দু’টো গুলি ছুঁড়লাম আমি। আরো গুলি হয়তো ছুঁড়তে পারতাম, কিন্তু আমার অস্ত্রটা জ্যাম হয়ে গেলো। তাই খুব জোরে দৌড়ে পিছু হটতে গিয়ে পড়ে গেলাম। পরে সবাই মিলে আমরা একটা ঝর্ণায় নেমে গেলাম। সবাই এভাবে পিছু হটে গেলাম।
একটা সংঘর্ষে একজন সিনিয়র কমরেড ও আরো তিনজন কমরেড শহীদ হয়ে গেলেন। তাতে প্লেটুনের সেকশন ডেপুটি কম্যান্ডারের বিবরণ হলোঃ
হঠাৎ করে গুলি বর্ষণ শুরু হলো- রীতিমতো মুহুর্মুহু! প্রথম গ্রুপের আমরা তিনজন একটা ব্যাচ হয়ে গিয়ে পাল্টা গুলি চালিয়ে জবাব দিতে লাগলাম। দ্রুত গুলি চালিয়ে গেলাম আমার রাইফেলের ম্যাগাজিন শেষ হওয়া পর্যন্ত। আমরা গুলি চালাচ্ছিলাম বলে পুলিশ নিচের পজিশন থেকে আর এক ইঞ্চিও এগোতে পারছিল না। দ্বিতীয় গ্রুপের কমরেডরা দ্রুত গুলি চলার ফলে হয় পড়ে গিয়েছিলেন কিংবা শহীদ হয়ে গিয়েছিলেন। আমরা একটু দূরে ছিলাম। দেখলাম আমাদের কমরেডদের বাঁচাতে পারবো না। তাছাড়া আমার ম্যাগাজিন খালি হয়ে গিয়েছিলো। তাই আমাদের পিছু হটতে হলো।
আর একটা ঘটনায় পুলিশ এক গ্রামবাসীকে স্কোয়াডের জন্য জল নিয়ে যেতে দেখলো। তাকে অনুসরণ করে পুলিশ আমাদের ডেরায় পৌঁছে গেল। তিনজন পুলিশ ‘হাই নীলিং পজিশনে’ থেকে মুহুর্মুহু গুলি চালাতে শুরু করলো। সেন্ট্রির কাছে এক কমরেড আহত হলো।
এই অভিজ্ঞতা স্মরণ করে এক কমরেড বললেন, ‘আমার স্টেনগানটা ভরে গুলি ছুঁড়তে গেলাম। দেখি ওটা আটকে গেছে। পরে বুঝলাম ওর সেফটি পিনটা সরাতেই ভুলে গেছি। ওটা সরাতেই গুলি চালাতে পারলাম। ইতিমধ্যে অন্য সবাই ঘুমোচ্ছিল, আর সেন্ট্রিতে আমরা ছিলাম তিনজন। যাইহোক ঐভাবে গুলি চালিয়ে আমরা সবাই পিছু হটতে পারলাম। ঐ ঘটনায় একজন পুলিশ কনস্টেবল মারা গেল।’
পুরুষতান্ত্রিক সমাজ মেয়েদেরকে পুরুষের লেজুড় বলেই মনে করে। এখানে একটা ঘটনা আছে, যেখানে নারী গেরিলাটি তাঁর স্বামীর মৃত্যুর দৃশ্য দেখেও জনযুদ্ধের লড়াই চালিয়ে গেলেন। স্কোয়াড যেখানে বিশ্রাম নিচ্ছিল সেখানে পুলিশ হঠাৎ গুলিবর্ষণ আরম্ভ করলো। কম্যান্ডার নির্দেশ দিলেন ক্ল্যামার মাইন বিস্ফোরণ করার। মেয়েটি পারলেন না বিস্ফোরণ করতে। তিনি কম্যান্ডারকে জানাতে কম্যান্ডার মেয়েটিকে আবার চেষ্টা করতে বললেন। আবারো চেষ্টা করে ব্যর্থ হলেন নারী
গেরিলাটি। ফলে মেয়েটিকে ফিরে আসতে নির্দেশ দেওয়া হলো। ফিরে আসার সময়ে মেয়েটি দেখতে পেলেন তাঁর স্বামীকে রক্তের বন্যায় পড়ে থাকতে। প্রচন্ড মানসিক আঘাতে তিনি স্তব্ধ হয়ে কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে ছিলেন। তখন অজস্র ধারায় শত্রুর দিক থেকে গুলিবর্ষণ হচ্ছিল।  মেয়েটি নিচে পড়ে গেলেন।  পরে একজন কমরেডের সাহায্যে উঠে পিছু হটে গেলেন।
গেরিলাদের কাছে ম্যালেরিয়া রোগটা একটা নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার।  মেয়ে গেরিলাদের নিয়মিত শরীর খারাপের সাথে এটা একটা বাড়তি ঝামেলা।
একবার স্কোয়াড যখন গ্রামবাসীদের সাথে নাচ-গানে মেতে আছে পুলিশ তখন আচমকা আক্রমণ করলো। স্কোয়াড বেন্ডি পজিশনে এগিয়ে গেলো।  নারী কমরেডরা সাহসের সাথে মোকাবিলা করলেন, কোন ক্ষয়ক্ষতি ছাড়াই তাঁরা সফল হলেন।
নারী গেরিলারা শত্রুর আক্রমণ ঠেকাতেই কেবল দক্ষ নয়, শত্রুকে আক্রমণ হানতেও তাঁরা ওস্তাদ হয়ে উঠেছেন। যেখানে মেয়েরা রেইডে অংশ নিয়েছেন এমন কতকগুলো ঘটনা দেওয়া হচ্ছে।  একজন নারী কমরেড রেইডের জন্য সার্ভে এবং অনুশীলনের আগে অন্যান্য কমরেডদের সাথে গভীর আলোচনা করলেন। মহিলাটির ছোট করে ছাঁটা চুল ও অন্যান্য কারণে সহসাথীরা ভাবলেন যদি সহজেই তাকে চিহ্নিত করে ফেলে শত্রুরা।  কিন্তু মহলাটির প্রচন্ড মনের জোর দেখে অন্যান্য কমরেডরা সেই ভাবনা দূরে রাখতে বাধ্য হলেন। তাঁকে এ্যাসল্ট এ্যাটাক টিমেই নেওয়া হলো। মেয়েটি রেইডের আগে তিনবার সার্ভে (রেকি) করলেন।
এবার মেয়েটির মুখ থেকে শোনা যাক, ‘আক্রমণের সময়ে আমরা অভাবনীয় পরিস্থিতির সামনে পড়লাম। বিল্ডিং-এর ভিতর পুলিশরা ঘুমোচ্ছিল আর পাঁচিলে কাঁচের টুকরো গাঁথা ছিল সর্বত্র। দুটো প্রবেশপথ। সেন্ট্রির বাঙ্কার ছিল অন্য পাশে। আমরা তৎক্ষণাৎ সিদ্ধান্ত পাল্টালাম। একজন কমরেডকে পাঁচিল টপকে ওপারে পাঠালাম। সে ভেতর থেকে দরজা খুলে দিল। আমার সবাই ভেতরে গেলাম। তিনটি মাইন নিয়ে আমরা তৈরি হলাম যদি শত্রু সজাগ হয়। যেখানে পুলিশগুলো ঘুমোচ্ছিল সেই ঘরে তিনটি মাইন লাগিয়ে বিস্ফোরণ ঘটালাম। বাড়িটা ধসে পড়লো হুড়মুড় করে। ১নং সেন্ট্রি পোস্টের কাছে যে জীপটা ছিল সেটাকে ধ্বংস করা হলো। বিল্ডিং-এর ভেতর থেকে পুলিশরা চেঁচাতে লাগলো। দু’জন পুলিশ খতম হয়েছে, আর দু’জন আহত। ১নং সেন্ট্রি তার এস.এল.আর. ফেলে পালালো। আমাদের ২নং সেন্ট্রি পোস্ট দখল নিতে একটু দেরি হওয়ায়, সে গুলি চালাতে লাগলো। ফলে বিল্ডিং-এর ভেতরকার অস্ত্র দখল নিতে পারলাম না আমরা।
কমরেড আরো বললেন, প্রথমদিকে প্রথমত আমার একটু দ্বিধা ছিল, আক্রমণের নেতৃত্ব আমি দিতে পারবো কিনা। এই অভিযান আমার আত্মবিশ্বাস এনে দিয়েছে। ন’জন মহিলা কমরেড এই গেরিলা এ্যাকশনে সামিল হয়েছিলেন।
একটি পুলিশ থানা রেইডে চল্লিশ জন গেরিলার মধ্যে মহিলা ছিলেন চৌদ্দজন। ‘এ’ এ্যাসাল্ট টিমে ছিলেন দু’জন নারী গেরিলা, আর ‘বি’ টিমে ছিলেন দু’জন।
“আমি ছিলাম ‘এ’ এ্যাসাল্ট টিমে, আমাদের দায়িত্ব ছিল নিচের তলা এবং এস.আই. রুমের সেন্ট্রিদের সাফ করা আর যোগাযোগ ব্যবস্থা ধ্বংস করা। আমরা থানায় ঢুকলাম। সেন্ট্রি গুলি ছুঁড়তেই আমরা তাকে খতম করলাম। একতলাটা দখল নিয়ে আমাদের মাইনগুলো ফাটাতে চেষ্টা করলাম। কিন্তু সেগুলো ফাটলো না। শেষ পর্যন্ত সেন্ট্রির কাছ থেকে মাইনগুলো নিয়ে সব একসাথে বিস্ফোরণ ঘটালাম। প্রচন্ড শব্দ! পুলিশের গাড়িগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হলো। থানার দখল নিয়ে যতগুলো অস্ত্র আমরা পারলাম সংগ্রহ করলাম। খবর পেলাম, অন্য এক দল পুলিশ বাহিনী ঐ স্থানে আসছে। আমাদের সমগ্র বাহিনী মোটর সাইকেল চেপে দ্রুত ঐ স্থান ত্যাগ করলো। সমস্ত মহিলা কমরেডরা প্রচন্ড উৎসাহের সাথে ঐ অভিযানে দায়িত্ব পালন করলেন।”
ঐ মহিলা কমরেড একটা এ্যাম্বুশের দায়িত্ব পেয়েছিলেন। ওতে আটজনের মধ্যে মহিলা ছিলেন পাঁচজন। হঠাৎ করে ঐ অভিযানের সুযোগ হয়ে গেল। আগে থেকে পোঁতা মাইনগুলোকে যথাসময়ে বিস্ফোরণ ঘটানো হলো। এবার পার্শ্বদেশ থেকে গুলি চালিয়ে শত্রুকে ঝাঁঝরা করা হলো। মহিলা কমরেডটি পার্শ্বদেশ থেকে আক্রমণের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন।
চলমান বিপ্লবী জনযুদ্ধে মহিলাদের অংশগ্রহণের কয়েকটিমাত্র দৃষ্টান্ত দেওয়া হলো। শুধুমাত্র বিপ্লবী উৎসাহ নয়, এখানে সামরিক যোগ্যতার পরিচয়ও রেখেছেন মহিলারা।
আধা-সামন্ততান্ত্রিক, আধা-ঔপনিবেশিক ভারতবর্ষে নারীরা একরকম দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিক। কেবলমাত্র শ্রেণি সংগ্রাম ও সশস্ত্র সংগ্রামে যুক্ত হলেই তাঁরা ক্ষমতার স্বাদ পাচ্ছেন। এই শক্তিটা কেবল অস্ত্রের খাতিরেই নয়। এটা হলো রাজনীতির শক্তি, বিপ্লবী রাজনীতি। পিতৃতান্ত্রিকতার সবরকম দিকগুলোর বিরুদ্ধে একনাগাড়ে সংগ্রাম চলছে- সেটা যত সূক্ষ্মই হোক, যত ক্ষীণভাবেই হোক। এতে মহিলারা আত্মপ্রত্যয়ের সাথে অন্যান্য পুরুষ কমরেডদের সাথে সমানতালে এগিয়ে আসছেন। এর বিপরীতে সংশোধনবাদীরা সুরক্ষার নাম করেই হোক কিংবা গতানুগতিক ধারার কাছে আত্মসমর্পণ করেই হোক মহিলাদেরকে শৃঙ্খলে আবদ্ধ করে রেখেছে। ভারতের গভীর সামন্ততান্ত্রিক সংস্কার ছিন্ন করে পুরুষদের সমানাধিকারে মহিলাদের বেরিয়ে আসতে উৎসাহ না দিলে পিতৃতান্ত্রিকতা বা পুরুষতান্ত্রিকতা কিছুতেই পুরোপুরি উৎখাত করা যাবে না। মহিলারা কীভাবে বিপ্লবের ক্ষেত্রে এগিয়ে আসতে পারেন, এইসব সাক্ষাৎকার তার একটা জ্বলন্ত দৃষ্টান্ত।

সূত্রঃ দেশে দেশে বিপ্লবী নারী সংকলন, বিপ্লবী নারী মুক্তি প্রকাশনা


ছত্তিশগড়ের পুলিশ স্টেশন থেকে AK -47 রাইফেল নিয়ে এক নকশাল পালিয়েছে

MAOIST

অনূদিতঃ 

ছত্তিশগড়ের বিদ্রোহ উপদ্রুত বিজাপুর জেলার এক সন্দেহভাজন নকশাল বাসাগুদা থানায় আত্মসমর্পণ করতে এসে, একটি একে -47 রাইফেল নিয়ে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।  বাসাগুদা থানার বুগিছেরুর বাসিন্দা অভিযুক্ত মাদকাম দেব(২৩) মাওবাদীদের একটি ছোট অ্যাকশন টিমের সদস্য হিসেবে নিজেকে পরিচয় দিয়ে আত্মসমর্পণ করতে এসেছিল, গত পরশু রাতে সে কর্তব্যরত পুলিশকে একটি স্লিপ দেয়, এ সময় পুলিস তার পরিচয়পত্র এবং অপরাধমূলক রেকর্ড যাচাই করে তার আত্মসমর্পণ প্রক্রিয়া শুরু করার জন্য ব্যস্ত ছিল বলে পুলিস সুপার কুন্দলাল ধ্রুব UNIকে বলেন।

এ ঘটনার পর অভিযুক্তকে গ্রেফতারের জন্যে বাসাগুদা থানা ও এর পার্শ্ববর্তী এলাকায় ব্যাপক অনুসন্ধান ও চিরুনি অপারেশন শুরু করেছে পুলিস।  কিন্তু অভিযুক্তের নামে বাসাগুদা থানায় কোন অপরাধের রেকর্ড পাওয়া যায়নি।

সূত্রঃ http://news.webindia123.com/news/Articles/India/20160519/2863814.html


৪ ও ৫ মে বনধের ডাককে সফল করতে NDMC’তে হামলা করেছে মাওবাদী গেরিলারা

blast_naxal_4_may_201654_103059_04_05_2016

৪ ও ৫ মে নিজেদের বনধের ডাককে সফল করতে সরকারি ক্ষেত্র কিরণডুলের NDMC তে হামলা করেছে মাওবাদী গেরিলারা।  মঙ্গলবার গভীর রাতে ছত্তিসগড়ের দান্তেওয়াড়ায় অবস্থিত ন্যাশনাল মিনারেল ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশনের অধীনস্থ খনিতে বিস্ফোরণ ঘটায় মাওবাদীরা।  ওইদিন রাত সাড়ে বারটা নাগাদ ওই খনির লৌহ আকরিক পরিবহণ বিভাগে বিস্ফোরণ ঘটে।  এদিন দাহ্য পদার্থে ঠাসা দান্তেওয়াড়ার ওই খনি এলাকায় বিস্ফোরণের খুব অল্প সময়ের মধ্যেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে।

পার্বত্য এলাকায় অবস্থিত জঙ্গলের মধ্যে অবস্থিত লৌহ আকরিক খনির পাঁচ থেকে এগারো নং ইউনিটের মধ্যে বিস্ফোরণ ঘটেছে বলে সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে।  সমগ্র ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিশ।

কিছুদিন আগেই ওই এলাকায় ‘জল-জঙ্গল-জমি’ রক্ষার দাবিতে বন্ধ ডেকেছিল মাওবাদীরা।  দান্তেওয়াড়া ছাড়াও বাস্তার এলাকাতেও বন্ধের সমর্থনে দেওয়ালে দেওয়ালে লাগানো হয়েছিল পোস্টার, বিলি করা হয়েছিল লিফলেট।

সুত্রঃ http://www.ibtimes.co.in/blast-iron-ore-mine-dantewada-police-suspect-naxals-677315


ভারতের গণযুদ্ধের আন্তর্জাতিক সমর্থন নিয়ে IDSA রিপোর্ট

20111023144014954734_9

ভারতের ‘ইন্সটিটিউট অব ডিফেন্স স্টাডিজ এন্ড এনালাইসিস-(IDSA)’ তাদের এক রিপোর্টে জানাচ্ছে, বহির্বিশ্বে মাওবাদীদের সংযোগ তাদের জন্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন করছে।  এটি বিশ্বের বিভিন্ন অংশে তাদের দৃশ্যমানতা এবং প্রচারণা দিয়েছে।  এভাবে তারা ভ্রাতৃসুলভ দলগুলোর সাথে আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক সমর্থন সচল করতে সক্ষম হয়েছে।  তাছাড়া, এই সংযোগগুলো থেকে মাঝে মধ্যে শুধুমাত্র টাকা ও অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে আসা হয়।  যাইহোক, এ জন্য বিদেশে সব ভারতীয় দূতাবাসের জন্যে গুরুত্বপূর্ণ যে, এই আন্তর্জাতিক গ্রুপ গুলোকে গভীর ভাবে নিরীক্ষণ করা এবং তাদের মিথ্যা দাবি খণ্ডন করা এবং তাদের এই অপপ্রচার মোকাবেলা করা।  এ বিষয়টি তদন্তের জন্যে দরকারী হবে।যে, ভবিষ্যতে এই সংযোগগুলো একটি অস্ত্র সাপ্লাই চেইন প্রতিষ্ঠায় সহায়তা করবে।

উল্লেখ্য যে, মে দিবস ২০১৬তে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ৩০টি মাওবাদী পার্টি ও সংগঠনগুলো এক যৌথ বিবৃতি প্রকাশ করেছে এবং ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি(মাওবাদী) ও মনিপুরের কমিউনিস্ট পার্টি(মাওবাদী) এই যৌথ বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেছে।

সুত্রঃ http://www.eurasiareview.com/01052016-the-maoist-global-web-analysis/