মাদারীপুরে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস। জেলগেট থেকে ধরে নিয়ে হত্যা

বাংলাদেশ –

বুলেটিন/২
গণসংবাদ সংস্থা, ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৫

মাদারীপুরে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস। জেলগেট থেকে ধরে নিয়ে হত্যা

মাদারীপুর জেলার সদর থানার খোয়াজপুর ইউনিয়নের রাজারচর অধিবাসী বিকাশ মন্ডল ও তার ভাইকে গত জানুয়ারীর শেষার্ধে র‌্যাব তাদের বাড়ী থেকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। বিকাশ মন্ডলের ভাইকে পরদিন ছেড়ে দিলেও বিকাশ মন্ডলকে ছাড়েনি। সর্বহারা পার্টির সাথে যুক্ত থাকার অভিযোগে তাকে গ্রেফতার করা হয় বলে জানা গেছে। বন্দী থাকা অবস্থায় কয়েকবার তাকে নিয়ে গভীর রাতে র‌্যাব রাজারচর গ্রামে টহল দিয়েছে বলেও জানা যায়। কিন্তু গত ৩ ফেব্রুয়ারি ভোর বেলা মাদারীপুরের মাদ্রা বাজারের নিকট বিকাশ মন্ডলের লাশ মাথায় বুকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। ঘটনাস্থল থেকে মাত্র ১০০ গজের মধ্যে সম্প্রতি একটি পুলিশ ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছিল। পুলিশ ক্যাম্পটি স্থাপন করা হয় সর্বহারা পার্টির বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনার জন্য। পুলিশ ক্যাম্পের একেবারে নিকটেই ২ ফেব্রুয়ারি দিবাগত রাতে বিকাশ মন্ডলকে হত্যা করা হয়, অথবা অন্য কোথাও তাকে হত্যা করে তার লাশ সেখানে এনে ফেলে রাখা হয়। যা পুলিশ ক্যাম্পের জ্ঞাতসারেই হয়েছে বলে ধারণা করা সঙ্গত।
বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায় যে, গ্রেফতারের পর র‌্যাব বিকাশ মন্ডলের উপর অমানুষিক অত্যাচার চালায়। পরে ৫৪ ধারায় (সন্দেহজনক) কোর্টে চালান দেয়। ২ ফেব্রুয়ারি বিকাশ মন্ডলের বাবা কোর্ট থেকে ছেলের জামিন নেন। এজন্য তাকে বিভিন্ন জায়গায় ৫০ হাজার টাকা ঘুষ দিতে হয়। কিন্তু জেল থেকে মুক্ত হওয়া মাত্র জেলগেট থেকে র‌্যাব পুনরায় বিকাশ মন্ডলকে গাড়িতে তুলে নিয়ে যায়। তার কৃষক বাবার সামনেই এ ঘটনা ঘটে। তার পর দিনই তার লাশ পাওয়া যায় মাদ্রা পুলিশ ক্যাম্পের নিকটে।
এই হত্যার সাথে আওয়ামী মন্ত্রী শাজাহান খান, তার ভাই উপজেলা চেয়ারম্যান সফিক খান ও স্থানীয় আওয়ামী সন্ত্রাসীদের হাত রয়েছে। এ কারণে স্থানীয় প্রচার মাধ্যমে খবরটিকে বিকৃত করে অজ্ঞাত যুবকের লাশ উদ্ধার বলে প্রচার করা হয়। পরে প্রচার করা হয় যে, সর্বহারা পার্টির অন্তর্কলহে তাকে হত্যা করা হয়। যা সম্পূর্ণই বানানো ও মিথ্যা।
নিজেরা হত্যা করে এই ধরনের ডাহা মিথ্যা প্রচার তারা পূর্বেও দিয়েছে। বিগত ১৬ অক্টোবর মাদ্রা এলাকায় আওয়ামী সন্ত্রাসের গডফাদার নৌমন্ত্রি শাজাহান খানের নির্দেশে আওয়ামী স্থানীয় পান্ডারা মাদ্রা গ্রামের মাজেদ মোল্লাকে হত্যা করে প্রচার দেয় সর্বহারা পার্টির কর্মী বলে। এর পর থেকে মাজেদ মোল্লার খুনীদের পুলিশ ক্যাম্প বসিয়ে পাহারা দিচ্ছে রাষ্ট্র ও আওয়ামী নেতারা। মাজেদ মোল্লার আত্মীয় এই কেসের তদবির করতে গেলে এই আওয়ামী সন্ত্রাসীরাই তাকেও মারপিট করে মাথা ফাটিয়েছে। হত্যার হুমকী দিয়েছে।
বিকাশ মন্ডল পূর্ববাংলার সর্বহারা পার্টির একজন প্রাক্তন কর্মী বলে জানা যায়। এই পার্টির সংগঠন উচ্ছেদের জন্য সন্ত্রাসী গডফাদার শাজাহান খান ও রাষ্ট্রের যে পরিকল্পনা, বিকাশ মন্ডলের হত্যা তারই অংশ। দেশব্যাপী আওয়ামী জোট সরকার আজ যে ফ্যাসিবাদী শাসন কায়েম করেছে তার বহিপ্রকাশও ঘটেছে এই হত্যাকাণ্ড। ক্রসফায়ার, গুম ও গুপ্তহত্যার মধ্য দিয়ে যে বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ড – আওয়ামী সরকার ও রাষ্ট্রযন্ত্র চালাচ্ছে তার প্রতিবাদ, নিন্দা ও প্রতিরোধ করা সকল গণতান্ত্রিক শক্তির দায়িত্ব।   

Source – গণসংবাদ সংস্থা

Advertisements