সুকুমা হামলাঃ ৩টি গ্রামের জনগণ মাওবাদীদের সাথে হামলায় অংশ নিয়েছিল

communist-party-of-india-maoist-cadre-celebrate-the-founding-day-of-their-guerrilla-wing-the-people_s-liberation-guerilla-army-near-chainpur-in-palamu-district-jharkhand-on-decem

The Hindu-র এক সংবাদে জানা যাচ্ছে যে, সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্স (সিআরপিএফ) এর অভ্যন্তরীণ তদন্তে পাওয়া প্রাপ্ত রিপোর্ট অনুযায়ী, গত ২৪শে এপ্রিল ছত্তিসগড়ে সুকুমা জেলায় নিরাপত্তা বাহিনীর উপর হামলায় মাওবাদীদের সাথে অন্তত ৩টি গ্রামের জনগণ অংশ নিয়েছিল।

মাওবাদীদের অতর্কিত এই হামলায় ২৫জন সিআরপিএফ জওয়ান নিহত হওয়ার ঘটনাটি গত ৭ বছরের মধ্যে মাওবাদীদের সবচেয়ে ভয়ংকর হামলা ছিল।

সরকারী এই তদন্ত রিপোর্টে আরো বলা হচ্ছে, “এই হামলায় বুরকাপাল, চিন্তাগুফা ও কাসালপাড়া গ্রামের জনগণ মাওবাদীদের সাথে এই হামলায় অংশ নেয়ার পাশাপাশি মাওবাদীদের খাদ্য, আশ্রয় প্রদান ও আহতদের সাহায্য প্রদান করে। হামলায় কিছু সংখ্যক আহত সশস্ত্র মাওবাদীদের কাসালপাড়া গ্রামের জনগণ চিকিৎসা সেবা ও ওষুধের যোগান দেয়।

যদিও গ্রামবাসীদের এই ধরনের সাহায্য অস্বাভাবিক ছিল না এবং এটা সাধারণত বামপন্থী চরমপন্থা (LWE) আক্রান্ত এলাকায় এই ধরণের শেল্টার মাওবাদীরা পেয়ে থাকে।”

তবে, গ্রামবাসীরা এই অভিযোগ অস্বীকার করেন। “ঐ হামলার সময়টিতে তারা গ্রামে ছিলেন না, সবাই পার্শ্ববর্তী জঙ্গলে বিজু পোন্দাম(নবান্ন উৎসব) উৎসব পালন করতে গিয়েছিল। কোন গ্রামবাসীই হামলায় যুক্ত ছিল না। যখন আমরা গ্রামে ফিরে আসি তখন গুলির শব্দ শুনতে পাই এবং তৎক্ষণাৎ ঘরের দরজা বন্ধ করে বসে থাকি” – বলছিলেন মাওবাদীদের সহযোগিতার অভিযোগে অভিযুক্ত বুরকাপাল গ্রামের পঞ্চায়েত প্রধান বিজয়া দুলা।

সম্প্রতি, ছত্তিশগড় পুলিশ, মাওবাদী বিরুদ্ধে নেয়া কঠোর পদক্ষেপের অংশ হিসেবে চিন্তাগুফার একজন সাবেক পঞ্চায়েতকে অভিযুক্ত হিসেবে আটকে নেন।

 

Advertisements

ভারতঃ মাওবাদীকে রক্ষা করতে পুলিশের দলের উপর হামলা করল গ্রামবাসী, এসএপি জওয়ান খতম

maoistpeople

বেগুসারাইঃ বিহারের বেগুসারাই জেলার নিমা চাঁদপুরা থানাধীন কুশমাহাট গ্রামে একজন মাওবাদীকে গ্রেফতার করতে গিয়ে গ্রামবাসীর তোপের মুখে পড়ে পুলিশের একটি দল। এতে একজন এসএপি (SAP) জওয়ান খতম ও ছয়জন পুলিশ আহত হয়। পুলিশের সুপারিন্টেন্ডেন্ট মনোজ কুমার বলেন, বাউনা সাদা নামে একজন মাওবাদী কর্মী কুশমাহাট গ্রামে লুকিয়ে আছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে SHO অমিত কুমারের নেতৃত্বে পুলিশের দলটি গ্রামে হামলা চালায় ও তাকে গ্রেফতার করে।
এ সময় গ্রামবাসী পুলিশের দলের উপর পাথর নিক্ষেপ করতে আরম্ভ করে ও মাওবাদী বাউনা সাদাকে মুক্ত করে। পুলিশ গ্রামবাসীর উপর গুলিবর্ষণ করে। তখন একজন SAP জওয়ানকে পিটিয়ে খতম করে গ্রামবাসী। ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে চিরুনী অভিযান চালিয়ে ১২ জনের মতো গ্রামবাসীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সূত্রঃ http://www.newindianexpress.com/nation/Villagers-Attack-Police-Team-SAP-Jawan-Killed/2015/10/27/article3100503.ece