বাংলাদেশঃ মাওপন্থিদের উদ্যোগে ২রা জানুয়ারী ২০১৮ ‘জাতীয় শহীদ দিবস’পালন করা হবে

২রা জানুয়ারী ২০১৮, মহান মাওবাদী নেতা শহীদ কমরেড সিরাজ সিকদার-এর ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকীতে কমরেড মনিরুজ্জামান তারা, মোফাখখার চৌধুরী, মিজানুর রহমান টুটু, এরাদ আলী, তাহের আজমী, রাবেয়া আক্তার বেলীসহ সকল শহীদ বিপ্লবীদের স্মরণে “জাতীয় শহীদ দিবস” পালন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, বাংলাদেশের মাওপন্থি সংগঠন ‘শহীদ বিপ্লবী ও দেশপ্রমিক স্মৃতি সংসদ’। এই কর্মসূচী উপলক্ষ্যে বের করা একটি পোস্টারে ‘আওয়ামী দুঃশাসনের বিরুদ্ধে গণপ্রতিরোধ গড়ে তুলে সাম্রাজ্যবাদ, সম্প্রসারণবাদ ও দালাল শাসক শ্রেণীকে উচ্ছেদ করে সমাজতন্ত্র-কমিউনিজমের লক্ষ্যে নয়াগণতান্ত্রিক বিপ্লব বেগবান করার আহবান’ জানিয়েছে সংগঠনটি।

জাতীয় শহীদ দিবসের কর্মসূচীঃ

তারিখঃ ২রা জানুয়ারী ২০১৮
প্রভাতফেরী ও পুস্পস্তবক অর্পণ:  সকাল ৮টায়(পুরনো শ্যামলী হলের সামনে), ঢাকা

আলোচনা সভাঃ বিকাল ৩:০০টায়, টিএসসি সড়ক দ্বীপ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

25498384_1641427929229611_8631629440277297330_n

 

Advertisements

পূর্ব বাংলার সর্বহারা পার্টি’র প্রথম অবাঙ্গালী বিপ্লবী শহীদ কমরেড তাহের আজমী

শহীদ কমরেড তাহের আজমী

শহীদ কমরেড তাহের আজমী

মোহম্মদ শমিউল্লাহ্ আজমী(পার্টি নাম- তাহের আজমী)। এই তাঁর পারিবারিক নাম। ডাকনাম বাচ্চু। জন্মেছিলেন ১৯৪৭ সালের জানুয়ারী মাসের কোনো একদিন। বর্তমান পূর্ব উত্তর প্রদেশের বালিয়া শহরে। পাঁচ ভাই তিন বোনের মধ্যে তিনি ছিলেন পঞ্চম। তাঁর বাবা মা ছিলেন উত্তর প্রদেশের আজমগড় জেলা থেকে আগত। তাঁর পরিবার দেশভাগের পর তদানিন্তন পূর্বপাকিস্তানে চলে যান। শমিউল্লা সেখানেই বড় হয়ে ওঠেন। তাঁর প্রাথমিক পড়াশুনা শুরু হয় তালোরা, গাইবান্ধা ও ফেনী এই তিন জায়গার বাংলা মাধ্যম স্কুলে। পরে যখন তাঁরা পাকাপাকিভাবে ঢাকায় বসবাস শুরু করেন তখন প্রথমে ভর্তি হন ডন স্কুলে সপ্তম শ্রেণীতে ও পরে শাহীন স্কুলে নবম ও দশম শ্রেণীতে। পরে ইন্টারমিডিয়েট তেজগাঁও টেকনিকাল কলেজে এবং তারপর কায়দে আজম কলেজে। কায়দে আজম কলেজে তিনি soil science নিয়ে B.sc.পড়তে শুরু করেন। এই সময়েই তিনি বিপ্লবী কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত হয়ে পড়েন। ১৯৬৯ এ আত্মগোপন করার আগে পর্যন্ত তাঁর বাসস্থান ছিল ৯৫ সবুজবাগ, কমলাপুর, ঢাকা। কমরেড সিরাজ সিকদার কর্তৃক প্রথম যে দলটি সংগঠিত হয়, তিনি ছিলেন তার পুরোধা। ১৯৬৭ সালের শেষদিকে মেনন গ্রুপের EPSU ছাত্র সংগঠনের আজীমপুর, তোপখানা রোডের দফতরে তাঁর সাথে আজমীর প্রথম সাক্ষাত। সিরাজ সিকদার সেসময় একগুচ্ছ অত্যন্ত অগ্রসর বিপ্লবী চেতনা সম্পন্ন মানুষকে একত্রিত করার কাজে তৎপর হয়ে উঠেছিলেন। তাঁর উদ্দেশ্য ছিলো পরাধীন পূর্ববাংলার শোষিত মানুষের মুক্তির জন্য একটি সর্বাত্মক সশস্ত্র আন্দোলন গড়ে তোলা। পরিচয়ের কিছুদিনের মধ্যেই শমিউল্লা আজমী সিরাজ সিকদারের ঘনিষ্ঠতম সাথীদের একজন হয়ে হয়ে উঠলেন এবং ১৯৭১ এ সাভারে শহীদ হওয়া পর্যন্ত তাঁর স্থান এবং আনুগত্য অটুট ছিল। আজমীর এই অকাল মৃত্যুর কিছুকাল পূর্বে যখন তাঁর পরিবার করাচি চলে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিল তখনই তাঁর মা আজমীকে সস্ত্রীক তাঁদের সাথে দেশত্যাগ করতে বলেন। আজমী এবং তাঁর স্ত্রী উভয়েই সে প্রস্তাব সবিনয়ে প্রত্যাখ্যান করেন। মাতৃ হৃদয় অবুঝ। তিনি চলে গিয়েছিলেন ঠিকই। কিন্তু মৃত্যুর শেষদিন পর্যন্ত সন্তানের মাতৃক্রোড়ে ফিরে আসার প্রতীক্ষা করেছেন। এমনকি সন্তানের মৃত্যুর সংবাদ বিশ্বাস করেননি মৃত্যু পর্যন্ত। আজমীর মৃত্যুর পর সিরাজ সিকদার শোকজ্ঞাপন করে এবং সংগঠনে ওপূর্ববাংলার জনগণের মুক্তিসংগ্রামে তাঁর অবদানের কথা উল্লেখ করে একটি চিঠি আজমীর বোনের কাছে প্রেরণ করেন। বাংলার জন্য তাঁর আত্মদানকে সিরাজ সিকদার কানাডার কম্যুনিস্ট ডাক্তার নর্মান বেথুনের সঙ্গে তুলনা করে তাঁকে “বাংলার নর্মান বেথুন”এই আখ্যা দিয়েছিলেন।

মধ্যবর্তী ইতিহাসঃ

এক সন্ধ্যায় সিরাজ সিকদারের বাড়িতে তিনি, শমিউল্লাহ্ ও রজীউল্লাহ্(শমির ছোটো ভাই) একটি শপথনামায় নিজেদের রক্ত দিয়ে সই করেন। তাঁরা শপথ নেন জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত তাঁরা ঐক্যবদ্ধ থাকবেন বিপ্লবের পথে। ঐ তিনজন ছদ্মনাম গ্রহন করেন। সিরাজ ওরফে রুহুল আলম, শমিউল্লাহ্ ওরফে রুহুল আমিন এবং রজীউল্লাহ্ ওরফে রুহুল কুদ্দুস। এই রুহুল শব্দটি তিন জনের নামের মধ্যে রেখে একটি ভ্রাতৃত্ববোধের সঞ্চার করতে চেয়েছিলেন বোধহয়।কিন্তু পরবর্তিতে তা সফল হয়নি। ১৯৭০ এ খালেদা নামে একজন বিপ্লবী তরুণীর সাথে আজমীর ঘনিষ্ঠতা ও প্রেম হয়। তিনি সংগঠনের অনুমতিক্রমে ৫ই মে তে, যেদিন পাকিস্তান কাউন্সিল ও ইউসিস লাইব্রেরীর উপর একটি প্রতীকি হামলা চালানো হয়(কোনো জান মালের ক্ষতি না করে) সেই দিন বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। অবশ্য অনুমতিপত্র পকেটে নিয়েও সদ্যবিবাহিতা স্ত্রীর সাথে সাক্ষাত করতে পারেননি। সাতদিন পর তিনি স্ত্রীকে নিয়ে বরিশাল রওনা হলেন লঞ্চে। বরিশালে কিছুকাল সংগঠন গড়ে তোলার পর আবার সস্ত্রীক ঢাকা ফিরে আসেন। এরপর দুজনে চলে যান চট্টগ্রাম। চট্টগ্রামে একটি অবাঙালী টোলায় তাঁরা এবং আরও দুজন কমরেড একটি বাড়ি ভাড়া করে থাকেন। ঢাকা থেকেই সিরাজ সিকদার, তাঁর স্ত্রী জাহানারা, আজমী, তাঁর স্ত্রী খালেদা সকলের নামেই পাকিস্তান সরকার গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করেছিল। প্রত্যেকের মাথার দাম ঘোষিত ছিলো এবং জীবিত অথবা মৃত। এই মহল্লার মানুষের পক্ষে এসব জানা সম্ভব ছিলনা। এখানে আজমীর পরিচয় ছিল সাংবাদিক। তিনি ঐখান থেকেই চট্টগ্রামে জোরকদমে সংগঠন গড়ে তোলার কাজ শুরু করেন। তিনি ছিলেন অসাধারণ বাগ্মি এবং সহজেই মন জয় করতে পারতেন এবং উদ্বুদ্ধ করতে পারতেন কর্মীদের। ইতিমধ্যে কমরেড সিরাজ সিকদারের নির্দেশক্রমে আজমী তাঁর স্ত্রীর সহায়তায় স্বাধীন বাংলার পতাকার রূপ দান করেন। ১৯৭০ সালের ৩রা ডিসেম্বর পল্টনে মওলানা ভাসানীর জনসভায় পুর্ব বাংলার জাতীয় গনতান্ত্রিক বিপ্লব সম্পন্ন করার আহ্বান সংবলিত লিফলেট এবং ভবিষ্যতে স্বাধীন পুর্ব বাংলার পতাকা বিতরন করে। সে পতাকাটি, সিরাজ সিকদারের অনুসারীদের ভাষায়, এখনকার বাংলাদেশের পতাকা যার ডিজাইন করেছিলেন শ্রমিক আন্দোলনের নেতৃস্থানীয় কর্মী অবাঙ্গালী কমরেড তাহের আজমী ।

৭ই মার্চ পল্টন ময়দানে জনসমাবেশে মুজিব ঘোষিত স্বায়ত্বশাসনের ডাক জনগণের স্বাধীনতার আকাঙ্খার হুঙ্কারের নীচে চাপা পড়ে গেলে, মুজিবকে গ্রেফতারের নাটক হয়ে গেলে সারাদেশে শৃঙ্খলাহীণভাবে লড়াই শুরু হয়ে যায়। যুব সম্প্রদায় ঝাঁপিয়ে পড়ে প্রাণ দিতে থাকে এই অসংগঠিত যুদ্ধে। বানের জলের মতো যোশ আর উচ্ছাসে জানের পরোয়া নেই কারো। ফলে অযাচিতভাবে কত তরুণপ্রাণ বিনষ্ট হয়েছে। ঐ অবস্থাতেই শুরু হয়ে যায় বাঙালী অবাঙালী সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা। আজমী হালিশহর থেকে কোনোভাবে বেরিয়ে মেহেদীবাগে ইঞ্জিনিয়ারদের মেসে উঠলেন। সেখান থেকে পাহাড়তলী। পাহাড়তলী থেকে হেঁটে রামগড় শাব্রুম হয়ে আগরতলা। আগরতলায় পৌঁছে তাঁর স্ত্রী ভীষণ অসুস্থ হয়ে পড়েন। এদিকে টাকা নেই।  স্ত্রীর গহনা যা কিছু আজমীর মায়ের দেয়া তা পার্টিফাণ্ডে জমা করা হয়ে গেছে। বিক্রি করে ওষুধ কেনার মতো কিছু ছিলনা। ছিল শুধু একটি লেডিস ঘড়ি স্ত্রীর হাতে।

 তাই বেচে স্ত্রীর পথ্য জোগাড় হ’ল। এখান থেকে ট্রেনে উঠে সোজা কুচবিহার খালেদার বাড়ি। তখন গোলমালের সময় বলে বোধহয় ট্রেনে টিকিট লাগতোনা।  যাই হোক কুচবিহারে কতদিন তিনি অবস্থান করেছিলেন জানা যায়না। পরে কলকাতা এসে বনগাঁ দিয়ে আবার ঢাকায় ফিরে আসেন সস্ত্রীক। ঢাকা পৌঁছে আবার সংগঠনের সাথে যোগাযোগ স্থাপন হ’ল।

কোনো এক অজানা কারণে কমরেড সিরাজ সিকদার আজমীকে তাঁর স্ত্রীর কাছ থেকে সম্পূর্ণরূপে বিচ্ছিন্ন করে রাখলেন। একই শহরে থাকা সত্ত্বেও তাঁদের সাক্ষাতের অনুমতি ছিলনা।

এর কিছুদিন পর যুদ্ধের প্রয়োজনে মুক্তিবাহিনীর সাথে ঐক্যফ্রন্ট গঠনের উদ্দেশ্যে আজমীকে সাভারে প্রেরণ করা হয়। এরপরের ইতিহাস সবার জানা। আওয়ামী মুক্তিবাহিনীরা কমরেড তাহেরসহ অন্যান্যদের হত্যা করে।

কিন্তু জানা গেলনা কিভাবে ঠিক কোন জায়গায় তাঁদের হত্যা করা হয়েছিল।

এ নিয়ে সিরাজ শিকদার ‘সাভারের লাল মাটি’ শীর্ষক কবিতা লেখেন

তাহের, তোমাকে কতবার বলেছি

সতর্ক হতে।

আওয়ামী লীগের চররা

হায়নার মত খুঁজে বেড়ায়

বন্ধুর বেশে আমাদের

খতম করে।

রাতের অন্ধকারে

ফ্যাসিস্টদের বুলেটের শব্দে

তোমাদের ঘুম ভেঙ্গে যায় ।

তারপর…

লড়েছিলে ।

আর কিছু জানিনে ।

সূত্রঃ

raziazmi.com

ও শহীদ কমরেডের স্ত্রী Monzi khaleda begum