ভারতে দলিতদের ওপর অত্যাচার বাড়ছে, যমুনানগরে যুবককে পুড়িয়ে হত্যা

রজত সিং

রজত সিং

হরিয়ানার ফরিদাবাদে এক দলিত পরিবারের দুটি শিশুকে জীবন্ত পুড়িয়ে হত্যার রেশ কাটতে না কাটতেই এবার এক দলিত যুবককে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা খবর প্রকাশিত হয়েছে।

হরিয়ানার যমুনানগরে রাদৌর জেলার মনসুরপুর গ্রামে মঙ্গলবার রাতে কয়েকজন দুর্বৃত্ত রজত সিং নামে ২১ বছর বয়সী দলিত যুবককে গায়ে কেরোসিন ঢেলে জীবন্ত পুড়িয়ে হত্যা করে। তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় রাদৌর সিভিল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে চিকিৎসকরা তাকে যমুনানগর সিভিল হাসপাতালে রেফার করেন। তার অবস্থার অবনতি হলে চন্ডিগড় পিজিআইতে পাঠানো হয়। যদিও তার পরিবারের লোকজন তাকে মুলানা মেডিক্যাল কলেজে নিয়ে যায়। কিন্তু রাত একটা নাগাদ ওই যুবক মারা যায়। গতকাল ময়না তদন্ত শেষে তার শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়।

এদিকে, ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরোর এক রিপোর্টে প্রকাশ, দেশে ২০১৩ সালে দলিতদের অত্যাচারের ঘটনা ছিল ৩৯ হাজার ৪০৮টি। ২০১৪ সালে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৭ হাজার ৬৪ হয়েছে।

২০০৯ সালে দলিত নিগ্রহের ঘটনা ছিল ৩৩ হাজার ৫৯৪ টি। ২০১০ সালে এই সংখ্যা ছিল ৩২ হাজার ৭১২। ২০১১ এবং ২০১২ সালে দলিত নিগ্রহের ঘটনা ছিল যথাক্রমে ৩৩ হাজার ৭৭৯ এবং ৩৩ হাজার ৬৫৫ টি।

২০১৩ সালে ৬৭৬ জন দলিতকে হত্যা করা হয় যদিও ২০১৪ সালে এই সংখ্যা ৭৪৪টিতে পৌঁছে।

নিগ্রহ এবং হত্যার পাশাপাশি দলিত মেয়েদের ধর্ষণের ঘটনাও গত ২০১৩ সালের তুলনায় ২০১৪ সালে বেড়েছে। এই দুই বছরে ধর্ষণের ঘটনা ছিল যথাক্রমে ২ হাজার ৭৩ টি এবং ২ হাজার ২৩৩টি।

অনুবাদ সূত্রঃ http://naidunia.jagran.com/state/delhi-ncr-now-dalit-man-burnt-alive-in-yamunanagar-526120

Advertisements

ভারতঃ পুড়িয়ে মারা হল দুই দলিত শিশুকে

5f4c4135f37d68feed665dcaadfc04a5_XL

ভারতের হরিয়ানায় সংখ্যালঘু দলিত সম্প্রদায়ের এক বাড়িতে দুষ্কৃতকারীরা আগুন ধরিয়ে দিলে দুই শিশু নিহত ও তাদের মা-বাবা গুরুতরভাবে  অগ্নিদগ্ধ হয়েছে। মর্মান্তিকভাবে নিহত এক শিশুর বয়স মাত্র ৯ মাস এবং অন্যজনের বয়স মাত্র ২ বছর।

দিল্লির লাগোয়া হরিয়ানার ফরিদাবাদের পালওয়াল জেলার সুনপেড় গ্রামে আজ (মঙ্গলবার) ভোর সাড়ে তিনটার দিকে এ ঘটনায় ব্যাপক উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে। দলিতদের পল্লিতে এ ঘটনায় মানুষের মধ্যে তীব্র আতঙ্ক ও ক্ষোভ সৃষ্টি হওয়ায় এলাকায় প্রচুর পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

আগুনে ঝলসে যাওয়া স্বামী-স্ত্রীকে স্থানীয় হাসপাতাল  থেকে স্থানান্তর করে দিল্লির সদর জং হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের শারীরিক অবস্থা অত্যন্ত আশঙ্কাজনক।

জানা গেছে, ফরিদাবাদের সুনপেড গ্রামে পুরনো বিবাদ এবং পারস্পারিক শত্রুতার জেরে প্রভাবশালী ব্যক্তিরা ওই দলিতের বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দিলে এই হতাহতের  ঘটনা ঘটে। হতভাগ্য ওই দলিত পরিবারটি তাদের সন্তানদের নিয়ে যখন ঘুমিয়ে ছিল তখন দুষ্কৃতকারীরা আচমকা হামলা চালিয়ে তাদের ব্যাপক মারধর করার পরে পেট্রোল ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেয়।

খবর পেয়ে পুলিশ এবং ফারেন্সিক তদন্তকারী টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটি মামলা রুজু করে ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে অভিযুক্তদের গ্রেফতারের জন্য তল্লাশি চালানো হলেও এখনও পর্যন্ত এ ঘটনায় কেউ গ্রেফতার হয়নি। যদিও পুলিশ সবসময় উচ্চবর্ণের প্রভাবশালীদের পক্ষ নিয়েই কাজ করে।

সংশ্লিষ্ট ওই গ্রামটিতে অতীতে দলিত এবং উচ্চবর্ণের লোকেদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনার নজির রয়েছে। দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের জেরে তিন জন নিহত হয় সেই সময়।


ভারতঃ কর্ণাটকে মন্দিরে প্রবেশ করায় ৪ দলিত মহিলাকে জরিমানা উচ্চ বর্ণের

rgW3006_caste_wideweb__470x293,0

কর্ণাটকের এক মন্দিরে পুজো দেওয়ার জন্য ৪ দলিত মহিলা প্রবেশ করায় তাঁদের উপর জরিমানা ধার্য্য করেছে গ্রামের উচ্চবর্ণের লোকেরা। যদিও ওই মহিলার জরিমানা দিতে অস্বীকার করেছেন। কারণ মন্দিরে তাঁরাও চাঁদা দেন, তাঁদেরও অধিকার আছে। এই কর্ণাটকের ব্যাঙ্গালুরুর আইটি অগ্রগতি নিয়ে এরপরও বড়াই করার কোন মানে হয় কি?

সূত্রঃ http://satdin.in/?p=4631


ভারতঃ রাজস্থানে ট্রাক্টর চাপা দিয়ে নিম্নবর্ণের ৪ দলিতকে হত্যা করল উচ্চবর্ণের জাঠরা

rajdalit

রাজস্থানের নগৌর জেলায় জমির দখল ঘিরে উত্তেজনার জেরে উচ্চবর্ণের জাঠদের ট্রাক্টরের তলায় প্রাণ দিতে হল ৪ দলিতকে।

হামলার সময় দলিত মহিলাদেরও ধর্ষণের চেষ্টা করা হয় বলে অভিযোগ। ৪০ বছর আগে  ১৫০০ টাকার বিনিময় ২৪ বিঘা জমি জাঠদের কাছে বন্ধক রাখে এক দলিত পরিবার। সেই জমি নিয়েই বিবাদের জেরেই ট্রাক্টর দিয়ে ৪ দলিতকে পিষে মারার অভিযোগ উঠেছে জাঠদের বিরুদ্ধে। বৃহষ্পতিবারের এই নারকীয় হত্যাকান্ড ফের দেখিয়ে দিচ্ছে প্রতিদিনই দেশের কোথাও না কোথাও দলিত- আদিবাসীরা উচ্চবর্ণের নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। অথচ তাই নিয়ে কোথাও তেমন  কোন হইচই নেই। বৃহষ্পতিবারের ঘটনা জয়পুর থেকে মাত্র ২৫০ কিমি দূরে এক গ্রামের।

সুত্রঃ http://www.satdin.in/index.php/13-2014-04-07-17-10-23/2276-2015-05-16-12-44-21