টাঙ্গাইল কারাগারে পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টির (এমএল-লাল পতাকা) শীর্ষ নেতার মৃত্যু

dsc00493

পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টির (এম এল-লাল পতাকা) শীর্ষ নেতা আবু জাফর (৬০) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। তিনি সদর উপজেলার খোদ্দযুগনী এলাকার মৃত জিল্লু শেখের ছেলে।।

গত রোববার (২৩ অক্টোবর) দুপুর ১টার দিকে ময়নাতদন্ত শেষে তার মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

জেলা কারাগারের জেলার রিতেশ চাকমা জানান, আবু জাফর শনিবার (২২ অক্টোবর) বিকেলে হৃদরোগে আক্রান্ত হলে তাকে টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাতে তিনি মারা যান।

আবু জাফর দু’টি মামলায় ৩০ বছর করে ৬০ বছরের সাজাপ্রাপ্ত ও একটি হত্যা মামলায় বিচারাধীন। তিনি ২০০৪ সালের ৯ অক্টোবর থেকে কারাগারে ছিলেন।

সূত্রঃ  banglanews24.com

Advertisements

পাবনায় কথিত বন্দুকযুদ্ধে পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টির(এমএল-লাল পতাকা) ২ সদস্য নিহত

%e0%a6%b8%e0%a6%be%e0%a6%81%e0%a6%a5%e0%a6%bf%e0%a6%af%e0%a6%bc%e0%a6%be-%e0%a6%89%e0%a6%aa%e0%a6%9c%e0%a7%87%e0%a6%b2%e0%a6%be

পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার আতাইকুলায় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) সঙ্গে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টির (এমএল-লাল পতাকা) ২ সদস্য নিহত হয়েছেন।

গতকাল ২৮শে অক্টোবর  শুক্রবার ভোর রাত ৪টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

এরা হলেন- সাঁথিয়া উপজেলার মাদারবাড়িয়া গ্রামের আফসার আলীর ছেলে বিপ্লব ব্যাপারী ওরফে বিপলু (২৮) এবং একই উপজেলার পাইকশা গ্রামের মোতালেব হোসেন মিস্ত্রির ছেলে ময়েন উদ্দিন মদন (২৬) ।

র‌্যাবের ভাষ্য, নিহত দুজন নিষিদ্ধঘোষিত চরমপন্থী সংগঠন পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টির (এমএল-লাল পতাকা)  সদস্য ও পুলিশের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী। তাঁদের বিরুদ্ধে আতাইকুলা থানায় গয়েশবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক শাজাহান আলী মাস্টার হত্যাসহ কয়েকটি মামলা রয়েছে। বন্দুকযুদ্ধের পর ঘটনাস্থল থেকে দুটি আগ্নেয়াস্ত্র ও কিছু গুলি উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাব-১২ পাবনার কোম্পানি কমান্ডার সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) বীণা রানী দাস জানান, আতাইকুলার গয়েশবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে কয়েকজন চরমপন্থী নাশকতার উদ্দেশ্যে গোপন বৈঠক করছে বলে খবর পায় র‍্যাব। সেই সংবাদের ভিত্তিতে সেখানে অভিযানে যায় র‌্যাব। উপস্থিতি টের পেয়ে র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে চরমপন্থী সন্ত্রাসীরা। র‌্যাবও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছোড়ে। বন্দুকযুদ্ধের একপর্যায়ে পিছু হটে পালিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। পরে ঘটনাস্থলে দুজনের মৃতদেহ পাওয়া যায়।

সূত্রঃ  ntvbd.com

 


কুষ্টিয়ায় কথিত বন্দুকযুদ্ধে পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টির (এমএল লাল পতাকা) সদস্য নিহত

13183095_10209499801957843_189688304_n

কুষ্টিয়ায় কথিত বন্দুকযুদ্ধে পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টির (এমএল লাল পতাকা) সক্রিয় সদস্য নিহত হয়েছে।

কুষ্টিয়ার সহকারী পুলিশ সুপার (ভেড়ামারা সার্কেল) কামরুজ্জামান জানান, গত সোমবার রাত ২টার দিকে কুষ্টিয়া-মেহেরপুর সড়কের মিরপুর উপজেলার কালিগড়া সেতুর কাছে গোলাগুলির এ ঘটনা ঘটে।

নিহত আসাদুল ইসলাম (৩৭) উপজেলার সদরপুর ইউনিয়নের রাধানগর গ্রামের মৃত এজাহার আলীর ছেলে।

আসাদুল পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টির (এমএল লাল পতাকা) সক্রিয় সদস্য বলেও দাবি করেছে পুলিশ।

এএসপি কামরুজ্জামান বলেন, “ ১০-১৫জন দুর্বৃত্তের গোপন বৈঠকের খবর পেয়ে পুলিশ সদস্যরা কালিগড়া ব্রিজের কাছে অবস্থান নেয়।  এ সময় দুর্বৃত্তরা পুলিশের দিকে গুলি ছুড়লে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়।

“প্রায় আধাঘণ্টা গোলাগুলির পর দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়।  ঘটনাস্থল থেকে আসাদুলকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে মিরপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।”

ঘটনাস্থল থেকে দুটি শাটার গান, দেশি ধারালো অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

13153526_10209499800717812_243873145_n

সুত্রঃ http://www.dhakatribune.com/crime/2016/may/11/outlawed-party-man-killed-gunfight


পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টি(লাল পতাকা)-র ২ সদস্য গ্রেফতার

Pabna

পাবনার সাঁথিয়ায় একটি বিদেশি রিভলবার ও আটরাউন্ড তাজা গুলিসহ পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টি(লাল পতাকা)-র ২ নেতাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার ভোররাতে উপজেলার পিরাহাটি গ্রাম থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- সাঁথিয়ার পাশ্ববর্তী আটঘরিয়া উপজেলার লক্ষ্মীপুর গ্রামের আঃ জব্বারের ছেলে মুন্নাফ (৫৫) ও একই উপজেলার নগর চাছকিয়া গ্রামের নরজেস মিয়ার ছেলে হানিফ মোল্লা (৪৫)।

সাঁথিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নাসির উদ্দিন জানান, নাশকতামূলক কাজের প্রস্তুতিকালে দুইজনকে গ্রেফতার করা হলেও বাকিরা পালিয়ে যায়।

তিনি জানান, গ্রেফতারকৃতরা পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টি(লাল পতাকা)-র নেতা। এদের বিরুদ্ধে সাঁথিয়া, আতাইকুলা ও আটঘরিয়া থানায় হত্যা, চাঁদাবাজি ও দ্রুত বিচার আইনে একাধিক মামলা রয়েছে।

সূত্রঃ http://www.ittefaq.com.bd/wholecountry/2016/04/26/65504.html

বাংলাদেশঃ পাবনায় পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টি(এমএল-লাল পতাকা)/নকশাল এর নেতাকে হত্যা

pabna_5600

পাবনার আতাইকুলাতে পূর্ববাংলা কমিউনিস্ট পার্টি (এমএল-লাল পতাকা)/নকশাল এর আঞ্চলিক নেতাকে কুপিয়ে ও গলাকেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। গত রাতের যেকোনো সময় এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। নিহত আল-আমিন (৩৫) আতাইকুলা থানা এলাকা ও সাথিয়া উপজেলার ভুলবাড়িয়া ইউনিয়নের ভিন্নগ্রামের বাসিন্দা ফজলাল হোসেনের ছেলে।

রবিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে ভিন্নগ্রামের ইছামতির নদীর বাঁধ (ডাইক) থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

আতাইকুলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রাজ্জাক বলেন, শনিবার শেষ রাতের দিকে প্রতিপক্ষ দুর্বৃত্তরা আল-আমিনকে কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যার পর ভিন্নগ্রামের ইছামতি নদীর বাঁধ (ডাইক) এ ফেলে রেখে যেতে পারে।

আজ রবিবার সকালে স্থানীয়রা তার লাশ দেখতে পেয়ে থানায় খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। ত্বরিত হত্যার রহস্য উদঘাটনের চেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি। তবে নিহত আল আমিনের বিরুদ্ধে সাঁথিয়া ও আতাইকুলা থানায় হত্যাসহ একাধিক মামলা রয়েছে।

“কী কারণে তাকে হত্যা করা হয়েছে তাৎক্ষণিকভাবে তা জানা যায়নি।”

সূত্রঃ  bdnews24


বাংলাদেশের গণযুদ্ধের সংবাদ- ০৭/০৪/২০১৬

Tangail-bg220160407034814

টাঙ্গাইলে কথিত বন্দুকযুদ্ধে পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টি(লাল পতাকা)’র দুই সদস্য নিহত

টাঙ্গাইল সদর উপজেলায় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টি(এমএল লাল পতাকা)’র এক নেতাসহ দুই জন নিহত হয়েছেন।

বুধবার (০৬ এপ্রিল) দিবাগত রাত ১টার পর উপজেলার যুগনী হাটখোলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টি(এমএল লাল পতাকা)’র নেতা ফজল ড্রাইভার (৪০) ও কর্মী উজ্জ্বল (৩৫)। ফজল ড্রাইভারের বিরুদ্ধে ২০টি হত্যা ‍মামলা রয়েছে বলে র‌্যাব জানিয়েছে।

টাঙ্গাইল র‌্যাব-১২ এর ক্রাইম প্রিভেনশন কোম্পানী (সিপিসি-৩) এর কোম্পানী কমান্ডার ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ মহিউদ্দিন ফারুকী জানায়, ‘রাত ১টার দিকে যুগনী হাটখোলা গ্রামে চরমপন্থিরা গোপন বৈঠক করছে খবর পেয়ে সেখানে অভিযান চালায় র‌্যাব। এ সময় তারা র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে গুলি করতে শুরু করে। র‌্যাব পাল্টা গুলি ছুড়লে দুইপক্ষের বন্দুকযুদ্ধে দুই চরমপন্থি নিহত হয়, বাকিরা পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে একটি পিস্তল ও একটি রিভলবার উদ্ধার করা হয়।’

সূত্রঃ bonikbarta.com


বাংলাদেশঃ টাঙ্গাইলে র‍্যাবের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টি(লাল পতাকা)-র তিন সদস্য নিহত

Tangail_BG_491375829

টাঙ্গাইল সদর উপজেলার কাকুয়া ইউনিয়নের ওমরপুর গ্রামে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) সঙ্গে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ তিনজন কমিউনিস্ট সদস্য নিহত হয়েছেন। র‍্যাব বলছে, নিহত ব্যক্তিরা নিষিদ্ধ পূর্ব বাংলার কমিউনিস্ট পার্টির সদস্য।

বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের জন্য ব্যাপক সমালোচনার মুখে থাকা এলিট ফোর্স র‍্যাব গতকাল বুধবার দিবাগত রাত সাড়ে তিনটার দিকে এ ঘটনা ঘটায়।

নিহত কমিউনিস্টরা হলেন, সদর উপজেলার বাঘিল ইউনিয়নের ওমর (৩০), ঢালানগোপালপুর গ্রামের কাশেম (২৫) এবং খোর্দজুগনি গ্রামের সাদ্দাম (২৬)।

ওমর পূর্ববাংলা কমিউনিস্ট পার্টির (এম এল-লাল পতাকা) টাঙ্গাইল জেলা শাখার সভাপতি, কাশেম সংগঠনের এমপি ও সাদ্দাম স্কোয়াড কমান্ডার।

ঘটনাস্থল থেকে দুটি বিদেশী পিস্তল, সাতটি গুলিসহ দুটি ম্যাগাজিন ও দুটি দোনলা বন্দুক উদ্ধার করা হয়েছে বলে র‍্যাব জানিয়েছে।

র‍্যাব-১২ এর তিন নম্বর কোম্পানি কমান্ডার মহিউদ্দিন ফারুকি বলেন, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে র‍্যাবের একটি দল পূর্ব বাংলার কমিউনিস্ট পার্টির সদস্যদের ঘেরাও করে। র‍্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে তাঁরা গুলি ছোড়ে। র‍্যাবও পাল্টা গুলি ছোড়ে। এতে তিনজন আহত হয়। তাঁদের উদ্ধার করে টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসক তাঁদের মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত ব্যক্তিদের লাশ টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজের মর্গে রাখা হয়েছে।

ওমরপুর গ্রামে নিহত কমিউনিস্ট সদস্যদের দেখতে উপস্থিত জনগণ

ওমরপুর গ্রামে নিহত কমিউনিস্ট সদস্যদের দেখতে উপস্থিত জনগণ

সূত্রঃ http://www.thedailystar.net/country/3-%E2%80%98pbcp-outlaws%E2%80%99-killed-%E2%80%98gunfight%E2%80%99-tangail-rab-191956