র‌্যাবের সঙ্গে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টির ২ সদস্য নিহত

1496230903_01

ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর উপজেলায় র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টির ২ সদস্য নিহত হয়েছেন।

এরা হলেন- উপজেলার বখশীপুর গ্রামের মাইদুল ইসলাম রানা (৪৫) ও বহরমপুরের আলিমুদ্দিন (৫৭)।

রানা পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টির আঞ্চলিক নেতা ও আলিমুদ্দিন তার সহযোগী ছিলেন বলে র‌্যাব-৬ এর ঝিনাইদহ কোম্পানি কমান্ডার মনির আহমেদ জানান।

তিনি বলেন, মঙ্গলবার রাত ১টার দিকে “উপজেলার কুশনা গ্রামের একটি মাঠে পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টির ১০ থেকে ১২ জন বসে নাশকতার পরিকল্পনা করছিল বলে আমাদের কাছে খবর ছিল।

“র‌্যাবের একটি টহল দল রাত ১২টার দিকে সেখানে গেলে র‌্যাব সদস্যদের লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হয়। র‌্যাবও পাল্টা গুলিকবর্ষণ করে। প্রায় ১০ মিনিট বন্দুকযুদ্ধ হয়।”

এরপর সন্ত্রাসীরা পালিয়ে গেলে রানা ও আলিমুদ্দিনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

র‌্যাব কর্মকর্তা মনির বলেন, ঘটনাস্থল থেকে দুটি রাইফেল, একটি নাইন এম এম পিস্তল, ১৪টি গুলি, একটি হাঁসুয়া ও দুটি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়েছে।

সূত্রঃ bdnews24.com/samagrabangladesh/detail/home/1342546


রাজবাড়ীঃ কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টি(এমএল-লাল পতাকা)-র আঞ্চলিক প্রধান নিহত

92a2b76f06343764ecbedd266682c140-59171d071e047

রাজবাড়ীতে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টির আঞ্চলিক প্রধান ও তার সহযোগী নিহত হয়েছেন। শনিবার (১৩ মে) ভোরে জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার দেবগ্রাম ইউনিয়নের পদ্মার রাখাল গাছী চরে এ ঘটনা ঘটে। এসময় র‌্যাবের দুই সদস্য আহত হয়েছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

নিহতরা হলেন— নিষিদ্ধ ঘোষিত পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টি (এমএল-লাল পতাকা) বাহিনীর আঞ্চলিক প্রধান পাবনা জেলার জালালপুর গ্রামের সফি মুন্সির ছেলে রাকিবুল হাসান বাপ্পি (৩০) ও তার সহযোগী রাজবাড়ী জেলা সদরের বরাট ইউনিয়নের গোপালবাড়ি গ্রামের কুদ্দুস মোল্লার ছেলে লালন মোল্লা (৩৩)।

ঘটনাস্থল থেকে র‌্যাব সদস্যরা একটি টুটু রাইফেল, একটি বিদেশি পিস্তল, একটি রাম দা, দুইটি ছোরা, দুইটি এলজি, পিস্তল ও রাইফেলের ৬০ রাউন্ড গুলি, দুইটি মোবাইল, দুইটি টর্চ লাইট, একাধিক লিফলেট, দুইটি ঘড়িসহ মাদকদ্রব্য ও পানীয় উদ্ধার করা হয়।

আহত র‌্যাব সদস্যরা হলেন— ল্যান্স কর্পোরাল হারুন-অর-রশীদ, পিসি সিরাজুল ইসলাম। আহতরা প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ক্যাম্পে ফিরে গেছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

ফরিদপুর র‌্যাব-৮-এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রইছ উদ্দিন সাংবাদিকদের জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব পদ্মার এই দুর্গম চরাঞ্চলে অভিযান চালায়। সেখানে নিষিদ্ধ লাল পতাকা বাহিনীর সদস্যরা মিটিং করছিল। র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। দু’পক্ষের মধ্যে আধা ঘণ্টাব্যাপী গোলাগুলি হয়। এসময় র‌্যাব ১৩৭ রাউন্ড গুলি ছুঁড়ে। পরে ঘটনাস্থলে দুই ব্যক্তির মৃতদেহ পাওয়া যায়। অন্য সদস্যরা পালিয়ে যায়।

রাজবাড়ী জেলা পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার (অপরাধ) সদর সার্কেল মো. আসাদুজ্জামান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। মৃতদেহ দু’টির সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ।

সূত্রঃ banglatribune


পাবনায় কথিত বন্দুকযুদ্ধে পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টির(এমএল-লাল পতাকা) ২ সদস্য নিহত

%e0%a6%b8%e0%a6%be%e0%a6%81%e0%a6%a5%e0%a6%bf%e0%a6%af%e0%a6%bc%e0%a6%be-%e0%a6%89%e0%a6%aa%e0%a6%9c%e0%a7%87%e0%a6%b2%e0%a6%be

পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার আতাইকুলায় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) সঙ্গে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টির (এমএল-লাল পতাকা) ২ সদস্য নিহত হয়েছেন।

গতকাল ২৮শে অক্টোবর  শুক্রবার ভোর রাত ৪টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

এরা হলেন- সাঁথিয়া উপজেলার মাদারবাড়িয়া গ্রামের আফসার আলীর ছেলে বিপ্লব ব্যাপারী ওরফে বিপলু (২৮) এবং একই উপজেলার পাইকশা গ্রামের মোতালেব হোসেন মিস্ত্রির ছেলে ময়েন উদ্দিন মদন (২৬) ।

র‌্যাবের ভাষ্য, নিহত দুজন নিষিদ্ধঘোষিত চরমপন্থী সংগঠন পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টির (এমএল-লাল পতাকা)  সদস্য ও পুলিশের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী। তাঁদের বিরুদ্ধে আতাইকুলা থানায় গয়েশবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক শাজাহান আলী মাস্টার হত্যাসহ কয়েকটি মামলা রয়েছে। বন্দুকযুদ্ধের পর ঘটনাস্থল থেকে দুটি আগ্নেয়াস্ত্র ও কিছু গুলি উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাব-১২ পাবনার কোম্পানি কমান্ডার সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) বীণা রানী দাস জানান, আতাইকুলার গয়েশবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে কয়েকজন চরমপন্থী নাশকতার উদ্দেশ্যে গোপন বৈঠক করছে বলে খবর পায় র‍্যাব। সেই সংবাদের ভিত্তিতে সেখানে অভিযানে যায় র‌্যাব। উপস্থিতি টের পেয়ে র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে চরমপন্থী সন্ত্রাসীরা। র‌্যাবও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছোড়ে। বন্দুকযুদ্ধের একপর্যায়ে পিছু হটে পালিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। পরে ঘটনাস্থলে দুজনের মৃতদেহ পাওয়া যায়।

সূত্রঃ  ntvbd.com

 


সাতক্ষীরায় কথিত বন্দুকযুদ্ধে ‘পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টি’র নেতা নিহত


ভারতঃ গত ৩ বছরে ৫৪৩টি বন্দুকযুদ্ধে ১২৮জন নকশাল ও ১০০জন পুলিশ নিহত হয়েছে

naxals2

ছত্তিশগড় সরকার বলেছে, গত ৩ বছরে ৫৪৩টি বন্দুকযুদ্ধে ১২৮জন নকশাল ও ১০০জন পুলিশ নিহত হয়েছে। কংগ্রেস এমএলএ দীপক বাজি’র এক প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে স্বরাষ্ট্র বিভাগের দায়িত্ত্বে থাকা রাষ্ট্র পঞ্চায়েত মন্ত্রী অজয় চন্দ্রকর এর লিখিত জবাবে বলেন, “ছত্তিশগড়ের মাওবাদী অধ্যুষিত জেলাগুলোতে ২০১৩সাল থেকে জানুয়ারি ২০১৬ পর্যন্ত পুলিশ এবং নকশালদের ৫৪৩টি বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে”, এই সময়টিতে বন্দুকযুদ্ধে ১২৮জন নকশাল ও ১০০জন পুলিশ নিহত হয়েছে। এছাড়াও উভয়পক্ষের গোলাগুলিতে ২১০জন পুলিশ ও ৮জন নকশাল আহত হয়েছে।

অনুবাদ সূত্রঃ business-standard.com


ভারতঃ ঝাড়খণ্ডে নারী গেরিলা সহ ৪ মাওবাদীকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে

default

default-1

2016_2largeimg219_Feb_2016_111308010

ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য ঝাড়খণ্ডে আজ সকালে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা কথিত এক বন্দুকযুদ্ধের নামে এক নারী গেরিলাসহ ৪ মাওবাদী গেরিলাকে হত্যা করেছে।

শুক্রবার এক জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তা জানায়, বৃহস্পতিবার রাতে ৪০ সদস্যের গেরিলাদের একটি দল পুলিশকে লক্ষ্য করে অতর্কিতে হামলা চালায়। রাজ্যের রাজধানী রাঁচির কাছে অবস্থিত তাইমারা ঘাঁটি উপত্যকা এলাকার একটি গ্রামে এ হামলা চালানো হয়। খবর বার্তা সংস্থা এএফপি’র। উভয় পক্ষের মধ্যে এ সময় ৯ ঘণ্টা ধরে প্রচণ্ড বন্দুকযুদ্ধ চলে। শুক্রবার সকালে বন্দুকযুদ্ধ শেষ হয়। বন্দুকযুদ্ধের পর পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৪টি মৃতদেহ উদ্ধার করেছে। রাঁচির পুলিশ প্রধান কুলদীপ দ্বিবেদী বলেন, ”অন্য বিদ্রোহীরা পালিয়ে গেছে। কিন্তু আমরা তাদের সন্ধানে তল্লাশি অভিযান চালাচ্ছি।” এই ঘটনায় আধাসামরিক বাহিনীর দুই সদস্যও আহত হয়েছে।

অনুবাদ সূত্রঃ

http://timesofindia.indiatimes.com/india/Four-Maoists-gunned-down-in-Jharkhand/articleshow/51049453.cms


ভারতঃ ছত্তিসগড়ে মাওবাদী-পুলিশ বন্দুকযুদ্ধ, নিহত ২

maoist1-655x360

রায়পুর: ছত্তিশগড়ের কোন্দানগাঁও অঞ্চলে মাওবাদীদের সঙ্গে পুলিশের বন্দুকযুদ্ধে  দুজন মাওবাদীর মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে আরও ছয়জন। আহত মাওবাদীদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশি নিরাপত্তায় তাঁদের চিকিৎসা চলছে।

পুলিশ সূত্রে খবর, গোপন সূত্রে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে রবিবার অভিযান চালায় ছত্তিশগড়ের পুলিশ ও টাস্কফোর্স। কোন্দাগাঁও অঞ্চলে জঙ্গলের মধ্যে হঠাৎ মাওবাদীদের সঙ্গে পুলিশের মুখোমুখি হয়। সেই সময়ই বন্দুকযুদ্ধে মৃত্যু হয় দুজনের। আহত হয় আরও ছয়জন।

সূত্রঃ http://newsr.in/n/India/7559xzszr/Two-Naxals-killed-in-Kondagaon-encounter.htm