তুরস্কে আত্মঘাতী বোমায় সরকারকে দায়ী করল এইচডিপি ও বামপন্থীরা

Still+image+taken+from+video

তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারায় গতকালের (শনিবার) বোমা বিস্ফোরণে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৯৫ জনে দাঁড়িয়েছে। আহত হয়েছে আরও ২৪৫ জন। গতকাল রাজধানীর প্রধান রেল স্টেশনের কাছে কুর্দি ও বামপন্থীদের সরকার বিরোধী একটি শান্তিপূর্ণ সমাবেশে দু’টি বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। বিস্ফোরণে ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছে ৬২ জন। হাসপাতালে নেয়ার আরও ৩৩ জনের মৃত্যু হয়।

এখন পর্যন্ত কোনো গোষ্ঠী এই হামলার দায় স্বীকার করেনি। তবে হামলার জন্য সরকারকে দায়ী করেছে কুর্দিপন্থী পিপলস ডেমোক্রেটিক পার্টি ও  বামপন্থীরা। যদিও সরকারের পক্ষ থেকে এই অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। তুরস্কের একজন সরকারি কর্মকর্তা বলেছেন, এটি ছিল সন্ত্রাসী হামলা এবং এ বিষয়ে তদন্ত চলছে। যত দ্রুত সম্ভব তদন্তের ফলাফল সবাইকে জানানো হবে।

তুরস্কের কুর্দি সমর্থিত পিপল’স ডেমোক্রেটিক পার্টি বা এইচডিপিসহ কয়েকটি বামপন্থী দল গতকাল শান্তিপূর্ণ সমাবেশের আয়োজন করেছিল। এইচডিপি পার্টির ট্যুইটে বহু লোক হতাহত হওয়ার কথা বলা হয়েছে, এছাড়া আহত লোকদের সরিয়ে নেওয়ার সময় পুলিশ লোকজনের উপর ‘হামলা’ চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেছে দলটি।

সম্প্রতি তুর্কিতে কুর্দিস্থানের দাবিতে আন্দোলনরত PKK গেরিলাদের  সঙ্গে সেনার লড়াই তীব্রতা পেয়েছে। ফলে নিহত হয়েছেন উভয়পক্ষের বহু মানুষ। কুর্দিদের ঘাটিতে বিমান হানা শুরু করেছে তুর্কি সরকার। শনিবারের বোমা বিস্ফোরণের দায় কেউ স্বীকার না করলেও কুর্দিদের তরফে অভিযোগ করা হয়েছে উগ্র জাতীয়তাবাদী সংগঠনকে মদত জুগিয়ে সরকারই ঘটিয়েছে এই বিস্ফোরণ ।


তুরস্কে কুর্দি ও বামপন্থীদের সরকার বিরোধী সমাবেশে বোমায় নিহত ৮৬ (ভিডিও)

 

turkey-2-655x360

মাওবাদী ও কুর্দি গেরিলা গোষ্ঠী পিকেকে-র সঙ্গে চলমান সহিংসতার অবসান চেয়ে শান্তি সমাবেশটির ডাক দেওয়া হয়েছিল। সমাবেশকারীদের লক্ষ্য করেই বিস্ফোরণটি ঘটানো হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

‘শান্তি ও গণতন্ত্র’ শ্লোগানকে সামনে রেখে ডাকা শান্তি সমাবেশটির উদ্যোক্তাদের মধ্যে কুর্দিপন্থি এইচডিপি পার্টিও ছিল বলে জানা গেছে। স্থানীয় সময় দুপুর ১২টায় সমাবেশটি শুরু হওয়ার কথা ছিল।

Turkey+2

এইচডিপি পার্টির ট্যুইটে বহু লোক হতাহত হওয়ার কথা বলা হয়েছে, এছাড়া আহত লোকদের সরিয়ে নেওয়ার সময় পুলিশ লোকজনের উপর ‘হামলা’ চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেছে দলটি।

স্থানীয় বাসিন্দা এমরে জানান, তিনি দুটি বিস্ফোরণের শব্দ শুনেছেন এবং বহু লোকের মৃতদেহ দেখেছেন। উত্তেজিত লোকজন পুলিশের গাড়ির উপর হামলার চেষ্টা করেছে বলেও জানান তিনি।

5.+Turkey

এর আগে জুনে দেশটির দিয়ারবাকির শহরে এইচডিপি পার্টির আরেকটি সমাবেশেও বোমা হামলা চালানো হয়েছিল।

শনিবারের এ ঘটনায় আরও ১৮৬ জন আহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে অধিকাংশই একটি শান্তি সমাবেশে অংশগ্রহণ করতে আসা লোক বলে বার্তা সংস্থা দোগানের বরাত দিয়ে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স ও বিবিসি।

বামপন্থী শ্রমিক ইউনিয়ন ও সুশীল সমাজের গোষ্ঠীগুলোর ডাকা ওই সমাবেশে স্থানীয় সময় সকাল ১০টা চার মিনিটে হামলাটি চালানো হয়।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করা ছবিতে ঘটনাস্থলে বহু মানুষকে পড়ে থাকতে দেখা গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, বিস্ফোরণের পর অনেকের লাশ পড়ে থাকতে দেখা গেছে। ঘটনাস্থলে উদ্ধারকর্মীরা উদ্ধার কাজ চালাচ্ছেন।

তুরস্কের একজন সরকারি কর্মকর্তা বলেছেন, এটি ছিল সন্ত্রাসী হামলা এবং এ বিষয়ে তদন্ত চলছে। যত দ্রুত সম্ভব তদন্তের ফলাফল সবাইকে জানানো হবে। তুর্কি প্রধানমন্ত্রী আহমেদ দাউদওগ্লু নিরাপত্তা বিষয়ে জরুরি বৈঠক ডেকেছেন।

blast1