ছত্তিশগড়ে মাওবাদী গেরিলাদের হামলায় নিহত অন্তত ১২ CRPF জওয়ান

ছত্তিশগড়ে CRPF এর টহলদার বাহিনীর উপর মাওবাদী গেরিলাদের হামলায় নিহত অন্তত ১২জন CRPF জওয়ান। mint এ প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী শনিবার সকাল ৯টা নাগাদ সুকমায় ভেজ্জি ও কুট্টাচেরু এলাকার মাঝামাঝি স্থানে CRPF এর এক টহলদার বাহিনীর উপর অতর্কিতে হামলা চালায় মাওবাদীরা।  এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে থাকে গেরিলারা। CRPF এর আধিকারিকে উদ্ধৃত করে mint জানাচ্ছে বড় বড় বোল্ডারের আড়ালে জওয়ানরা আশ্রয় নিলেও পুরো এলাকাটায় মাইন পাতা থাকায় একের পর এক তা বিস্ফোরণ হতে থাকে। আর এতেই নিহত হন অন্তত ১২জন জওয়ান। জখম হন বেশ কয়েকজন। ১০টি অত্যাধুনিক অস্ত্র ও দুটি হাইফ্রিকোয়ান্সির রেডিও সেটি নিয়ে চম্পট দেয় মাওবাদী গেরিলারা। গত বছর অক্টোবর মাসে মালকানগিরিতে গ্রেহাউন্ডের হানায় ৩ মাওবাদী নেতা সহ ৩০জন মাওবাদী নিহত হন।

সূত্রঃ satdin.in

Advertisements

ছত্তিসগড়ে মাওবাদীদের প্রেসার বোমা হামলায় নিহত CRPF অফিসার

crpf

মাওবাদীদের পেতে রাখা প্রেসার বোমা/IED বিস্ফোরণে নিহত হয়েছে CRPF-এর এক সাব ইন্সপেক্টর। তিনি CRPF-এর ৭৪ নম্বর ব্যাটেলিয়নে কর্মরত ছিলেন। নাম বি এস বিস্ত। আজ সকালে ঘটনাটি ঘটেছে ছত্তিশগড়ের সুকমার চিন্তালারে।

গতকাল সুকমার চিন্তালারে রাস্তা নির্মাণের কাজে নিরাপত্তার দায়িত্বে মোতায়েন ছিলেন CRPF-এর দুই জওয়ান। সেই সময় IED বিস্ফোরণে আহত হন ওই দু’জন। তারপরে আজ সুকমায় মৃত্যু হল CRPF-এর ওই SI-এর।

সূত্রঃ http://bangla.eenaduindia.com/News/National/2016/11/22112429/CRPF-SI-killed-in-IED-blast-in-Sukma-of-Chhattisgarh.vpf


ছত্তিশগড়ে ‘সংঘর্ষে ‘নিহত অন্তত ৫ মাওবাদী

naxals-dantewada_650x400_81470374847

ছত্তিশগড়ে পুলিসের গুলিতে নিহত ৫ মাওবাদী।  বাস্তারের আইজি কাল্লুরিকে উদ্ধৃত করে অনমনোরমা জানাচ্ছে শুক্রবার রাতে নারায়াণপুরের জঙ্গলে মাওবাদী ও drf এর মধ্যে সংঘর্ষ হয়। আর তাতেই নিহত হয়েছেন অন্তত ৫ মাওবাদী। এর আগে ১৬ তারিখে দান্তেওয়াড়ায় পুলিসের গুলিতে নিহত হন ৬ মাওবাদী। গত ১ মাসে বাস্তারে এই নিয়ে ১৫জন মাওবাদী পুলিসের গুলিতে নিহত হয়েছেন। অন্যদিকে মানবাধিকার কর্মীদের অভিযোগ ভুয়ো সংঘর্ষে নিরীহ গ্রামবাসীদের হত্যা করছে পুলিস ও আধাসেনা। এমনকি দিল্লির অধ্যাপিকা নন্দিনী সুন্দর ও অর্চনা প্রসাদের উপরও খুনের মামলা দায়ের করেছে ছত্তিশগড় পুলিস। মাওবাদীদের অভিযোগ খনিজের জন্য সমস্ত রকম প্রতিরোধকে স্তব্ধ করতে চাইছে মোদি সরকার।

ছবি ফাইল

সূত্রঃ satdin.in


সংঘর্ষ নয়, ৯ আদিবাসীকে ঠান্ডা মাথায় খুন করেছে পুলিস : অভিযোগ মাওবাদীদের

 fake-encounter

২৪ অক্টোবর থেকে ২৭ অক্টোবর সংঘর্ষ ও ভুয়ো সংঘর্ষে  নিহতদের মধ্যে ৯জন নিরীহ আদিবাসী ছিলেন বলে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানিয়ে দিল মাওবাদীরা। লাল সংবাদ ওয়েবসাইটে প্রকাশিত মাও বিজ্ঞপ্তিতে মাওবাদীরা জানিয়েছে নিহত ২২জন তাদের সদস্য অন্য ৯জন নিরীহ আদিবাসী। মাওবাদীদের দাবি ২৪ তারিখ সকালে যে সংঘর্ষ হয় তাতে তাদের কেউ নিহত হননি। পরে ঘেরাটপে পরে গিয়ে ২৫ ও ২৬ তারিখে সংঘর্ষে নিহত হন বেশ কয়েকজন সদস্য। বাকিদের জখম অবস্থায় কাছ থেকে  গুলি করে হত্যা করে পুলিস। বিজ্ঞপ্তিতে মাওবাদীরা দাবি করেছে ওখানে পার্টির কোন সম্মেলন চলছি না রুটিন ক্যাম্প করেছিল তারা। এই বিজ্ঞপ্তি দিয়ে প্রকারন্তে মাওবাদীরা সংঘর্ষের কথা জানানোর পাশাপাশি নিজেদের ভুলের কথাও স্বীকার করে নিয়েছে। ৯ আদিবাসীর নিহত হওয়ার বিষয় বিচারবিভাগীয় তদন্তের দাবি করেছে মাওবাদীরা।

সূত্রঃ satdin.in

 


দেখুন- ছত্তিশগড়ে মাওবাদী গেরিলা হামলার ভিডিও (৭ বছর পর প্রকাশিত) !

গেরিলা হামলার ভুলভ্রান্তি ধরতে বহুদিন ধরেই নিজেদের অপরেশনের ভিডিওগ্রাফি করে মাওবাদীরা। হামলার ৭ বছর পর এবার তেমনই একটি ভিডিও প্রকাশ্যে এল। ২০০৯ সালের ১২ই জুলাইয়ের যেখানে মাওবাদী হামলায় এক এসপি-সহ আঠাশ জন জওয়ান খতম হয়। কিন্তু ওই ভিডিও থেকে এমন এক চাঞ্চল্যকর তথ্য মিলেছে, যা আশঙ্কা তৈরি করেছে পুলিশমহলে।

ছত্তিশগড়ের সদর রায়পুর থেকে প্রায় ৯০ কিমি দূরে দুই পুলিশকর্মী খতমের খবর এসেছিল পুলিশের কাছে। সেই খবর পেয়েই রাজনন্দগাঁওয়ের এসপি বিশাল যৌথ বাহিনী নিয়ে ঘটনাস্থলে যান। আর তখনই পাকা রাস্তার উপর বিস্ফোরণ।

জঙ্গলের আড়াল থেকে শুরু হয় গুলিবৃষ্টি ওয়ারলেসে সমানে নির্দেশ দিতে থাকেন কমান্ডার। এসপি-সহ ২৮ জন যৌথ বাহিনীর কর্মীর ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয়। হামলায় নিহত জওয়ানদের ব্যুলেটপ্রুফ জ্যাকেট, হাতিয়ার থেকে যাবতীয় সরঞ্জাম জব্দ করে মাওবাদীরা।

কিছুক্ষণের মধ্যেই এলাকা ছাড়ার নির্দেশ আসে কমান্ডারের। আর এই হামলার ছবি প্রকাশ্যে আসতেই স্পষ্ট হয়েছে মাওবাদীদের নিজস্ব আধুনিক বেতার ব্যবস্থা বা ওয়ারলেস সিস্টেমের কথা। এর আগে রাষ্ট্রীয় বাহিনীর ওয়ারলেস লুঠ করে গতিবিধি জানার কাছ করত মাওবাদীরা। তাই ছত্তিশগড়ে নিজেদের ফ্রিকোয়েন্সি বদল করেছে বাহিনী। কিন্তু এবার নিজেদের ওয়ারলেস সিস্টেমের প্রমাণ দিয়ে বড় চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ল মাওবাদীরা।

 


মাও নেতা RK কে পুলিসের হেফাজতে নেইঃ পুলিসের বক্তব্য মানলেন ভারভারা রাও

rk

সিপিআই(মাওবাদী) কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রামকৃষ্ণ পুলিসের হেফাজতে নেই। হায়দরাবাদ হাইকোর্টকে জানানো অন্ধ্র সরকারের এই বক্তব্যকে মেনে নিলেন ভারাভারা রাও। sakshi  post এর রিপোর্ট অনুযায়ী মাও সমর্থক এই বুদ্ধিজীবী জানিয়েছেন মাও নেতা রামকৃষ্ণ ওরফে RK আপাতত নিরাপদেই রয়েছেন। এর আগে মাওবাদী নেতার  স্ত্রী  অভিযোগ করেছিলেন নিজেদের হেফাজতে রেখে  RKকে হত্যার পরিকল্পনা করছে পুলিস। আর তাই হায়দরাবাদ হাইকোর্টে সোমবার হেবিয়াস করপাস দায়ের করেন রামকৃষ্ণের স্ত্রী শীর্ষা। এরপরই সরকারকে RK ও সংঘর্ষ সম্পর্কে বিস্তারিত রিপোর্ট দিতে নির্দেশ দেয় আদালত। এরপর বৃহষ্পতিবার সরকার জানায় RK পুলিসের হেফাজতে নেই। অন্যদিকে রামকৃষ্ণ যে পুলিসি হেফাজতে রয়েছে তার প্রমাণ মাওনেতার স্ত্রীকে আগামী ২ সপ্তাহের মধ্যে  আদালতে  জানাতে নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি।

ছবি frontline এর সৌজন্যে

সূত্রঃ satdin.in


মাওবাদী বনধে মাওবাদী প্রভাবিত এলাকায় জনজীবন স্তব্ধ

maobandh-300x240

৩০জন দলীয় নেতা কর্মীর হত্যার প্রতিবাদে ৫ রাজ্যে বনধের মধ্যেই ওড়িশায় পঞ্চায়েত সদস্যকে গুলি করে হত্যা করল মাওবাদীরা জানাচ্ছে sakhipost। মালকানগিরি, রায়গড়া, কোরাপুট সহ ওড়িশার একাধিক জেলায় বাস চলাচল বনধ। মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী রাজ্যের কয়েকটি জায়গায় মাইন পুঁতে পুলিস খবর দেয় মাওবাদীরা। তেলেঙ্গানা ও অন্ধ্রের মাও প্রভাবিত এলাকায় বাস চলাচল বন্ধ।

সূত্রঃ satdin.in