গত বছরের তুলনায় নিহত মাওবাদীর সংখ্যা ১৫০গুণ

২০১৫ সালের তুলনায় ২০১৬ সালে সারা দেশে নিহত মাওবাদীর সংখ্যা ১৫০গুণ। সংবাদ সংস্থা পিটিআই এর রিপোর্ট অনুযায়ী মঙ্গলবার লোকসভায় এক লিখিত প্রশ্নের উত্তরে এই তথ্য জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী হংসরাজ আহির। ২০১৫ সালে নিহত মাওবাদীর সংখ্যা ছিল ৮৯। ২০১৬ সালে তা বেড়ে হয়েছে ২২২। গত ৬ বছরে এটাই সর্বোচ্চ সংখ্যা। মন্ত্রি জানিয়েছেন অতিবাম সক্রিয় অঞ্চলগুলিতে রাস্তা, ব্রিজ সহ যোগাযোগের পরিকাঠামোর পিছনে ১১ হাজার ৭২৪ কোটি ৫৩ লক্ষ টাকা বরাদ্দ অনুমোদন করেছে সরকার।

সূত্রঃ satdin.in

Advertisements

ছত্তিশগড়ে মাওবাদী গেরিলাদের হামলায় নিহত অন্তত ১২ CRPF জওয়ান

ছত্তিশগড়ে CRPF এর টহলদার বাহিনীর উপর মাওবাদী গেরিলাদের হামলায় নিহত অন্তত ১২জন CRPF জওয়ান। mint এ প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী শনিবার সকাল ৯টা নাগাদ সুকমায় ভেজ্জি ও কুট্টাচেরু এলাকার মাঝামাঝি স্থানে CRPF এর এক টহলদার বাহিনীর উপর অতর্কিতে হামলা চালায় মাওবাদীরা।  এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে থাকে গেরিলারা। CRPF এর আধিকারিকে উদ্ধৃত করে mint জানাচ্ছে বড় বড় বোল্ডারের আড়ালে জওয়ানরা আশ্রয় নিলেও পুরো এলাকাটায় মাইন পাতা থাকায় একের পর এক তা বিস্ফোরণ হতে থাকে। আর এতেই নিহত হন অন্তত ১২জন জওয়ান। জখম হন বেশ কয়েকজন। ১০টি অত্যাধুনিক অস্ত্র ও দুটি হাইফ্রিকোয়ান্সির রেডিও সেটি নিয়ে চম্পট দেয় মাওবাদী গেরিলারা। গত বছর অক্টোবর মাসে মালকানগিরিতে গ্রেহাউন্ডের হানায় ৩ মাওবাদী নেতা সহ ৩০জন মাওবাদী নিহত হন।

সূত্রঃ satdin.in


মাওবাদী নেতা RK এখন দণ্ডকারণ্যে, AOB এর নতুন দায়িত্বে গনপতি’র স্ত্রী !

state_on_alert1

মালকানগিরি জেলায় অন্ধ্র প্রদেশ ও উড়িষ্যার যৌথ পুলিশ বাহিনীর সঙ্গে এক এনকাউন্টারে সিপিআই(মাওবাদী)’র ৩১জন গেরিলা ও আদিবাসী নিহত ও তাদের বিভিন্ন শীর্ষ নেতারা আহত হওয়ার পর গত শুক্রবার AOB স্পেশাল জোনাল কমিটির সম্পাদক পদ থেকে কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আক্কিরাজু হরগোপাল ওরফে RK’কে সরিয়ে নিয়েছে সিপিআই(মাওবাদী)।

শুক্রবার একটি অডিও বার্তায় মাওবাদী নেতা ভূমিকা ওরফে পদ্মাক্কা AOBSZC এর নতুন সম্পাদক হিসেবে নিজের পরিচয় দেন। এই মাওবাদী নেত্রীকে সিপিআই(মাওবাদী) সম্পাদক গণপতির স্ত্রী হিসেবে ধারণা করা হয়। পদ্মাক্কা এনকাউন্টারের জন্য প্রতিশোধ নেওয়ার শপথ নেন।

তিনি বলেন, ‘এনকাউন্টারের পর মাওবাদীরা ঐ অঞ্চলে শক্তিশালী হয়ে উঠেছে, স্থানীয়রা আমাদের সাথে আছে কারণ আমরা তাদের জন্যেই যুদ্ধ করে যাচ্ছি’।

এনকাউন্টারের পর নিখোঁজ থাকা RK বর্তমানে নিরাপদ আছেন এবং দন্ডকারণ্য স্পেশাল জোনাল কমিটিতে তাকে স্থানান্তর করা হয়েছে বলে ঐ বার্তায় উল্লেখ করা হয়েছে। মালকানগিরি’র ঐ এনকাউন্টারে RK’র ছেলে মাওবাদী গেরিলা মুন্নাও একইসাথে নিহত হন।

সূত্রঃ http://indianexpress.com/article/india/india-news-india/top-maoist-rk-safe-but-removed-from-post-3737975/


‘লাল সংবাদ’ এর জরুরী আহবান –

Untitled

প্রিয় পাঠক কমরেডগণ,

লাল সংবাদ‘ এর পক্ষ থেকে লাল সালাম শুভেচ্ছা নিন। আপনারা লক্ষ্য করছেন, গত কিছুদিন ধরে ‘লাল সংবাদ‘ অনিয়মিত হয়ে পড়েছে। কারণ, ‘লাল সংবাদ‘ বন্ধ করতে প্রতিক্রিয়াশীল রাষ্ট্র উঠে পড়ে লেগেছে। ফলে আমাদের নিয়মিত প্রকাশনা অনিয়মিত হয়ে পড়েছে। যে কোন মুহূর্তে হয়তো বন্ধ করে দিতে পারে আমাদের কার্যক্রম। দমন, পীড়ন , নির্যাতনও আসতে পারে।

আমরা বিশ্বাস করি- বৈজ্ঞানিক ভাবে প্রমাণিত সত্য একটিই হয়। তাই পৃথিবীর বাধাগ্রস্থ প্রগতিশীল সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে বৈজ্ঞানিক সত্যতা তুলে ধরার লক্ষ্যে আমরা প্রাণপণ লড়াই করে যাব। কারণ, বাধাগ্রস্থ প্রগতিশীল বৈজ্ঞানিক সত্য কখনোই চার দেয়ালে বন্দী থাকতে পারে না। আশা করছি, ‘লাল সংবাদ‘ এর সত্য প্রকাশের লড়াইয়ে আপনারাও পাশে থাকবেন। ভালো থাকুন কমরেডগণ। 

–  ‘লাল সংবাদ


বিশাখাপত্তনমে গ্রেহাউন্ডের গুলিতে নিহত ২ নারীসহ ৩ মাওবাদী

Cops on Maoist

অনুদিতঃ

বুধবার সন্ধের সময় বিশাখাপত্তনমের কয়েরু মণ্ডলে অন্ধ্রের গ্রেহাউন্ডের গুলিতে ৩ মাওবাদী হয়েছেন।  পুলিসের দাবি সংঘর্ষে নাকি নিহত হয়েছেন ওই মাওবাদীরা।  নিহতদের মধ্যে ২ জন নারী গেরিলা।  উদ্ধার করা হয়েছে একটি একে ৪৭, দুটি এসএলআর, একটি পিস্তল ও কিট ব্যাগ।

নিহতদের মধ্যে একজন হচ্ছে গোপাল ওরফে আজাদ, তিনি গালিকোন্দা এরিয়া স্কোয়াডের প্রধান ছিলেন।  সাত বছর আগে তিনি মাওবাদী আন্দোলনে যোগ দেন।  আজাদ, শ্রীকাকুলাম এবং কোরাপুট বিভাগের উপ-প্রধান চৈতন্য ওরফে অরুণার ভাই, অরুণা পূর্ব বিভাগের প্রধান  ছালাপাতি ওরফে কাইলাসাম এর স্ত্রী।

বুধবার পুলিসি সন্ত্রাসের অভিযোগে বিশাখাপত্তনম , পূর্ব গোদাবরী ও খাম্মামের লাগোয়া অঞ্চলে বনধের ডাক দিয়েছিল মাওবাদীরা।  এর আগেও গত ২১ ফেব্রুয়ারি ওই একই জায়গায় নিহত হন ২ মাওবাদী।

সুত্রঃ http://timesofindia.indiatimes.com/city/visakhapatnam/Three-Maoists-killed-in-encounter/articleshow/52116095.cms


ভারতঃ মাওবাদী দমনের নামে বেপরোয়া জুলুম বস্তারে

jhargram-rape_1207_630

নতুন চেহারায়,নতুন ভঙ্গিমায় ছত্তিশগড়ে ফিরে আসছে সালওয়া জুদুম। ‘মাওবাদী’ আখ্যা দিয়ে চলছে নির্বিচারে সমাজকর্মী-সাংবাদিক-আইনজীবীদের ওপর আক্রমণ। আদিবাসী মানুষদের ধরপাকড়। হঠাৎই নিরুদ্দেশ হয়ে যাচ্ছেন নিরীহ গরিব আদিবাসীরা বস্তার থেকে! আদিবাসী মহিলাদের শ্লীলতাহানি, দল বেঁধে ধর্ষণ। অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে। বি জে পি কর্মীদের বিরুদ্ধে। সামাজিক একতা মঞ্চ গড়ে তুলে মাওবাদী দমনের নামে যে কোন প্রতিবাদকে থামানোর চেষ্টা চলছে কয়েকমাস ধরেই। বি জে পি শাসিত ছত্তিশগড়ের মুখ্যমন্ত্রী রামন সিং ও তাঁর বশংবদ পুলিশের একটাই লক্ষ্য বস্তার, বিজাপুর, সুকমার খবর যাতে বাইরের পৃথিবীতে না আসে।

২০শে ফেব্রুয়ারি। জগদলপুর থেকে গিদমে নিজের বাড়ি ফিরছিলেন মানবাধিকার ও সমাজকর্মী-আপ নেত্রী সোনি সোরি। অতর্কিতে আক্রমণ, সোনি সোরির মুখে ছোঁড়া হয় সবুজ রঙের রাসায়নিক তরল। কালো মুখ নিয়ে সোনি সোরি দিল্লিতে, অ্যাপোলো হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। দীর্ঘদিন ধরেই বস্তার অঞ্চলে আদিবাসীদের মধ্যে কাজ করে আসছেন সোরি। মাওবাদী তকমা সেঁটে দিয়ে আদিবাসী মানুষদের ওপর পুলিশের অত্যাচার, জুলুমের বিরুদ্ধেও বারে বারে সরব হয়েছেন তিনি। সালওয়া জুদুমের বিরুদ্ধে লাগাতার আন্দোলন চালিয়ে গেছেন সোরি। অভিযোগ করেছিলেন জেলে শারীরিক নির্যাতনের বিরুদ্ধে। গত লোকসভা ভোটে বস্তার কেন্দ্র থেকে আপ-র প্রার্থী ছিলেন সোরি।

কয়েকদিন ধরেই চলছিল হুমকি। বাড়িতে ছোঁড়া হয়েছিল পাথর। সোরির পরিবারের লোকেদেরও দেওয়া হয়েছিল প্রাণনাশের হুমকি। বস্তার ছাড়তে হবে সোনি সোরিকে, অভিযুক্ত সেই বি জে পি কর্মীদের নিয়ে গঠিত ‘সামাজিক একতা মঞ্চ’। শেষ পর্যন্ত হামলা।

গত তিন বছর ধরে নিরীহ আদিবাসীদের ওপর পুলিশী জুলুম, মিথ্যা মামলায় তাদের সাহায্যের জন্য কাজ করছিলেন দুই মহিলা আইনজীবী শালিনী গেরা ও ইশা খান্ডেলওয়াল। গড়ে তুলেছিলেন ‘জগদলপুর লিগাল এইড গ্রুপ’। কয়েকমাস ধরে চলছে জগদলপুরে আদিবাসী মহিলাদের ওপর যৌন হেনস্তা, অভিযোগ এসেছে দলবদ্ধ ধর্ষণেরও। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অভিযুক্ত পুলিশ ও আধা সামরিক বাহিনী। শালিনী ও ইশাকে জগদলপুর ছাড়তে হয়েছে। পুলিশ বাড়িওয়ালাকে ডেকে বলেছে ওঁদের ভাড়া থেকে তুলতে।

একই অবস্থার শিকার হয়েছেন সাংবাদিক মালিনী সুব্রহ্মণ্যম। একসময়ে ছত্তিশগড়ে রেডক্রসের প্রধান ছিলেন মালিনী। নিরীহ আদিবাসীদের ওপর মাওবাদী অভিযোগ দেখে পুলিশের ধরপাকড়, ভুয়ো এনকাউন্টার, মিথ্যে আত্মসমর্পণের নাটক নিয়ে এখন নিয়মিত লিখছেন ওয়েব পোর্টাল স্ক্রল ডট ইন এ। বিজাপুরে আদিবাসী মহিলাদের ওপর পুলিশ-আধাসেনার যৌন আক্রমণ নিয়েও লিখেছিলেন তিনি। বারে বারে হুমকির মুখে পড়েছেন মালিনী। ‘সামাজিক একতা মঞ্চ’ গত ৬ই ফেব্রুয়ারি চড়াও হয় মালিনীর ভাড়াবাড়িতে। মালিনী নাকি মাওবাদীদের প্রতি সহানুভূতিশীল, এই অভিযোগে তাঁর বাড়িতে ঢিল ছোঁড়া হয়, গাড়ির কাচ ভাঙা হয়। চলতে থাকে অশ্রাব্য গালিগালাজ। আজ বস্তারে থাকেন না মালিনী। গত ১৯শে ফেব্রুয়ারি ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন ছত্তিশগড়।

বস্তার ছাড়া হয়েছে বিশিষ্ট সমাজকর্মী বেলা ভাটিয়াও। কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের পি এইচ ডি, মুম্বাইয়ের ‘টাটা ইন্সটিটিউট অফ সোশ্যাল সায়েন্স’-র প্রাক্তন অধ্যাপিকা বেলা বিগত একবছর ধরে গরিব আদিবাসীদের মধ্যে কাজ করছিলেন। ২০০৬ সালে প্ল্যানিং কমিশন গঠিত বিশেষজ্ঞ কমিটির সদস্যা ছিলেন বেলা, সেই একই কমিটিতে ছিলেন আজকের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভালও! ছত্তিশগড়ের মাওবাদী সমস্যা নিয়ে সেই বিশেষজ্ঞ কমিটি বলেছিল গরিব আদিবাসী ও দলিত সম্প্রদায়ের সাথে সরকার, সমাজের মূলস্রোতের ধারাবাহিক বিচ্ছিন্নতার সুযোগেই মাওবাদীরা নিজেদের অবস্থান তৈরি করেছে। বেলা ভাটিয়ার বিরুদ্ধেও একই ভাবে মাওবাদীদের সহানুভূতিশীল অভিযোগে আক্রমণ, কুৎসা,হুমকি চালিয়ে গেছে ‘সামাজিক একতা মঞ্চ’। বেলা ভাটিয়াও এখন বস্তার ছাড়া। জগদলপুরের বাইরে এখন থাকেন তিনি।

আদিবাসীদের ওপর আক্রমণ, মাওবাদী অভিযোগে মিথ্যে মামলা, ভুয়ো সংঘর্ষে মৃত্যুর বিরুদ্ধে সরব হওয়া কন্ঠস্বরগুলিকে দমানো হচ্ছে বারে বারেই। দীর্ঘ হচ্ছে তালিকা। অভিযোগ মূলত দুটি সংগঠনের বিরুদ্ধে। পুলিশের প্রত্যক্ষ মদতে চলছে তাদের কাজ।

সালওয়া জুদুমের প্রাক্তন নেতা, এখন বি জে পি-র মাতব্বর মধুকর রাওয়ের নেতৃত্বে গড়ে ওঠা ‘নকশাল পীড়িত সংঘর্ষ সমিতি’ আর বস্তারের স্থানীয় নেতার ভাইপোর গড়ে তোলা ‘সামাজিক একতা মঞ্চ’।

গত কয়েক মাসে বস্তার, বিজাপুর, জগদলপুরে অজস্র মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটলেও নীরব পুলিশ। একটা এফ আই আরও দায়ের হয়নি, তদন্ত দূর অস্ত। এত ঘটনা ঘটলেও দায় এড়িয়েছেন বস্তারের ইন্সপেক্টর জেনারেল কাল্লুরি।

‘বস্তারের মানুষ বাইরে থেকে আসা ওনাদের মেনে নিতে পারছিলেন না, সমাজকর্মীরা মাওবাদীদের প্রতি সহানুভূতিশীল হয়ে পুলিশের অভিযানে বাধা দিচ্ছিলেন, এই ঘটনাগুলি তারই বহিঃপ্রকাশ’! সাফ সাফাই কাল্লুরির।


সিপিআই(মাওবাদী)’র সাধারণ সম্পাদক কমরেড গণপতির সাক্ষাৎকার (সম্পূর্ণ)

c

comrades-kA7G-621x414@LiveMint

মাওবাদী তথ্য বুলেটিনকে (MIB) দেয়া সিপিআই(মাওবাদী)’র সাধারণ সম্পাদক কমরেড গণপতির সাক্ষাৎকারটি গত ০৮/০৮/২০১৫ থেকে ০৯/০৯/২০১৫ পর্যন্ত মোট ৮ টি পর্ব ধারাবাহিক ভাবে বাংলায় প্রকাশ করেছে ‘লাল সংবাদ‘। কিন্তু আমাদের কিছু সীমাবদ্ধতার কারণে বাকি ২ পর্ব প্রকাশ করতে পারিনি। সেই সীমাবদ্ধতা কাটিয়ে আমরা বাকি দুই পর্ব সহ সম্পূর্ণ সাক্ষাৎকারটি PDF আকারে প্রকাশ করছি।

পাঠক কমরেডগণ নীচে ক্লিক করেই সাক্ষাৎকারটি ডাউনলোড করে নিতে পারবেন– 

কমরেড গণপতির সাক্ষাৎকার