ভারতঃ মাওবাদীদের ধরিয়ে দিতে অস্বীকার করা সাংবাদিককে গ্রেফতার

f17134de-15a5-487d-b78c-031922db9b63

কয়েকদিন আগে আমরা জানতে পেরেছিলাম বস্তারের সাংবাদিক সন্তোষ যাদবকে টাকার টোপ দিয়ে মাওবাদীদের ধরিয়ে দিতে চাপ দিচ্ছে পুলিস। মিডিয়ার একাংশে খবর প্রকাশিত হতেই ছত্তিশগড়ের পুলিস গ্রেফতার করেছে সন্তোষকে। শনিবার সন্তোষের মুক্তির দাবিতে রায়পুরে জমায়েত হয়ে বিক্ষোভ দেখালেন সাংবাদিকরা। বিক্ষোভ দেখান হয় মুখ্যমন্ত্রী রমন সিংয়ের বাড়ির সামনেও। বাস্তরের আইজির এইভাবে সাংবাদিক নির্যাতনের বিরুদ্ধে সরব হন সাংবাদিকরা।

কে এই সন্তোষ যাদব?

বাস্তরের গ্রামীণ সংবাদদাতা সন্তোষ কোন স্থায়ী সংবাদপত্রে চাকরি না করলেও তিনি একাধিক দৈনিকের হয়ে স্ট্রিংজারের কাজ করেন। গত জুন মাসে তাঁকে থানায় নিয়ে গেয়ে উলঙ্গ করে মারার তোড়জোড় করেছিল পুলিস। শেষ পর্যন্ত তা আর করেনি পুলিস। সন্তোষের অপরাধ সে পুলিসের থেকে টাকা নিয়ে মাওবাদীদের ধরিয়ে দিচ্ছে না। সন্তোষের দুর্ভোগ শুরু ২০১৩ সালে ধরবায় মাওবাদী হানায় মহেন্দ্র কর্মা সহ একাধিক নেতা কর্মীদের নিহত হওয়ার ঘটনার পর। তাঁর অপরাধ ঘটনার রিপোর্টিংয়ের জন্য ধরবায় সেই প্রথম সাংবাদিক যে পৌঁছেছিল। এর পর পুলিস তাঁকে ৫ লক্ষ টাকার টোপ দিয়ে মাওবাদীদের ধরিয়ে দিতে চাপ দেয়। সন্তোষ মাওবাদীদের সঙ্গে তাঁর যোগাযোগের কথা অস্বীকার করলে শুরু হয় পুলিসি হয়রানি। এক মহিলাকে হয়রান করার মিথ্যা মামলায়ও সন্তোষকে ফাঁসানো হয় বলে অভিযোগ। মিডিয়া খবর প্রকাশিত হওয়ার পরই কুখ্যাত জনসুরক্ষার কালা আইনে সন্তোষকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে অভিযোগ সাংবাদিকদের।

journalist-community-in-orissa-decides-to-boycott-all-police-functions

সূত্রঃ http://satdin.in/?p=5405

Advertisements

ভারতঃ টাকা নিয়ে মাওবাদী ধরিয়ে দিতে অস্বীকার করায় সাংবাদিকের উপর পুলিসি নির্যাতনের অভিযোগ

POLICE

শহরে সাংবাদিক নিগ্রহের কথা আমরা জানতে পারি। কিন্তু গ্রামে বা যে সব অঞ্চল সশস্ত্র দল প্রভাবিত সেই সব এলাকায় সাংবাদিকতা করা যে কী কঠিন তা আমরা হয়তো কল্পনাও করতে পারিনা। সন্তোষ যাদব। বাস্তরের গ্রামীণ সংবাদদাতা। কোন স্থায়ী সংবাদপত্রে চাকরি না করলেও তিনি একাধিক দৈনিকের হয়ে স্ট্রিংজারের কাজ করেন। গত জুন মাসে তাঁকে থানায় নিয়ে গেয়ে উলঙ্গ করে মারার তোড়জোড় করেছিল পুলিস। শেষ পর্যন্ত তা আর করেনি পুলিস। সন্তোষের অপরাধ সে পুলিসের থেকে টাকা নিয়ে মাওবাদীদের ধরিয়ে দিচ্ছে না। সন্তোষের দুর্ভোগ শুরু ২০১৩ সালে ধরবায় মাওবাদী হানায় মহেন্দ্র কর্মা সহ একাধিক নেতা কর্মীদের নিহত হওয়ার ঘটনার পর। তাঁর অপরাধ ঘটনার রিপোর্টিংয়ের জন্য ধরবায় সেই প্রথম সাংবাদিক যে পৌঁছেছিল। এর পর পুলিস তাঁকে ৫ লক্ষ টাকার টোপ দিয়ে মাওবাদীদের ধরিয়ে দিতে চাপ দেয়। সন্তোষ মাওবাদীদের সঙ্গে তাঁর যোগাযোগের কথা অস্বীকার করলে শুরু হয় পুলিসি হয়রানি। এক মহিলাকে হয়রান করার মিথ্যা মামলায়ও সন্তোষকে ফাঁসানো হয় বলে অভিযোগ। তার পর থেকেই এক আতঙ্কের পরিবেশে থাকতে ও কাজ করতে হচ্ছে সন্তোষ যাদবকে। এই পুরো বিষয়টি বিস্তারিত রিপোর্ট করছে PUCL তাদের অগস্ট বুলেটিনে।

সূত্রঃ http://satdin.in/?p=5243