যুক্তরাষ্ট্রঃ বর্ণবাদী কনফেডারেট পতাকা নামিয়ে ফেললেন আফ্রিকান বংশোদ্ভূত বিদ্রোহী মার্কিন নারী

image

concommenters0

যুক্তরাষ্ট্রের সাউথ ক্যারোলাইনার আইনসভা ভবন থেকে কনফেডারেট পতাকা সরিয়ে নিয়েছেন এক বিক্ষোভকারী। বর্ণবাদের প্রতীক হিসেবে চিহ্নিত পতাকাটি নিয়ে চলমান বিতর্কের মধ্যে এ ঘটনা ঘটল।

অবশ্য গত শনিবার স্থানীয় সময় ভোরে পতাকাটি নামিয়ে ফেলার এক ঘণ্টার মধ্যেই সেখানে নতুন আরেকটি উত্তোলন করা হয়। পতাকা নামানোর ঘটনায় জড়িত কৃষ্ণাঙ্গ নারী ব্রি নিউসামকে (৩০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ৩০ ফুট উঁচু খুঁটি থেকে পতাকা নামাতে নিউসামকে সহায়তা করার অভিযোগে জেমস ইয়ান টাইসন নামের এক শ্বেতাঙ্গ যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁদের দুজনের বিরুদ্ধেই গুরুত্বপূর্ণ স্থাপত্যের বিকৃতি ঘটানোর অভিযোগ আনা হয়েছে।

নিউসামকে গ্রেপ্তারের ঘণ্টাখানেকের মধ্যে তাঁর ছবি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে ব্যাপক আলোড়ন তোলে। ছবিতে দেখা যায় একজন পুলিশ কর্মকর্তা তাঁকে পেছনে হাতকড়া পরা অবস্থায় নিয়ে যাচ্ছে। টুইটারে ফ্রিব্রি নামের হ্যাশটাগে হাজার মানুষ যোগ দেয়। অন্যদিকে অনলাইনভিত্তিক একটি জনহিতকর ওয়েবসাইট এক ঘণ্টারও কম সময়ে নিউসামের জামিনের জন্য ৮০ হাজার ডলারের বেশি অর্থ সংগ্রহ করে। একই সঙ্গে ‘কৃষ্ণাঙ্গদের বেঁচে থাকার আন্দোলনে সরাসরি হিস্যা নিতে’ বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে সহায়তা করতেও তহবিল জোগাড় করা হয়।

গত সপ্তাহে অঙ্গরাজ্যটির চার্লসটনে একটি গির্জায় এক শ্বেতাঙ্গের গুলিতে ৯ কৃষ্ণাঙ্গ নিহত হয়। ওই ঘটনায় গ্রেপ্তার হওয়া ডিলান রুফের (২১) অনলাইনে পোস্ট করা অনেক ছবিতে কনফেডারেট পতাকা দেখা যায়। এর পর থেকে পতাকাটি নিয়ে দেশে-বিদেশে বিতর্ক জোরালো হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের গৃহযুদ্ধের সময় (১৮৬১-১৮৬৫ সাল) দাসপ্রথা বিলোপের প্রশ্নে দেশটি বিভক্ত হয়ে পড়ে। দক্ষিণের ১১টি রাজ্য কেন্দ্রের দাসপ্রথা বিলোপের সিদ্ধান্তের বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে নিজেদের ‘কনফেডারেট স্টেট অব আমেরিকা’ বলে ঘোষণা দেয়। এই কনফেডারেট রাজ্যগুলোর সেনাবাহিনীর পতাকাই কনফেডারেট পতাকা হিসেবে পরিচিত।

নিউসাম এক বিবৃতিতে শনিবার বলেছেন, ‘আমরা আজই পতাকা সরিয়ে নিয়েছি। কারণ, আমরা আর দেরি করতে পারছিলাম না। সময় এখন নতুন অধ্যায় সূচনা করার, যেখানে শ্বেতাঙ্গদের আধিপত্য নিরসনের ব্যাপারে সচেতন থাকতে হবে।’ 

সূত্রঃ

AFP

http://www.washingtonpost.com/news/post-nation/wp/2015/06/27/woman-takes-down-confederate-flag-in-front-of-south-carolina-statehouse/

Advertisements