অধ্যাপক জিএন সাইবাবা’র প্রতিরক্ষায় ২৯শে মার্চ, ভারত বনধ ডেকেছে সিপিআই(মাওবাদী)

 

বার্তা সংস্থা TNN থেকে প্রাপ্ত রিপোর্ট অনুযায়ী, গত ৭ই মার্চ দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক জিএন সাইবাবা এবং অন্য চারজন- হেম মিশ্র, বিজয় তিকরী, মহেশ তিকরী, প্রশান্ত রাহী ও পাণ্ডু নারটে’র যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের প্রতিবাদে আগামী ২৯শে মার্চ সিপিআই(মাওবাদী) দেশব্যাপী হরতাল, ভারত বনধ ডেকেছে।

বিপ্লবী নেতা ভগৎ সিং, সুখদেব ও রাজগুরু’র শহীদ দিবস স্মরণে পুঁজিবাদ বিরোধী সপ্তাহের শেষের দিকে ২৯শে মার্চের এই কর্মসূচী নেয়া হয়েছে।


দিল্লী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডঃ সাইবাবা’র প্রেস বিবৃতি

gnsaibaba

Press Statement

April 14, 2016

On the 4th of April, the Hon’ble Supreme Court of India granted me bail, and I have finally returned home, after spending more than three and a half months in prison, pursuant to the cancellation of the interim bail granted to me by the Bombay High Court.This last stint in Jail has adversely affected my health and I have to resume medical treatment immediately, to try and restore basic mobility of some of my limbs and muscles.

At the outset, I wish to thank all my lawyers in Delhi, Bombay, Nagpur, and Gadchiroli, who appeared for me, and defended me in the strongest manner in Court, both to secure my bail and while conducting the trial of my case in Gadchiroli. Without them, I would still be languishing in jail. My fight for justice, is far from over and I forsee many more legal challenges in the case but I am confident that my lawyers will deal with those challenges with professional skill and dedication.

I would specially like to thank the teachers, students and activists who formed a Defense Committee and conducted several programmes in the last two years demanding that I be released forthwith. I thank Professor Haragopal, Dr. Nandita Narain, Dr. Karen Gabriel, Dr. Hany Babu and all other members of the Defense Committee who relentlessly fought for my release. I thank the Delhi University Teachers Association (DUTA) and various teachers’ unions of different universities that stood up for my rights and release.

I would also like to thank all those intellectuals, teachers, students, political organizations, writers, democratic rights activists, disability rights activists, cultural activists, media
persons and many others who fought for my release. In prison, I got news about various programmes that were being held across the world demanding that I be released from prison. This gave me the mental strength and will power to combat and endure the hostile and inhuman conditions that I was exposed to in prison. I do not personally know many of the people who stood in my support and who came out to protest against the violation of my democratic rights. I feel humbled and I am truly grateful that I received such widespread support.

We now, more than ever before in our history, face an unprecedented assault on all forms of democratic rights and freedoms. Our campaigns, therefore, must not end with the release of a few individuals but must oppose all forms of injustice, oppression and exploitation. Hundreds of thousands of Adivasis are being displaced from their homes and forests as they face brutal repression at the hands of the State and so many of them remain in jail, without proper legal representation and on very flimsy charges. We must come out in support of these poorest and most vulnerable sections of our population. We must also, aim to break free from the larger prison that forces us to live under the shackles of Brahmanical feudalism and fascism. We must remain
vigilant, so that the rights of minorities, both ethnic and religious, are not violated by the State. As someone who has been a democratic rights activist throughout my life, I can say with confidence, that in the days to come, these struggles will continue, with renewed passion and vigour.

G N SAIBABA
University of Delhi
Delhi


‘মাওবাদী সহানুভূতিশীল’ সাইবাবার স্থানান্তর ঝুঁকিপূর্ণঃ মহারাষ্ট্র সরকার

freesaibabaredstar

দেবেন্দ্র ফডনবিশ সরকার হুইলচেয়ারে আবদ্ধ দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও কথিত মাওবাদী সহানুভূতিশীল সাইবাবার  নাগপুর জেল থেকে গাদচিরোলিতে জেলায় স্থানান্তরের বিষয়ে বিরোধিতা করেছে, সরকারের ধারণা মাওবাদী অধ্যুষিত এই এলাকার মাওবাদীরা সাইবাবাকে উদ্ধারের চেষ্টা চালাতে পারে।

সুপ্রিম কোর্ট গত ২৩শে ফেব্রুয়ারি সাইবাবার নির্জন কারাবাসের বিষয়ে মহারাষ্ট্র সরকারকে সাইবাবার জন্যে গাদচিরোলিতে বিকল্প আবাসনের কথা বলেন, কারণ নিষিদ্ধ নকশাল সংগঠনের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে আনা ফৌজদারি মামলা সেখানে অমীমাংসিত রয়ে গেছে।

২০১৪ সালের মে মাসে দিল্লী বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস থেকে গ্রেফতার হওয়া অধ্যাপক সাইবাবা নাগপুর জেলেই বন্দী আছেন। গাদচিরোলিতে তার মামলার কার্যক্রম জন্যে প্রতিবার তাঁকে ১৭০কিমি ভ্রমন করতে হয়।

শীর্ষ আদালতের আগে দেয়া এক হলফনামায় মহারাষ্ট্রের সরকার বলছে, ‘তাদের কাছে গোয়েন্দা তত্থ্য রয়েছে যে মাওবাদীরা সাইবাবাকে মুক্ত করতে একটি প্রচারণা শুরু করেছে। সাইবাবাকে যদি গাদচিরোলিতে কারাগারের বাইরে রাখা হয়, তবে মাওবাদীরা তাঁকে মুক্ত করতে পুলিশের উপর হামলা করতে পারে।’

এটা একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক প্রেস নোটে উল্লেখ করা হয় যে সাইবাবার মুক্তির জন্য একটি দেশব্যাপী আলোড়ন তৈরি করতে ক্যাডারদের আহবান জানানো হয়।

একটি বেঞ্চ, রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী নিশান্ত কাটনেসরকারকে বলেন, “আমরা চাই আপনারা(রাজ্য সরকার) তাঁকে আরামদায়ক অবস্থানে রাখবেন, আমাদের বলুন আপনারা তাকে কিভাবে স্বস্তিপূর্ণ রাখবেন, আপনারা তাঁকে নির্জন কারাবাসে রাখতে পারেননা।”

অনুবাদ সূত্রঃ hindustantimes


কারারুদ্ধ অধ্যাপক সাইবাবা চিকিৎসার অভাবে তার হাত হারানোর শঙ্কা প্রকাশ করেছেন

saibabaprof

গাদচিরোলিতে জেলা ও দায়রা জজ আদালতে প্রধান বিচারকের কাছে হাতে লেখা একটি চার পৃষ্ঠার  চিঠিতে, কারারুদ্ধ দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জি সাইবাবা বিশেষ চিকিৎসা সেবা চেয়েছেন এবং মাটিতে বসে খাবারের ব্যবস্থার কারণে তার স্বাস্থ্যের দ্রুত অবনতি হচ্ছে বলে জানিয়েছেন। গত ৫ই জানুয়ারী তারিখে NDTV তে প্রচারিত এক চিঠিতে হুইলচেয়ার আবদ্ধ থাকা ইংরেজির এই অধ্যাপক দাবী করেন যে, তিনি শারীরিক ভাবে ৯০ ভাগ অক্ষম। তিনি বলেন, “আমি হার্ট, লিভার, স্নায়ু, কিডনি ও গলব্লাডার সহ বিভিন্ন ধরণের খুব খারাপ রোগে ভুগছি, জেলে যাওয়ার পূর্বে আমার কর্মক্ষম বাঁ হাতটি বর্তমানে ক্রমান্বয়ে প্যারালাইজ হয়ে যাচ্ছে। আমার বাম কাঁধের জন্যে Indian Spinal Injuries Centre (ISIC) এ নিয়মিত চিকিৎসা নিয়েছি,  যা কারাগারে গুরুতরভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আমার স্নানের জন্যে এবং পা, পেছনের মেরুদণ্ডের স্নায়ুর ব্যাথা কমাতে ও ক্ষতিগ্রস্ত বা হাতের জন্যে গরম জল দরকার- এই সুবিধা আমাকে আগে দেয়া হত, আমাকে আবারো একই সুবিধা দেয়ার আহবান রাখছি- এগুলো ছাড়া আমি বেঁচে থাকতে পারবো না”। সাইবাবা আগে থেকেই তার পা ব্যবহার করতে না পারার কারণে তিনি তার দৈনন্দিন কাজে হাতের উপরেই নির্ভরশীল আছেন। তিনি আরো বলেন, “আগে আমি রোগের জন্যে বিভিন্ন থেরাপি নিতাম, বর্তমানে সেগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়েছে, এতে আমার বাঁ হাত বেশ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে, পোলিও’র কারণে আমার দুই পা সহ শরীরের ৯০ ভাগই অক্ষম, যার ফলে আমি না পারছি দাঁড়াতে, না পারছি হাঁটতে । আমি হুইল চেয়ারে আবদ্ধ হয়ে গেছি, আমার বাঁ হাতটির চিকিৎসা না হলে, এক হাত নিয়েই বেঁচে থাকতে হবে। যা আমার জীবনকে অনেকটা অসম্ভব পরিণতির দিকে নিয়ে যাবে।”

উল্লেখ্য যে, মাওবাদীদের সাথে যোগাযোগের কারণে অভিযুক্ত অধ্যাপক সাইবাবার ৩১শে ডিসেম্বর ২০১৫ পর্যন্ত জামিন ছিল।

2A736FB200000578-3157571-Dr_G_Naga_Saibaba_47_as_born_and_grew_up_in_East_Godavari_in_And-a-12_1436654691635

অনুবাদ সূত্রঃ http://www.huffingtonpost.in/2016/01/14/saibaba-jail-treatment_n_8975794.html


ভারতঃ অধ্যাপক সাইবাবাকে বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার অনুমতি দিল বোম্বে হাইকোর্ট

gn_saibaba_20150518.jpg

মাওবাদীদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখার সন্দেহে জেলবন্দি দিল্লী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জিএন সাইবাবাকে বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা করানোর অনুমতি বুধবার দিল বোম্বে হাইকোর্ট। এর আগে সাইবাবার তরফে আদালতকে জানান হয় জেলে তাঁর কোন চিকিৎসা সম্ভব নয়।

আদালতকে গত সপ্তাহেই সংবাদপত্রের রিপোর্টকে উল্লেখ করে পূর্ণিমা উপাধ্যায়ে নামে এক  মহিলার  আদালতে পাঠানো চিঠিকে গুরুত্ব দিয়ে সাইবাবার মেডিক্যাল রিপোর্ট সরকারের কাছে চেয়ে পাঠায় বোম্বে হাইকোর্টের প্রধান বিতারপতি মোহিত শা ও একে মেননের ডিভিশন বেঞ্চ।

গত বছর মে মাসে দিল্লির ফ্ল্যাট  থেকে কার্যত অপহরণের কায়দায় ৯০ শতাংশ শারীরিক প্রতিবন্ধী সাইবাবাকে  গ্রেফতার করে মহারাষ্ট্রের পুলিস। এর পর তাঁকে রাখা হয়েছে নাগপুরের কুখ্যাত আন্ডা সেলে। সাইবাবার মুক্তির দাবিতে সরব হয়েছেন বহু বিশিষ্টজন। কিন্তু সারাদেশে অসংখ্য মানুষ বিনা বিচারে বা জামিনের অর্থ জোগাড় করতে না পেরে জেলেই থাকতে বাধ্য হচ্ছেন।

সুত্রঃ http://satdin.in/?p=2258


ভারতঃ মাওবাদী সন্দেহে গ্রেফতার অধ্যাপকের মুক্তির দাবিতে সরব অরুন্ধতি রায়

saibabaprof

images (2)

দিল্লির রামলাল কলেজের অধ্যাপক জিএন সাইবাবা জেলে রয়েছেন কারণ তিনি সরকারের গ্রিন হ্যান্ট অভিযানের পর্দা ফাঁস করেছিলেন। ২৩ মে দিল্লিতে সাইবাবার মুক্তির দাবিতে হওয়া এক  কনভেনশনে এই কথা বলেন অরুন্ধতি রায়।

অরুন্ধতির মতে  সাইবাবার মুক্তির দাবিতে শুধু নয় সবাইকে এক হয়ে করপোরেট শোষণের  বিরুদ্ধে সংগ্রামে সামিল হতে হবে। কারণ সেই সংগ্রাম করতে গিয়েই  সাইবাবা এখন জেলে রয়েছেন বলে মনে করেন এই বিশিষ্ট লেখিকা।

সলমন খান মত্ত অবস্থায় গাড়ি চাপা দিয়ে মানুষ মারায় দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পরও সাজা না কেটে জেলের বাইরে থাকেন অথচ দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জিএন সাইবাবাকে ১ বছর ধরে জেলে পচতে হচ্ছে। গত বছর মে মাসে তাঁর দিল্লির ফ্ল্যাট থেকে কার্যত অপহরণ করে নিয়ে যাওয়া হয় সাইবাবাকে। এর পর জানা যায় মহারাষ্ট্র পুলিস তাঁকে গ্রেফতার করেছে। সাইবাবার বিরুদ্ধে অভিযোগ তিনি কোন মাওবাদী নেতাকে কম্পিউটার চিপ দিয়েছিলেন। অভিযোগ মাত্র, তাঁর বিরুদ্ধে কোন অপরাধ এখনও প্রমাণ  হয়নি। তা সত্ত্বেও ৯০ শতাংশ শারীরিক প্রতিবন্ধী  এই অধ্যাপককে রাখা হয়েছে কুখ্যাত আন্ডা সেলে। সাইবাবার মত ৩ লক্ষের বেশি বিচারাধীন বন্দি সারা দেশে জেলে পচে মরছেন।

এই বিষয় বিস্তারিত একটি লেখা প্রকাশিত হয়েছে কাফিলা(kafila) ওয়েবসাইটে।


দোষী সলমন জামিন পায়, অধ্যাপক জিএন সাইবাবাকে দোষ না করেও জেলে পচতে হয়

yhg

সলমন খান মত্ত অবস্থায় গাড়ি চাপা দিয়ে মানুষ মারায় দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পরও সাজা না কেটে জেলে থাকেন অথচ দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জিএন সাইবাবাকে ১ বছর ধরে জেলে পচতে হচ্ছে। গত বছর মে মাসে তাঁর দিল্লির ফ্ল্যাট থেকে কার্যত অপহরণ করে নিয়ে যাওয়া হয় সাইবাবাকে। এর পর জানা যায় মহারাষ্ট্র পুলিস তাঁকে গ্রেফতার করেছে। সাইবাবার বিরুদ্ধে অভিযোগ তিনি কোন মাওবাদী নেতাকে কম্পিউটার চিপ দিয়েছিলেন। অভিযোগ মাত্র, তাঁর বিরুদ্ধে কোন অপরাধ এখনও প্রমাণ  হয়নি। তা সত্ত্বেও ৯০ শতাংশ শারীরিক প্রতিবন্ধী  এই অধ্যাপককে  রাখা হয়েছে কুখ্যাত আন্ডা সেলে। সাইবাবার মত ৩ লক্ষের বেশি বিচারাধীন বন্দি সারা দেশে জেলে পচে মরছেন। এই বিষয় বিস্তারিত একটি লেখা প্রকাশিত হয়েছে কাফিলা(kafila) ওয়েবসাইটে।

সুত্রঃ http://kafila.org/2015/05/10/much-better-to-run-over-the-poor-than-to-speak-up-for-them/#more-25354


ভারতঃ প্রেস বিজ্ঞপ্তি- অধ্যাপক জি এন সাইবাবা রক্ষা ও মুক্তি কমিটি

jsm4saibaba

PRESS RELEASE-April 23, 2015

Dr. GN Saibaba was abducted from the Delhi University North Campus premises on 09 May 2014 by the Maharashtra police. Dr. Saibaba was produced in the remote far flung Aheri police station in the Maharashtra- Chhattisgarh border to be charged under several sections of the worst draconian legislation the UAPA. In the last eleven months of his incarceration, Dr. Saibaba has repeatedly brought before the court as well as the jail authorities the pressing need for his grant of bail, not on any humanitarian grounds, but on the merit of law as sanctioned by the provisions that are there for the differently-abled.

He has pointed out to the judge in many of the video conferences—as he was produced in the court only once and the rest of the dates of hearing / production have been met through the video conference facility, which is also a grievous infringement of his fundamental right—that the facilities in the Nagpur Central Jail are little or none to meet even the survival requirements of a 90 percent disabled and wheel chair bound person like him. But as we can see, the court preferred to stand by the prosecution, in an atmosphere vitiated by the media which profiled the wheel chair bound activist academic as a dreaded and dangerous demagogue having links with a proscribed organization, the CPI (Maoist).

In the due course of his fight for justice through his lawyers, Dr. Saibaba’s plea for bail was twice rejected by the Sessions Court of Gadchiroli and once by the Nagpur bench of the Maharashtra High Court. But the facts can’t be belied. Saibaba’s concern about his fragile health grew larger as he was diagnosed with a bend spinal cord resulting in rib crowding and the lungs getting affected. Being a heart patient the troubles with his heart further compounded and the latest medical report requires him to undergo an angiography the post-recovery of which can be fatal in the prison stay. Further tests showed stones in the gall bladder. It was on the direction of the Sessions’ Judge that the second bail application was filed on 12 February 2015 as Saibaba gave a detailed brief of his deteriorating health and the total apathy of the jail authorities as well as the Nagpur police in taking him to the specialist hospitals for his specific health condition.

It was only in the eve of the hearing of the bail application that the Nagpur police managed a low floor vehicle to take him to the hospital, that too after a court order directing the SP Gadchiroli. Many of the vital tests were done during those 10-15 days to show the court that adequate care is given to him. But after hearing the arguments and the repeated plea of the prosecution that they are taking adequate care of Dr. GN Saibaba including his medical treatment, the judge opted to stand by the prosecution to deny him bail once again. In the arguments of the prosecution they have apprised the judge that Saibaba is being provided with two assistants, health supplements like dry fruits, a table, cot and western commode.

Instead of verifying all the facts the judge concluded that since Dr. Saibaba is being given adequate medical care as well as facilities in the jail he need not be given bail. No sooner than the bail was rejected did the jail officials started their usual whimsical attitude towards Dr. GN Saibaba many a time denying all those facilities let alone some of the life saving medicines that they had promised before the court. In his message through his wife, AS Vasantha he referred to the vindictive observations of the officials higher up that they would want to teach him a lesson so that it remains as a warning for other intellectuals like him. Life after the rejection of the bail on 4 March 2015 for Dr. GN Saibaba had become worse as he was at the receiving end of a sadistic and vindictive prison administration working on specific orders to pull all stops to further humiliate and discriminate him. The fallout is a steady deterioration in his health and the urgent need for specialist treatment for the complications that have compounded in the last 11 months of incarceration in the solitary cell (anda) in Nagpur central jail.

In such circumstances Dr. Saibaba resorted to hunger strike from Saturday (11 April 2015) onwards. His wife and the lawyers fearing for his health requested him to refrain from such an extreme step as he was already in a fragile condition. But Saibaba went on with his hunger strike against the mounting apathy of the jail officials who claimed that they had no option but to further tighten restrictions on the inmates as there was an alleged jail break in the Nagpur central jail. This was used as a pretext to snatch away the little provisions that Saibaba was given.

On 11 April when his wife AS Vasantha, reached the jail premises, she was asked to do the meeting through the mesh that too after a long wait just before the time was about to get over. She had carried medicines and other supplements which were not allowed. Given his health condition and being wheel chair bound, to stretch oneself to talk through the mesh in itself is difficult for Dr. GN Saibaba. But then the jail authorities were not ready to budge. All this has proved beyond doubt that there are no specific orders regarding the facilities and ‘good’ treatment being given to Saibaba as claimed by the jail authorities before the court. All such utterances that they made were ad hoc arrangements which can change at any moment. On 17 April 2015, Dr. Saibaba was taken to the Government Medical College Nagpur as he had fallen unconscious.

Dr. Ramdev, brother of Saibaba and Dr. Hany Babu from Delhi University who is in the defence committee were allowed to meet him in the hospital for a few minutes. The team comprising of Dr. Hany Babu, Adv. Mahadevan, Adv. Dasharath, Dr. Ramdev and other lawyers and civil liberties activists from Nagpur held a press conference highlighting the grievous condition of health of Dr. GN Saibaba and the vindictive attitude of the police and the prison officials to break him physically and mentally by disallowing even the basic fundamental rights of a 90 percent disabled. The Committee for the Defence and Release of Dr GN Saibaba calls upon all democratic sections as well as freedom loving people to raise their voice against the inhuman and vindictive attitude of the police and prison authorities which has almost reached fatalistic proportions to the life of GN Saibaba. We demand that Saibaba be released unconditionally and that he be allowed to face trial as guaranteed under Section 437 of the Cr.pc. without undergoing imprisonment being a disabled person, no matter, whatever the charges maybe.

G Haragopal, Chairperson, ICSSR National Fellow, TISS Hyderabad

Karen Gabriel, General Secretary, Associate Professor, St Stephen’s, College

A K Ramakrishnan, Professor, JNU

Amit Bhaduri, Emeritus Professor, JNU

Anand Teltumbde, Professor, IIT Kharagpur

Arundhati Roy, Writer

Ashok Bhowmick, Artist

Hany Babu M T, Associate Professor, University of Delhi

Jagmohan Singh, Association for Democratic Rights, Punjab

N Raghuram, Associate Professor, GGS IP University

Nandita Narain, Associate Profressor St Stephen’s College

P K Vijayan, Associate Professor, Hindu College

Rona Wilson, Committee for the Release of Political Prisoners

Sanjay Kak, Filmmaker

Seema Azad, Editor, Dastak

Sri Krishna Deva Rao, Vice Chancellor, NLU Odisha

Sudhir Dhawale, Editor,

Vidrohi Sumit Chakravartty, Editor, Mainstream

Vikas Gupta, Assistant Professor, University of Delhi

Source – http://www.signalfire.org/2015/04/27/committee-for-the-defense-and-release-of-g-n-saibaba-press-release/


ভারতঃ ‘মাওবাদী যোগসূত্র’- RDF (Revolutionary Democratic Front) এর রাজ্য সভাপতি গ্রেফতার

rdf

শুক্রবার মাওবাদী দলের সাথে সংযোগ সূত্রের অভিযোগে রেভলিউশনারি ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের (RDF) এর রাজ্য সভাপতি টি সুগাথনকে গ্রেফতার করেছে চেম্মানগাদ পুলিশ। পুলিশের ভাষ্যমতে, তাদের একটি পোস্টার দেখা যায়- যার ভিত্তিতে ইরিত্তি পুলিশ একটি অভিযোগ দায়ের করে। এই অভিযোগের ভিত্তিতে তাকে গ্রেফতার করা হয়। পোস্টারটিতে লেখা ছিল, ‘মাওবাদ চরম্পন্থা নয়, বরং মুক্তির পথ” । এ মামলায় পুলিশ পরদিন RDF এর কার্যনির্বাহক অজয়ান মান্নুর ও কারিভেল্লুর রামাকৃষনানকে ধরে নিয়ে যায়। এর আগে কাসারগোদের পারাপ্পাতে ক্যাম্পেইন গড়ে তোলার অভিযোগে RDF এর দুইজন কর্মীকে পুলিশী হেফাজতে নেয়া হয়। জিজ্ঞাসাবাদের পর তাদের ছেড়ে দেয়া হয়। পরে অজয়ান ও রামাকৃষনানকে Unlawful Activities (Prevention) Act (UAPA) এর আওতায় গ্রেফতার করা হয়। RDF নেতাদের গ্রেফতারের প্রতিবাদে শুক্রবার প্রেসক্লাবে এক সাংবাদিক সম্মেলন আহ্বান করেন প্রাক্তন মাওবাদী নেতা গ্রো বসু। ভাদাকারার চম্বল থেকে সাংবাদিক সম্মেলনে আসা সুগাথনকে পুলিশ মুথালাক্কুলাম থেকে গ্রেফতার করে। তিনি বেলা একটার দিকে সম্মেলন শেষ করে ফিরছিলেন। গ্রো বসু ও RDF এর নেতারা এই গ্রেফতারের প্রতিবাদে পুলিশের বিরুদ্ধে স্লোগান দেন।

সূত্রঃ

http://www.newindianexpress.com/states/kerala/Maoist-Links-RDF-State-Prez-Held/2015/04/25/article2781676.ece