পিকেক ও মাওবাদীসহ ১০টি সংগঠনের “Peoples’ United Revolutionary Movement” প্রতিষ্ঠার ঘোষণা

94dc54329e25f79c8a3f66d37ea38c47_L

কুর্দিস্তান ও তুরস্কের ১০টি বিপ্লবী সংগঠন যৌথ ভাবে ‘Peoples’ United Revolutionary Movement প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দিয়েছে। একটি গেরিলা জোনের মধ্যে এক যৌথ সংবাদ সভায় ১০টি বিপ্লবী সংগঠনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত থেকে তাদের জোটের ঘোষণা দেন। সভায় ফ্যাসিবাদী AKP সরকার ও তুর্কি প্রজাতন্ত্রের বিরুদ্ধে সকল এলাকায় ঐক্যবদ্ধ ভাবে তাদের বিপ্লবী পদক্ষেপ নেওয়ার পাশাপাশি সশস্ত্র সংগ্রাম চালিয়ে যাওয়ার অঙ্গিকার ব্যক্ত করা হয়।

এসময় পিকেকে’র নির্বাহী কমিটির সদস্য ‘দুরান কাল্কান’ লিখিত বিবৃতি তুলে ধরেন এবং কুর্দিস্তান ও তুরস্কের ঐক্যবদ্ধ ১০টি বিপ্লবী সংগঠনের নাম ঘোষণা করেন। সংগঠনগুলো হলোঃ TKP/ML, PKK, THKP-C/MLSPB, MKP, TKEP-LENINIST, TEKP, DKP, DEVRÎMCÎ KARARGAH এবং MLKP ।

kurda

কাল্কান বলেন,  AKP যে একটি নতুন ফ্যাসিবাদী একনায়কত্ব প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করছে তার বিরুদ্ধে বিপ্লব সম্পন্ন করার জন্যে এই ঐক্যবদ্ধ বিপ্লবী বাহিনী গঠন করা হয়েছে।

এ ছাড়া যে সকল বিপ্লবী সংগঠন ও সামাজিক পরিধির সংগঠন সমূহ, যারা ফ্যাসিবাদ বিরোধী লড়াইয়ে অংশ নিতে চান, তাদের এই যৌথ সংগ্রামে যোগদানের জন্য আমন্ত্রণ জানান কাল্কান।

সভায় কাল্কান, যৌথ ঘোষণাটি তুর্কি ও কুর্দি ভাষায় পড়ে শোনান, এতে সমগ্র মানবতার জন্যে হুমকি মধ্যপ্রাচ্যের চলমান যুদ্ধ ও সঙ্কটের প্রতি সকলকে মনোযোগ দিতে বলেন। এতে আরও জোর দিয়ে বলা হয় যে, AKP সরকার- আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক শক্তিগুলো দ্বারা গঠিত কুৎসিততম জোটের শরীক হিসেবে এই রক্তাক্ত যুদ্ধে অংশ নিচ্ছে। যৌথ ঘোষণাপত্রে AKP সরকার আজ দেশের সব জাতি ও বিরোধী দলের বিরুদ্ধে যে সর্বাত্মক যুদ্ধ চালাচ্ছে তার দিকে ইঙ্গিত করা হয়েছে।

kurdc

অনুবাদ সূত্রঃ

http://democracyandclasstruggle.blogspot.com/2016/03/kurdish-and-turkish-organisations.html


তুর্কি বিতর্কঃ MKP-র ৩য় কংগ্রেস: লিকুইডেহশনিজম এর নতুন পর্যায়

ইংরেজি ভাষায় অনূদিত এই নিবন্ধটি মূলত তুর্কি ভাষায় লিখেন ইব্রাহিম সূফী এবং ২০১৪ সালের জুনে Partizan পত্রিকার একটি বিশেষ সংস্করণে এটি প্রকাশিত হয়।বিভিন্ন প্রস্তাবের জবাব, বিশ্লেষণ ও সাধারণ লাইনের বিষয়- MKP (তুরস্ক ও উত্তর কুর্দিস্তান মাওবাদী কমিউনিস্ট পার্টি) এর ৩য় কংগ্রেসের এই নথিটিতে উপস্থাপন করা হয়েছে। MKP এর কংগ্রেস ২০১৩ সালের কোন একসময় অনুষ্ঠিত হয় এবং কংগ্রেসের নথি সমূহ ২০১৪ সালের কোন একসময় তুর্কি ভাষায় জনগণের উদ্দেশ্যে প্রকাশ করা হয়।

mkp1

ক্লিক করুন –

MKP ৩য় কংগ্রেসের নথি.pdf


তুরস্ক/ইস্তাম্বুলঃ ‘সন্ত্রাস বিরোধী’ অপারেশনে একজন নারী বিপ্লবীকে হত্যার চেষ্টা

12063659_153182725033212_5669827652962406272_n

dilek-dogan

ইস্তাম্বুলের প্রতিবেশী এলাকা আতাসেহির ও সারিয়েরে পুলিশের TMS বিভাগ একাধিক হামলা চালিয়েছে। সোমবার ভোরবেলা সারিয়েরের কুচুক আরমুতলু এবং আতাসেহিরের ১ নম্বর মায়িস এলাকায় পুলিশ যুগপৎ হামলা চালায় ও অনেককে গ্রেফতার করে। এই অপারেশন চলাকালীন দিলেক দোগান(২৫) নামে একজন বিপ্লবী নারীকে আত্মঘাতী বোমা হামলার পরিকল্পনার অভিযোগে গুলি করে হত্যার চেষ্টা করে পুলিশ। পুলিশ তার পরিধেয় কাপড় খুলে ফেলে। তাকে আশংকাজনক অবস্থায় ওকমেদানি স্টাডি ও রিসার্চ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। দিলেক দোগানকে হত্যা চেষ্টার পর হাসপাতালে আগত তার আত্মীয় স্বজনদেরকে হয়রানি করার চেষ্টা করা হয়। দিলেক দোগানের জন্য জরুরী ভিত্তিতে ও নেগেটিভ রক্ত প্রয়োজন।

অনুবাদ সূত্রঃ http://www.nouvelleturquie.com/en/women/istanbul-anti-terrorism-operation-1-revolutionary-slaughtered/


তুরস্কঃ কারারুদ্ধ মাওবাদী কমিউনিস্ট পার্টি(MKP)-র সদস্য Hüseyin Dinçer শহীদ হয়েছেন

মাওবাদী কমরেড Hüseyin Dinç

মাওবাদী কমরেড Hüseyin Dinç

তুরস্কের কান্দিরা কারাগারে দীর্ঘদিন ধরে কারারুদ্ধ মাওবাদী কমিউনিস্ট পার্টি(MKP)-র সদস্য Hüseyin Dinçer, হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে শহীদ হয়েছেন।

তুর্কি সরকারের হত্যার মেশিন বিপ্লবী বন্দী, সমাজতন্ত্রী ও দেশপ্রেমিকদের বিরুদ্ধে তার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।  অসুস্থ বন্দীদের ‘সমাজের বিপদ’ আখ্যা দিয়ে কারাগারে তাদেরকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। সরকারের দমনমূলক রাজনীতির পরিণতি হিসেবে গতকাল এই মাওবাদী শহীদ হয়েছেন।

কারারুদ্ধের এই সময়টিতে তাকে Ümraniye কারাগার থেকে স্থানান্তর করে Tekirdağ কারাগারে, সেখান থেকে Edirne কারাগারে। সর্বশেষে এই মাওবাদী কমরেডকে আঙ্কারার কোচেলিস্থ কান্দিরার F টাইপ কারাগারে স্থানান্তর করা হয়।

গতকাল বিকেল ৪ টার পর এই মাওবাদীর মৃতদেহ কারাগারের মর্গ থেকে আলেভি অঞ্চলে একটি স্মরণ অনুষ্ঠানের পর তার গ্রামের বাড়ীতে দাফনের জন্যে পাঠানো হয়।

সূত্রঃ http://www.nouvelleturquie.com/en/guerilla-en/imprisoned-mkp-member-huseyin-dinc-has-been-martyred/


কমরেড ইব্রাহিম কায়াপাক্কায়াকে নির্যাতন ও হত্যাকারী প্রাক্তন কর্নেলকে শাস্তি প্রদান করল তুরস্কের মাওবাদী কমিউনিস্ট পার্টি (MKP)

 11304510_941276359268590_1472528578_n

n_83618_1

তুরস্ক ও উত্তর কুর্দিস্তান মাওবাদী কমিউনিস্ট পার্টি এক বিবৃতিতে ঘোষণা করেছে, বিপ্লবী নেতা মাহির কাইহান ও তার কমরেডদের এবং ইব্রাহিম কায়াপাক্কায়াকে নির্যাতন ও হত্যাকারী প্রাক্তন কর্নেল ফেহমি আলতিনবিলেককে ৪০ বছর পর ইস্তাম্বুলে গুলি করে শাস্তি প্রদান করেছে তাদের সশস্ত্র নগর শাখা পার্টিজান পিপলস ফোর্সেস (PHG)।

১৮৭২ সালের ২৭শে মার্চ কিজিলদেরেতে বিপ্লবী নেতা মাহির সায়হান ও তার কমরেডদের বিরুদ্ধে অপারেশনের কমান্ডার ছিল ফেহমি আলতিনবিলেক। প্রাক্তন MKP, TKP/ML TIKKO এর বিরুদ্ধে পরিচালিত অপারেশনের কমান্ডারও ছিল সে। এই অপারেশনে TIKKO এর প্রথম কমান্ডার আলি হায়দার ইলদিজ নিহত হন এবং কমিউনিস্ট নেতা ইব্রাহিম কায়াপাক্কায়া জখম হন ও গ্রেফতার হন।

MKP এর বিবৃতিটি বিপ্লবী পত্রিকা HALKIN GNLÜGÜ তে প্রকাশিত হয়েছে।

নিম্নে অংশ বিশেষ তুলে ধরা হলঃ 

  

নির্যাতনকারী প্রাক্তন কর্নেলকে শাস্তি প্রদান করল মাওবাদী কমিউনিস্ট পার্টি (MKP)

ফেহমি আলতিনবেককে শাস্তি প্রদান করল আমাদের পার্টি

ফেহমি আলতিনবেককে শাস্তি দেওয়া হয়েছে কারণ আমাদের নেতা ইব্রাহিম কায়াপক্কায়াকে নির্যাতন ও হত্যা করার পিছনে যারা দায়ী ছিল তাদের মধ্যে সে ছিল একজন। ফ্যাসিবাদী ক্যু দিয়ে আমাদের প্রথম কমান্ডার আলি হায়দার ইলদিজকে হত্যা করার পিছনে ছিল সে। এবং কিজিলদেরে গণহত্যায় মাহির সায়হান ও তার কমরেডদের মৃত্যুর জন্য দায়ী। তার গোটা জীবনটাই নির্যাতন চালানোর কাহিনীতে পূর্ণ। সে ছিল গণশত্রু, অপারেশন গ্ল্যাডিও থেকে উৎপন্ন হওয়া গেরিলা বিরোধী গোপন রাজনৈতিক পুলিশ এজেন্সি JITEM (Gendarmerie Intelligence and Counter-Terrorism) এ তার সক্রিয় ভূমিকা ছিল। তার সমস্ত অপরাধের শাস্তি হিসেবে ৬/৬/২০১৫ তারিখে আমাদের পার্টিজেন পিপলস ফোর্সেস(PHG) ফেহমি আলতিনবিলেককে শাস্তি প্রদান করে।

তার স্ত্রীর মৃত্যু ছিল একটি দুর্ঘটনা

তার স্ত্রীর মৃত্যু ছিল একটি দুর্ঘটনা। সে কখনোই আমাদের লক্ষ্যবস্তু ছিল না, তবে তার মৃত্যুর জন্য আমরা দায়ী এবং আমাদের বিপ্লবী দায়বদ্ধতার কারণে আমরা এই দুর্ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করছি। কিন্তু এই দুর্ঘটনার বিষয়টি নিয়ে আমাদের বিপ্লবী কার্যকলাপকে বিকৃত করা উচিৎ হবে না।

আমরা গণশত্রুর বিরুদ্ধে বিপ্লবী সহিংসতা প্রয়োগ করে যাব

বিপ্লবীদের উপর ফাতিহ আলতিনবেকের নির্যাতনের ঘটনাকে রাষ্ট্র গোপন করে রেখেছে। রাষ্ট্র ফাতিহ আলতিনবেককেও রক্ষা করেছে এবং তাকে ‘সেতিন ওগুজ’ হিসেবে সম্পূর্ণ নতুন একটি পরিচয় প্রদান করেছে। এতকিছুর পরেও রাষ্ট্র তাকে আমাদের হাত থেকে রক্ষা করতে পারেনি। প্রলেতারিয়েতদের সশস্ত্র বাহিনী সকল গণশত্রুর বিরুদ্ধে বিপ্লবী সহিংসতা চালিয়ে যাবে।”

সূত্রঃ

http://www.signalfire.org/2015/06/10/torturer-and-former-colonel-punished-by-the-maoist-communist-party-mkp/


তুরস্কের ইস্তানবুল এবং কোচাইলিতে পুলিশী সন্ত্রাস এবং DHF (গণতান্ত্রিক অধিকার ফেডারেশন) এর ১৮জন বিপ্লবী গ্রেফতার

1

2

3

4

5

গতকাল ২৭ শে মে তুরস্কের ইস্তানবুল এবং কোচাইলিতে পুলিশ এবং সন্ত্রাস বিরোধী অভিযানে DHF (গণতান্ত্রিক অধিকার ফেডারেশন) এর ১৮জন কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়।  গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিদের মাওবাদী কমিউনিস্ট পার্টি (MKP) এর সদস্য হিসেবে ও ১লা মে এবং বেরকিন এল্ভান বিক্ষোভে অংশগ্রহণের জন্যে অভিযুক্ত করা হয়। ৮০০ পুলিশ এবং সন্ত্রাস বিরোধী অভিযানের সদস্যরা বিপ্লবীদের বিরুদ্ধে এই অভিযানে অংশ নেয়।

ইস্তানবুল এবং কোচাইলির ১০ জেলা থেকে কমপক্ষে ১৮ জনকে গ্রেফতার করা হয়। এরা হচ্ছেন- Çağlar Fakir, Sinan Candan, Erdem Taş, Erdal Sönmez,Özge Tanır, Cihan Soyaktaş, Veysel Yıldız, Çağla Göçebe, Halil İbrahim Şeker, Kadir Çelik, Sinem Yaşar, Özgür Han Memiş, İsa Yalçın, Fırat Önal, Eren Sayilgan, Akın Odabaş এবং Taylan Erdogan (কোচাইলি)। এই সময় ল্যাপটপও বাজেয়াপ্ত করে পুলিশ।

পুলিশের তথ্য অনুযায়ী, DHF এর বিরুদ্ধে আরো তল্লাশি চালানো.হবে, বিশেষ করে Senol Akdag, Helin Felekoglu এবং Soner Gündüz এর বিরুদ্ধে।  Ali Yildiz এবং Ceylan Cagir এর বিরুদ্ধেও পুলিসি তদন্ত হয়। কিন্তু তাদের দুই জনকে পুলিশ খুঁজে পায়নি। অভিযানের সময় রাজনৈতিক কর্মীদের থামাতে পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে ব্যারিকেড তৈরি করে, অল্প সময়ের সংঘর্ষের পর পুলিশ ব্যারিকেড ধ্বংস করে দেয়।

আজ এই পুলিশী সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে ইস্তানবুল এবং অন্যান্য শহরে বিক্ষোভ হবে।


ভারতঃ “চলে যাও অথবা মর” -বস্তারের পুলিশদের সতর্ক করে দিল মাওবাদীরা

police_2388621f

কনস্টেবলকে অপহরণ ও খতমের দায়িত্ব স্বীকার করল মাওবাদীরা

ছত্তিসগড়ের বস্তার অঞ্চলের নিম্নস্তরের পুলিশদের চাকরী ছেড়ে দেয়ার অথবা “পিএলজিএ (People’s Liberation Guerrilla Army) এর গেরিলাদের হাতে মৃত্যুর” হুমকি দিয়েছে সিপিআই (মাওবাদী)।

মাওবাদীদের পশ্চিম বস্তার বিভাগীয় কমিটির সেক্রেটারি মাধভী এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানান,  অপহরণকৃত কনস্টেবল বীরা বসন্তকে হত্যার দায় স্বীকার করেছে মাওবাদীরা । ৭ই এপ্রিল তাকে অপহরণ করা হয় ও দুই সপ্তাহ পর বিজাপুর জেলায় তাকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। নিরস্ত্র বীরা তার পরিবারের সাথে সাক্ষাৎ করতে গ্রামে যাচ্ছিলেন। কনস্টেবল বীরার অপহরণ বিজাপুরের স্থানীয় অধিবাসী ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের “নীরব প্রতিবাদের” দিকে ঠেলে দিয়েছে। তার মুক্তির জন্য স্কুলের বাচ্চারা প্রতিবাদ র‍্যালীর আয়োজন করেছে।

বীরার মৃত্যুর জন্য রাজ্য সরকার ও বিজাপুর পুলিশকে দায়ী করে মাওবাদী নেতা দাবী করেছেন, তার মুক্তির জন্য জেলা পুলিশ কোনরকম সংলাপে বসেনি। “তার বদলে, আমাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ র‍্যালি আয়োজন করার জন্য পুলিশ স্থানীয় অধিবাসী ও স্কুলের বাচ্চাদেরকে চাপ দেয়। আমাদের পার্টির নীতিমালায় নিরস্ত্র পুলিশদের হত্যা করার কোন বিধান নেই। আমরা অনেক জওয়ানকে মুক্তি দিয়েছি যারা নিরস্ত্র ছিল। তবে আমরা তাদের ছেড়ে দিতে পারিনা যারা জেনেশুনে জনগণের উপর নিষ্ঠুরতা চালায়। মাধভী বলেন, বীরা ছিল সেই ধরনের একজন পুলিশ”।

তিনি আরো বলেন, “সে ১০ বছরের বেশি সময় ধরে গণ আন্দোলনের বিরুদ্ধে কাজ করে আসছিল এবং অসংখ্য সাজানো এনকাউন্টার ও বিজাপুরের আদিবাসীদের গ্রামে হামলার নেতৃত্বে সে ছিল। সে গ্রামবাসীদের থেকে অর্থও আদায় করত”।

“বীরা তার পরিবারের সাথে সাক্ষাৎ করতে গ্রামে যাচ্ছিল”- পুলিশের এ দাবীকেও অস্বীকার করেছেন মাওবাদী নেতা। মাধভীর দাবী, “সে আওয়াপল্লী এলাকায় আমাদের বিরুদ্ধে তথ্য সংগ্রহ করে বিজাপুরের এসপির অফিসের দিকে যাচ্ছিল। সে জানত সে কী করছিল এবং তার মত একজন গণশত্রুকে ছেড়ে দেয়া আমাদের পক্ষে অসম্ভব ছিল”।

মাওবাদী নেতা সতর্ক করে দিয়ে জানান, “বিরার এই খতম বস্তারের সকল নিম্নস্তরের পুলিশদের প্রতি একটি সতর্কতা হিসেবে কাজ করবে। কর্পোরেটদের জন্য যুদ্ধ করা বন্ধ কর, -যারা আদিবাসী ভূমি দখল করার জন্য এখানে এসেছে। পুলিশের চাকরী বাদ দিয়ে অন্য কোন চাকরী যোগাড় কর যদি বস্তারে থাকতে চাও। তা না হলে PLGA এর হাতে মৃত্যুর জন্য তৈরী হও”।

সূত্রঃ http://www.thehindu.com/news/national/other-states/quit-or-die-maoists-warn-policemen-in-bastar/article7151053.ece