ফ্যাসিস্ট তুর্কি সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে মাওবাদীদের সাঁড়াশি আক্রমণ, খতম ৩ সেনা, আহত বেশকিছু

12ler_alibogazi_1

গত ১লা জুন তুরস্কের কৃষক ও শ্রমিকদের কমিউনিস্ট গেরিলা সেনাবাহিনী(TIKKO) ফ্যাসিবাদী তুর্কি সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে দুটি হামলা চালায়। এতে তিন জন শত্রু সৈন্যকে খতম করা হয় এবং আনুমানিক অনেক সৈন্যকে আহত করা হয়, যার সংখ্যা স্পষ্ট করা যায় নি। আলিবাগাজী ও বোজান এলাকায় এই হামলা হয়।

এই হামলাটি, গত ২৪ এবং ২৮শে নভেম্বর, ২০১৬ এর মধ্যে দারসিম অঞ্চলে ফ্যাসিস্ট তুরস্ক সেনাবাহিনী কর্তৃক হত্যাকৃত TKP / ML-TIKKO এর ১২ জন শহীদ গেরিলার প্রতি উতসর্গ করা হয়েছে।

 তুরস্কের কৃষক ও শ্রমিকদের কমিউনিস্ট গেরিলা সেনাবাহিনী(TIKKO) হচ্ছে তুরস্কের কমিউনিস্ট পার্টি TKP / ML এর সশস্ত্র শাখা।

সূত্রঃ http://kaypakkayahaber.com/haber/tkpml-tikko-dersim-bolge-komutanligindan-1


তুরস্কঃ (ভিডিও) শহীদ মাওবাদী TIKKO গেরিলাদের প্রতি সম্মান জানাতে রোজাভায় অনুষ্ঠান

শহীদ মাওবাদী TIKKO গেরিলাদের প্রতি সম্মান জানাতে রোজাভায় রাকা ফ্রন্টের কেন্দ্রস্থলে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে আন্তর্জাতিক মুক্তি ব্যাটেলিয়ন। দারসিম পর্বতাঞ্চলে তুরস্কের ফ্যাসিবাদী রাষ্ট্রের হামলায় কর্তৃক এই সব মাওবাদী TIKKO গেরিলারা শহীদ হন।

tkpmltikko

সূত্রঃ http://www.redspark.nu/en/peoples-war/turkey/video-ceremony-in-rojava-to-honor-the-memory-of-martyred-tikko-guerillas/


ইস্তাম্বুলে মাওবাদীদের সশস্ত্র পদক্ষেপের সংবাদ

4

গত ১৪ই নভেম্বর তুরস্কের ইস্তাম্বুলের এসেন্যুরত জেলার কিরকুকে মাওবাদী TIKKO (তুরস্কের শ্রমিক ও কৃষকদের মুক্তি সেনা)  একটি সশস্ত্র অভিযান চালায়।

২০০৪ সালের ৯ই নভেম্বরে দারসিমে শহীদ কমরেড Aşkın Günel এবং Cafer Kara এর স্মরণে এই সশস্ত্র অ্যাকশন চালানো হয়। এসময় জেলা পুলিশের সদর দপ্তরে ভারী অস্ত্র দিয়ে গুলি চালানো হয়।

এই সশস্ত্র অবস্থান থেকে TIKKO পক্ষ থেকে ঘোষণা করা হয় যে, তারা “শান্ত থাকবে না এবং নিপীড়িত কুর্দি জনগণের ওপর ফ্যাসিস্ট আক্রমণকারীদের বিশ্রাম নিতে দেবে না”।

ইতিমধ্যে গত ২৯শে অক্টোবর মাওবাদীরা পেন্দিক জেলার আয়দোসেও একটি সশস্ত্র পদক্ষেপ চালায়।

এসময় পেট্রোল বোমা এবং ভারী অস্ত্র দ্বারা সুরক্ষিত একটি সশস্ত্র বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। ২০১৫ সালের ২২শে অক্টোবরে শহীদ কমরেডদের স্মরণে অনুষ্ঠিত এই সমাবেশটি “টিকেপি / এমএল (তুরস্কের কমিউনিস্ট পার্টি / মার্কসবাদী-লেনিনবাদী) কর্তৃক সংগঠিত এবং প্রসারিত গণযুদ্ধ” এর অংশ হিসেবে পরিচালিত হয়।

উল্লেখ্য যে,  TIKKO  হচ্ছে  তুরস্কের কমিউনিস্ট পার্টি / মার্কসবাদী-লেনিনবাদী এর সামরিক শাখা।

3

2

1

সূত্রঃ http://www.demvolkedienen.org/index.php/de/asien/1110-bewaffnete-aktionen-in-istanbul


তুরস্কের মাওবাদীরা ক্ষমতাসীন AKP সরকারের পার্টি অফিস পুড়িয়ে দিয়েছে

1

এরদোগানের ফ্যাসিস্ট রাষ্ট্র এবং তার দল AKP-র বিরুদ্ধে তুরস্কের কমিউনিস্ট পার্টি(মাওবাদী)’র সশস্ত্র শাখা TIKKO এর চলমান যুদ্ধের অংশ হিসেবে মাওবাদীরা গত ১০ই ফেব্রুয়ারি রাত ১২.৩০ মিনিটে ইস্তাম্বুলে AKP পার্টির অফিস ভবন পুড়িয়ে দিয়েছে। কুর্দি জনগণের উপর তুর্কি সরকারের চলমান গনহত্যা, বিশেষ করে সিজরে তুর্কি পুলিশ কর্তৃক ৬০ জন কুর্দি জনগণকে হত্যার প্রতিবাদে এই অগ্নিসংযোগের হামলাটি চালানো হয়েছে। এদিকে গত কিছুদিন ধরেই ইস্তাম্বুলের রাস্তায় পুলিশের সাথে মাওবাদীদের সংঘর্ষ চলছে।

2

হামলার উদ্দেশ্য ও কারণ সম্পর্কে মাওবাদীরা স্প্যানিশ ভাষায় বিবৃতি প্রকাশ করেছে। বিবৃতিতে মাওবাদীরা বলেন, “আমরা কুর্দি জনগণকে লক্ষ্যবস্তু করে চালানো সকল হামলার বিরুদ্ধে শক্তিশালী প্রতিরোধ গড়ে তুলব, আমরা এই বিষয় নিয়ে নীরব থাকব না। কায়পাক্কায়া’র উত্তরাধিকারী হিসেবে, আমরা কুর্দি জনগণের ওপর হামলার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ জোরদার করব এবং ফ্যাসিস্ট AKP শক্তির প্রতিনিধিত্বমূলক সব লক্ষ্যবস্তুতে হামলা চালাতে থাকবে!”।

3

উল্লেখ্য যে, তুরস্কের দমনবাদী ফ্যাসিস্ট সরকারী বাহিনী পেন্দিক জেলায় প্রবেশ করে জনগনের উপর নির্যাতন চালায় এবং অনেককেই তাদের হেফাজতে নিয়েছে। এসময় সরকারী কয়েক ডজন সাঁজোয়া গাড়ি ও  বিশেষ বাহিনীর শত শত সদস্য এলাকায় একযোগে হামলা চালায় এবং প্রকাশ্য স্থানে তল্লাশি চালিয়ে জনগণকে জেরা এবং ভয় দেখাতে চেষ্টা করে।

অনুবাদ সূত্রঃ http://www.ozgurgelecek.org/manset-haberler/18958-tkko-militanlar-kuerdistan-icin-akp-binasn-atee-verdi.html


TIKKO কারা ? তুরস্কের গণযুদ্ধ


২০১১ সালে তুরস্কের দারসিমে শহীদ ৫ মাওবাদী নারী গেরিলা

 

tkp-ml-tikko

তুরস্কের কমিউনিস্ট পার্টির(TKP/ML) সামরিক শাখা(TIKKO)’র দারশিম অঞ্চলের ৫জন মাওবাদী নারী গেরিলা কমরেড ২রা ফেব্রুয়ারি ২০১১ সালে ভোর ৫ টায় শীতকালীন ক্যাম্পে তুষার ধ্বসে শহীদ হন। তুরস্কের গণযুদ্ধের অংশ এই সব শহীদ নারী কমরেডদের স্মরণে তাদের পার্টি পরিচিতি দেয়া হল –

10269272_703277903065595_3264533733652719853_o

শেফাগূল কেশজীনঃ কোড নাম, এয়লেম; ১৯৭৭ সালে এরজূরুমে জন্মগ্রহণ করেন। ২০০৭ সালে তিনি গেরিলা সংগ্রামে যুক্ত হন। তিনি ছিলেন দারশিম অঞ্চলের রাজনৈতিক( পলিটিকাল লেফটেন্যান্ট) কর্মী।

কমরেড শেফাগূল কেশজীন

কমরেড শেফাগূল কেশজীনঃ কোড নাম, এয়লেম; ১৯৭৭ সালে এরজূরুমে জন্মগ্রহণ করেন। ২০০৭ সালে তিনি গেরিলা সংগ্রামে যুক্ত হন। তিনি ছিলেন দারশিম অঞ্চলের রাজনৈতিক (পলিটিকাল লেফটেন্যান্ট) কর্মী।

 

কমরেড নূরশেন আসলান

কমরেড নূরশেন আসলান

কমরেড নূরশেন আসলানঃ কোড নাম, এমেল; ১৯৮১ সালে টোকাতে(কৃষ্ণ সাগর) জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৯৯ সালে গেরিলা সংগ্রামে যুক্ত হন। তিনি ছিলেন TKP/ML এর অগ্রগামী সহানুভূতিশীল। একই সাথে দারশিম অঞ্চলের কমান্ডার হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন। 

কমরেড গুলজার ওযকান

কমরেড গুলজার ওযকান

কমরেড গুলজার ওযকানঃ কোড নাম, ওযলেম; ১৯৬৭ সালে দারশিমে জন্মগ্রহণ করেন। ২০০৫ সালে গেরিলা সংগ্রামে যুক্ত হন। তিনি ছিলেন TKP/ML এর অগ্রগামী সহানুভূতিশীল। একই সাথে TIKKO  কমান্ডার হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন। 

 

কমরেড ফাতেমা একার

কমরেড ফাতেমা একার

কমরেড ফাতেমা একারঃ কোড নাম, দিলেক; ১৯৮৩ সালে মারশিনে জন্মগ্রহণ করেন। ২০০৬ সালে গেরিলা সংগ্রামে যুক্ত হন। তিনি ছিলেন TKP/ML এর অগ্রগামী সহানুভূতিশীল। একই সাথে TIKKO  কমান্ডার হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন। 

 

কমরেড দেরিয়া এরাস

কমরেড দেরিয়া এরাস

কমরেড দেরিয়া এরাসঃ কোড নাম, শেভদা; ১৯৭৯ সালে এরজিনকানে জন্মগ্রহণ করেন এবং ২০০৯ সালে গেরিলা সংগ্রামে যুক্ত হন। তিনি ছিলেন TKP/ML এর অগ্রগামী সহানুভূতিশীল এবং TIKKO যোদ্ধা ছিলেন। 

সূত্রঃ https://revolutionaryfrontlines.wordpress.com/2011/04/26/turkey-five-tkpml-tikko-women-guerillas-killed-in-avalanche/

 


তুরস্কঃ বামপন্থীদের হত্যার প্রতিবাদে আইএসকে সহায়তাকারী ২ তুর্কি পুলিশকে খতম করল কুর্দিস্তান ওয়ার্কার্স পার্টি (PKK- পিকেকে)

২ পুলিশের লাশ উদ্ধারের পরে তুরস্কের নিরাপত্তা বাহিনীর তৎপরতা

২ পুলিশের লাশ উদ্ধারের পরে তুরস্কের নিরাপত্তা বাহিনীর তৎপরতা

সিরিয়া সীমান্তের কাছে তুরস্কের দুই পুলিশকে খতম করা হয়েছে। তুরস্ক সরকারের সহায়তায় আই এসের আত্মঘাতী বোমা হামলায় ৩১জন বামপন্থীদের হত্যার ও শতাধিক আহতের প্রতিবাদে খতমের এ ঘটনার দায়িত্ব স্বীকার করেছে দেশটির স্বাধীনতাকামী সংগঠন কুর্দিস্তান ওয়ার্কার্স পার্টি বা পিকেকে।

এর আগে, তুরস্কের নিরাপত্তা বাহিনী দেশের দক্ষিণাঞ্চলীয় সানলিউরফা প্রদেশের একটি শহর থেকে দুই পুলিশের মৃতদেহ উদ্ধার করে। প্রাদেশিক গভর্নর ইজ্জেদিন কুচাক জানান, নিহত দুই পুলিশের মাথায় গানশটের গুলির চিহ্ন রয়েছে। তিনি বলেন, দুই পুলিশ নিহতের ঘটনার সঙ্গে সন্ত্রাসীদের কোনো সম্পর্ক রয়েছে কিনা তা এখনো নিশ্চিত নয়।

নিহত দু জনের একজন ছিলেন তুরস্কের সন্ত্রাসবিরোধী পুলিশ বিভাগের সদস্য; অন্যজন দাঙ্গা পুলিশ হিসেবে কাজ করছিলেন।

তুরস্কের সানলিরউফা প্রদেশের সুরাক শহরে, কোবানিতে আটকে থাকা বেসামরিক লোকজনের জন্য ত্রাণ সহযোগিতা নিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি নেওয়া বামপন্থীদের প্রায় ৩শ’ তরুণ একটি আলোচনা অনুষ্ঠানে ‘আমারা সংস্কৃতি কেন্দ্রে‘ সোস্যালিস্ট ইয়ুথ অ্যাসোসিয়েশন ফেডারেশনের সমাবেশে ভয়াবহ বোমা বিস্ফোরণে অন্তত ৩২ জন নিহত ও প্রায় ১০০ মানুষ আহত হওয়ার দু দিন পর পুলিশ নিহত হওয়ার ঘটনা ঘটলো। উগ্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আইএআইএল ওই সমাবেশে হামলার দায়িত্ব স্বীকার করেছে।

এদিকে পিপলস ডিফেন্স ফোর্স(HPG) এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, এই দুই পুলিশ অফিসার আইএস জঙ্গিদের সহায়তা করছিল। আজ ভোর ৬টায় তাদের খতম করা হয়েছে।

তুরস্কের মাওবাদী ও বামপন্থী কুর্দিরা অভিযোগ করে আসছিল যে, তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েপ এরদোয়ানের সরকার আইএস জঙ্গিদের মদদ দিচ্ছে এবং উক্ত সমাবেশে হামলার ঘটনার সাথে তুরস্ক সরকার জড়িত। মাওবাদীরা ওই হামলার পর থেকেই তুরস্ক রাষ্ট্রের পুলিশ বাহিনীর উপর হামলা শুরু করেছে, এরই ধারাবাহিকতায় পিকেকে ২ পুলিশকে খতম করে।

সূত্রঃ http://www.telegraph.co.uk/news/worldnews/europe/turkey/11755018/Two-Turkish-police-officers-killed-close-to-Syria-border.html